RESIST FASCIST TERROR IN WB BY TMC-MAOIST-POLICE-MEDIA NEXUS

(CLICK ON CAPTION/LINK/POSTING BELOW TO ENLARGE & READ)

Thursday, February 16, 2017

প্রশ্নটা অবশ্যই গণতন্ত্রের। ক্যাম্পাসে ছাত্রদের মতপ্রকাশ, ভোটাধিকার, নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার অধিকার কেড়ে নেওয়াটাই শাসকের লক্ষ্য। ২০১৩ সালেও ছাত্রসংসদ নির্বাচনে স্থগিতাদেশ জারি করেছিল রাজ্য সরকার। আর তারপরই উচ্চশিক্ষা সংসদ বাজারে নামিয়েছিল। ‘The West Bengal Education Institution Election Bill 2013’-র খসড়া। যাতে ছিল ছাত্রসংসদ ভেঙে দেওয়ার প্রস্তাব। ক্যাম্পাসে ছাত্রদের রাজনৈতিক কার্যকলাপের নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাব। এস এফ আই-র আন্দোলনে সে খসড়া বিল বাতিল হয়েছিল। কিন্তু ২০১৬ সালে সরকার আবারও একই পদ্ধতিতে স্থগিতাদেশ জারি করেছিল ছাত্রসংসদ নির্বাচনের ওপর। আর তারপর আবার একটা বিল। ২০১৬-র ডিসেম্বরেই নয়া বিশ্ববিদ্যালয় বিল এনেছিল সরকার। যা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদের রাজনৈতিক কার্যক্রমের পাশাপাশি শিক্ষকদের রাজনৈতিক মত প্রকাশেও নিষেধাজ্ঞা জারির প্রস্তাব করছে। এস এফ আই-র রাজ্যব্যাপী আন্দোলনের ফলেই ডিসেম্বরে ‘আপাতত স্থগিত’ হয়েছিল এই বিল। পাশ হয়নি বিধানসভায়। অবশ্য ইতিমধ্যে খবরে প্রকাশ, বাজেট অধিবেশনেই বিলটি আবার উত্থাপিত হবে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর স্বাধিকার কেড়ে নেওয়ার বিলটি।

No comments: