RESIST FASCIST TERROR IN WB BY TMC-MAOIST-POLICE-MEDIA NEXUS

(CLICK ON CAPTION/LINK/POSTING BELOW TO ENLARGE & READ)

Friday, March 24, 2017

এ এক অসহনীয় পরিবেশ ***************************এ এক অসহনীয় অবস্থা চলছে এই রাজ্যে। একদিকে এলাকায় এলাকায় সশস্ত্র মস্তানবাহিনী অন্যদিকে পুলিশ প্রশাসন, এই যৌথআক্রমণে রাজ্যের মানুষের পিঠ আজ দেওয়ালে ঠেকে গিয়েছে। সম্পূর্ণ গণতান্ত্রিক পথে রাজ্যের ছাত্র ও যুবকরা চাকুরির দাবিতে এবং ‘টেট দুর্নীতির’ প্রতিবাদে মিছিল করায় রাজ্যের বীরপুঙ্গব পুলিশ শতাধিক ছাত্র ও যুবককে গ্রেপ্তার করে। এরকম ঘটনা পশ্চিমবঙ্গে নতুন কিছু নয়। অতীতে এই জাতীয় ঘটনায় অধিকাংশ ক্ষেত্রে সামান্য মুচালেকা দিয়ে অথবা ব্যক্তিগত জামিনে ধৃতদের ছেড়ে দেওয়া হতো। কিন্ত এরাজ্যে তো চলছে স্বেচ্ছাচারিণীর নেতৃত্বে দলদাস এক আজব পুলিশ প্রশাসন। এখানে নেত্রীর ভৈরববাহিনীর ভয়ে পুলিশ টেবিলের নিচে আশ্রয় নেয় বা আতঙ্কে কেঁদে ফেলে কিন্তু নিরীহ আন্দোলনকারীদের কাছে এরা হয়ে ওঠে প্রবল পরাক্রমশালী। তাই নির্লজ্জের মতো ধৃত ছাত্রযুবদের মধ্যে বেছে বেছে নেতৃস্থানীয় কয়েকজনকে ‘ওয়েস্ট বেঙ্গল মেইনটেনেন্স অব পাবলিক অর্ডার’ আইনে জামিন অযোগ্য ধারায় কেস দিয়ে আদালতের নির্দেশে জেলে আটকে রাখে। অথচ অদ্ভুত ব্যাপার, আগের দিন রাতে পুলিশ প্রত্যেককে ‘বেল বন্ড’ দিয়ে ছেড়ে দিতে চেয়েছিল কিন্তু ধৃতদের মধ্যে কেউ তাতে রাজি হয়নি। আর এটাই সম্ভবত পুলিশমন্ত্রীর দম্ভে আঘাত লেগেছে। তাই আগের দিন রাতে যারা ‘বেল বন্ডের’ মাধ্যমে মুক্তি পাওয়ার অধিকারী ছিল, পরের দিন তাদের মধ্যে নেতৃস্থানীয় আটজন জামিন অযোগ্য ধারায় অভিযুক্ত হয়ে গেল। কি তাদের অপরাধ? কোন উপযুক্ত তথ্য প্রমাণ ছাড়াই বলা হলো তারা নাকি সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করেছে। এই ঘটনাতেই প্রমাণ হয় কতটা ভয়ংকর এবং প্রতিহিংসা পরায়ণ এই রাজ্যের পুলিশমন্ত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী এবং তার অপদার্থ পুলিশ। পুলিশ এবং প্রশাসনেরই ঘৃণ্য এবং বর্বরোচিত আচরণ এরাজ্যে অনবরত ঘটে চলেছে। গণতান্ত্রিক ও ন্যায়সঙ্গত আন্দোলনকে এই সরকার যদি শুধুমাত্র প্রশাসনিক ক্ষমতা এবং পেশিশক্তির দম্ভে দিনের পর দিন এইভাবে দমন পীড়ন এবং মিথ্যা মামলার মাধ্যমে দাবিয়ে রাখতে থাকে তবে অগণতান্ত্রিক পথকেই বিকল্প হিসাবে বেছে নেওয়া ছাড়া সাধারণ মানুষের হয়তো আর কোন পথ থাকবে না। সেটা অবশ্যই রাজ্যের পক্ষে মঙ্গলের হবে না। রাখু চক্রবর্তী। সাপুইপাড়া। হাওড়া।

গণশক্তি



No comments: