RESIST FASCIST TERROR IN WB BY TMC-MAOIST-POLICE-MEDIA NEXUS

(CLICK ON CAPTION/LINK/POSTING BELOW TO ENLARGE & READ)

Sunday, February 19, 2017

The West Bengal Maintenance of Public Order (Amendment) Bill 2017 "অপরাধী হিসাবে চিহ্নিত করা যাবে যে কাউকেই। অপরাধ করলে অথবা প্ররোচনা দিলে, সাহায্য করলে, অপরাধীকে ধরতে সাহায্য না করলে অথবা তথ্য গোপন করলে — যাই হোক না কেন!‌ শুধু রাজ্য সরকার সন্তুষ্ট হলেই হবে। যে কোনো এলাকার সমগ্র অধিবাসীবৃন্দই। Inhabitants of any area। কলকাতার কোনো একটি ওয়ার্ড এলাকার ঘটনার ওয়ার্ডের সমগ্র অধিবাসী, নাকি সমগ্র কলকাতার সমগ্র অধিবাসী? গ্রামাঞ্চলের কোনো ঘটনায় সেই বুথ এলাকা, পঞ্চায়েত এলাকা,নাকি সমগ্র থানা এলাকা রাজ্য সরকার সন্তুষ্ট হলেই হবে। এবং কোর্ট না, রাজ্য সরকার সবার উপরই যৌথ ক্ষতিপূরণ, Collective compensation, চাপিয়ে দিতে পারবে এবং প্রত্যেককেই সেই ক্ষতিপূরণের ভাগীদার হিসাবে দায় অথবা শাস্তি চাপিয়ে দেবে। বিপজ্জনক। রাজ্য সরকার এই সংশোধনী বিলের মধ্য দিয়ে নিজের হাতে ক্ষমতা নিল, যাতে দল-মত-জাতি-ধর্ম-নির্বিশেষে প্রত্যেকটি অধিবাসীকেই অপরাধী চিহ্নিত করে যৌথ ক্ষতিপূরণের নামে শাস্তি দিতে পারে। ভূভারতে কেউ কখনো এরকম শোনেনি। এতে মানুষের অধিকার, সাংবিধানিক অধিকারই বস্তুত খর্ব হচ্ছে। যে কারোরই। এমনকি যেকোনো প্রতিবাদীরই। যে কোনো ধরনের একটা শান্তিপূর্ণ মিছিল বা সমাবেশের মধ্যে গুটিকতক প্ররোচনা সৃষ্টিকারীকে ঢুকিয়ে দিয়ে কিছু ক্ষতির ব্যবস্থা শাসকদল তথা সরকারই পরিকল্পিতভাবে, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে করতে পারে। তার দায় সমাবেশে উপস্থিত এক লক্ষ শান্তিপূর্ণ মানুষের অথবা সেই সুবাদে যে কোন মানুষের উপরেই চাপিয়ে দেওয়া যায়। বিরোধী কণ্ঠ, প্রতিবাদী কণ্ঠকে টুঁটি চেপে ধরার পূর্ণ আইনি ক্ষমতা। শাসকদলের মধ্যেকার বিরোধী কণ্ঠকেও পিষে মারার অধিকার সরকারের হাতে। বস্তুত যে কোন মানুষকেই সমাজবিরোধী বা অপরাধী চিহ্নিত করার ব্যবস্থা। বস্তুত রাজ্যটাকে কারাগারে পরিণত করার এই প্রচেষ্টা।" -সুজন চক্রবর্তী

No comments: