RESIST FASCIST TERROR IN WB BY TMC-MAOIST-POLICE-MEDIA NEXUS

(CLICK ON CAPTION/LINK/POSTING BELOW TO ENLARGE & READ)

Tuesday, June 30, 2015

তৃণমূল বিধায়কের রোষ, রেজিস্ট্রেশন বাতিলের সম্ভাবনা বাঙুরের প্রাক্তন অধিকর্তার - ABP Ananda

তৃণমূল বিধায়কের রোষ, রেজিস্ট্রেশন বাতিলের সম্ভাবনা বাঙুরের প্রাক্তন অধিকর্তার - ABP Ananda



এনআরএস হাসপাতালে ছাত্রীর শ্লীলতাহানি, অভিযুক্ত টিএমসিপি - ABP Ananda

এনআরএস হাসপাতালে ছাত্রীর শ্লীলতাহানি, অভিযুক্ত টিএমসিপি - ABP Ananda



Three dangerous faces of the NDA government

Three dangerous faces of the NDA government



'Lalitgate': PM Modi has to choose between politics and governance

'Lalitgate': PM Modi has to choose between politics and governance



The Rs 96k shares Lalit Modi bought and Rs 10 shares Raje got

The Rs 96k shares Lalit Modi bought and Rs 10 shares Raje got



Analysis: Why there's no easy way out for BJP in Raje controversy

Analysis: Why there's no easy way out for BJP in Raje controversy



The end of fascism: A momentous event some wish to forget

The end of fascism: A momentous event some wish to forget



Coal scam: CBI documents to be scrutinized after complaints of inconsistencies - Livemint

Coal scam: CBI documents to be scrutinized after complaints of inconsistencies - Livemint



Dushyant, Hemant or Modi: Who really owns the iconic Dholpur palace? - Firstpost

Dushyant, Hemant or Modi: Who really owns the iconic Dholpur palace? - Firstpost



Centre not serious on 1984 anti-Sikh riots case: AAP - Firstpost

Centre not serious on 1984 anti-Sikh riots case: AAP - Firstpost



CPI(M) to launch nationwide 'Jan Andolan' protest against Modi govt's policies - Firstpost

CPI(M) to launch nationwide 'Jan Andolan' protest against Modi govt's policies - Firstpost



Yoga Day organised by Modi govt to promote Hindutva agenda: Sitaram Yechury - Firstpost

Yoga Day organised by Modi govt to promote Hindutva agenda: Sitaram Yechury - Firstpost



First Munde, now Tawde: Maharashtra minister in trouble for alleged contract mismanagement - Firstpost

First Munde, now Tawde: Maharashtra minister in trouble for alleged contract mismanagement - Firstpost



Another Maharashtra minister faces scam allegations, says no truth in charges - IBNLive

Another Maharashtra minister faces scam allegations, says no truth in charges - IBNLive



Controversies, internal rift, Modi's silence: all is not well within BJP - IBNLive

Controversies, internal rift, Modi's silence: all is not well within BJP - IBNLive



Centre issues circular to all ministries asking them to be cautious to prevent leakage of sensitive documents - IBNLive

Centre issues circular to all ministries asking them to be cautious to prevent leakage of sensitive documents - IBNLive



Maharashtra MLA Pankaja Munde accused of awarding contract to build dam to private company without tender - IBNLive

Maharashtra MLA Pankaja Munde accused of awarding contract to build dam to private company without tender - IBNLive



No plan to scrap Section 377, was misquoted by media: Law Minister

Politics News: Latest Politics News | Politics Live News Online - IBNLive



Sushma Swaraj, Vasundhara Raje should quit: RSS ideologue Govindacharya - IBNLive

Sushma Swaraj, Vasundhara Raje should quit: RSS ideologue Govindacharya - IBNLive



I never said Section 377 should be scrapped, says Law Minister Sadananda Gowda | Latest News & Updates at Daily News & Analysis

I never said Section 377 should be scrapped, says Law Minister Sadananda Gowda | Latest News & Updates at Daily News & Analysis



World economy may be slipping into 1930s Great Depression problems: RBI's Raghuram Rajan - The Economic Times

World economy may be slipping into 1930s Great Depression problems: RBI's Raghuram Rajan - The Economic Times



Narendra Modi, Mamata Banerjee truce stops BJP, Trinamool Congress mud-slinging - The Economic Times

Narendra Modi, Mamata Banerjee truce stops BJP, Trinamool Congress mud-slinging - The Economic Times



Allegations of irregularities in contract against another Maharashtra minister - The Economic Times

Allegations of irregularities in contract against another Maharashtra minister - The Economic Times



Monday, June 29, 2015

e Director of the Indian Statistical Institute is removed at the fag end of his term for “indiscipline”. By SUHRID SANKAR CHATTOPADHYAY

Unceremonious exit | Frontline



TMC suspends 2 MLAs close to Mukul Roy - The Hindu

TMC suspends 2 MLAs close to Mukul Roy - The Hindu



Mamata orders probe into ITI paper leak - The Hindu

Mamata orders probe into ITI paper leak - The Hindu



Student interrogated for dog's photo on his admit card

fullstory



Modi's Land Bill unlikely in Monsoon Session, Congress members on Parliamentary panel seek 'extension' - IBNLive

Modi's Land Bill unlikely in Monsoon Session, Congress members on Parliamentary panel seek 'extension' - IBNLive



Probe into Vyapam scam uncovers yet another mysterious death, 44 dead so far - IBNLive

Probe into Vyapam scam uncovers yet another mysterious death, 44 dead so far - IBNLive



Over 40 dead in 2 years: Mysterious deaths in Vyapam case gives a sinister edge to the scam - Firstpost

Over 40 dead in 2 years: Mysterious deaths in Vyapam case gives a sinister edge to the scam - Firstpost



25 deaths in Vyapam scam: Is Shivraj Chouhan's Madhya Pradesh govt getting away with murder? - Firstpost

25 deaths in Vyapam scam: Is Shivraj Chouhan's Madhya Pradesh govt getting away with murder? - Firstpost



Govt pushes for International Kamasutra Day, declares Sunny Leone as Brand Ambassador | My Faking News

Govt pushes for International Kamasutra Day, declares Sunny Leone as Brand Ambassador | My Faking News



Political parties request Lalit Modi to stop naming more politicians on humanitarian grounds | Faking News

Political parties request Lalit Modi to stop naming more politicians on humanitarian grounds | Faking News



All noise, no point: Here's why Congress attack on BJP over Lalit Modi is aimless - Firstpost

All noise, no point: Here's why Congress attack on BJP over Lalit Modi is aimless - Firstpost



Dog's photo on ITI entrance admit card - Oneindia

Dog's photo on ITI entrance admit card - Oneindia



Reign of terror: Why mafiadom rules from Yadav's UP to Mamata's Bengal - Firstpost

Reign of terror: Why mafiadom rules from Yadav's UP to Mamata's Bengal - Firstpost



Lalit Modi, Raje converted govt property to their assets: Cong

Lalit Modi, Raje converted govt property to their assets: Cong



In Bengal, a dog's photo on 18-year-old boy's ITI test admit card

In Bengal, a dog's photo on 18-year-old boy's ITI test admit card



24 mysterious deaths, 2000 arrests: All about MP's Vyapam scam

24 mysterious deaths, 2000 arrests: All about MP's Vyapam scam



Drinking is a fundamental right, says MP minister Babulal Gaur

Drinking is a fundamental right, says MP minister Babulal Gaur



Mann Ki Baat: Nobody interested in it, speak on Lalit Modi, Opposition tells PM | The Indian Express

Mann Ki Baat: Nobody interested in it, speak on Lalit Modi, Opposition tells PM | The Indian Express



Mann ki Baat: Opposition asks PM why no Lalit Modi ki baat | The Indian Express

Mann ki Baat: Opposition asks PM why no Lalit Modi ki baat | The Indian Express



Vasundhara Raje illegally occupying Dholpur Palace, says Congress; BJP rubbishes charges | The Indian Express

Vasundhara Raje illegally occupying Dholpur Palace, says Congress; BJP rubbishes charges | The Indian Express



Poll affidvait: Vasundhara Raje’s son Dushyant Singh made no mention of loans from Lalit Modi | The Indian Express

Poll affidvait: Vasundhara Raje’s son Dushyant Singh made no mention of loans from Lalit Modi | The Indian Express



Sunday, June 28, 2015

Emergency: Jayaprakash Narayan's rare letters to Indira Gandhi when he was being treated in confinement - The Economic Times

Emergency: Jayaprakash Narayan's rare letters to Indira Gandhi when he was being treated in confinement - The Economic Times



Lalit Modi invested Rs 11.63 crore in CM Vasundhra Raje's son's company - timesofindia-economictimes

Lalit Modi invested Rs 11.63 crore in CM Vasundhra Raje's son's company - timesofindia-economictimes



Business connections between Vasundhara Raje’s son Dushyant Singh and Lalit Modi to come under ED lens - timesofindia-economictimes

Business connections between Vasundhara Raje’s son Dushyant Singh and Lalit Modi to come under ED lens - timesofindia-economictimes



Sushma, Smriti, Raje: BJP's women are canny politicians, not weepy 'abla naaris' - Firstpost

Sushma, Smriti, Raje: BJP's women are canny politicians, not weepy 'abla naaris' - Firstpost



Defending 'victim' Lalit Modi: The BJP is rallying around LaMo to protect its own - Firstpost

Defending 'victim' Lalit Modi: The BJP is rallying around LaMo to protect its own - Firstpost



Vasundhara Raje-Lalit Modi scandal: Lose-lose situation for BJP, but not for PM Modi - Firstpost

Vasundhara Raje-Lalit Modi scandal: Lose-lose situation for BJP, but not for PM Modi - Firstpost



Factional feud in TMC poses biggest challenge for party - The Hindu

Factional feud in TMC poses biggest challenge for party - The Hindu



Ministry of External Affairs declines RTI info on Lalit Modi’s passport issue, draws flak - The Hindu

Ministry of External Affairs declines RTI info on Lalit Modi’s passport issue, draws flak - The Hindu



CPM clamour ahead of Kerala bypoll: ‘CM Oommen Chandy must come clean on Saritha’s charges’ | The Indian Express

CPM clamour ahead of Kerala bypoll: ‘CM Oommen Chandy must come clean on Saritha’s charges’ | The Indian Express



Saritha Nair expose shows brothel culture in Kerala government, alleges CPM | The Indian Express

Saritha Nair expose shows brothel culture in Kerala government, alleges CPM | The Indian Express



Sushma’s Ministry declines info under RTI on Lalit Modi’s passport issue | The Indian Express

Sushma’s Ministry declines info under RTI on Lalit Modi’s passport issue | The Indian Express



Wednesday, June 24, 2015

All India Muslim Personal Law Board slams Modi government over Yoga Day - The Hindu

All India Muslim Personal Law Board slams Modi government over Yoga Day - The Hindu



Historian says Hitler did not commit suicide - The Hindu

Historian says Hitler did not commit suicide - The Hindu



Nation pays Rs 60 crore for MPs’ lunches at Parliament canteens - The Hindu

Nation pays Rs 60 crore for MPs’ lunches at Parliament canteens - The Hindu



No possibility of allying with Cong.: CPI (M) - The Hindu

No possibility of allying with Cong.: CPI (M) - The Hindu



'Didi, Team have no Right to Discuss Chit Fund Bill' - The New Indian Express

'Didi, Team have no Right to Discuss Chit Fund Bill' - The New Indian Express



Will gouge out eyes, chop hands if you challenge TMC: Abhishek Banerjee dares Opp | The Indian Express

Will gouge out eyes, chop hands if you challenge TMC: Abhishek Banerjee dares Opp | The Indian Express



TMC desperate to cover-up Abhishek's anarchism?

TMC desperate to cover-up Abhishek's anarchism?



'Challenge us And We Will Gouge Out Eyes,' Threatens Mamata Banerjee's Nephew Abhishek

'Challenge us And We Will Gouge Out Eyes,' Threatens Mamata Banerjee's Nephew Abhishek



Rajasthan CM Vasundhara Raje cancels UK visit - Livemint

Rajasthan CM Vasundhara Raje cancels UK visit - Livemint



Vasundhara Raje's signed affidavit backing Lalit Modi released by Congress | Zee News

Vasundhara Raje's signed affidavit backing Lalit Modi released by Congress | Zee News



BJP seeks explanation from Rajasthan CM Raje after Congress claimed her signed documents helped Lalit Modi - IBNLive

BJP seeks explanation from Rajasthan CM Raje after Congress claimed her signed documents helped Lalit Modi - IBNLive



Opposition guns for Vasundhara Raje after fresh document shows she backed Lalit Modi's plea - The Times of India

Opposition guns for Vasundhara Raje after fresh document shows she backed Lalit Modi's plea - The Times of India



Enforcement Directorate widens probe against foreign funds in Lalit Modi firm - The Economic Times

Enforcement Directorate widens probe against foreign funds in Lalit Modi firm - The Economic Times



Digvijaya Singh interview: Narendra Modi, Arun Jaitley trying to bail out Lalit Modi : India, News - India Today

Digvijaya Singh interview: Narendra Modi, Arun Jaitley trying to bail out Lalit Modi : India, News - India Today



The Lalit Modi bomb now singes Amit Shah and President Pranab's secretary - Firstpost

The Lalit Modi bomb now singes Amit Shah and President Pranab's secretary - Firstpost



24 govt resolutions cleared in one day: Munde accused of Rs 206 cr scam - Firstpost

24 govt resolutions cleared in one day: Munde accused of Rs 206 cr scam - Firstpost



Signed docs show that Vasundhara Raje had backed Lalit Modi; she shoud resign: Congress - Firstpost

Signed docs show that Vasundhara Raje had backed Lalit Modi; she shoud resign: Congress - Firstpost



Degree row: 'Irani has no moral, legal right to continue as HRD minister' - Firstpost

Degree row: 'Irani has no moral, legal right to continue as HRD minister' - Firstpost



Believe it or not, Lalit Modi is the best thing to have happened to Indian politics - Firstpost

Believe it or not, Lalit Modi is the best thing to have happened to Indian politics - Firstpost



Trouble for HRD Minister Smriti Irani: Delhi court to hear complaint over her degrees on 28 August - Firstpost

Trouble for HRD Minister Smriti Irani: Delhi court to hear complaint over her degrees on 28 August - Firstpost



AAP demands HRD Minister Smriti Irani's resignation - The Economic Times

AAP demands HRD Minister Smriti Irani's resignation - The Economic Times



This is NDA not UPA, Raje, Sushma will not resign: Rajnath Singh on Lalit Modi row | The Indian Express

This is NDA not UPA, Raje, Sushma will not resign: Rajnath Singh on Lalit Modi row | The Indian Express



Lalit Modi row, land bill to rock Parliament’s Monsoon Session that begins July 21 | The Indian Express

Lalit Modi row, land bill to rock Parliament’s Monsoon Session that begins July 21 | The Indian Express



Gopinath Ravindran: Resigned from ICHR over disagreements with chief Sudershan Rao | The Indian Express

Gopinath Ravindran: Resigned from ICHR over disagreements with chief Sudershan Rao | The Indian Express



BJP backs Raje too, stormy Parliament session ahead - The Times of India

BJP backs Raje too, stormy Parliament session ahead - The Times of India



All above 75 in BJP declared brain dead by PM Modi: Yashwant Sinha | The Indian Express

All above 75 in BJP declared brain dead by PM Modi: Yashwant Sinha | The Indian Express



Students’ wing of TMC ransacks Aliah University | The Indian Express

Students’ wing of TMC ransacks Aliah University | The Indian Express



SSKM director in the doghouse

SSKM director in the doghouse



Rakesh Maria: A man of many controversies and investigations

Rakesh Maria: A man of many controversies and investigations



Congress releases Raje's signed affidavit backing Lalit Modi

Congress releases Raje's signed affidavit backing Lalit Modi



ACCOUNTS OF TRINAMOOL CONGRESS - তৃণমূলের লেনদেনের হিসাব দিলেও ব্যাঙ্কের কাছে আরও তথ্য জানতে চাইলো সি বি আই ****************************************কলকাতা, ৩০শে মে— তৃণমূলের আয়-ব্যয়ের রিপোর্টকে ভিত্তি করে সারদার সঙ্গে আর্থিক লেনদেনের তদন্ত এগোলো আরও এক ধাপ। যা নতুন করে ফের তৃণমূলের সারদা-অস্বস্তি বাড়ালো। তৃণমূলের সন্দেহজনক ২১টি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের যাবতীয় লেনদেনের তথ্য জানতে চেয়েছিল সি বি আই। এলাহাবাদ ব্যাঙ্কের হরিশ মুখার্জি শাখার তরফে ৭২ঘণ্টার মধ্যেই সেই তথ্যসহ রিপোর্ট জমা পড়লো সি বি আই দপ্তরে। অবশ্য এই রিপোর্টের পরেও আরও বেশ কিছু তথ্য চেয়ে শনিবার ফের সি বি আই-র তরফে ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ করা হয়েছে। তৃণমূলের আর্থিক জালিয়াতির ‘কেউটের ঝাঁপি’ সম্ভবত খুলে যেতে পারে ওই ২১টি অ্যাকাউন্টের লেনদেনের বিস্তারিত তথ্যে— মনে করছেন তদন্তকারী আধিকারিকরাও। সি বি আই-র একটি সূত্রেই জানা গেছে, শুধু ত্রিনেত্র-র মতো ভুয়ো সংস্থার টাকাই যে শুধু তৃণমূলের ওই অ্যাকাউন্টগুলির মাধ্যমে ঢুকেছিল তা নয়, আরও একাধিক ভুয়ো সংস্থার টাকা ঘুরপথে সারদা হয়ে ঢোকে শাসক তৃণমূলের তহবিলে। ২০১১ থেকে ২০১৩ পর্যন্ত এই টাকার ঢোকার পরিমাণ সবথেকে বেশি। এমনকি ওই রাষ্ট্রায়ত্ত এলাহাবাদ ব্যাঙ্কের ২১টি অ্যাকাউন্টের মধ্যে এমন বেশ কয়েকটি অ্যাকাউন্ট রয়েছে যেখানে একই দিনে একাধিকবার বিপুল পরিমাণ টাকা ঢোকে এবং সেদিনই তা তুলে নেওয়া হয়, যা রীতিমতো সন্দেহজনক বলেই মনে করছেন তদন্তকারী আধিকারিকরা। সি বি আই-র নোটিসের মুখে ২০১০-১৪ পর্যন্ত চার বছরের দলের আয় ব্যয়ের হিসাবের রিপোর্ট জমা দিতে বাধ্য হয়েছিল তৃণমূল। দেড় মাস আগে ৮৭পাতার সেই নথি তৃণমূলের তরফে দেওয়া হয় সি বি আই-র কাছে। একটি চিট ফান্ড কেলেঙ্কারির তদন্তে রাজ্যের শাসকদলের কাছে হিসাবপত্র চাইতে হচ্ছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সি বি আই-কে। গোটা দেশে যা রীতিমত নজিরবিহীন। শাসক তৃণমূলের তরফে হিসাবপত্র জমা দেওয়ার পরেও তাতে সন্তুষ্ট না হওয়ায়, বিস্তর অসঙ্গতি খুঁজে পাওয়ায় ফের ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে যাবতীয় লেনদেনের হিসাব চাইছে, এটাও বেনজির ঘটনা। কয়েক হাজার কোটি টাকার আর্থিক কেলেঙ্কারির সঙ্গে এভাবে একটি রাজনৈতিক দলের আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে থাকার ঘটনায় বিস্মিত তাঁরা। ব্যাঙ্কের তরফে যে নথিপত্র পাঠানো হয়েছে সে সম্পর্কে সরকারিভাবে সি বি আই-র তরফে কিছু জানাতে অস্বীকার করা হলেও কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার অন্য একটি সূত্রে জানা গেছে, যে সন্দেহ থেকে সি বি আই ব্যাঙ্কের কাছে তৃণমূলের ২১টি অ্যাকাউন্টের নথি চেয়েছিল, সেই সন্দেহ সত্যি হয়েছে। ‘অনুদানের’ নামে রাষ্ট্রায়ত্ত এলাহাবাদ ব্যাঙ্কের ২১টি অ্যাকাউন্টগুলিতে বিভিন্ন নির্বাচনের সময়তেই শাসকদলের তহবিলে বিপুল পরিমাণ টাকা ঢোকে। সি বি আই তরফে নির্দিষ্টভাবে কোথা থেকে টাকা ঢুকছে, কোন ব্যক্তির নামে সেই টাকা আসতে কী না, ঐ অ্যাকাউন্টগুলি কে বা কারা খুলেছে, তাই জানতে চাওয়া হয়েছিল। সে সম্পর্কে তথ্যও দিয়েছে এলাহাবাদ ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ। যদিও সেই রিপোর্ট পাওয়ার পরেই সি বি আই-র আরও কিছু প্রশ্ন রয়েছে লেনদেন সম্পর্কিত। এবার সেই অতিরিক্ত ‘সাপোর্টিভ ডকুমেন্ট’ চেয়ে এদিন ফোন যায় ওই ব্যাঙ্কের হরিশ মুখার্জি রোড শাখায়। আগামী সপ্তাহের মধ্যেই তা ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষকে জমা দিতে বলা হয়েছে। রাষ্ট্রায়ত্ত এলাহাবাদ ব্যাঙ্কের রিপোর্ট পাওয়ার পরে কী ব্যবস্থা নিতে পারে সি বি আই? একাধিক সম্ভাবনা সামনে আসছে। একটি সূত্রে জানা গেছে, তৃণমূলের আর্থিক লেনদেনের বিস্তর অসঙ্গতির রহস্য জানতে দলের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক কিংবা কোষাধ্যক্ষকে তলব করা হতে পারে। যদিও তৃণমূলের তরফে সি বি আই-কে আগাম জানিয়ে রাখা হয়েছে যে সময়কালের কথা বলা হচ্ছে অর্থাৎ ২০১০-১৪ আর্থিক বর্ষ, সেই দলের সব হিসাবপত্র দেখতেন মুকুল রায়। সি বি আই-র তরফে প্রয়োজনে তাঁকে ফের ডাকা হতে পারে বলে জানা গেছে। ২০১৩-১৪ সালের আয়-ব্যয়ের যে রিপোর্ট তৃণমূলের তরফে নির্বাচন কমিশনের কাছে জমা দেওয়া হয়েছিল তাতেই উল্লেখ করা হয়েছিল ২০১৪ সালের ৩১শে মার্চ ত্রিনেত্র নামক একটি সংস্থা থেকে তহবিলে ঢোকে ১কোটি ৪০ লক্ষ টাকা। এলাহাবাদ ব্যাঙ্কের শাখার মারফত এই লেনদেন হয়। যদিও ত্রিনেত্রকাণ্ড সামনে আসার পরে তৃণমূলের তরফে ফের নির্বাচন কমিশনে জানানো হয় ওই টাকা অনুদান নয় ঋণ হিসাবে নেওয়া হয়েছিল। এত বিপুল টাকা ঋণ হিসাবে নিতে গেলেও যে কাগজপত্র দাখিল করতে হয় তা দেখাতে পারেনি তৃণমূল। অসঙ্গতির সেই সূত্র ধরেই তদন্ত এগিয়ে নিয়ে যেতে গিয়েই সি বি আই-র চোখে ধরা পড়ে তৃণমূলের আর্থিক জালিয়াতির সেই চিত্র। তৃণমূলের তরফে জমা দেওয়া চার বছরের আয় ব্যয়ের নথি ঘেঁটে সি বি আই-র গোয়েন্দা আধিকারিকরা রীতিমত বিস্মিত। একদিকে ভুয়ো সংস্থা থেকে টাকার আদানপ্রদান, অন্যদিকে নাম না জানানো ‘সূত্র’ থেকে বেমালুম ২কোটি টাকা নগদে অনুদান নেওয়ার কথাও উল্লেখ রয়েছে তৃণমূলের আয়-ব্যয়ের রিপোর্টে! ত্রিনেত্র-র অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা ঢোকার ঠিক দু-সপ্তাহ আগেই ২০১৪ সালের ১৭ই মার্চ একইদিনে দু’দফায় নগদে ১কোটি করে টাকা ঢোকে তৃণমূলের তহবিলে। এক্ষেত্রে অডিট রিপোর্ট এই ২কোটি টাকা ‘অনুদান’ হিসাবেই দেখানো হয়েছে। ত্রিনেত্র নামক কোম্পানি যে আসলে ভুয়ো এবং তার মারফত কালো টাকা সাদা হয়েই যে শাসকদলের তহবিলে ঢুকেছে এবিষয়ে নিশ্চিত কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা ই ডি’ও। ই ডি-র তদন্তকারী আধিকারিকরা দেখতে পেয়েছেন, ২০১৪ সালের ২৯শে মার্চ ত্রিনেত্র সংস্থায় প্রথমে ঢোকে ১কোটি ৪৫ লক্ষ টাকা। সেখান থেকে পাঁচ লক্ষ টাকা নিজেরা নিয়ে নেওয়ার পরে বাকি ১কোটি ৪০ লক্ষ টাকা দুদিন পরে ৩১শে মার্চ পাঠিয়ে দেওয়া হয় তৃণমূলের নির্বাচনী তহবিলে!

MAMATA IN BANGLADESH - বাংলাদেশ সফরকে ঘিরে মমতাকে শুভেচ্ছা মিশ্রের ************************************কলকাতা, ২৯শে মে— না আঁচালে বিশ্বাস নেই! তবু আরও একবার আগাম শুভেচ্ছা জানাচ্ছি, দুটি দেশের মানুষের জরুরি সমস্যার সমাধানের লক্ষ্যে এবং দুটি দেশের মানুষের বন্ধুত্ব শক্তিশালী হওয়ার আশা নিয়ে। শুক্রবার বিধানসভায় বিরোধী দলনেতা সূর্য মিশ্র এই মন্তব্য করলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফরকে ঘিরে। এদিন সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানালেন, আজই সংবাদপত্রে দেখলাম মুখ্যমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বাংলাদেশ সফর করছেন বলে। কিন্তু এর আগে একবার ‘যাচ্ছি’ বলে বেঁকে বসেছিলেন। তারপর আবার এখন বললেন, ‘যাচ্ছি’। তাই ওঁর এই সফর নিয়ে না আঁচালে বিশ্বাস নেই। -বিরোধী দলনেতা সূর্য মিশ্র বললেন, গতবার কেন যে মুখ্যমন্ত্রী তাঁর নির্ধারিত সফর বাতিল করলেন তার কারণ জানা যায়নি। আমাদের দেশের আলু রপ্তানি এবং বাংলাদেশের ইলিশ এদেশে আমদানির প্রশ্নে এই সফর খুব জরুরি। আরও কিছু জরুরি সমস্যা জড়িয়ে রয়েছে এই দুটি দেশের মধ্যে। সেই যাবতীয় সমস্যার সমাধানে এই সফর কার্যকরী ভূমিকা নিক সেই শুভেচ্ছা জানাই। -বিরোধী দলনেতা সূর্য মিশ্র

AMBEDKAR-PERIYAR STUDY CIRCLE - স্বেচ্ছাচারী প্রবণতা দেশে কি মগের মুলুক চালু হয়েছে? নাকি জরুরি অবস্থা? যে দেশ বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্র বলে দাবি করে সেখানে সরকারের সমালোচনা করার অপরাধে কড়া শাস্তির মুখে পড়তে হয়! সংবিধান তার প্রত্যেক নাগরিককে বাক্স্বাধীনতা দিলেও সরকার রক্তচক্ষু দেখিয়ে সেই অধিকার কেড়ে নিতে চায়! গণতন্ত্রে সরকারের পক্ষে বলার অধিকার যেমন আছে তেমনি সমালোচনা করারও পূর্ণ স্বাধীনতা আছে। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় যারা ক্ষমতার আসনে বসবেন তাদের সর্বাগ্রে দরকার সমালোচনা বা বিরোধিতা শোনার সহনশীলতা, ধৈর্য, সহিষ্ণুতা। নচেৎ গণতন্ত্রে তারা পরিত্যজ্য। কেন্দ্রে মোদী সরকারের ক্ষেত্রে এখন এই গুরুতর বিষয়টিই প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠেছে দক্ষিণ ভারতের একটি উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তুঘলকি কর্মকাণ্ডে। আর সেই গর্হিত ও নিন্দনীয় কর্মকাণ্ডের মদতদাতা হিসেবে যদি খোদ কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন দপ্তরের নাম উঠে আসে তাহলে গোটা সরকারের মুখেই একটি স্বৈরাচারী মনোভাবের প্রতিচ্ছবি ফুটে ওঠে। একটি উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রদের উদ্যোগে অনুষ্ঠিতব্য আলোচনা সভায় মোদী সরকারের সমালোচনা হতে পারে এই আশঙ্কায় শুধু অনুষ্ঠানটিই বন্ধ করা হয়নি, উদ্যোক্তা ছাত্র সংগঠনটিকেও নিষিদ্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এমধন স্বেচ্ছাচারী সিদ্ধান্ত কোনো গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় কাম্য হতে পারে না। ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (আই আই টি) মাদ্রাজের তফসিলি জাতি-উপজাতি ছাত্র-ছাত্রীদের তৈরি সংগঠন ‘আম্বেদকর পেরিয়ার স্টাডি সার্কল।’ এই সংগঠনের উদ্যোগে একটি সভার আয়োজনকে কেন্দ্র করে প্রচারিত লিফলেটে মোদী সরকারের সমালোচনা করা হয়েছে। এটাই গুরুতর অপরাধ। অতএব এক কলমের খোঁচায় নিষিদ্ধ করে দেওয়া হয়েছে সংগঠনটি। এমন স্বেচ্ছাচারী সিদ্ধান্তে দেশজুড়ে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। প্রায় সমস্ত রাজনৈতিক দল, ছাত্র সংগঠন, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন, গণতান্ত্রিক চেতনাসম্পন্ন ব্যক্তিত্ব এই ঘটনায় নানাভাবে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (আই আই টি) মাদ্রাজের তফসিলি জাতি-উপজাতি ছাত্র-ছাত্রীদের তৈরি সংগঠন ‘আম্বেদকর পেরিয়ার স্টাডি সার্কল।’আশ্চর্যজনক ঘটনা হলো, যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্যাম্পাসে এমন কর্মকাণ্ড সেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিষয়টি নিয়ে গোড়ায় তেমন কোন উচ্চবাচ্য না করলেও কার্যত কেন্দ্রীয় সরকারের তাড়নায় আচমকা অতি সক্রিয় হয়ে ওঠে। আরও আশ্চর্যের ব্যাপার অভিযোগপত্র হিসেবে গৃহীত চিঠিটি মাদ্রাজ আই আই টি কর্তৃপক্ষের কাছে যায়নি। গিয়েছে দিল্লিতে কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন দপ্তরে, যার মন্ত্রী বিতর্কিত স্মৃতি ইরানি। যে চিঠিটি চেন্নাই থেকে ইরানির কাছে পৌঁছেছে তা বেনামী। সাধারণভাবে কোনো বেনামী চিঠির গ্রহণযোগ্যতা না থাকলেও এক্ষেত্রে ইরানির দপ্তর চিঠিটিকে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়েছে। সম্ভবত তাতে মোদী সরকারের সমালোচনার গন্ধ পাওয়া গিয়েছে বলেই ইরানি অতি তৎপরতা দেখিয়েছেন। পাশাপাশি আই আই টি মাদ্রাজ কর্তৃপক্ষের কাছে চিঠির কপি পাঠিয়ে তাদের মতামত চেয়ে পাঠানো হয়। আই আই টি কর্তৃপক্ষ ধরে আনতে বলার পর বেঁধে আনার মতো সংগঠনটিকেই নিষিদ্ধ করে দেয়। এখন প্রশ্ন হলো চিঠিটি কে বা কারা বেনামে লিখেছে? আই আই টি কর্তৃপক্ষের কাছে না পাঠিয়ে কেনই বা ইরানির কাছে পাঠানো হয়েছে? ইরানিই বা একটা বেনামী চিঠি নিয়ে এতোটা সক্রিয় হলেন কেন? বোঝাই যাচ্ছে ডাল মে কুছ কালা হ্যায়। ব্যাপারটা পূর্ব পরিকল্পিত বা সাজানো হলেও আশ্চর্য হবার কিছু থাকবে না। কারণ ঘটনা পরম্পরা তেমনটাই ইঙ্গিত করছে। ছাত্র সমাজে মোদী সরকার সম্পর্কে মোহভঙ্গের বাস্তবতার মধ্যে মোদীর সমালোচনা বৃদ্ধিকে মেনে নিতে রাজি নয় সরকার। তাই গোড়াতেই কণ্ঠরোধ করতে তৎপর। তাই বাক্স্বাধীনতা কেড়ে নেবার এমন ঔদ্ধত্য।

FOOD SECURITY IN INDIA - নয়াদিল্লি, ২৯শে মে— দেশের খাদ্য নিরাপত্তা পরিস্থিতির ভয়াবহ অবস্থায় সর্বজনীন গণবণ্টন চালুর দাবি জানিয়েছে সি পি আই (এম) পলিট ব্যুরো। রাষ্ট্রসঙ্ঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার ২০১৫-র রিপোর্টে ভারতে খাদ্য নিরাপত্তার অভাবের চিত্র প্রকট হয়েছে। শুক্রবার পলিট ব্যুরো এক বিবৃতিতে বলেছে, ফাও যে পদ্ধতিতে গণনা করে তাতে অপুষ্টি ও ক্ষুধার পরিমাণ যথেষ্ট কমিয়েই দেখানো হয়। তা সত্ত্বেও এমনকি এই রিপোর্টেও যা বলা হয়েছে তা ইউ পি এ এবং এখন মোদী সরকারের যাবতীয় দাবিকে নস্যাৎ করে দিচ্ছে। ভারত আজ পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি ক্ষুধার্ত মানুষের বাসভূমি হয়ে দাঁড়িয়েছে। রাষ্ট্রসঙ্ঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার ২০১৫-র রিপোর্টে ভারতে খাদ্য নিরাপত্তার অভাবের চিত্র প্রকট হয়েছে।এই রিপোর্টে জানানো হয়েছে, ২০১৪-১৫’র হিসেব অনুযায়ী ১৯কোটি ৪০লক্ষ ভারতবাসীর খাদ্য নিরাপত্তা নেই। বিশ্বের মোট ৭৯কোটি ৪৬লক্ষ ক্ষুধার্তের চার ভাগের এক ভাগই থাকে ভারতে। সি পি আই (এম) পলিট ব্যুরো। বলেছে, এই রিপোর্টের হিসেব অনুযায়ী মোদী সরকারের এক বছরে (২০১৪-১৫ এবং ২০১৬’র অনুমিত হিসেব) অপুষ্টিতে ভোগা মানুষের সংখ্যা ২০১২-র ১৮কোটি ৯৯লক্ষ থেকে বেড়ে ১৯কোটি ৪৬লক্ষ হয়েছে। ফাওয়ের রিপোর্টে বলা হয়েছে, ভারতে ক্ষুধার্ত মানুষের সংখ্যা গত পঁচিশ বছরে কমলেও তার গতি অত্যন্ত ধীর। পলিট ব্যুরো বলেছে, গত এক বছরে এই কমে আসার হার উল্লেখযোগ্য ভাবে কম। জনসংখ্যার অনুপাতে মাত্র ০.৪শতাংশ। ২০১০-১২পর্বেও তা ছিলো ৫শতাংশ। অন্য ভাবে বললে মোদী সরকারের আমলে পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে। সি পি আই (এম) পলিট ব্যুরো বলেছে, খাদ্য নিরাপত্তা আইনের রূপায়ণ ও তাকে উন্নত করার ক্ষেত্রে মোদী সরকার সচেতন ভাবে উদাসীনতা দেখাচ্ছে। মোদী সরকার নিজেকে গরিবের স্বার্থবাহী বলে তুলে ধরে যে মিথ্যা দাবি জানাচ্ছে তা বন্ধ করে সার্বজনীন গণবণ্টনকে নিশ্চিত করে পদক্ষেপ গ্রহণ করুক। রেশনে সর্বোচ্চ দু’টাকা কেজি দরে পরিবারপিছু ন্যূনতম ৩৫কেজি খাদশস্য দিতে হবে। রেশনে সরবরাহের তালিকাও বাড়াতে হবে। উল্লেখ্য, রাষ্ট্রসঙ্ঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার ২০১৫-র রিপোর্টে ভারতে খাদ্য নিরাপত্তার অভাবের চিত্র প্রকট হয়েছে।ফাওয়ের রিপোর্টে নেপাল, বাংলাদেশের মতো প্রতিবেশীদের সাফল্যও ভারত থেকে বেশি নজর কেড়েছে। ২৫ বছরে ভারতে অপুষ্টিতে ভোগা মানুষের সংখ্যা কমেছে ৩৬শতাংশ। নেপালে কমেছে ৬৫শতাংশ, বাংলাদেশে ৪৯শতাংশের বেশি। ফাও রিপোর্ট অনুযায়ী ভারতে এখনও ১৫.২শতাংশ মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা নেই। এই হার উন্নয়নশীল দেশগুলির গড় হার ১২.৯শতাংশের থেকেও বেশি।

NO ALLIANCE WITH CONGRESS - SITARAM YECHURY : কংগ্রেসের সঙ্গে জোটের প্রশ্নই নেই: ইয়েচুরি ************************************কলকাতা, ২২শে জুন— কোনোভাবেই কংগ্রেসের সঙ্গে কোনরকম ফ্রন্ট বা জোট গড়া সম্ভব নয় বলে জানালেন সি পি আই (এম)-র সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি। সোমবার কলকাতায় মুজফ্‌ফর আহ্‌মদ ভবনে সি পি আই (এম)-র রাজ্য কমিটির সভা চলাকালীন সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে একথা বললেন ইয়েচুরি। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে সীতারাম ইয়েচুরি বলেন, ২১তম পার্টি কংগ্রেসেই আমরা স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছি কংগ্রেস এবং বি জে পি সম্পর্কে আমাদের অবস্থান। এই দুই রাজনৈতিক দলই নয়া উদারনীতির পথে চলছে। কোনোভাবেই কংগ্রেসের সঙ্গে কোনরকম ফ্রন্ট বা জোট গড়া সম্ভব নয়। পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য গৌতম দেবের মন্তব্য বলে প্রচারিত সংবাদ সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে ইয়েচুরি বলেন, গৌতম দেব পার্টির কাছে চিঠি দিয়ে জানিয়েছেন এ প্রসঙ্গে তাঁর মন্তব্য নিয়ে যে বিভ্রান্তি ঘটেছে । তিনি কী কী বলেছেন এবং কী কী বলেননি তা পার্টির রাজ্য কমিটিকে চিঠি দিয়ে জানিয়েছেন। পার্টি কংগ্রেসে এ প্রশ্নে আমাদের সিদ্ধান্তকে কোনভাবেই লঙ্ঘন করছেন না গৌতম দেব। সেকথা জানিয়েই তিনি চিঠি দিয়েছেন। সাংবাদিকদের প্রশ্ন ছিল, সি পি আই (এম) কি একক শক্তি হিসেবে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে লড়তে পারবে? জবাবে ইয়েচুরি জানান, সি পি আই (এম) দীর্ঘদিন ধরেই একক শক্তি হিসেবে নয়, বামফ্রন্টগতভাবেই এরাজ্যে রাজনৈতিক লড়াইতে শামিল। ইয়েচুরি এদিন আরো বলেন, কেন্দ্রের মোদী সরকারের সর্বাত্মক বিরোধিতায় সংসদের মধ্যে লড়াইয়ে আমরা আছি। সেখানেও কোনও কোনও ইস্যুতে কংগ্রেস দলও বি জে পি সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে শামিল হচ্ছে। সেই দৃষ্টান্ত তো নানা প্রশ্নেই রয়েছে। যেমন ভূমি বিলের প্রশ্নে সংসদের মধ্যে আমাদের সঙ্গে কংগ্রেসের বিরোধিতাও ছিল। একসঙ্গে রাষ্ট্রপতির কাছেও স্মারকলিপি পেশ করতে গিয়েছি আমরা। কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট বা ফ্রন্ট গড়ে রাজনৈতিক লড়াই চালানো হবে। এমনকি, শ্রমিক-কর্মচারীদের বিভিন্ন মঞ্চও তো কেন্দ্রের নীতির বিরুদ্ধে একজোট হচ্ছে। সাংবাদিকরা এদিন মোদী সরকারের তরফে ‘যোগদিবস’ পালনের কর্মসূচি সম্পর্কে প্রশ্ন করলে ইয়েচুরি বলেন, সুস্বাস্থ্যের জন্য যোগাসনের প্রয়োজন রয়েছে। কিন্তু দেশের মানুষ বাঁচবে কিনা আজ এই প্রশ্নই সবচেয়ে জরুরি হয়ে সামনে এসেছে। স্রেফ হিন্দুত্বের অ্যাজেন্ডা নিয়েই মোদী এই দিবস নিয়ে দেশজোড়া প্রচারে নেমেছে। যোগাসন তো সুস্বাস্থ্যের জন্য। কিন্তু দেশের ৫৩শতাংশ শিশুই আজ অপুষ্টির শিকার। প্রতি এক হাজার শিশুর মধ্যে ৫২জন শিশুর মৃত্যু হয় পাঁচ বছর বয়স হওয়ার আগেই। যোগাসন শরীরে অক্সিজেন জোগানের কাজ করে। কিন্তু দেশের প্রতিটা মানুষের পর্যাপ্ত অক্সিজেনের জোগান দেওয়া যাচ্ছে কি? এমনকি একটি কুকুরও ঘুম থেকে উঠে আড়মোড়া ভেঙে যোগের মতোই শরীর টান টান করে দেয়। কিন্তু এসব ভাবনা নিয়ে মোদীর যোগদিবসের প্রচার সাড়ম্বরে পালিত হচ্ছে না, হচ্ছে হিন্দুত্বের আরও বেশি প্রচারের ভাবনা নিয়ে। বিশেষত হিন্দু রাষ্ট্রের প্রচার করার লক্ষ্য নিয়েই এই যোগদিবসের ভাবনা।

MAMATA BANERJEE BORROWS - আবার ১৫০০ কোটি টাকা ঋণ নিচ্ছে রাজ্য সরকার। তিন মাসে ৪০০০ কোটি, চার বছরে ৮৮হাজার কোটি। ****************************কলকাতা, ২২শে জুন — মঙ্গলবার বাজার থেকে আরও ১৫০০ কোটি টাকা ধার করছে মমতা ব্যানার্জির সরকার। এই নিয়ে চলতি আর্থিক বছরের তিন মাসে রাজ্যের ঋণ নেওয়ার পরিমাণ দাঁড়াচ্ছে ৪০০০কোটি টাকা। গত আর্থিক বছরে ঋণ নেওয়ার নিরিখে পশ্চিমবঙ্গ শীর্ষ স্থানে পৌঁছেছিল। ২০১৪-১৫-তে বাজার থেকে রাজ্য সরকার ধার নিয়েছিল ২১হাজার ৯০০কোটি টাকা। গত চার বছরে বারবার বাজার থেকে টাকা ধার করেছেন মমতা ব্যানার্জি। সেই ধারের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৮৬হাজার ৭৬৪কোটি টাকা। মঙ্গলবার ধার নেওয়া আরও দেড় হাজার কোটি সেই পরিমাণ আরও কিছুটা বাড়িয়ে দেবে। প্রসঙ্গত, বামফ্রন্ট সরকারের চৌত্রিশ বছরে রাজ্যের বাজার থেকে নেওয়া ঋণের পরিমাণ ছিল ৭২হাজার কোটি টাকা। যার মাত্রা ইতিমধ্যেই পেরিয়ে গেছে তৃণমূল কংগ্রেসের সরকার। যদিও মমতা ব্যানার্জি বারবার প্রচার করেন যে, বামফ্রন্ট সরকার ১লক্ষ ৯২হাজার কোটি টাকা ঋণ করে গেছে। বাস্তবে তা নয়। বাজার থেকে চৌত্রিশ বছরে ধার ওই ৭২হাজার কোটি টাকা। যে ঋণ হয়েছিল বামফ্রন্ট সরকারের সময়কালে তার মধ্যে ছিল স্বল্প সঞ্চয়ের খাতে ঋণ। রাজ্যে যত অর্থ স্বল্পসঞ্চয়ে সংগৃহীত হয়, তার একটি অংশ কেন্দ্রীয় সরকারের আইন অনুযায়ী বাধ্যতামূলকভাবে রাজ্য সরকারকে নিতে হয়। চিট ফান্ডগুলির রমরমা আটকে গিয়েছিল বামফ্রন্ট সরকারের সময়কালে, কারণ ওই সময়ে স্বল্পসঞ্চয়ে পশ্চিমবঙ্গ দেশের মধ্যে অগ্রগণ্য ছিল। সেই কারণে, কেন্দ্রীয় আইন অনুসারে ৭৯হাজার কোটি টাকা ঋণ হয় কেন্দ্রের কাছে। বাজারে নয়। তাছাড়া কেন্দ্রীয় পরিকল্পনা খাতের বরাদ্দের ৭০শতাংশ রাজ্য সরকারকে ঋণ হিসাবে দেওয়া হয়। দীর্ঘদিন ধরে এর বিরোধিতা করেছে বামফ্রন্ট। যদিও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী থাকাকালীন মমতা ব্যানার্জি রাজ্যের স্বার্থে এই নিয়ে কখনও বলেননি। সেই ঋণের পরিমাণ ছিলো ১২হাজার ৩০০কোটি টাকা বামফ্রন্ট সরকারের সময়কালে। নাবার্ডসহ বিভিন্ন কেন্দ্রীয় প্রতিষ্ঠানের সাহায্য থেকে রাজ্যের চৌত্রিশ বছরে ঋণ দাঁড়ায় ৮হাজার ৫০০কোটি টাকা। পি এফ তহবিলে ঋণের পরিমাণ ছিলো ৮হাজার কোটি টাকা। কেন্দ্রীয় সরকার আর্থিক বছরের শেষ লগ্নে টাকা পাঠানোয় কখনও কখনও টাকা খরচ করা যায় না। খরচ না হওয়া ওই টাকা পরের আর্থিক বছরের ধারের তালিকায় ঢুকে পড়তো। এমন ১২হাজার কোটি টাকাও চৌত্রিশ বছরে ঋণের তালিকায় রয়েছে। এইসব নিয়ে ঋণের পরিমাণ দাঁড়ায় ১লক্ষ ৯২হাজার কোটি টাকা। মমতা ব্যানার্জির সরকার চার বছরে বাজার থেকেই ঋণ নিয়েছে বামফ্রন্ট সরকারের চৌত্রিশ বছরের থেকে বেশি। চলতি আর্থিক বছরের প্রথম মাসে, অর্থাৎ এপ্রিলে রাজ্য সরকার ১০০০কোটি টাকা ধার করেছে। মে-তে আরও ১৫০০ কোটি টাকা ঋণ নেওয়া হয়েছে বাজার থেকে। সেই ঋণ নেওয়া হয়েছিল গত ২৬শে মে। এবার মাস পেরনোর আগেই আবার ১৫০০কোটি টাকা ধার নেওয়া হচ্ছে বাজার থেকে। কলকাতা, ২২শে জুন — সোমবার নবান্নে অর্থদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এই জুনে আরও এগারোটি রাজ্য বাজার থেকে ধার নিচ্ছে। রিজার্ভ ব্যাঙ্ক সূত্রে জানা গেছে সর্বাধিক ঋণ নিচ্ছে উত্তর প্রদেশ — ১৬০০কোটি টাকা। তারপরেই স্থান পশ্চিমবঙ্গের।

TEACHER RECRUITMENT IN WEST BENGAL - শিক্ষক নিয়োগে স্বচ্ছ পরীক্ষার দাবিতে বিক্ষোভ বাঁকুড়ায় ************************বাঁকুড়া, ২৩শে জুন— দিনের পর দিন শিক্ষক-শিক্ষিকার অভাবে স্কুলগুলিতে স্বাভাবিক পঠনপাঠন মারাত্মক ভাবে ব্যাহত হচ্ছে, অন্যদিকে প্রতিদিন বাইরে বাড়ছে বিপুল সংখ্যক বেকার বাহিনী। নীরব, স্থবির সরকার। সরকারকে এই নির্লিপ্ত আচরণ ছেড়ে বেরিয়ে আসতেই হবে। যোগ্যতা আর স্বচ্ছতার ভিত্তিতে শিক্ষিত বেকার যুবক যুবতীদের অবিলম্বে শিক্ষক-শিক্ষিকার পদে নিয়োগ করতে হবে। সর্বোপরি এই নিয়োগ প্রক্রিয়ায় রাজ্যের শাসকদলের দলবাজির ধারাবাহিক অভ্যাস ছাড়তে হবে। দাবি উঠলো শিক্ষক-ছাত্র-যুবকদের মিলিত বিক্ষোভ থেকে। মঙ্গলবার বাঁকুড়া, পশ্চিম মেদিনীপুর, পূর্ব মেদিনীপুর ও পুরুলিয়া থেকে সহস্রাধিক শিক্ষক, শিক্ষিকা, যুব, ছাত্র, সমাজের বিভিন্ন অংশের মানুষ বাঁকুড়ায় এসে এস এস সি-র পশ্চিমাঞ্চল কার্যালয়ে অবস্থান করেন ও ডেপুটেশন দেন। বৃষ্টির মধ্যেই বিশাল মিছিল হয় বাঁকুড়ায়। এদিন পুলিশ আন্দোলনকারীদের আটকে রাখতে পারেনি। দিনের পর দিন বেকারত্বের জ্বালা সহ্য করা যুবকরা সমস্ত বাধা পেরিয়ে বাঁকুড়ায় এস এস সি অফিসের ভেতরে ঢুকে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন। দাবি একটাই— দীর্ঘ তিন বছর কোন শিক্ষক-শিক্ষিকা নিয়োগ হয়নি এ রাজ্যে, এই স্বেচ্ছাচারিতার অবসান চাই। তামলিবাঁধ ময়দান থেকে মিছিল বের হয়। শহরের বিভিন্ন জায়গায় মিছিল ঘুরে এস এস সি পশ্চিমাঞ্চল কার্যালয়ের সামনে আসে। পুলিশ আগে থেকেই আন্দোলনকারীদের আটকাতে প্রস্তুতি নিয়েছিল। পারেনি। গেট খুলে বেকার যুবক-যুবতীরা ভেতরে ঢুকে যান। পরে নেতৃত্বের কথায় তাঁরা ফিরে আসেন। বাঁকুড়া ট্যাক্সি স্ট্যান্ডের সামনে সভা হয়। সভা থেকে প্রশ্ন ওঠে: কোথায় যাবেন এই যুবক-যুবতীরা? সরকারের খামখেয়ালিপনায় বহু বেকারের চাকরির বয়স পেরিয়ে গেল। তাঁরা আর এ সুযোগ পাবেন না। এখনও যাঁদের বয়স, যোগ্যতা আছে তাঁদের অবিলম্বে নিয়োগ করতে হবে। এই প্রক্রিয়া করতে হবে স্বচ্ছতার সঙ্গে। শিক্ষক-শিক্ষিকা নিয়োগে সম্প্রতি রাজ্য যে নিয়ম জারি করেছে তাতে দুর্নীতি, দলবাজি, অস্বচ্ছতার আভাস পাচ্ছেন মানুষ। মৌখিক পরীক্ষায় ৫নম্বরের বদলে ২০নম্বর করা হয়েছে। এখানেই শাসকদল ইচ্ছামতো কাজ করবে। যোগ্য প্রার্থীরা কি মুখ বুজে এসব দেখবেন? বামপন্থী ২৪টি শিক্ষক যুব, ছাত্র সংগঠনের আহ্বানে এদিন এই কর্মসূচি নেওয়া হয়। বর্তমানে রাজ্যে শিক্ষাক্ষেত্রে অরাজকতা, শাসকদলের সরাসরি ছত্রছায়ায় থাকা দুর্বৃত্তদের নিত্যনতুন হামলার ঘটনার পাশাপাশি শিক্ষক-শিক্ষিকাদের সংখ্যাও দিনের পর দিন কমছে। বামফ্রন্টের আমলে ১৯৯৮ সাল থেকে প্রতিবছরই শিক্ষক-শিক্ষিকা নিয়োগ করা হতো। ১২বছরে ১লক্ষ ৩৫হাজার নিয়োগ করা হয়। তৃণমূলের রাজত্বে ২০১২সালে মাত্র একবার নিয়োগ করা হয়েছিল। সংখ্যাটা মাত্র ২১হাজার। সেখানেও দুর্নীতির সুস্পষ্ট অভিযোগ ওঠে। বর্তমানে রাজ্য প্রায় ৮০ হাজার মাধ্যমিক শিক্ষক-শিক্ষিকার পদ ফাঁকা আছে। ১৯দফা জরুরি দাবি অবস্থান কর্মসূচি থেকে তোলা হয়। তার মধ্যে মহার্ঘ ভাতা, ছাত্রছাত্রীদের যথাসময়ে বই দেওয়া প্রভৃতি দাবিও তোলা হয়। এদিন সমাবেশে বক্তব্য রাখেন এ বি টি এ-র রাজ্য সম্পাদক উৎপল রায়, ডি ওয়াই এফ আই-র রাজ্য সম্পাদক জামির মোল্লা, পি এস ইউ-র মহঃ সফিউল্লাহ, এ বি পি টি-এর রাজ্য সভাপতি অভিজিৎ মুখার্জি, বামপন্থী শিক্ষক সংগঠনের রাজ্য নেতা তারাপদ চক্রবর্তী, চঞ্চল মাসান্ত, এস এফ আই নেতা ধর্মেন্দ্র চক্রবর্তী প্রমুখ। এদিন এই আন্দোলনের ২৪টি সংগঠনের আহ্বায়ক সুকুমার পাইনের নেতৃত্বে এক প্রতিনিধিদল এস এস সি-র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সুশান্তরঞ্জন বারিকের কাছে ডেপুটেশন দিতে যান। চেয়ারম্যান প্রতিনিধিদের জানান তিনি শিক্ষক নেতৃবৃন্দের এই দাবিগুলির সঙ্গে একমত। তবে তাঁর এ ব্যাপারে কিছুই করার নেই। সবই রাজ্যস্তর থেকে হচ্ছে। তিনি সংশ্লিষ্ট জায়গায় বিষয়গুলি জানাবেন। এদিন সভায় সভাপতিত্ব করেন শিক্ষক নেতা বেদব্যাস মুখার্জিসহ পাঁচজনের সভাপতিমণ্ডলী।


SURI LANGULIA HIGH SCHOOL, BIRBHUM - মানসিক যন্ত্রণা সত্ত্বেও লড়াই থেকে পিছিয়ে যাবেন না, ঘোষণা সিউড়ির আক্রান্ত শিক্ষকের ********************************* সিউড়ি, ২৩শে জুন— যত না শারীরিক আঘাত তার থেকে কয়েক গুণ মানসিক যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন আক্রান্ত শিক্ষক। দুর্গাপুরের এক বেসরকারি হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে অস্ফূট স্বরে শিক্ষক থেকে থেকেই খেদ প্রকাশ করে বলছেন, ‘‘আমাকে ওঁরা এইভাবে হেনস্তা করলো! ওই লোকগুলো স্কুলে দাপিয়ে বেড়াবে কোনোমতেই মানব না। ...পুলিশ, প্রশাসন কেউ সাহায্য করছে না। আমি লড়াই চালিয়ে যাব।’’ হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে শিক্ষকের এই মন্তব্যের কথা জানালেন তাঁর ভাই। সিউড়ি, ২৩শে জুন— গত সোমবার সিউড়ির লাঙ্গুলিয়া স্কুলে তৃণমূলীদের প্রত্যক্ষ মদতে বহিরাগতদের হাতে পাশবিক অত্যাচারের শিকার ‘স্পষ্টবাদী’ ইংরেজি শিক্ষক পার্থপ্রতিম মুখার্জির বুকে, পেটে, পাঁজরে অসহ্য যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দিতে ওষুধের প্রভাবে তাঁকে ঘুমে আচ্ছন্ন করে রেখেছেন চিকিৎসকরা। তবে ঘুমের ঘোর কাটলেই সেদিনের ঘটনায় মদত দেওয়ার জন্য বারবার শিক্ষকের গলা থেকে মুক্তার হোসেন খাঁ ও নবি শেখের নাম দুটি বেরিয়ে আসছে। একথা জানিয়ে দাদাকে দিনভর দেখভাল করা শিক্ষককের ভাই ধনঞ্জয় মুখার্জি ফোনে বলেন, ‘‘ওই দুটি নাম ছাড়াও আর কারা ছিল সুস্থ হলেই দাদা বলতে পারবে। সুস্থ হলেই দাদাকে নিয়ে নাম দিয়ে ফের অভিযোগ দায়ের করবো সিউড়ি থানায়। জেলাশাসকের কাছেও অভিযোগ জানাবো এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য।’’ আক্রান্ত শিক্ষকের অভিযোগ মত হামলার সময় সশরীরে উপস্থিত এই মুক্তার হোসেন খাঁ হচ্ছেন স্কুল পরিচালন সমিতিতে রাজ্য সরকারের মনোনীত ‘শিক্ষানুরাগী ’ সদস্য ও এলাকার দাপুটে তৃণমূল নেতা। ঘটনার পর থেকেই অভিযোগ উঠেছিল এই নেতার বিরুদ্ধে। কারণ যে সমস্ত বহিরাগতরা হামলার সময় সামনের সারিতে ছিলেন তাঁরা সকলেই ওই নেতার অনুগামী বলে পরিচিত। গ্রামে ওই নেতার দাপটের বিরুদ্ধে কথা বলার সাহস কারো নেই বললেই চলে। অপর যে নামটি শিক্ষক করেছেন তিনিও এলাকার তৃণমূল কর্মী বলেই পরিচিত। গত সোমবার সিউড়ির লাঙ্গুলিয়া স্কুলে তৃণমূলীদের প্রত্যক্ষ মদতে বহিরাগতদের হাতে পাশবিক অত্যাচারের শিকার ‘স্পষ্টবাদী’ ইংরেজি শিক্ষক পার্থপ্রতিম মুখার্জির বুকে, পেটে, পাঁজরে অসহ্য যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দিতে ওষুধের প্রভাবে তাঁকে ঘুমে আচ্ছন্ন করে রেখেছেন চিকিৎসকরা। ঘটনার পর ২৪ ঘণ্টা কেটে গেলেও এখনও কোনো তৎপরতা নজরে পড়েনি পুলিশের পক্ষ থেকে। সিউড়ি থানার পুলিশের ব্যাখ্যা, কারো নামেই তো নির্দিষ্ট করে অভিযোগ দায়ের হয়নি। অথচ স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের ও গ্রামের লোকজনদের মুখে মুখে ঘুরে বেড়াচ্ছে হামলাকরীদের নাম। তাহলে এক্ষেত্রেও কি শাসকদলের নাম জড়িয়ে যাওয়ায় নীরব পুলিশ ? সিউড়ির লাঙ্গুলিয়া স্কুল - এদিকে শিক্ষাক্ষেত্রে এই ধরনের ন্যক্কারজনক ঘটনার প্রতিবাদে সরব হয়েছে নিখিলবঙ্গ শিক্ষক সমিতি। এদিন সিউড়ির জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শকের দপ্তরের সামনে এই ন্যক্কারজনক ঘটনায় তীব্র ধিক্কার জানিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন শিক্ষকরা। জেলা পরিদর্শকের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করে অবিলম্বে ঘটনার পরিপ্রক্ষিতে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়েছে। এই ঘটনা কখনই সমর্থনযোগ্য নয় বলে তাদের নিন্দা করছেন এলাকার সাংসদ শতাব্দী রায় ও বিধায়ক স্বপনকান্তি ঘোষও। অপরদিকে, লাঙ্গুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয় সময়মত খুললেও ছিল থমথমে ভাব। নবম ও দশম শ্রেণির ছাত্রছাত্রীরা তাদের প্রিয় শিক্ষকের উপর এমন অমানবিক অত্যাচারের ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে ক্লাস করতে রাজি হয়নি। ফের কোন অপ্রীতিকর ঘটনা যাতে না ঘটে সেই আশঙ্কায় শিক্ষকরা বুঝিয়ে ছাত্রছাত্রীদের ক্লাসে পাঠান। স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সন্তোষকুমার ভান্ডারি বলেন, ‘‘স্কুলের ভেতরে এমন ঘটনা ঘটবে তা কল্পনাতীত ছিল। ঘটনায় সমস্ত শিক্ষকরাই নিরাপত্তার অভাব বোধ করছেন।’’ সিউড়ির লাঙ্গুলিয়া স্কুল - গ্রাম সূত্রে জানা গেছে, হামলাকারীদের শিক্ষকের উপর অন্যতম রাগের কারণ হচ্ছে বহিরাগত এইসকল মাতব্বরদের ফতোয়া না শোনা। পাশাপাশি পরিচালন সমিতির সদস্যরা অন্যান্য শিক্ষকদের উপর পারলেও পার্থপ্রতিম মুখার্জির উপর প্রভাব খাটাতে পারতেন না। ছাত্রছাত্রীরা তাদের বিপদ আপদ, অভাব অভিযোগে সবসময় পাশে পেত এই শিক্ষককে। এমনকি গ্রামেরই এক নাবালিকাকে তার বাবা-মা বিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলে তা রুখে দেন এই শিক্ষক। দায়িত্ব নেন মেয়েটির পড়াশোনার। তা ভালোভাবে মেনে নিতে পারেননি অনেকেই। পাশাপাশি স্কুলের নানাবিধ উন্নয়নমূলক কাজে এলাকার মাতব্বরদের নাক গলানো পাশাপাশি দুর্নীতির বিরুদ্ধে বারবারই সরব ছিলেন তিনি। গ্রামের অভিভাবকদের একাংশ বা এলাকার তৃণমূল নেতাকর্মীরা এই কারণে চটলেও শিক্ষকের পাশেই স্বতঃস্ফূর্তভাবে দাঁড়িয়েছে স্কুলের অধিকাংশ ছাত্রছাত্রী ও পার্শ্ববর্তী গ্রামের বাসিন্দারা। প্রতিবাদে সরব হয়েছেন।


IMPORT-EXPORT : দেশের ভাণ্ডার পূর্ণ, তবুও বেনজির গম আমদানি হচ্ছে ***************************************************নয়াদিল্লি, ২৩শে জুন— দেশে ভাণ্ডার উপচে পড়ছে। তবুও অস্ট্রেলিয়া থেকে গত চার মাসে ৫লক্ষ টন গম আমদানি করেছে ভারত। এই আমদানির পরিমাণ গত এক দশকে সবচেয়ে বেশি। আরও ৫লক্ষ টন গম আমদানির অনুমতিও মিলেছে। আমদানি করেছে মূলত গম-ময়দার মিলগুলি। কিন্তু অনুমোদন দিয়েছে ভারত সরকার। আপাতদৃশ্য যুক্তি হচ্ছে, ফেব্রুয়ারি-মার্চে ভারতের একাংশে অসময়ের ঝড়-বৃষ্টিতে গমের উৎপাদন কম হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। বিশেষ করে উচ্চমাত্রার প্রোটিন থাকা গমের টান পড়বে। কার্গিল, লুইস ড্রেফাস, গ্লেনকোরের মতো বহুজাতিক সংস্থাগুলি বরাত নিয়ে অস্ট্রেলিয়া থেকে গম আমদানি করেছে। বরাত দেওয়া পরিমাণের অর্ধেকের বেশি ভারতে পৌঁছে গেছে। বাকি অংশ জুলাইয়ে ঢুকবে। ফ্রান্স ও রাশিয়া থেকে আরো ৫লক্ষ টন আমদানির প্রক্রিয়া চলছে। খবর রয়টার্সের। অথচ দেশের গম ভাণ্ডারে উদ্বৃত্ত শস্য। সরকারি হিসেবে বলা হচ্ছে, ২০১৪-র তুলনায় গমের উৎপাদন ৫শতাংশ কম হতে পারে। যদি তা-ও হয় তাহলেও দেশের অভ্যন্তরীণ চাহিদার থেকে ১কোটি ৮০লক্ষ টন অতিরিক্ত উৎপাদন হবে। এর মধ্যে এই বিরাট পরিমাণ আমদানির প্রত্যক্ষ ফল হবে গম চাষিরা ফসলের ন্যায্য দাম পাবেন না। অস্ট্রেলিয়া থেকে আমদানিকৃত গমের মূল্য ভারতের দামের থেকে কম। বিপুল আমদানির মুখে ভারতে আরো কম দামে গম বিক্রি করতে বাধ্য হবেন কৃষকরা। এ কথা যেমন ঠিক যে এই মরশুমে গম উৎপাদন কম হতে পারে, এ কথাও সত্য যে পরপর আট মরশুম গমের প্রচুর উৎপাদন হয়েছে। তা সত্ত্বেও গম আমদানির এই ঢালাও অনুমোদন কেন, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

SURYA MISHRA - তীব্র আন্দোলনের মধ্যে দিয়েই বদল হবে রাজনৈতিক ভারসাম্য।সর্বস্তরের মানুষকে যুক্ত করেই লড়াই, বললেন সূর্য মিশ্র *******************************কলকাতা, ২৩শে জুন– বুথস্তর থেকে রাজ্যস্তর পর্যন্ত আন্দোলন-সংগ্রামকে আরো তীব্র করা এবং পার্টি সংগঠনকে আরো সক্রিয় ও শক্তিশালী করার মধ্যে দিয়েই রাজ্যের রাজনৈতিক ভারসাম্য পরিবর্তন করা সম্ভব। এই লক্ষ্যেই পার্টিকর্মীদের সক্রিয় হবার আহ্বান জানিয়েছে সি পি আই (এম) পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য কমিটি। পার্টির পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য কমিটির দু’দিনের বৈঠক শেষে মঙ্গলবার রাজ্য সম্পাদক সূর্য মিশ্র একথা জানিয়ে বলেন, গত পার্টি কংগ্রেসের আহ্বান ছিল, আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে পার্টির স্বাধীন রাজনৈতিক শক্তির বিকাশ ঘটাতে হবে। এরাজ্যে আমরা সেই লক্ষ্যেই কর্মসূচি নিয়ে চলছি। একইসঙ্গে, এরাজ্যে বামফ্রন্টকে শক্তিশালী করা এবং বামফ্রন্টের বাইরে থাকা বামপন্থী দল, সংগঠন ও ব্যক্তিদের নিয়ে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করার উদ্যোগ আমরা নিয়েছি। এছাড়া, বামপন্থীদের মূল ভিত্তি—শ্রমিক-কর্মচারী, কৃষক, খেতমজুর, ছাত্র, যুব, মহিলাসহ বিভিন্ন শ্রেণিসংগঠন ও গণসংগঠনগুলির নিজ নিজ অংশের আশু দাবি নিয়ে সমাজের ব্যাপক অংশের মানুষকে যুক্ত করে তীব্র আন্দোলন-সংগ্রাম গড়ে তুলতে হবে। পার্টির রাজ্য কমিটির দু’দিনের সভায় সভাপতিত্ব করেন বিমান বসু। পার্টির সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি সভায় উপস্থিত ছিলেন। এদিন মুজফ্ফর আহ্মদ ভবনে সাংবাদিক সম্মেলনে বৈঠকের সিদ্ধান্তগুলি জানাতে গিয়ে সূর্য মিশ্র বলেন, আগামী ২রা সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জনজীবনের আশু দাবিগুলি নিয়ে বামফ্রন্টের পক্ষ থেকে যে আন্দোলন-সংগ্রামের কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে, তাকে সফল করার জন্য সব জেলায় সর্বাত্মকভাবে উদ্যোগ নিতে বলা হয়েছে। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সারা রাজ্যে বামফ্রন্টের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে হাজার হাজার মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। অনেক জায়গায় আমাদের পার্টির জেলার নেতৃত্বের বিরুদ্ধেও মিথ্যা মামলা চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। জুন-জুলাই মাসে এর প্রতিবাদে এবং অবিলম্বে মিথ্যা মামলা খারিজের দাবিতে সর্বত্র থানার সামনে বিক্ষোভ-অবস্থান করা হবে। অনেক জায়গায় শুরু হয়েছে। তবে এখন যেহেতু রমজান মাস চলছে, তাই জেলা থেকে এলাকা দেখে ঠিক করতে হবে, কোথায় দু’দিন হবে, কোথায় একদিন হবে। আগামী ২৬শে জুন জরুরি অবস্থার ৪০বছর উপলক্ষে কেন্দ্রীয়ভাবে এবং জেলায় জেলায় কর্মসূচি নেওয়া হবে বলে জানান সূর্য মিশ্র। ১৯৭৫সালের ২৫শে জুন রাত ১২টায় জারি হওয়া এই জরুরি অবস্থার ঘটনা ছিল স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে দেশের সংসদীয় গণতন্ত্রের ওপর সবচেয়ে বড় আক্রমণ। নতুন প্রজন্মকে সেই ঘটনার কথা স্মরণ করিয়ে দেওয়া এবং পুরানোদের সেকথা পুনঃস্মরণ করাই এই কর্মসূচির উদ্দেশ্য, বিশেষ করে যখন গণতন্ত্রের ওপর নতুন করে আক্রমণ নেমে আসছে। দেশে ও এরাজ্যের কৃষি ও কৃষকজীবনে ব্যাপক সংকট নেমে আসার কথা তুলে ধরে সূর্য মিশ্র এদিন বলেন, ধানের সহায়ক মূল্য যা ঠিক হয়েছে, তা ন্যায্য ও লাভজনক দর নয় এবং দামের ওপর যে বোনাস দেওয়ার কথা, তাও তুলে দেওয়ার কথা বলা হচ্ছে। এরফলে কৃষকরা খুবই সংকটে পড়েছেন। বিশেষ করে আমাদের রাজ্যে ন্যূনতম সহায়ক মূল্যে ধান সংগ্রহের যে কাঠামো ছিল, সেটা কার্যত ভেঙে পড়েছে। কৃষকরা কোথায় ধান বিক্রি করবেন, কার কাছে বিক্রি করবেন, কোনও কিছুই ঠিক নেই। সূর্য মিশ্র রাজ্যের গ্রামাঞ্চলের করুণ অবস্থার কথা তুলে ধরে বলেন, গ্রামবাংলায় কার্যত কোনো কাজ নেই। এম এন রেগা বা ১০০দিনের কাজের বরাদ্দ ছাঁটাই করা হয়েছে। আবার যে কাজ হয়েছে, তার অনেক টাকাই বকেয়া রয়েছে। এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। দানবীয় জমি অধিগ্রহণ বিলের বিরুদ্ধে গোটা দেশে আন্দোলন শুরু হয়েছে। এরাজ্যেও বামপন্থী কৃষক সংগঠনগুলির উদ্যোগে এর বিরুদ্ধে স্বাক্ষরসংগ্রহ হয়েছে। গত ২রা জুন জেলায় জেলায় সর্বত্র সকাল ৯টা থেকে ১১টা দু’ঘণ্টার জন্য পথ অবরোধে ব্যাপক সাড়া পাওয়া গেছে। মিশ্র জানান, বামপন্থী কৃষক সংগঠনগুলি এরপর ‘নবান্ন অভিযান’-এর কর্মসূচি নিচ্ছে। কবে, কোথায়, কিভাবে হবে তাঁরাই জানাবেন। আমরা কৃষক সংগঠনগুলির এই আন্দোলনের পাশে আছি। তাদের কর্মসূচিকে সফল করার জন্য পার্টি সর্বতোভাবে চেষ্টা করবে। জিনিসপত্রের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি, বিদ্যুতের মাশুলের হারবৃদ্ধি, রেশনের ওপর আক্রমণ, খাদ্য সুরক্ষায় সমস্যা, কলকারখানা বন্ধ ও রুগ্ণ হওয়া, কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়ছে না প্রভৃতি জনজীবনের জ্বলন্ত সমস্যাগুলি নিয়েও আন্দোলন গড়ে তোলার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। তবে এইসব আন্দোলন গড়ে তোলার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় বাধা হচ্ছে গণতন্ত্রের ওপর আক্রমণ। পুলিশ প্রশাসনকে যুক্ত করে শাসকদল এই আক্রমণ নামিয়ে আনছে। অনেক জেলার সর্বোচ্চ নেতৃত্বকে জড়িয়ে মিথ্যা মামলা করা হয়েছে তাঁদের হেনস্তা করার জন্য। আমাদের কর্মীদের খুন, আক্রমণ, বাড়িছাড়া ইত্যাদি করা হচ্ছে। রাজ্যে নারী নির্যাতনের ঘটনা কমেনি, বরং বাড়ছে। এমনকি, শাসকদলের নিজেদের মধ্যেও ব্যাপক কোন্দল শুরু হয়েছে, যার জেরে খুনোখুনি হচ্ছে। খন্ডঘোষে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে ৩জন নিহত হওয়ার ঘটনা তারই উদাহরণ। মিশ্র বলেন, আক্রান্ত মানুষদের কতজনের কাছে আমরা পৌঁছাতে পেরেছি, তা নিয়ে রাজ্য কমিটির বৈঠকে আমরা পর্যালোচনা করেছি। সিদ্ধান্ত হয়েছে, প্রতিটি আক্রান্তের কাছেই আমাদের পৌঁছাতে হবে। এরাজ্যে চিট ফান্ড নিয়ে নজিরবিহীন দুর্নীতির ঘটনা উল্লেখ করে সূর্য মিশ্র বলেন, শাসকদলের সর্বোচ্চ নেতৃত্ব এরাজ্যে নজিরবিহীন চিট ফান্ড দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত। শুধু সারদাই নয়, টেট, এস এস সি, পি এস সি, বেআইনি কয়লা তোলাসহ বিভিন্ন কেলেঙ্কারির ঘটনা প্রকাশ্যে এসেছে। সর্বত্র ব্যাপকহারে তোলাবাজি চলছে। শাসকদলের প্রত্যক্ষ মদতে এই লুট চলছে। সমস্ত ক্ষেত্রে সামগ্রিকভাবে দুর্নীতি চলছে। মিশ্র বলেন, কেন্দ্রের বি জে পি সরকার কালো টাকা উদ্ধারের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এলেও এখন নিজেরাই কালো টাকার কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়েছে। তাই এখন বি জে পি-ও তৃণমূলের দুর্নীতি নিয়ে কিছু বলছে না, তৃণমূলও বি জে পি-র কালো টাকা কেলেঙ্কারি নিয়ে মুখ খুলছে না। পরস্পরের মধ্যে বোঝাপড়া এই যে, আমারটা নিয়ে তুমি কিছু বলো না, তোমারটা নিয়েও আমি কিছু বলবো না। এই দুর্নীতিরাজের বিরুদ্ধে আমাদের মানুষকে বলতে হবে। স্থানীয় বা আঞ্চলিক ভিত্তিতে সেই সব এলাকার বিশেষ সমস্যাগুলি আন্দোলন-সংগ্রাম গড়ে তোলার কথাও পার্টির রাজ্য কমিটির বৈঠকে আলোচনা হয়েছে বলে জানান মিশ্র। সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ভারত-বাংলাদেশ ছিটমহল বিনিময় নিয়ে যে চুক্তি হয়েছে, তাকে কার্যকর করার ক্ষেত্রে যে নতুন নতুন বিষয়গুলি উঠে আসছে, সেগুলি সুসম্পন্ন করার জন্য সংশ্লিষ্ট জেলাগুলিকে নিয়ে একটি সমন্বয় কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে তিনি জানান। পাহাড়ের সমস্যা, জঙ্গলমহল, সুন্দরবনের সমস্যা নিয়ে আঞ্চলিক ভিত্তিতে মানুষকে নিয়ে আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে তিনি জানান। শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের নির্বাচন গত ১বছর ধরে বকেয়া রয়েছে। এই নির্বাচন দ্রুত ঘোষণা করার জন্য আইনিভাবে এবং নির্বাচন কমিশনের হস্তক্ষেপের দাবিতে আন্দোলন করা হবে বলে তিনি জানান। -সি পি আই (এম) রাজ্য সম্পাদক সূর্য মিশ্র আগামী ২রা সেপ্টেম্বর সর্বভারতীয় শ্রমিক সংগঠনগুলির ডাকে সাধারণ ধর্মঘট হবে। এই ধর্মঘটকে সফল করার জন্য সমস্ত শক্তি নিয়ে পার্টি পাশে থাকবে। বামপন্থী গণসংগঠনগুলিও অনেক ক্ষেত্রে যৌথমঞ্চ গড়ে তুলে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলন গড়ে তুলছে। -সি পি আই (এম) রাজ্য সম্পাদক সূর্য মিশ্র মিশ্র এদিন বলেন, রাজ্যের ৭৭হাজার বুথেই বুথ সংগঠন গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত পার্টি নিয়েছে। এছাড়া প্রতিটি বুথ এলাকার নিজস্ব বৈশিষ্ট্য অনুসারে আশু আদায়যোগ্য দাবিগুলিকে চিহ্নিত করে মানুষকে যুক্ত করে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। নাগরিক জীবনের সমস্যায় ইতিবাচক হস্তক্ষেপ করতে হবে পার্টিকে। বুথস্তর থেকে রাজ্যস্তর পর্যন্ত আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে পার্টি সংগঠনকে সক্রিয় ও শক্তিশালী করার মধ্যে দিয়েই রাজ্যে রাজনৈতিক ভারসাম্য পরিবর্তন করা সম্ভব হবে এই আত্মবিশ্বাস আমাদের আছে। -সি পি আই (এম) রাজ্য সম্পাদক সূর্য মিশ্র সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এদিন মিশ্র বলেন, এবারের রাজ্য কমিটির বৈঠকে আমরা নির্বাচন নিয়ে কোনও আলোচনা করিনি, আন্দোলন-সংগ্রাম নিয়েই আলোচনা হয়েছে। আর কংগ্রেসের সঙ্গে কোনো জোট বা আতাঁত গড়ার কোনও প্রশ্নই ওঠে না। গত পার্টি কংগ্রেসেই এবিষয়ে আমাদের সুস্পষ্ট সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। রাজ্য কমিটির কোনো সদস্য আলোচনায় এই প্রসঙ্গ তোলেননি। অপর এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, গৌতম দেব এরকম জোট গড়ার কথা বলেননি, তাঁর কথা নিয়ে বিভ্রান্তি যাতে না হয়, তার জন্য পার্টির সাধারণ সম্পাদক ও রাজ্য সম্পাদককে চিঠি দিয়ে জানিয়েও দিয়েছেন। মিশ্র বলেন, গত পৌরনির্বাচনের ফলাফলে এটা প্রতিষ্ঠিত যে এরাজ্যে বামফ্রন্টই বিকল্প। নির্বাচনে সন্ত্রাস সত্ত্বেও তৃণমূলের অপশাসনের বিরুদ্ধে ধারাবাহিক আন্দোলনের মধ্যে দিয়েই আমাদের জনসমর্থন বাড়ছে এবং শাসকদল ক্ষয়িষ্ণু হয়ে পড়েছে। সেকারণেই ওরা আতঙ্কিত হয়ে সন্ত্রাস নামিয়ে এনেছিল। সন্ত্রাস না হলে জনসমর্থনের ক্ষেত্রে তৃণমূলের সঙ্গে বামফ্রন্টের ব্যবধান অনেকখানি কমে আসতো।

BJP DEFENDS LALIT MODI - মৌলবাদের পূজারি যে কোনো কট্টর দক্ষিণপন্থী দল ক্ষমতায় এলে গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ, জনমতের চাপ, বিরোধীদের সমালোচনাকে তোয়াক্কা করে না। জেদ বজায় রাখতে যে-কোনো অন্যায়, অপরাধকে মান্যতা দেয়। সুষমা-বসুন্ধরার ক্ষেত্রে বি জে পি সেই পথেই পা রেখেছে। আরও যেটা আশ্চর্যের, অভিযুক্ত বসুন্ধরাকে নির্দোষ শংসাপত্র দিচ্ছে দুর্নীতিতে অভিযুক্ত আর এক নেতা-মন্ত্রী নীতিন গড়কড়ি। কথায় বলে চোরে চোরে মাসতুতো ভাই। আর এস এস-র বিশ্বস্ত গড়কড়ি নাগপুরের হস্তক্ষেপে নিজেকে বাঁচিয়েছিলেন তেমনি নাগপুরের অনুমোদন নিয়ে বসুন্ধরাকেও এযাত্রায় রক্ষা করছেন। সঙ্ঘ কর্তাদের বার্তা বসুন্ধরাকে সরালে রাজস্থানে বি জে পি-র সঙ্কট বাড়বে। তেমনি খাল কেটে কুমির আনার মতো নতুন বিপদ হাজির হবে। একইভাবে অপসারণের দাবি উঠবে মধ্য প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর। শিবরাজ বড় মাপের দুর্নীতিতে অভিযুক্ত। সঙ্ঘ-বি জে পি-র রাজনৈতিক সংস্কৃতির অন্যতম অঙ্গ হলো ভাঙবো কিন্তু মচকাবো না।অভিযোগ সত্য হলেও তারা তাদের নেতা-মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে পারতপক্ষে ব্যবস্থা নেয় না। বি জে পি মনে করে ব্যবস্থা নিলে এটাই প্রমাণ হবে যে, অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করা হয়েছে। তাতে মোদীদের আশঙ্কা, বিরোধীরা সুবিধা পেয়ে যাবে এবং বাড়তি উদ্যমে সরকার-বিরোধী সক্রিয়তা বাড়াবে। মোদীরা সেই সুযোগ দিতে রাজি নয়। তাই অভিযুক্তদের নিয়ে ঘর করতে এবং অপরাধীকে সঙ্গী করতে দ্বিধা করছে না।-EDITORIAL OF GANASHAKTI


VASHUNDHARA RAJE SINDHIA - এবার বসুন্ধরারও সাতখুন মাপ হয়ে গেছে। কেন্দ্রীয় সরকার এবং বি জে পি নেতৃত্ব বুঝিয়ে দিয়েছেন বিদেশমন্ত্রী এবং রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রীর অপরাধ যাই হোক না কেন তাদের পদচ্যুতির কোনো আশঙ্কা নেই। গন্ডা গন্ডা দুর্নীতি কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত প্রাক্তন ব্যবসায়ী-ক্রিকেট কর্তা ললিত মোদীকে অবৈধভাবে সাহায্য করার গুরুতর অভিযোগ উঠেছে বি জে পি-র দুই শীর্ষ নেত্রীর বিরুদ্ধে। বহু কোটি টাকার দুর্নীতির তদন্ত শুরু হতেই যে ব্যক্তি দেশ ছেড়ে পালিয়ে ব্রিটেনে রাজকীয় জীবন কাটাচ্ছে তাকে সাহায্য করা শুধু অনৈতিক কাজই নয় গুরুত্বপূর্ণ সরকারি পদেরও অমর্যাদা। তাছাড়া অপরাধীকে সাহায্য করা আইনের চোখে অপরাধ। এমন গর্হিত কাজ করার পরও সুষমা-বসুন্ধরার কোনো অনুতাপ বা অনুশোচনা নেই। গর্হিত কাজকে বেমালুম গৌরবান্বিত করছেন মানবিকতার ছাপ লাগিয়ে। গোড়ায় অভিযোগের ধাক্কায় দ্বিধান্বিত হলেও অচিরেই জেটলি-রাজনাথ সুষমার পাশে দাঁড়িয়ে তার অপরাধকে দলীয় ও সরকারিভাবে উপেক্ষা করেছেন। পরে নীতিন গড়কড়ি একইভাবে বসুন্ধরাকে দায়মুক্ত করেছেন। দুই নেত্রীর পাশে দাঁড়িয়ে বি জে পি প্রমাণ করে দিয়েছে তাদের নেতা-মন্ত্রীদের ন্যায়-অন্যায়ের বিচার নৈতিকভাবে মাপকাঠিতে হবে না। হবে দলের ও সরকারে স্বার্থের কথা বিচার করে। অভিযুক্তকে অপসারণ করলে যদি দেখা যায় সরকার ও দলের বেকায়দায় পড়ার আশঙ্কা আছে এবং বিরোধীরা এতে উল্লসিত হয়ে যদি রাজনৈতিকভাবে আরও ক্ষতি করে তাহলে অভিযোগ যত গুরুত্বপূর্ণই হোক না কেন তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে না। কলঙ্কের বোঝা নিয়ে তারা বহাল তবিয়তে পদ আলো করে থাকবেন। তেমনি অভিযুক্ত যদি প্রধানমন্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পণ করেন তাহলেও তার পদ হারানোর ভয় নেই। - EDITORIAL OF GANASHAKTI


Tuesday, June 23, 2015

Saffronisation of Indian Education

http://www.educationobserver.com/saffronisation-of-Indian-Education.html

SAFFRONISATION OF EDUCATION - মগজে গৈরিক হামলা **************************মুজাফরনগরের দাঙ্গা নিয়ে দু’ঘণ্টা ২০মিনিটের তথ্যচিত্র। ইন দিনো মুজাফরনগর। এখনও মুক্তি পায়নি। নির্মাতা শুভদীপ চক্রবর্তী মারা গিয়েছেন এক বছর হতে চললো। তবু ইন দিনো মুজাফরনগর পায়নি সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ফিল্ম সার্টিফিকেশানের অনুমোদন। সেন্সর বোর্ডে সরকারী হস্তক্ষেপ। প্রতিবাদে চেয়ারপার্সন পদ থেকে লীলা স্যামসনের পদত্যাগ। ইস্তফায় বোর্ডের অন্য সদস্যরা। পুনের ফিল্ম ইনস্টিটিউটের গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান হিসেবে গজেন্দ্র চৌহানের নিয়োগ। ছাত্রদের ধর্মঘট। ঋত্বিক ঘটকের ছবি নিয়ে ছাত্রদের প্রতিবাদ। ‘গো ব্যাক চৌহান! ঘটক ইস হিয়ার’। চৌহান সরে যান, এই প্রতিষ্ঠানে ঋত্বিক পড়াতেন। মোদী সরকারের একবছর। সরকারের মদতে তীক্ষ্ণ হচ্ছে সাম্প্রদায়িক মেরুকরণ। আর এস এসের রাজনৈতিক শাখা বি জে পি আধুনিক ধর্মনিরপেক্ষ গণতান্ত্রিক সাধারণতন্ত্রকে সঙ্ঘের ‘হিন্দু রাষ্ট্রে’ রূপান্তরিত করতে তৎপর। চলছে রামজাদা হারামজাদা, ঘর ওয়াপসি, লাভ জিহাদের মতো সাম্প্রদায়িক অভিযান। ভিন্ন ধর্মের বিয়েকে দেখানো হচ্ছে কলঙ্কিত করে। বিকৃত করা হচ্ছে ইতিহাস। জায়গা করে দেওয়া হচ্ছে ইতিহাসের বদলে পুরাণ, দর্শনের বদলে আধ্যাত্মিকতাকে। আর এস এসের পেটোয়া বিজ্ঞানীরা দাবি করছেন বিমান, অ্যাটোম বোমা ছিল প্রাচীন, হিন্দু ভারতে। চিকিৎসাবিজ্ঞান এতটাই উন্নত ছিল যে প্লাস্টিক সার্জারি পর্যন্ত হতো। হাতির মাথা মানুষের ঘাড়ে বসিয়ে যেমন গনেশ। চিন্তার জগতে সন্ত্রাস। মগজে গৈরিক হামলা। উচ্চশিক্ষার প্রতিষ্ঠানে বসানো হয়েছে পরিচিত আর এস এসের লোকদের। চলছে স্কুলের পাঠক্রম, দেশের গবেষণা প্রতিষ্ঠানগুলির চরিত্র ও বিন্যাস বদল। সর্বশেষ ভারতীয় ইতিহাস গবেষণা পরিষদ থেকে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন মানুষদের বাধ্য করা হয়েছে সরে যেতে। পরিষদের চেয়ারম্যান ওয়াই সুদর্শন রাও। অখিল ভারতীয় ইতিহাস সংকলন যোজনার সভাপতি, যা চালায় আর এস এস, দিল্লি দপ্তর থেকে। ‘অযোধ্যা ও ইতিহাস’ শীর্ষক এক প্রবন্ধে তিনি খোলাখুলি জানিয়েছেন তাঁর পছন্দের কথা। উগ্র হিন্দুত্বের পক্ষে তাঁর কট্টর অবস্থান। রাও লিখেছেন, ধর্মীয় নেতা থেকে চিন্তাবিদ বা ইতিহাসবিদ থেকে প্রত্নতত্ত্ববিদ, তাঁদের তিনটি ভাগ রয়েছে। একাংশ হিন্দুত্বের আদর্শে বিশ্বাসী। আরেক অংশ মসজিদের পক্ষে সওয়ালে ব্যস্ত থাকে। তৃতীয় একটি অংশ রয়েছে যারা এই দু’পক্ষের মধ্যে মীমাংসায় বিশ্বাসী। মুসলিম সম্প্রদায়ের পক্ষে এই ‘ধর্মনিরপেক্ষ’ এবং ‘প্রগতিশীল’ ইতিহাসবিদরা প্রচার চালিয়ে থাকে। যারাই হিন্দুদের পক্ষে তাদেরই মৌলবাদী বলে গালও দেয় এই অংশ। পাশাপাশি, সাম্প্রদায়িক মেরুকরণের লক্ষ্যে ঘৃণা ছড়ানোর মতো বক্তৃতা দিয়ে চলেছেন সরকারের মন্ত্রী, সাংসদরা। নেওয়া হয়নি কোনও পদক্ষেপ। গীতা এখন সরাসরি স্কুলের সিলেবাসে। মধ্যপ্রদেশের রাজ্য গেজেটে নির্দেশিকা। নবম থেকে একাদশ শ্রেণীর ‘বিশেষ হিন্দি’র পাঠ্যতালিকায় থাকবে গীতার বিভিন্ন পর্ব। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে বাড়ছে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা। এমনকি ঘটছে দাঙ্গার ঘটনা। বাড়ছে মুসলিমদের উপর আক্রমণ। খ্রিষ্টান গির্জার উপর হামলা। খোলা বার্তা, মুসলিমদের বিরুদ্ধে কুৎসা করো। সুকৌশলে তুলে দেওয়া হচ্ছে তাঁদের ভোটাধিকারের প্রশ্ন। নিষিদ্ধ করো গরুর মাংস বিক্রি। এমনকি নিষিদ্ধ করো ষাঁড় হত্যা। গুজরাটে ভুঁয়ো সংঘর্ষে হত্যা মামলায় বি জে পি সভাপতি অমিত শাহ-সহ বাকিরা বেকসুর খালাস। অন্যদিকে তিস্তা শীতলবাদকে হেনস্তা। ২০০২, গুজরাট গণহত্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের বিরুদ্ধে অবিশ্রান্ত লড়াইয়ের কারণে তিস্তা একদিকে গুজরাট পুলিসের টার্গেট। অন্যদিকে, অপরাধীকে বাঁচাতে শিকারী কুকুরের মতো তৎপরতা। একদিকে তাঁকে হেনস্তা। অন্যদিকে গুরুতর ফৌজদারী অপরাধে অভিযুক্ত পুলিস অফিসারদের পুনর্বহাল।********************EDITORIAL OF GANASHAKTI


WARNING BY LK ADVANI - আদবানির সতর্কবাণী **********************************বি জে পি-র প্রবীণ নেতা লালকৃষ্ণ আদবানি মাঝে মাঝেই দলের নেতাদের বিরুদ্ধে কামান দাগেন। তার ফলে বি জে পি-র ঘরে-বাইরে সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়। অন্য রাজনৈতিক নেতারাও আদবানির মন্তব্য হাতিয়ার করে বি জে পি-র বিরুদ্ধে আক্রমণ শানায়। এমন পরিস্থিতিতে পড়ে দলের চাপে এবং আর এস এস-র নির্দেশে আদবানি তাঁর মন্তব্য প্রত্যাহার করে নেন নয়তো নিজেই পিছিয়ে যান। নিজের অবস্থানে টিকে থাকতে পারেন না। একবার তো বি জে পি-র প্রবীণ নেতা লালকৃষ্ণ আদবানি এমন হুমকি দিয়ে বসলেন যে, তিনি দলের কোনো স্তরের সদস্যপদে আর থাকবেন না। কিন্তু চাপে পড়ে শেষ অবধি সেখান থেকেও পিছিয়ে গেলেন। এটা ঠিক, এভাবেই মন্তব্য করে আবার তা প্রত্যাহার করে নিয়ে নিজেও দলে বিড়ম্বনার মধ্যে পড়েন। দলও তাঁকে ক্রমে ক্রমে গুরুত্বহীন করে কার্যত কোণঠাসা করে রেখেছে। ফলে দিনের পর দিন বর্ষীয়ান এই নেতার মনে ক্ষোভ জমছে। এই জমা ক্ষোভ থেকেই এক এক সময় তিনি ফুঁসে উঠছেন। অতি সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে নিশানা করে ফুঁসে উঠেছেন। এমন এক বিস্ফোরক মন্তব্য করে বসেছেন যে, দেশজুড়ে রাজনৈতিক মহলে শোরগোল পড়ে গেছে। তিনি প্রকাশ্যেই জানিয়ে দিয়েছেন যে, দেশে আবার জরুরি অবস্থা জারির মতো পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে। বি জে পি-র এই প্রবীণ নেতা প্রাক্তন উপপ্রধানমন্ত্রী যাই বলুন না কেন তাতে রাজনৈতিক মহল ও সংবাদমাধ্যম গুরুত্ব না দিয়ে পারে না। আদবানির নিশানা কোথায় সেটাও তিনি পরিষ্কার করে দিয়েছেন। বলেছেন, ‘‘আমরা মোদী সরকারের মধ্যে দেখছি স্বৈরতন্ত্রের লক্ষণ। বর্তমান পরিস্থিতিতে, সাংবিধানিক ও আইনি রক্ষাকবচ থাকা সত্ত্বেও গণতন্ত্রকে গুঁড়িয়ে দিতে পারে এমন শক্তিগুলি যথেষ্টই শক্তিশালী”। আদবানির বক্তব্য ঘিরে দলের মধ্যে শোরগোল পড়ে যায়। রাজনৈতিক দলগুলির আক্রমণের নিশানায় চলে আসেন স্বয়ং নরেন্দ্র মোদী। সমালোচনা এবং আর এস এস-র নির্দেশে আদবানি তাঁর মন্তব্য থেকে সরে যান। বলেন, বিষয়টি তিনি ওভাবে বলতে চাননি, অর্থাৎ বিরোধীরা যেভাবে ব্যাখ্যা করছেন তেমনভাবে তিনি বলেননি। আদবানি এখন তাঁর বক্তব্য অস্বীকার করার চেষ্টা করলেও সংবাদমাধ্যম ও রাজনৈতিক দলগুলি কিন্তু তা মানতে চাইছে না। তাদের ব্যাখ্যা, আর ক’দিন পরেই আসছে এ-বছরের ২৫শে জুন। ১৯৭৫ সালের ২৫শে জুন মধ্যরাতে ভারতে জারি হয়েছিল অভ্যন্তরীণ জরুরি অবস্থা। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সরকার জেলে পুরেছিল তাঁর কট্টর সমালোচক বিরোধী নেতাদের। কণ্ঠরোধ করেছিল সংবাদমাধ্যমের। ২১ মাস ভারতীয় গণতন্ত্রের অন্ধকারতম পর্যায় দেশবাসীর উপর চেপে বসেছিল। আগামী ২৫‍‌শে জুন সেই অন্ধকারতম দিনগুলিরই ৪০তম বর্ষপূর্তি। ‘মোদী-সরকারের মধ্যে স্বৈরতন্ত্রের লক্ষণ দেখছেন’ বলে কি আদবানি সেই জরুরি অবস্থার আশঙ্কার কথাই স্মরণ করিয়ে দিলেন? আদবানি একই সঙ্গে মনে করিয়ে দিয়েছেন, জরুরি অবস্থা আবার ফিরে আসবে না এমন কথা জোর দিয়ে আমি বলতে পারছি না। মনে রাখা দরকার, বি জে পি অতীতে জরুরি অবস্থার বিরোধিতা করলেও বর্তমানে দেশে ক্ষমতাসীন একটি রাজনৈতিক দল। এই দলের নেতাদের মধ্যে বিশেষ করে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর মধ্যে ক্ষমতার দম্ভের যে বহিঃপ্রকাশ ঘটছে তাতে একটা স্বৈরাচারী প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সরকারের এক বছরের কাজের ফিরিস্তির মধ্যে পদে পদে যে ব্যর্থতা প্রকাশ্যে আসছে, সমা‍‌লোচনার মুখে তাতে সরকারের দিশাহারা দিকটাই বেরিয়ে পড়ছে। ক্ষমতার দম্ভের মধ্যেই স্বৈরাচারী প্রবণতার রাজনৈতিক উপাদান লুকিয়ে থাকে। বর্ষীয়ান নেতা আদবানি সম্ভবত সে-দিকটাই উপলব্ধি করে জরুরি অবস্থার দিনের কথা উল্লেখ করে দল ও দেশবাসীকে সতর্ক করতে চেয়েছেন।**********************************EDITORIAL OF GANASHAKTI


LAND ACQUISITION BILL - জনমতের চাপ, মোদীর জমি বিলের বিরোধিতায় সঙ্ঘঘনিষ্ঠ দুই সংগঠনও ****************************************** নয়াদিল্লি, ২২শে জুন — দেশজোড়া জনমতের চাপে মোদী সরকারের দানবীয় জমি অধিগ্রহণ বিলের বিরোধিতা জানাতে বাধ্য হলো সঙ্ঘ পরিবারের অধীন দু’টি সংগঠনও। কৃষকের জীবন-জীবিকা কেড়ে নিতে সম্প্রতি নরেন্দ্র মোদীর সরকার যে বিল পাশ করাতে মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছে, তারই বেশ কয়েকটি সংস্থানের সরাসরি বিরোধিতা করেছে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ (আর এস এস) অনুমোদিত স্বদেশী জাগরণ মঞ্চ এবং ভারতীয় কিষান সঙ্ঘ। জমি অধিগ্রহণ বিল খতিয়ে দেখার দায়িত্বপ্রাপ্ত যৌথ সংসদীয় কমিটির কাছে লিখিতভাবে নিজেদের মতামত জানিয়েছে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ (আর এস এস) অনুমোদিত স্বদেশী জাগরণ মঞ্চ এবং ভারতীয় কিষান সঙ্ঘজমি বিল নিয়ে ঐক্যবদ্ধ বিরোধীদের সুরেই তাৎপর্যপূর্ণভাবে দুই সংগঠন বলেছে, মোদী সরকারের প্রস্তাবিত বিলের বেশ কিছু অংশ ‘ঘৃণিত’ এবং ‘গ্রহণযোগ্য নয়’। প্রসঙ্গত, ২০১৩সালে তৎকালীন ইউ পি এ আমলে সংসদে সর্বসম্মতভাবেই পাশ হয়েছিলো জমি অধিগ্রহণ আইন। সেই আইনকে সমর্থন করেছিলো বি জে পি-ও। বামপন্থীদের টানা লড়াইয়ের ফলে সেই আইনে জমিদাতা ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের স্বার্থে অল্প কয়েকটি রক্ষাকবচের সংস্থানও রাখা সম্ভবপর হয়েছিলো। মোদী সরকার ক্ষমতায় এসেই জমি অধিগ্রহণ আইনকে রদ করে কৃষকের স্বার্থবাহী ন্যূনতম ব্যবস্থাগুলি কেড়ে নিয়ে নতুন জমি অধিগ্রহণ অর্ডিন্যান্স জারি করে। এর প্রতিবাদে বামপন্থী কৃষক সংগঠনগুলির নেতৃত্বে দেশজুড়ে বিক্ষোভ দেখা দেয়। সংশোধনী বিল পেশ হলে সংসদে ভেতরেও প্রবল প্রতিবাদ হয়। জমি বিল ঘিরে সংসদের ভেতরে-বাইরে বর্তমানে নজিরবিহীন বিরোধী ঐক্য গড়ে উঠেছে। এর জেরে রাজ্যসভায় সংশোধনী বিল পেশই করতে পারেনি সরকারপক্ষ। বাধ্য হয়ে পরপর তিনবার জমি অর্ডিন্যান্স জারি করতে বাধ্য হয়েছে সরকার। দেশজুড়ে এই জনমতের চাপেই সঙ্ঘ পরিবারের অধীন সংগঠনগুলি নিজেদের সরকারের প্রস্তাবিত আইনের বিরোধিতা করতে বাধ্য হলো বলে মনে করা হচ্ছে। যৌথ সংসদীয় কমিটি জমি অধিগ্রহণ বিল নিয়ে সকলের মতামত জানতে চাওয়ায় বহু সংগঠন এবং ব্যক্তি ইতিমধ্যেই নিজেদের মতামত পেশ করেছে। আর এস এস অনুগামী স্বদেশী জাগরণ মঞ্চ (এস জে এম)-র তরফে জাতীয় সহ-আহ্বায়ক অশ্বিনী মহাজন লিখিতভাবে কমিটিকে বলেছেন, আমাদের সুচিন্তিত অভিমত, ২০১৩সালের জমি বিল বদলে দিতে বর্তমান সরকার অযথা তাড়াহুড়ো করছে। নতুন আইনে যেসব সংস্থান রাখা হয়েছে, তার অনেকগুলিই সমর্থনযোগ্য নয়। ‘ঘৃণিত’ এবং ‘অ-গ্রহণযোগ্য’ নানা ধারা যুক্ত করে জমি অর্ডিন্যান্স জারি করেছে বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকার। আগের আইনে জমিদাতা কৃষকদের বাধ্যতামূলক সম্মতিগ্রহণ এবং প্রস্তাবিত প্রকল্পের সামাজিক প্রভাব সমীক্ষার যে সুযোগগুলি ছিলো। আর এস এস অনুগামী স্বদেশী জাগরণ মঞ্চ (এস জে এম)-এর দাবি, অধিগ্রহণের পরে জমি ব্যবহারের উদ্দেশ্য বদল করতে দেওয়া উচিত হবে না। যে প্রকল্পের কথা বলে জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে, তার অন্যথা হলে জমি ফিরিয়ে নিতে হবে সরকারকে। পাশাপাশি দেশের নিরাপত্তার স্বার্থে কৃষিজমি এবং বনাঞ্চল অন্য কোন উদ্দেশে ব্যবহারের অনুমতি দেওয়া চলবে না। অন্যদিকে, ভারতীয় কিষান সঙ্ঘ (বি কে এস)-র সাধারণ সম্পাদক প্রভাকর কেলকার সংসদীয় কমিটিকে জানিয়েছেন, সামাজিক প্রভাব সমীক্ষা এবং অব্যবহৃত জমি ফেরত নেবার সংস্থানগুলি তুলে দিয়ে আসলে কৃষকের স্বার্থকেই উপেক্ষা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। অধিগ্রহণের আগে অন্তত ৫১শতাংশ জমিদাতার সম্মতি বাধ্যতামূলক করার দাবি তুলেছেন তিনি। উল্লেখ্য, বি জে পি সাংসদ এস এস আলুওয়ালিয়ার নেতৃত্বাধীন যৌথ সংসদীয় কমিটির ষষ্ঠ এবং সপ্তম সভা বসছে সোমবার ও মঙ্গলবার। জানা গেছে, আর এস এসের এই দুই সংগঠনের প্রতিনিধিরা ছাড়াও কমিটির সামনে বক্তব্য জানাতে আসতে পারেন প্রাক্তন বি জে পি তাত্ত্বিক কে এন গোবিন্দাচার্য, আম আদমি পার্টির প্রাক্তন নেতা যোগেন্দ্র যাদব, বিশিষ্ট আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণ প্রমুখ। ইতিমধ্যেই গোবিন্দাচার্য তাঁর লিখিত বক্তব্যে প্রশ্ন তুলেছেন, ‘২০১৩সালের জমি অধিগ্রহণ আইন পরিবর্তন করা হবে বলে বি জে পি কি তাদের নির্বাচনী ইশ্‌তেহারে কোন প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলো? যদি তা হয়, তাহলে কি কারণে এত তাড়াহুড়ো, এমনকি বারবার অর্ডিন্যান্স পর্যন্ত জারি করতে হচ্ছে?’ তাঁর স্পষ্ট অভিমত, ‘দিকে দিকে এই বার্তা চলে গেছে যে, সাধারণ মানুষ এবং কৃষকের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে মোদী সরকার আসলে শিল্পপতি ও পুঁজিপতিদের স্বার্থরক্ষায় অত্যন্ত ব্যস্ত হয়ে পড়েছে।’

ASHOK GHOSH, FORWARD BLOCK - ফরওয়ার্ড ব্লকের প্রতিষ্ঠা দিবস তৃণমূলের নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে বামপন্থীদের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তোলার ডাক********************************************* কলকাতা, ২২শে জুন—তৃণমূলের নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে সমস্ত বামপন্থী দলগুলিকে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করার আহ্বান জানালেন সারা ভারত ফরওয়ার্ড ব্লকের বাংলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক অশোক ঘোষ। সোমবার সারা ভারত ফরওয়ার্ড ব্লকের ৭৬তম প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে এই আহ্বান জানান তিনি। অশোক ঘোষ এদিন আরো বলেন, বর্তমানে রাজ্যজুড়ে নৈরাজ্য চলছে। সরকার সাধারণ মানুষের অধিকার ছিনিয়ে নিচ্ছে। গণতান্ত্রিক পরিবেশ নেই রাজ্যে। বিরোধীদের উপরে ক্রমাগত আক্রমণ চালাচ্ছে শাসক দলের দুষ্কৃতীরা। এমন অবস্থার পরিবর্তন করতে পারবে বামপন্থীরাই। সমস্ত বামপন্থী দলগুলিকে তাই ঐক্যবদ্ধভাবে এই নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে লড়াই করতে হবে। প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠানের জন্য সরকারী কোনো হল না পাওয়ার ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। এদিন সংগঠনের প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে রেড রোডে নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসুর মূর্তিতে মাল্যদান করেন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। নলিনী গুহ হলে অশোক ঘোষ ছাড়াও নরেন দে, নরেন চ্যাটার্জি-সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। এই সভায় সভাপতিত্ব করেন রাজ্য কমিটির সভাপতি ড. বরুণ মুখার্জি।

LANGULIA HIGH SCHOOL, BIRBHUM - সিউড়িতে ক্লাস থেকে টেনে হিঁচড়ে বের করে নিয়ে শিক্ষককে বেধড়ক পেটালো বহিরাগতরা। ফের কলুষিত শিক্ষাঙ্গন। ******************************************সিউড়ি, ২২শে জুন— ফের বহিরাগতদের তাণ্ডবে কলুষিত শিক্ষাঙ্গন। শাসকদলের তাবড় নেতাদের উপস্থিতিতে নির্বিচারে প্রহার ‘স্পষ্টবাদী’ এক শিক্ষককে। শ্রেণিকক্ষও যে আর শিক্ষকদের জন্য নিরাপদ নয় তা আবার প্রমাণ হলো সিউড়ি ১নং ব্লকের লাঙ্গুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সোমবারের ঘটনায়। তৃণমূল নেতা কর্মীদের প্রত্যক্ষ মদতে অভিভাবকদের একাংশ ও বহিরাগতদের বেপরোয়া তাণ্ডবের সাক্ষী থাকলো সিউড়ি সদর থেকে মাত্র ৬কিমি দূরের খটঙ্গা অঞ্চলের ওই স্কুল। স্কুলে ক্লাস নেওয়ার সময় শিক্ষককে রীতিমতো টেনে হিঁচড়ে বের করে মাটিতে আছড়ে ফেলে নির্বিচারে চললো চড়-ঘুষি-লাথি। প্রায় নিস্তেজ ওই শিক্ষককে চিকিৎসার জন্য প্রথমে সিউড়ি এবং পরে দুর্গাপুর নিয়ে যান পরিবারের লোকজন। ঘটনায় ক্ষুব্ধ স্কুলের ছাত্রছাত্রীরা। সিউড়ি, ২২শে জুন— এদিন সকালে লাঙ্গুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ইংরেজি শিক্ষক পার্থপ্রতিম মুখার্জি নবম শ্রেণির ক্লাস নিচ্ছিলেন। শিক্ষক পার্থপ্রতিম মুখার্জি স্কুলের ছাত্রীদের সঙ্গে ‘প্রণয়ে’ লিপ্ত এই অভিযোগ তুলে স্কুল গেটের সামনে জমায়েত হয় মারমুখী বহিরাগতরা। বিপদ বুঝে স্কুলের প্রধান শিক্ষক খবর দেন স্কুল পরিচালন সমিতির সভাপতি ও সমিতির ‘শিক্ষানুরাগী’ সদস্যকে। স্কুল পরিচালন সমিতির সভাপতি তথা স্থানীয় খটঙ্গা অঞ্চলের তৃণমূল সভাপতি সঞ্জিত রায় ও অপর ‘শিক্ষানুরাগী’ সদস্য এলাকারই দাপুটে তৃণমূল নেতা মুক্তার হোসেন খাঁ স্কুলে এসে প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে আলোচনা শুরু করতে না করতেই শুরু হয়ে যায় তাণ্ডব। সকাল ১১টা নাগাদ স্কুলের সামনে জড়ো হওয়া তৃণমূলের ছোট-বড় নেতা ও বহিরাগতরা রীতিমত স্কুলে ঢুকে অশ্রাব্যভাষায় গালিগালাজ করতে করতে প্রথমে প্রধান শিক্ষকের ঘরে এবং সেখান থেকে একতলায় থাকা নবম শ্রেণির কক্ষে গিয়ে পড়ানো অবস্থায় শিক্ষককে ক্লাস থেকে টেনে বের করে মাটিতে ফেলে নির্মমভাবে পেটাতে শুরু করে। জ্ঞান হারান শিক্ষক। তাদের প্রিয় শিক্ষকের উপর এই অমানবিক অত্যাচার দেখে কান্নার রোল পড়ে যায় ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে। এমনকি গাড়ি করে ওই শিক্ষককে চিকিৎসার জন্য সিউড়ি আনার তোড়জোড় শুরু করলেও বাধা দেয় আক্রমণকারীরা বলে অভিযোগ। পরে অবশ্য সিউড়ি থেকে অ্যাম্বুলেন্স ডেকে উদ্ধার করে নিয়ে আসা হয় শিক্ষককে। গোটা ঘটনা নীরব দর্শকের মতো দেখতে থাকেন স্কুল পরিচালনার দায়িত্বে থাকা রাজ্য সরকারের মনোনীত পরিচালন সমিতির সদস্য শাসকদলের দুই নেতা। সিউড়ি, ২২শে জুন— ফের বহিরাগতদের তাণ্ডবে কলুষিত শিক্ষাঙ্গন। শাসকদলের তাবড় নেতাদের উপস্থিতিতে নির্বিচারে প্রহার ‘স্পষ্টবাদী’ এক শিক্ষককে। শ্রেণিকক্ষও যে আর শিক্ষকদের জন্য নিরাপদ নয় তা আবার প্রমাণ হলো সিউড়ি ১নং ব্লকের লাঙ্গুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সোমবারের ঘটনায়। স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সন্তোষ ভাণ্ডারি বলেন, ‘‘অত্যন্ত দক্ষ, সৎ, ছাত্র-দরদী এই শিক্ষক স্কুলের নির্ধারিত সময় ছাড়াও অতিরিক্ত সময়েও বিনামূল্যে কোচিং করান ছাত্রছাত্রীদের। স্কুল পাশ করা বেশ কিছু ছাত্রছাত্রীও এই শিক্ষকের কাছে কোচিং নিতে আসে। এমন এক শিক্ষকের উপর এইধরনের আক্রমণের ঘটনায় নিরাপত্তার অভাব বোধ করছেন সমস্ত শিক্ষকরাই।’’ স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ছাত্রছাত্রীদের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় পরোপকারী এই শিক্ষক শুধু স্পষ্টবাদীই ছিলেন না, যে কোনো ধরনের অনিয়ম-বেনিয়মের প্রতিবাদে এগিয়ে আসতেন সবসময়। বহু ছাত্রছাত্রীই তাঁর অনুগত হয়ে ওঠে। সেটা ভালোভাবে মেনে নিতে পারেনি অনেকেই। সম্প্রতি এক ছাত্র ওই শিক্ষককে কটূক্তি করলে অন্যান্য ছাত্রছাত্রীরা তার প্রতিবাদ করে ওই ছাত্রটিকে ধমকায়। অভিযোগ, এই অজুহাতেই শিক্ষকের উপর তাদের রোষ উগরে দেয় আক্রমণকারীরা। ঘটনার খবর পেয়ে গ্রামের বাড়ি ভীমগড়ের চূড়র থেকে ছুটে আসা আক্রান্ত শিক্ষকের ভাই ধনঞ্জয় মুখার্জি জানান, ‘‘স্কুল, বই আর ছাত্রছাত্রী ছাড়া আর কোনো জগৎ নেই দাদার। দাদার উপর এমন আক্রমণের ঘটনায় আইনগত লড়াইয়ে যতদূর যাওয়ার যাব।’’ এদিকে, এমন এক জঘন্য ঘটনার পরেও স্কুলের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগই দায়ের করা হয়নি এখনও। জিজ্ঞাসা করলে সদুত্তর মেলেনি প্রধান শিক্ষকের কাছে। পরিচালন সমিতির সভাপতির আবার মন্তব্য, ‘‘ওটা আমার কাজ নয়।’’ তবে আক্রান্তের ভাই অবশ্য কোনো নাম না করে সিউড়ি থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করছেন। স্কুল পরিচালন সমিতির সভাপতি যিনি গোটা ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও আক্রমণকারীরা যার কাছে সুপরিচিত তিনি কী পদক্ষেপ নিলেন তার স্পষ্ট উত্তর না দিয়ে গা বাঁচাতে তৃণমূলনেতা সঞ্জিত রায়ের সাফাই, ‘‘নানা কারণে অভিভাবকদের ক্ষোভ ছিল ওই শিক্ষকের উপর। সেই থেকেই এই ঘটনা। তবে এভাবে মারধরের ঘটনা অত্যন্ত অন্যায়।’’

DOLA SEN, RAJYA SABHA MEMBER - দোলা সেনকে ট্রাফিক আইন মানতে বলার খেসারত দিলেন সিভিক পুলিশকর্মী, পাঠানো হলো ছুটিতে*********************************************** দমদম,২২শে জুন—তৃণমূল সরকারের আমলে ‘আইনের পথে চলার’ আরও একটি নজির তৈরি হলো। ট্রাফিক আইন ভাঙা মেয়রের ভাইঝি-র গাড়ি আটকে উলটে কর্তব্যরত পুলিশকর্মীকেই চলে যেতে হয়েছিল ‘লম্বা ছুটিতে’। মাত্র এক মাসের ব্যবধানে সেই ঘটনার হুবহু পুনরাবৃত্তি দোলা সেনকাণ্ডেও। ট্রাফিক আইন ভাঙায় চিনার পার্কে তাঁর গাড়ি আটকে ছিলেন সিভিক পুলিশকর্মী বিভাস রায়। ফলের তাঁকে খেসারত দিতে হলো। তৃণমূল সাংসদের গাড়ি আটকানোর জন্য ওই সিভিক পুলিশকে ‘ছুটিতে’ পাঠানো হলো। আইন রক্ষা করতে গিয়ে আইনরক্ষকদের শাস্তির মুখে পড়ার এই ঘটনাই যেন বেআব্রু করছে তৃণমূলী শাসনে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলার নিদারুণ চেহারা। যদিও এদিন বিধাননগর কমিশনারেটের তরফে দাবি করা হয়েছে, এরসঙ্গে দোলা সেনের ঘটনার কোন যোগ নেই। ওই সিভিক পুলিশকর্মী আগেই ছুটির দরখাস্ত করেছিল। এদিন তা মঞ্জুর করা হয়। পুলিশি ব্যাখ্যাও দুটি কাণ্ডে হুবহু এক। কলকাতায় মেয়রের ভাইঝি-র কাণ্ডেও অভিযোগকারী পুলিশকর্মীকেই পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছিল লম্বা ‘ছুটি’-তে। অবশ্য তা অস্বীকার করে কলকাতা পুলিশের তরফে দাবি করা হয়েছিল, পুলিশকর্মী চন্দন পাণ্ডে নিজেই ছুটির জন্য আবেদন করেছিলেন, সেই আবেদন মঞ্জুর করা হয়েছে, এতে অস্বাভাবিকতার কিছু নেই। তবে পুলিশের একাংশের দাবি, গোটাটাই ‘আই ওয়াশ’। যেহেতু কলকাতায় ট্রাফিক আইন ভাঙা ও পুলিশ নিগ্রহের ঘটনার সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে খোদ কলকাতার মেয়রের ভাইঝি, তাই মিডিয়ার কাছে যাতে মুখ খুলতে না পারেন সেই কারণেই কৌশলে চন্দন পাণ্ডেকে দিয়েই তড়িঘড়ি ছুটির আবেদন লিখিয়ে নিয়ে তা মঞ্জুর করা হয়। চিনার পার্কের ঘটনাতেও একই অবস্থান নিয়েছে বিধাননগর কমিশনারেট। তবে আশ্চর্যের ঘটনায় দোলা সেনের তরফে কিংবা পুলিশের তরফে কোন অভিযোগ দায়ের হয়নি। ফলে তদন্তও হয়নি। তাহলে এই ঘটনার পরেই কেন ওই সিভিক পুলিশ কর্মীকে ছুটিতে পাঠানো হলো? মুখে কুলুপ বিধাননগর কমিশনারেটের। তবে নিচুতলার পুলিশ কর্মীদের অভিযোগের আঙুল এক্ষেত্রে তৃণমূলী সাংসদ মুখ্যমন্ত্রী ঘনিষ্ঠ দোলা সেনের বিরুদ্ধেই। গত ১৯শে জুন সকালে দোলা সেনের গাড়ি বাগুইহাটি-জোড়ামন্দিরের রাস্তা দিয়ে চিনার পার্কের মুখে আসে। গাড়িটা ডিভাইডারের বাঁদিক দিয়ে না গিয়ে ডানদিক দিয়ে রাজারহাট-নিউটাউনের রাস্তার দিকে যেতে চায়। সেই সময়তেই ওই সিগন্যালে কর্তব্যরত এক সিভিক পুলিশকর্মী গাড়িটি আটকান। গাড়ির চালককে ওই পুলিশকর্মী ট্রাফিক সিগন্যাল কেন ভাঙা হলো সেকথা বলেন। তখন ওই গাড়ির চালক পালটা উত্তর দেন যে গাড়িতে ‘এম পি’ বসে আছেন। তখন ওই কর্তব্যরত সিভিক পুলিশকর্মী জানান, ‘এম পি থাকলে কি ট্রাফিক নিয়ম মানা যায় না!’ এই কথা বলার পরেই গাড়ির পিছন সিটে বসা তৃণমূল সাংসদ দোলা সেন জানলার কাচ নামিয়ে চিৎকার করে বলতে থাকেন, ‘আমি বাইরে বেরিয়ে এক থাপ্পড় মারবো, আমি এই রাস্তা দিয়েই যাবো।’ এমনকি পরে তাঁকে উঠবোস করতে বলেন বলেও দাবি করেন তৃণমূলী সাংসদ। পুলিশকর্মীদের অভিযোগ এরপরেই দোলা সেন ওই কর্তব্যরত সিভিক পুলিশের নাম, ঠিকানা সব কাগজে লিখে নিয়ে চলে যান। যাওয়ার সময় হুমকিও দেন, ‘দেখ কী হয়’। দোলা সেনের হুমকিতেই অবশেষে সেই সিভিক পুলিশকে ‘ছুটি’-তে যেতে বাধ্য করা হয়েছে বলেই মনে করছেন নিচুতলার পুলিশ কর্মীরাও। যদিও স্বাভাবিকভাবেই সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছে বিধাননগর কমিশনারেট। গত চার বছরের তৃণমূল সরকারের আমলে শাসকদলের নেতা, কর্মীদের ‘সাত খুন মাফ’—এই ঘটনার বারে বারে ঘটেছে। তৃণমূল নেত্রী দোলা সেনই নিবেদিতা সেতুতে তাঁর গাড়ি আটকানোর জন্য টোল প্লাজার কর্মীকে প্রকাশ্যে চড় মেরেছিলেন। সেই ঘটনায় আজও কোন মামলা হয়নি। তৃণমূল নেতা আবু আয়েশ মণ্ডল আবার এক ধাপ এগিয়ে জুতোপেটা করেছিলেন টোল প্লাজার কর্মীকে। মমতা ব্যানার্জির ভাইপো আকাশ ব্যানার্জিও ট্রাফিক আইন ভাঙার পরে উলটে কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশকেই চড় মেরেছিলেন। কিছুদিন আগেই মেয়রের ভাইঝিও ট্রাফিক আইন ভেঙে, পুলিশ নিগ্রহ করেও বহাল তবিয়তে আছেন। তাঁর বিরুদ্ধে পুলিশ অভিযোগ দায়ের করলেও আজ পর্যন্ত তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করার সাহস দেখাতে পারেনি পুলিশ। বরং বিধানসভায় খোদ মুখ্যমন্ত্রী তাঁকে ‘বাচ্চা মেয়ে’ বলায় তদন্তে যে কার্যত শেষ হয়ে গেছে তাও স্পষ্ট। উলটে তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ করায় ট্রাফিক পুলিশ কনস্টেবলই এখন শাস্তির মুখে। ফলে দোলা সেনের ঘটনাতেও কর্তব্য পালন করার পরেও যে ওই সিভিক পুলিশকর্মীকেই ‘ছুটি’-তে পাঠানো হয়েছে তাতে অস্বাভাবিক কিছু দেখছে না সংশ্লিষ্ট মহল। শুধু তাই নয়, সেদিন দোলা সেনের গাড়ি আটকানোর ঘটনার পরে চিনার পার্কে ওই এলাকায় ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব থাকা পুলিশ কর্মীকেই সেখান থেকে অন্যত্র সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। ঘটনার পরে বিভাস রায় সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছিলেন, ‘দোলা সেনের গাড়ি রংরুট দিয়ে যাচ্ছিল বলেই আটকেছিলাম। বলা হলো এম পি আছে, এবং আমি নাকি তাঁকে গালিগালাজ করেছি। গাড়ির কাচ তো তোলা ছিল। তাহলে উনি শুনলেন কী করে আমি গালি দিয়েছি। পরে উনি গাড়ির কাচ নামিয়ে আমাকে থাপ্পড় মারার কথা বলেন। এম পি বলে কী কারও গাড়ি আইন না মানলেও আটকানো যাবে না?’ সংবাদমাধ্যমের আড়ালে রাখার জন্যই কি তাহলে ওই সিভিক পুলিশ কর্মীকে দোলা সেনের ‘সুপারিশ’ অনুযায়ী ছুটিতে পাঠালো বিধাননগর কমিশনারেট?

SITARAM YECHURY ON YOGA - সাংবাদিকরা এদিন মোদী সরকারের তরফে ‘যোগদিবস’ পালনের কর্মসূচি সম্পর্কে প্রশ্ন করলে ইয়েচুরি বলেন, সুস্বাস্থ্যের জন্য যোগাসনের প্রয়োজন রয়েছে। কিন্তু দেশের মানুষ বাঁচবে কিনা আজ এই প্রশ্নই সবচেয়ে জরুরি হয়ে সামনে এসেছে। স্রেফ হিন্দুত্বের অ্যাজেন্ডা নিয়েই মোদী এই দিবস নিয়ে দেশজোড়া প্রচারে নেমেছে। যোগাসন তো সুস্বাস্থ্যের জন্য। কিন্তু দেশের ৫৩শতাংশ শিশুই আজ অপুষ্টির শিকার। প্রতি এক হাজার শিশুর মধ্যে ৫২জন শিশুর মৃত্যু হয় পাঁচ বছর বয়স হওয়ার আগেই। যোগাসন শরীরে অক্সিজেন জোগানের কাজ করে। কিন্তু দেশের প্রতিটা মানুষের পর্যাপ্ত অক্সিজেনের জোগান দেওয়া যাচ্ছে কি? এমনকি একটি কুকুরও ঘুম থেকে উঠে আড়মোড়া ভেঙে যোগের মতোই শরীর টান টান করে দেয়। কিন্তু এসব ভাবনা নিয়ে মোদীর যোগদিবসের প্রচার সাড়ম্বরে পালিত হচ্ছে না, হচ্ছে হিন্দুত্বের আরও বেশি প্রচারের ভাবনা নিয়ে। বিশেষত হিন্দু রাষ্ট্রের প্রচার করার লক্ষ্য নিয়েই এই যোগদিবসের ভাবনা।

SITARAM SAYS NO TO ALLIANCE WITH CONGRESS - কলকাতা, ২২শে জুন— কোনোভাবেই কংগ্রেসের সঙ্গে কোনরকম ফ্রন্ট বা জোট গড়া সম্ভব নয় বলে জানালেন সি পি আই (এম)-র সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি। সোমবার কলকাতায় মুজফ্‌ফর আহ্‌মদ ভবনে সি পি আই (এম)-র রাজ্য কমিটির সভা চলাকালীন সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে একথা বললেন ইয়েচুরি। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে সীতারাম ইয়েচুরি বলেন, ২১তম পার্টি কংগ্রেসেই আমরা স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছি কংগ্রেস এবং বি জে পি সম্পর্কে আমাদের অবস্থান। এই দুই রাজনৈতিক দলই নয়া উদারনীতির পথে চলছে। কোনোভাবেই কংগ্রেসের সঙ্গে কোনরকম ফ্রন্ট বা জোট গড়া সম্ভব নয়। পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য গৌতম দেবের মন্তব্য বলে প্রচারিত সংবাদ সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে ইয়েচুরি বলেন, গৌতম দেব পার্টির কাছে চিঠি দিয়ে জানিয়েছেন এ প্রসঙ্গে তাঁর মন্তব্য নিয়ে যে বিভ্রান্তি ঘটেছে । তিনি কী কী বলেছেন এবং কী কী বলেননি তা পার্টির রাজ্য কমিটিকে চিঠি দিয়ে জানিয়েছেন। পার্টি কংগ্রেসে এ প্রশ্নে আমাদের সিদ্ধান্তকে কোনভাবেই লঙ্ঘন করছেন না গৌতম দেব। সেকথা জানিয়েই তিনি চিঠি দিয়েছেন। সাংবাদিকদের প্রশ্ন ছিল, সি পি আই (এম) কি একক শক্তি হিসেবে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে লড়তে পারবে? জবাবে ইয়েচুরি জানান, সি পি আই (এম) দীর্ঘদিন ধরেই একক শক্তি হিসেবে নয়, বামফ্রন্টগতভাবেই এরাজ্যে রাজনৈতিক লড়াইতে শামিল। ইয়েচুরি এদিন আরো বলেন, কেন্দ্রের মোদী সরকারের সর্বাত্মক বিরোধিতায় সংসদের মধ্যে লড়াইয়ে আমরা আছি। সেখানেও কোনও কোনও ইস্যুতে কংগ্রেস দলও বি জে পি সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে শামিল হচ্ছে। সেই দৃষ্টান্ত তো নানা প্রশ্নেই রয়েছে। যেমন ভূমি বিলের প্রশ্নে সংসদের মধ্যে আমাদের সঙ্গে কংগ্রেসের বিরোধিতাও ছিল। একসঙ্গে রাষ্ট্রপতির কাছেও স্মারকলিপি পেশ করতে গিয়েছি আমরা। কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট বা ফ্রন্ট গড়ে রাজনৈতিক লড়াই চালানো হবে। এমনকি, শ্রমিক-কর্মচারীদের বিভিন্ন মঞ্চও তো কেন্দ্রের নীতির বিরুদ্ধে একজোট হচ্ছে।

MAMATA BANERJEE BORROWS AGAIN - আজ আবার ১৫০০ কোটি টাকা ঋণ নিচ্ছে রাজ্য সরকার। তিন মাসে ৪০০০ কোটি, চার বছরে ৮৮হাজার কোটি। নিজস্ব প্রতিনিধি কলকাতা, ২২শে জুন — মঙ্গলবার বাজার থেকে আরও ১৫০০ কোটি টাকা ধার করছে মমতা ব্যানার্জির সরকার। এই নিয়ে চলতি আর্থিক বছরের তিন মাসে রাজ্যের ঋণ নেওয়ার পরিমাণ দাঁড়াচ্ছে ৪০০০কোটি টাকা। গত আর্থিক বছরে ঋণ নেওয়ার নিরিখে পশ্চিমবঙ্গ শীর্ষ স্থানে পৌঁছেছিল। ২০১৪-১৫-তে বাজার থেকে রাজ্য সরকার ধার নিয়েছিল ২১হাজার ৯০০কোটি টাকা। গত চার বছরে বারবার বাজার থেকে টাকা ধার করেছেন মমতা ব্যানার্জি। সেই ধারের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৮৬হাজার ৭৬৪কোটি টাকা। মঙ্গলবার ধার নেওয়া আরও দেড় হাজার কোটি সেই পরিমাণ আরও কিছুটা বাড়িয়ে দেবে। প্রসঙ্গত, বামফ্রন্ট সরকারের চৌত্রিশ বছরে রাজ্যের বাজার থেকে নেওয়া ঋণের পরিমাণ ছিল ৭২হাজার কোটি টাকা। যার মাত্রা ইতিমধ্যেই পেরিয়ে গেছে তৃণমূল কংগ্রেসের সরকার। যদিও মমতা ব্যানার্জি বারবার প্রচার করেন যে, বামফ্রন্ট সরকার ১লক্ষ ৯২হাজার কোটি টাকা ঋণ করে গেছে। বাস্তবে তা নয়। বাজার থেকে চৌত্রিশ বছরে ধার ওই ৭২হাজার কোটি টাকা। যে ঋণ হয়েছিল বামফ্রন্ট সরকারের সময়কালে তার মধ্যে ছিল স্বল্প সঞ্চয়ের খাতে ঋণ। রাজ্যে যত অর্থ স্বল্পসঞ্চয়ে সংগৃহীত হয়, তার একটি অংশ কেন্দ্রীয় সরকারের আইন অনুযায়ী বাধ্যতামূলকভাবে রাজ্য সরকারকে নিতে হয়। চিট ফান্ডগুলির রমরমা আটকে গিয়েছিল বামফ্রন্ট সরকারের সময়কালে, কারণ ওই সময়ে স্বল্পসঞ্চয়ে পশ্চিমবঙ্গ দেশের মধ্যে অগ্রগণ্য ছিল। সেই কারণে, কেন্দ্রীয় আইন অনুসারে ৭৯হাজার কোটি টাকা ঋণ হয় কেন্দ্রের কাছে। বাজারে নয়। তাছাড়া কেন্দ্রীয় পরিকল্পনা খাতের বরাদ্দের ৭০শতাংশ রাজ্য সরকারকে ঋণ হিসাবে দেওয়া হয়। দীর্ঘদিন ধরে এর বিরোধিতা করেছে বামফ্রন্ট। যদিও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী থাকাকালীন মমতা ব্যানার্জি রাজ্যের স্বার্থে এই নিয়ে কখনও বলেননি। সেই ঋণের পরিমাণ ছিলো ১২হাজার ৩০০কোটি টাকা বামফ্রন্ট সরকারের সময়কালে। নাবার্ডসহ বিভিন্ন কেন্দ্রীয় প্রতিষ্ঠানের সাহায্য থেকে রাজ্যের চৌত্রিশ বছরে ঋণ দাঁড়ায় ৮হাজার ৫০০কোটি টাকা। পি এফ তহবিলে ঋণের পরিমাণ ছিলো ৮হাজার কোটি টাকা। কেন্দ্রীয় সরকার আর্থিক বছরের শেষ লগ্নে টাকা পাঠানোয় কখনও কখনও টাকা খরচ করা যায় না। খরচ না হওয়া ওই টাকা পরের আর্থিক বছরের ধারের তালিকায় ঢুকে পড়তো। এমন ১২হাজার কোটি টাকাও চৌত্রিশ বছরে ঋণের তালিকায় রয়েছে। এইসব নিয়ে ঋণের পরিমাণ দাঁড়ায় ১লক্ষ ৯২হাজার কোটি টাকা। মমতা ব্যানার্জির সরকার চার বছরে বাজার থেকেই ঋণ নিয়েছে বামফ্রন্ট সরকারের চৌত্রিশ বছরের থেকে বেশি। চলতি আর্থিক বছরের প্রথম মাসে, অর্থাৎ এপ্রিলে রাজ্য সরকার ১০০০কোটি টাকা ধার করেছে। মে-তে আরও ১৫০০ কোটি টাকা ঋণ নেওয়া হয়েছে বাজার থেকে। সেই ঋণ নেওয়া হয়েছিল গত ২৬শে মে। এবার মাস পেরনোর আগেই আবার ১৫০০কোটি টাকা ধার নেওয়া হচ্ছে বাজার থেকে। কলকাতা, ২২শে জুন — সোমবার নবান্নে অর্থদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এই জুনে আরও এগারোটি রাজ্য বাজার থেকে ধার নিচ্ছে। রিজার্ভ ব্যাঙ্ক সূত্রে জানা গেছে সর্বাধিক ঋণ নিচ্ছে উত্তর প্রদেশ — ১৬০০কোটি টাকা। তারপরেই স্থান পশ্চিমবঙ্গের।

Sunday, June 21, 2015

The Prime Minister should break his "deafening silence" and move decisively to secure the resignation of Swaraj and Raje. In the interest of the country....The sooner the Foreign Minister and the Rajasthan Chief Minister resign, the better it will be.

People of the nation expect that after the International Yoga Day, the maun-vrat (silence) of the Prime Minister is broken and the PM speaks something over this issue and also take some firm steps.

The PM has spoken about corruption and black money but here is a case of clear double standards.

In fact, Rajasthan Chief Minister Vasundhara Raje's son entered into financial transactions with Lalit Modi, the proclaimed offender.

The former IPL boss was a proclaimed offender. Misuse of position and conflict of interest on the part of the External Affairs Minister is most objectionable and regrettable.

On one hand, the Prime Minister talks of bringing back black money and fighting corruption while on the other his senior colleagues, External Affairs Minister Sushma Swaraj and Rajasthan Chief Minister Vasundhara Raje are supporting somebody who has broken the laws of the land and against whom Enforcement Directorate has filed cases.

Prime Minister Narendra Modi has been adopting "double standards" on corruption. He must break his silence on Lalit Modi issue and seek the resignation of External Affairs Minister Sushma Swaraj and Rajasthan Chief Minister Vasundhara Raje.

RACHPAL SINGH - উত্তর প্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মায়াবতী, বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লালুপ্রসাদ যাদব এবং কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহের সঙ্গে একসারিতে ঠাঁই পেলেন পশ্চিমবঙ্গের মন্ত্রী রচপাল সিং। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রিসভার ঐ সদস্য প্রকাশ্যে পুলিশের পদসেবা গ্রহণ করলেন। রাজ্য সচিবালয়ে শিল্পী রামকিঙ্কর বেইজের প্রতিকৃতিতে মালা দিতে গিয়ে জুতো খোলেন রচপাল সিং। মালা দেওয়ার পর মন্ত্রীর পায়ে জুতো পরিয়ে দেন তার নিরাপত্তা রক্ষী। সর্বস্তরের পুলিশ প্রশাসন বর্তমানে রাজ্যের শাসকদলের আজ্ঞাবহে পরিণত হয়েছে। প্রকাশ্যে মন্ত্রী পায়ের জুতোয় দড়ি বেঁধে দেওয়া সেই দলদাসত্বেরই একটি নিদর্শন। মায়াবতী উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন হেলিকপ্টার থেকে নামার পর তাঁর জুতো পরিষ্কার করে দিয়েছিলেন সঙ্গী নিরাপত্তা অফিসার। সমস্তরকম রীতি, নীতি, প্রশাসনিক কাঠামোকে উপেক্ষা করে এই দাসত্বকে উপভোগ করেছিলেন মায়াবতী। এই ধরনের দাসত্বের আরো নজির দেখা গেছে লালুপ্রসাদ যাদব এবং রাজনাথ সিংহকে কেন্দ্র করে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গে এই ধরনের ঘটনা এই প্রথম। প্রকাশ্যে মন্ত্রীর জুতোর ফিতে বাঁধছে যে পুলিশ তারই ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ গোপনে শাসকদলের বেআইনি নির্দেশ পালন করছে। তৃণমূল ক্ষমতায় আসার পর থেকেই এই দলদাসবৃত্তির সূচনা। রাজ্য পুলিশের প্রাক্তন ডিজি সাংবাদিক বৈঠক চলার সময় শাসকদলের নেতার টেলিফোন নির্দেশে বয়ান বদলে দিয়েছিলেন। মাওবাদীদের শিলদা ক্যাম্পে অস্ত্র লুটের সঙ্গে তথ্য প্রমাণ ছাড়াই সি পি আই (এম)-কে জড়িয়ে দেন ঐ ডিজি। পরবর্তীকালে অবসরের পর ঐ মিথ্যা বয়ানের পুরস্কারও তিনি পেয়েছেন মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান পদে নিয়োগের মধ্য দিয়ে। কলকাতার পুলিশ কমিশনার মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে কালীপুজোর অনুষ্ঠানে হাজির হয়ে প্রসাদ পেয়েছেন। আবার ঐ কমিশনারকেই সরে যেতে হয়েছে তৃণমূল দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে অভিযান করার অপরাধে। তৃণমূল দুষ্কৃতীদের গুলিতে নিহত হন কলকাতা পুলিশের এক অফিসার। তৃণমূলের বরো চেয়ারম্যান সরাসরি অভিযুক্ত ছিলেন ঐ খুনের সঙ্গে। পুলিশকর্মীর ঐ মৃত্যুর পর বাহিনীর চাপে বাধ্য হয়ে কমিশনার ঐ দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করে। কিন্তু কমিশনার রেহাই পাননি মুখ্যমন্ত্রীর রোষ থেকে। এসব ঘটনাই পুলিশ কর্তাদের শাসকদলের আজ্ঞাবহে পরিণত করেছে। এবারের কলকাতা কর্পোরেশন নির্বাচনে থানার ওসি থেকে কমিশনার পর্যন্ত নীরবে দেখেছেন ভোটলুট। কারণ ভোট সন্ত্রাস বন্ধ করার সাহস হারিয়েছে পুলিশবাহিনী। সারদা চিট ফান্ড কেলেঙ্কারিতে তৃণমূল নেতাদের নাম যাতে ফাঁস না হয় সেজন্য রাজ্য পুলিশের বশংবদ অফিসাররা শেষ চেষ্টা করেছে। রাজ্য পুলিশের বিশেষ তদন্তকারী দলের অনুসন্ধান থেকে স্পষ্ট হয়ে গেছে তারা তৃণমূল নেতা-মন্ত্রীদের স্পর্শ করতে চাননি। সি বি আই তদন্ত শুরু হওয়ার পর যে তথ্য বেরিয়ে এসেছে তাকে আড়াল করা হয়েছিল রাজ্য পুলিশের তদন্তে। কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পসে গন্ডগোল বাধানোর জন্য দায়ী টি এম সি পি কর্মীদের গ্রেপ্তার করেনি পুলিশ। গ্রেপ্তার হলেও তারা অল্পসময়ে জামিন পেয়েছে নবান্নের নির্দেশে। অধ্যক্ষ, অধ্যাপক, উপাচার্য, প্রধান শিক্ষক এঁরা নির্যাতিত হলেও পুলিশ নির্বিকার। কারণ, নবান্নের নির্দেশে চোখ বুজে থাকতে হচ্ছে পুলিশকে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষা, নাগরিক নিরাপত্তা দেওয়ার অধিকার বা সাহস নেই পুলিশের। এরাজ্যের পুলিশকে তৃণমূলের দলদাস হিসেবে তাদের স্বার্থরক্ষা করতে হচ্ছে। উচ্চপদস্থ অফিসারদের শাসকদলের আজ্ঞাবহন করা আর সাধারণ পুলিশকর্মীর মন্ত্রীকে জুতো পরিয়ে দেওয়া সমার্থক হয়ে উঠেছে। - See more at: http://ganashakti.com/bengali/news_details.php?newsid=68165#sthash.wIc48CuR.dpuf

DEBAPRIYA CHATTOPADHYAY - দোষীকেই প্রশ্রয় মুখ্যমন্ত্রীর মেয়রের ভাইঝিকে ‘বাচ্চা মেয়ে’ বলে দুষলেন পুলিশকেই নিজস্ব প্রতিনিধি কলকাতা, ২৬শে মে— মুখ্যমন্ত্রীর মুখে এবার ‘বাচ্চা মেয়েদের ঘটনা’। বেপরোয়া গাড়ি চালিয়ে ধাক্কা মারা এবং তারপরে ট্রাফিক পুলিশকর্মীকে নিগ্রহ করার ঘটনায় অভিযুক্ত কলকাতার মেয়রের ভাইঝিকে ‘বাচ্চা মেয়ে’ বলে সার্টিফিকেট দিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। আর লাইসেন্স দেখতে চেয়ে নিগৃহীত পুলিশ কর্মীকে দোষ দিলেন স্পর্ধা দেখানোর জন্য, পরামর্শ দিলেন কাউন্সেলিংয়ের। রায়গঞ্জে তৃণমূল নেতারা অধ্যক্ষকে পেটানোর পরে মুখ্যমন্ত্রী সাফাই দিয়ে বলেছিলেন, ছোটো ছোটো ছেলেদের ঘটনা। এবারের ঘটনাটি নিয়ে মঙ্গলবার বিধানসভায় দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বলেছেন, বাচ্চা মেয়ের একটা ঘটনা, তারজন্য পুলিশ লাইসেন্স সিজ করে নেবে? কনস্টেবল এরকম করতে পারে নাকি? আমার মনে হয় এদের কাউন্সেলিং দরকার। গত শুক্রবার রাতে রাসবিহারী মোড়ে কলকাতার মেয়র শোভন চ্যাটার্জির ভাইঝি দেবপ্রিয়া চট্টোপাধ্যায় রেস্তোরাঁয় পার্টি সেরে বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে গাড়ি চালিয়ে ফেরার পথে এক পথচারীকে ধাক্কা মারেন। কর্তব্যরত ট্রাফিক কনস্টেবল চন্দন পান্ডে গাড়ি আটকে দেবপ্রিয়ার লাইসেন্স দেখতে চান। কিন্তু মেয়রের পরিচয় দিয়ে দেবপ্রিয়া এবং তাঁর বন্ধুরা লাইসেন্স দেখানোর বদলে কনস্টেবলকে মারধর করেন। নিগৃহীত চন্দন পান্ডে থানায় দেবপ্রিয়া চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ করলেও পুলিশ তাঁকে তো ধরেইনি, উলটে চন্দন পান্ডেকে ছুটিতে পাঠিয়েছে। মঙ্গলবার বিধানসভায় এই ঘটনাসহ রাজ্যে পুলিশের ওপরে আক্রমণের সাম্প্রতিক ঘটনাগুলি নিয়ে মুলতবি প্রস্তাব তুলতে চেয়েছিলেন বামফ্রন্ট বিধায়করা। প্রস্তাব নিয়ে আলোচনার অনুমতি না মেলায় তাঁরা অধিবেশন কক্ষ থেকে ওয়াক আউট করেন। বিধানসভায় তখন নিজের চেম্বারে ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। বিরোধী দল কক্ষত্যাগ করার কয়েক মিনিটের মধ্যেই তিনি বিধানসভায় ঢোকেন। তারপরে কংগ্রেস বিধায়ক মানস ভুঁইয়া মালদহে হকার উচ্ছেদ নিয়ে উদ্বেগজনক ঘটনা সম্পর্কে মুখ্যমন্ত্রীকে বিবৃতি দিতে অনুরোধ করতেই মুখ্যমন্ত্রী উঠে দাঁড়ান এবং প্রথমেই মেয়রের ভাইঝিকে ‘বাচ্চা মেয়ে’-র সার্টিফিকেট দিয়ে দিলেন। দেবপ্রিয়া চট্টোপাধ্যায় যে রাতে কাণ্ডটি ঘটান, সেদিনই দুপুরে বিধানসভায় দাঁড়িয়ে মমতা ব্যানার্জি স্বরাষ্ট্র দপ্তরের বাজেট বিতর্কে অংশ নিয়ে বলেছিলেন, রাজ্যে আইনশৃঙ্খলায় অবনতির কোনো ঘটনাই ঘটেনি। সব অপপ্রচার, কুৎসা। এদিনও বিধানসভায় বলতে উঠে পুলিশ পেটানোর ঘটনাকে কোনো ঘটনাই নয় বোঝাতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বাচ্চা মেয়েদের একটি ঘটনা ঘটেছে, তা নিয়ে এত রাজনীতির কী আছে! এরকম ঘটনা রাস্তায় আপনাদের সঙ্গে ঘটে না? বিধানসভার গেটের বাইরে পুলিশের সঙ্গে বিধায়কদের গোলমাল হয়নি? সাংবাদিকদের সঙ্গে হয় না?’ যা ঘটেছে তার দায়ও পুলিশ কর্মীর ঘাড়ে চাপিয়ে দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘পুলিশের প্রতি আমার সিমপ্যাথি আছে। কিন্তু সব রাজনীতিক যেমন সৎ নয়, সব পুলিশও সৎ হয় না। পুলিশের মধ্যেও ১শতাংশ থাকে। অনেকেই ভালো কাজ করছেন। কিন্তু কেউ কেউ উত্তেজিত হয়ে পড়েন। বাচ্চা মেয়েদের ঘটনায় পুলিশ লাইসেন্স সিজ করে নেবে? কনস্টেবলের লাইসেন্স সিজ করার অধিকার আছে? আমি মনেকরি শান্ত হয়ে কাজ করলে ভালো কাজ হয়। সবার কাউন্সেলিং দরকার।’ মুখ্যমন্ত্রীর এই কথার পরে দেবপ্রিয়া চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত কেমন হবে তা স্পষ্ট হয়ে গেছে। তবে মুখ্যমন্ত্রী একথাও বলেছেন, ‘আমি তদন্তে ইন্টারফেয়ার করছি না। কার বাড়াবাড়ি সেটাও বলছি না।’ মালদহে গুলি চালানো ও পুলিশ কনস্টেবলের মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, মালদহের ঘটনা দুর্ভাগ্যজনক। প্রথমে আর পি এফ মেরেছে, তারপরে হকাররা মেরেছে। আইনশৃঙ্খলা রাজ্যের বিষয়, কিন্তু কাল আর পি এফ একতরফাভাবে হকারদের তুলতে গেছে। রাজ্যের সঙ্গে কথা বলেনি। এটা আর পি এফ –এর ঘটনা। কিন্তু দায় রাজ্যের ঘাড়ে এসে পড়ে। বি এস এফ গুলি চালালেও আমাদের ঘাড়ে দায় এসে পড়ছে। আমরা জোর করে কাউকে উচ্ছেদের বিরুদ্ধে। হকারদের পুনর্বাসন না করে উচ্ছেদ করার বিরুদ্ধে। হকারদের সঙ্গে কথা বলে বুঝিয়ে সুঝিয়ে করলে এত ঝামেলা হতো না। ট্রেন ঠিকমতো চালাতে যা করতে হয় করতে হয় করুক, কিন্তু হকারদের সঙ্গে কথা বলে করুক। মুখ্যমন্ত্রীর অভিযোগ, সি পি আই (এম), কংগ্রেস, বি জে পি এক হয়ে গেছে। রামধনু তৈরি করছে। সবাই মিলে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে কুৎসা করছে। বিরোধীরা কোনো দায়িত্বশীল আচরণ করছে না। রাস্তায় যখন তখন বসে পড়া, প্রতিদিন বন্ধ করা, এসব আমরা কখনো করিনি। কিন্তু এখন নেগেটিভ কাজকেই মিডিয়াতে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।

MODI IN USA - ‘ফাঁকা আওয়াজ’, ‘ভাঁওতাবাজি’ বাক্যবাণে মোদী সরকারকে বিঁধলো মার্কিন দুই পত্রিকা *****************************************************************************সংবাদ সংস্থা নিউ ইয়র্ক, ২৬শে মে — ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ আসলে ফাঁকা আওয়াজ। মোদী সরকারের এক বছর পূর্তির প্রচারের গ্যাসবেলুন প্রকারান্তরে এই ভাষাতেই ফাটিয়ে দিলো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দুই বাঘা সংবাদমাধ্যম— নিউ ইয়র্ক টাইমস এবং ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল। ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ প্রকল্পকে ‘স্রেফ ভাঁওতাবাজি’ বলে কটাক্ষ করেছে তারা। ভারতে প্রত্যাশামাফিক কর্মসংস্থানের বৃদ্ধি পায়নি বলে দুই সংবাদমাধ্যমই স্পষ্ট ভাষায় জানিয়েছে। প্রসঙ্গত, নিউ ইয়র্ক টাইমস এবং ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল— এই দুই প্রচার মাধ্যমের কড়া ভাষার সমালোচনায় স্পষ্টতই বিব্রত মোদী সরকার। মোদী জমানার এক বছর পূর্তি উপলক্ষে ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল-এর একটি পর্যালোচনা রিপোর্টে বলা হয়েছে, পরিবর্তন ও অর্থনৈতিক সংস্কারের আশায় এক বছর আগে নরেন্দ্র মোদীর হাতে দেশের ভার তুলে দিয়েছিল ভারতের ভোটারদের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ। ক্ষমতায় আসার পর উৎপাদন এবং কর্মসংস্থান বৃদ্ধির লক্ষ্যে ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ অভিযান হই হই করে শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। উৎপাদনে গতি বাড়িয়ে কর্মসংস্থানের উদ্দেশ্যে এই অভিযান করলেও এক বছর পর দেখা যাচ্ছে যত ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে বলা হয়েছিল তত সাফল্য আসেনি। বস্তুত গোটা বিষয়টি হয়ে দাঁড়িয়েছে অতিরঞ্জিত প্রচার মাত্র। তাঁর এই অভিযান প্রতারণা ছাড়া আর কিছুই নয়। অর্থনৈতিক বিকাশের মাপকাঠিতে ফেললেই বোঝা যাবে, কীভাবে ধুঁকছে ভারতের অর্থনীতি। এই রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে, গতবছর মূলধনী বিনিয়োগ কমে গিয়েছে। গত পাঁচ মাসে রপ্তানিও কমে গিয়েছে। কর্পোরেটদের আয়ও তেমন বাড়েনি। মে মাস পর্যন্ত বিদেশী প্রাতিষ্ঠানিক লগ্নিকারীরাও ভারতীয় শেয়ার বাজার ও বন্ড থেকে ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার তুলে নিয়েছে। উল্লেখ্য, দিল্লির মসনদে নরেন্দ্র মোদী সরকারের এক বছর পূর্তি উপলক্ষে যখন দেশব্যাপী জনসমাবেশ করে এন ডি এ-র সাফল্যের খতিয়ান তুলে ধরছে বি জে পি, ঠিক তখনই প্রধানমন্ত্রীর মেক ইন ইন্ডিয়া প্রকল্পের সমালোচনার মুখর হলো মার্কিন সংবাদমাধ্যমের দুটি বড় স্তম্ভ। অবশ্য শুধু মার্কিন দুই সংবাদপত্রই নয়, মোদী সরকারের ‘আচ্ছে দিন’ আনার প্রতিশ্রুতি যে স্রেফ লোকভোলানো ছিল, সেকথা কোনো রাখঢাক না রেখেই বলছে ভারতের সংবাদমাধ্যম। অনেকেই বলছে, নিজের ঢাক নিজে পিটিয়েই এক বছর কাটিয়ে দিলেন মোদী। ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল-এর মতোই ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সমালোচনায় মুখর নিউ ইয়র্ক টাইমসও (এন ওয়াই টি)। এন ওয়াই টি-র এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাস্তবের মুখোমুখি হওয়া উচিত মোদীর। এই রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে, এই মুহূর্তে কর্পোরেটদের আয়নায় ‘বিদেশ থেকে ভারতের বিকাশ অনেক বেশি বলে আকর্ষণীয় মনে হয়। সেই ছবি দেখলে ধারণা জাগে, খুব শীঘ্রই হয়তো চীনকে ছাপিয়ে বিশ্বের সব চাইতে প্রতিশ্রুতিবান অর্থনীতি গড়ে উঠবে ভারতে। কিন্তু বাস্তবিক এই মুহূর্তে সেখানে কর্মসংস্থানের বিন্দুমাত্র বিকাশ ঘটছে না বললেই চলে। যাও বা হচ্ছে, তার গতি অত্যন্ত শ্লথ। ব্যবসা-বাণিজ্য ‘দেখছি-হবে’ স্তরেই রয়েছে। তার উপর, নরেন্দ্র মোদী সরকারের গায়ে কৃষক-বিরোধী তকমা সেঁটে দিয়েছে বিরোধীরা। মোদী অর্থনৈতিক সংস্কারের রথ আরও কেন দ্রুত গতিতে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন না, সেই খেদ ঝরে পড়েছে এন আই টি-র প্রতিবেদনে। বলা হয়েছে, এমন প্রচার করে মোদী ক্ষমতায় এসেছিলেন যে ভাবা হয়েছিল তিনি যাবতীয় বাধা বিপত্তি উড়িয়ে দিয়ে ভারতের অর্থনৈতিক বিকাশের হার কয়েক শতাংশ বাড়িয়ে দেবেন, আরও কড়া করবেন শ্রম আইন বা জমি অধিগ্রহণ আইন। ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল-এর প্রতিবেদনে ঝরে পড়েছে হতাশা। লিখেছে, নিউ ইয়র্ক থেকে প্যারিস, আবার সেখান থেকে সিডনি ঘুরে বেড়ালেও অর্থনীতির মূল ক্ষেত্রগুলির সংস্কারে সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছেন মোদী। ফলে বিনিয়োগকারীরা বীতশ্রদ্ধ, যাঁরা ভেবেছিলেন সরকার পরিবর্তন হলে অর্থনৈতিক চিন্তাভাবনারও আমূল বদল ঘটবে।

MAMATA GOES TO LONDON - আকাশ সফর ****************************************************************************************চলতি গ্রীষ্মে লন্ডন সফরে যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পশ্চিমবঙ্গে শিল্পে বিনিয়োগ আনাই নাকি এই বিদেশ সফরের উদ্দেশ্য। যদিও মুখ্যমন্ত্রীর সফরসঙ্গীর তালিকায় শিল্পপতির তুলনায় শিল্পীর সংখ্যাই বেশি। ফলে এই সফরের ফলাফলও যে সিঙ্গাপুরের মতোই শূন্যই হবে তা বলাইবাহুল্য। রাজ্যের উন্নয়ন ও সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচীর দিকে না তাকিয়ে চটকদারি শিল্প সম্মেলনের ও বিদেশ সফরের পথই বেছে নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রীর পছন্দের ওপরই এরাজ্যে প্রকল্প স্থির হয়। অন্যসব প্রকল্পকে উপেক্ষা করে রাজ্যে ২১টি হেলিপ্যাড তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। এই হেলিপ্যাড তৈরি কোন উদ্দেশ্যে তা পরিষ্কার নয় রাজ্যবাসীর কাছে। মালদহ, বালুরঘাট, দুর্গাপুর, শান্তিনিকেতন, গঙ্গাসাগর ও হলদিয়ায় হেলিকপ্টার পরিষেবা চালু করেছিল রাজ্য সরকার। গত দেড় বছরে ব্যবসায়িক ভিত্তিতে এইসব রুটে যাত্রী মেলেনি বললেই চলে। রাজ্যে পর্যটক ও বিনিয়োগ টানার জন্যই এই হেলিকপ্টার পরিষেবা চালু করা হচ্ছে বলে রাজ্য সরকার জানিয়েছিল। কিন্তু অন্যান্য পরিকাঠামোর অভাবে বিনিয়োগ না আসার ফলে এই হেলিকপ্টার পরিষেবার কোনো প্রয়োজন দেখা যায়নি। গত চার বছরে রাজ্যে বাণিজ্যিক কার্যকলাপ বৃদ্ধি পায়নি। নতুন যে ২১টি হেলিপ্যাড তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে তার মধ্যে রয়েছে এমন কয়েকটি জায়গা যার পর্যটনগত বা বাণিজ্যিক দিক থেকে কোনো গুরুত্ব নেই। হাওড়ার ডুমুরজলা বা হুগলীর চুঁচুড়ায় হেলিপ্যাড বানানোর আদৌ কি কোনো প্রয়োজন আছে? তৃণমূল সরকারের আমলে পর্যটন শিল্পের উন্নয়ন নিয়ে অনেক প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। কলকাতাকে লন্ডন, দীঘাকে গোয়া এবং উত্তরবঙ্গকে সুইজারল্যান্ড বানানোর ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সাগর, সুন্দরবনে বিনিয়োগ আনা হবে বলে মুখ্যমন্ত্রী দলবল নিয়ে সফর করেছেন। নতুন নতুন নামকরণ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। সচিব স্তরে কমিটিও গড়া হয়েছে পর্যটন শিল্পের জন্য পরিকাঠামো তৈরির। দীঘায় পর্যটন উৎসবও করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। উত্তরবঙ্গে পর্যটন কেন্দ্র গড়া হবে বলে কয়েকটি জায়গা চিহ্নিত করেছেন। কিন্তু কোনো পরিকাঠামো তৈরি হয়নি পূর্ণাঙ্গভাবে। বিচ্ছিন্নভাবে হেলিপ্যাড তৈরি বা হেলিকপ্টার পরিষেবা চালু করা অর্থহীন ছাড়া কিছু নয়। শিল্পস্থাপন এবং পর্যটন শিল্পের উন্নয়নের জন্য প্রাথমিকভাবে সড়ক উন্নয়ন, জমি, বিদ্যুৎ সরবরাহ, জল এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নতি ঘটানো প্রয়োজন। গত ৪ বছরে এই পরিকাঠামো উন্নয়নের কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। রাজ্য সরকার কোনো সুনির্দিষ্ট জমিনীতি গ্রহণ করেনি। তারফলে শিল্পায়নের জন্য জমি মেলেনি। আবার কৃষকের স্বার্থও সুরক্ষিত হয়নি। নতুন বিনিয়োগের কোনো সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না। বরং চালু শিল্পগুলি বন্ধ হয়ে যাচ্ছে তোলাবাজি, হুমকির ফলে। প্রশাসনের কাছ থেকে কোনো সহযোগিতা মেলেনি কারণ এই তোলাবাজির মূল নায়ক তৃণমূল নেতারা। আইনশৃঙ্খলার চরম অবনতির ফলে বিনিয়োগকারীরা এরাজ্যে আসতে ভরসা পাচ্ছেন না। রাজ্য প্রশাসনের টালমাটাল অবস্থা গোটা দেশে পশ্চিমবঙ্গ সম্পর্কে নেতিবাচক বার্তা নিয়ে গেছে। সরকারি সহযোগিতার অভাবে পর্যটন শিল্পেও রাজ্যে উন্নয়ন ঘটেনি। এই পরিস্থিতিতে হেলিপ্যাড তৈরির কোনো বাণিজ্যিক প্রয়োজন থাকতে পারে না। হেলিপ্যাডগুলি সরকারি কর্তাব্যক্তিরা প্রয়োজনে বা অপ্রয়োজনে ব্যবহার করতে পারে। তবে নির্বাচনের আগে এই হেলিপ্যাড তৈরির নির্দেশ কী রাজনৈতিক কারণে? মুখ্যমন্ত্রী হেলিকপ্টার বা ছোট বিমানে ভ্রমণ করতে ভালবাসেন। নির্বাচনের সময় তিনি হেলিকপ্টারে বা ছোট বিমানেই ঘুরে বেড়িয়েছেন। মাঝেমধ্যে দিল্লি সফরেও বেসরকারি ছোট বিমান ব্যবহার করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। আকাশপথে রাজ্য সফরের লক্ষ্যে মুখ্যমন্ত্রী এই ২১টি হেলিপ্যাডের পরিকল্পনা করেছেন। সরকার বা দলের অথবা বেসরকারি সংস্থার খরচে মুখ্যমন্ত্রীর রাজনৈতিক অথবা প্রমোদ ভ্রমণের জন্যই এই হেলিপ্যাড প্রোজেক্ট। এই প্রকল্প রাজ্যের প্রয়োজনে নয়, তৃণমূল নেত্রীর পছন্দে।

DR. SURYA KANTA MISHRA - একসঙ্গে লড়াই করুন সব অংশের আক্রান্তরা - আহ্বান সূর্য মিশ্রের *****************************************************************************************************************************চুঁচুড়া, ২৪শে মে— সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে তীব্র লড়াইয়ের বার্তা দিতে পথে নামলেন হুগলী জেলার মানুষ। জেলায় হাজার হাজার মিথ্যে মামলায় জড়িয়ে দেওয়া হয়েছে বামপন্থী কর্মীদের থেকে বহু সাধারণ মানুষকে। তীব্র সন্ত্রাস ও আক্রমণের হুমকিতে ঘরে ফিরতে পারছেন না অনেকেই। গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার দাবিতে পথে নেমে রবিবার সোচ্চার প্রতিবাদ জানালেন মানুষ। তাঁদের এই দাবিকে সমর্থন করে সি পি আই (এম) রাজ্য সম্পাদক ও রাজ্যের বিরোধী দলনেতা সূর্য মিশ্র এদিন বলেন, চারদিক থেকে ভয়ঙ্কর আক্রমণ নেমে আসছে কৃষক, শ্রমিক থেকে শুরু করে সব অংশের সাধারণ মানুষের ওপর। শুধু বামপন্থীদের ওপরেই আক্রমণ হচ্ছে না, এই শাসকদলের সামান্যতম সমালোচনা করলেই আক্রমণ নেমে আসছে সবার ওপর, তা সে তৃণমূলপন্থীই হোন বা বি জে পি-পন্থী। কেউই রেহাই পাচ্ছেন না। তাই সবাই এগিয়ে আসুন, আমরা একসাথে লড়াই করি। মুখ্যমন্ত্রী জেনে রাখুন, আমরা আমাদের সর্বশক্তি দিয়ে প্রতিরোধের বার্তা দিতে প্রস্তুত। দরকারে হাজারবার আমরা মিটিং-মিছিল করব। -সূর্য মিশ্র সি পি আই (এম) হুগলী জেলা কমিটির ডাকে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে এদিন ব্যানার, পতাকা, ফেস্টুন নিয়ে পথে নামেন মানুষ। বিশাল এক মিছিলে স্বতঃস্ফূর্তভাবে শামিল হন তাঁরা। মিছিল থেকে মুহুর্মুহু ওঠে স্লোগান। জেলা, রাজ্যে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার দাবির পাশাপাশি পার্টিকর্মী-সমর্থকসহ বহু মানুষের ওপর থেকে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও ঘরছাড়াদের ঘরে ফেরানোর দাবি জানান তাঁরা। ব্যান্ডেল মোড় থেকে শুরু হয় মিছিল। বালিমোড়, চক বাজার, পিপুলপাতি মোড় পেরিয়ে মিছিল শেষ হয় চুঁচুড়া ঘড়ি মোড়ে। মিছিলে সূর্য মিশ্র ছাড়াও ছিলেন সি পি আই (এম) রাজ্য সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য শ্রীদীপ ভট্টাচার্য, পার্টির হুগলী জেলা সম্পাদক সুদর্শন রায়চৌধুরী, পার্টি নেতা বিনয় দত্ত, রূপচাঁদ পাল, দেবকুমার চ্যাটার্জি, স্নেহাশিস রায়, মোজাম্মেল হোসেন, পরিতোষ ঘোষ প্রমুখ। মিছিল যত এগিয়েছে ততই বিভিন্ন এলাকা থেকে মানুষ যোগ দিয়েছেন মিছিলে। রাস্তার মোড়ে মোড়ে মিছিলে শামিল পরিশ্রান্তদের জন্য এগিয়ে দিয়েছেন খাবার জল। বিভিন্ন বাড়িগুলি থেকে বাসিন্দারা এগিয়ে এসে দাঁড়িয়েছেন রাস্তার ধারে। এদিন তাঁদের হাত নেড়ে অভিবাদন জানান সূর্য মিশ্র। এরপর ঘড়ি মোড়ে একটি পথসভা হয়। সেখানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মিতালী কুমার। ঘড়ির মোড়ে আয়োজিত পথসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে সূর্য মিশ্র বলেন, আমাদের রাজ্যে প্রতিদিনই মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন। শুধু বামপন্থীরাই নয়, অন্য বিরোধীরাও সরকারের সমালোচনা করলেই আক্রান্ত হচ্ছেন। এ কোন রাজ্য, যেখানে তৃণমূলের দুষ্কৃতীদের হাতেই খুন হচ্ছেন তৃণমূলীরা। আক্রান্ত হচ্ছেন পুলিশও। গার্ডেনরিচে যখন পুলিশ কর্মী খুন হন, তখন মুখ্যমন্ত্রী দীঘাতে। এই তো অবস্থা! আক্রান্ত হচ্ছেন সংবাদমাধ্যমের কর্মীরাও। এমনকি আক্রান্ত বিচারকও। আর, রাজ্যজুড়ে মহিলারা তো রোজই আক্রমণ, ধর্ষণের শিকার হচ্ছেন। অথচ মুখ্যমন্ত্রী বলছেন, এটি নাকি স্বাভাবিক। রানাঘাটের সিস্টারকে ধর্ষিতা হয়ে দেশ ছেড়ে চলে যেতে হলো। এ কি লজ্জা আমাদের। -সূর্য মিশ্র সূর্য মিশ্র বলেন, মানুষের জীবন-জীবিকার ওপরে আঘাত আসছে। ফসলের দাম পাচ্ছেন না কৃষক। ১কেজি আলু উৎপাদন করতে যদি ৫টাকা ৫০পয়সা খরচ হয়, তাহলে তিনি দাম পাচ্ছেন ৩ টাকা। ধান, পাট কেনার লোক নেই- কৃষক বাঁচবেন কী করে? এসব নিয়ে আন্দোলন করলেই মুখ্যমন্ত্রীর মনে ভয় ঢুকছে। আন্দোলনকে দমন করছেন। কীসের এত ভয়? -সূর্য মিশ্র ঠিক সময়ে ঠিক ঠিকভাবে ভোট করতেই বা ভয় কেন? হাজার হাজার মানুষ মিথ্যা মামলায় জর্জরিত। ঘর ছাড়া বহু কর্মী। তাঁদের কী হবে? মানুষের কাজের কী হবে? মুখ্যমন্ত্রী যা হিসাব দিচ্ছেন, তাতে প্রায় ৫০ লক্ষ লোকের কাজ হওয়ার কথা। তাই হচ্ছে কি? উপরন্তু ব্যবসা করতে গেলে তোলা দিতে হচ্ছে। সিঙ্গুরে কারখানা হলো না। মুখ্যমন্ত্রীর মিথ্যা প্রতিশ্রুতি ছিল মানুষ জমি ফেরত পাবেন। কিন্তু তাও হলো না। -সূর্য মিশ্র প্রতিদিনই বিপদ বাড়ছে সাধারণ মানুষের। বিদ্যুতের দাম বাড়ছে ক্রমশ। নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বাড়ছে। আর ওদিকে কেন্দ্রে বি জে পি-র সঙ্গে আঁতাত চলছে। চলছে চিট ফান্ডের কোটি কোটি টাকা লুঠপাটের দুর্নীতিগুলি চাপা দেওয়ার মরিয়া চেষ্টা। বাংলাদেশের জামাতুল মুজাহিদিন গোষ্ঠীকে গোপনে আহ্বান করছে শাসকদল। তার ফল আমরা দেখলাম সাম্প্রতিক বোমা বিস্ফোরণ কাণ্ডে। -সূর্য মিশ্র যে সরকারের মন্ত্রী জেলে থাকেন, তাদের কাছ থেকে কী ভালো আশা করা যায়? বামফ্রন্ট সরকারের আমলে এরকম কোনোদিন হয়েছে? প্রধানমন্ত্রী কালো টাকা ফিরিয়ে আনবেন বলে ঠিক করেছেন, অথচ রাজ্যের দুর্নীতিগুলি দেখছেন না। তাই কেন্দ্রের বি জে পি ও রাজ্যের তৃণমূলকে হটাতে হলে এবার আরো জোরদার প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। -সূর্য মিশ্র এদিনের সভায় সভাপতিত্ব করেন সুদর্শন রায়চৌধুরী। তিনি বলেন, মত প্রকাশের স্বাধীনতা আর নেই। শুধু আক্রমণ আর আক্রমণ। আরামবাগ, ধনিয়াখালি এলাকাসহ বহু এলাকার মানুষ ঘছাড়া। তাঁদের মধ্যে বৃদ্ধ, মহিলা শিশুও রয়েছেন। মিথ্যে মামলা দেওয়া হয়েছে অনেকের বিরুদ্ধে। আক্রান্তদের ঘরে ফেরাতে হবে। মিথ্যা মামলাগুলি তুলে নিতে হবে প্রশাসনকে। না হলে আরো তীব্র আন্দোলনে নামবেন পার্টিকর্মী-সমর্থকরা। -সূর্য মিশ্র


DOLA SEN - ট্রাফিক কর্মীকে কান ধরে ওঠবোসের নির্দেশ তৃণমূল সাংসদের নিজস্ব সংবাদদাতা দমদম, ১৯শে জুন- এবার আর শুধু শাসানি নয়, কর্তব্যরত ট্রাফিক কর্মীকে রাস্তায় দাঁড়িয়ে কান ধরে ওঠবোস করার নির্দেশ দিলেন তৃণমূলের সাংসদ দোলা সেন। আগেই পুলিশ কর্মীকে চড় মেরে হাত পাকানো এই সাংসদ শুক্রবার রাজারহাটে ট্রাফিক আইন ভেঙে উলটে কর্তব্যরত সিভিক পুলিশ কর্মীকে ‘থাপ্পড় মারবো’ বলে ধমকানোর পর তাঁকে রাস্তাতেই কান ধরে ওঠবোস করার নির্দেশ দেন। সাম্প্রতিক সময়ে সাংসদ প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়, মেয়রের ভাইঝি ও তৃণমূলের আরো বেশ কিছু নেতানেত্রীর পর পুলিশ ধমকানোর তালিকায় আবার নাম তুললেন তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ দোলা সেন। এই ধরনের ঘটনা দোলা সেনের ক্ষেত্রে প্রথম নয়। তৃণমূল কংগ্রেস রাজ্যে ক্ষমতায় আসার কিছুদিনের মধ্যেই দোলা সেনের ‘দিদিগিরি’ প্রত্যক্ষ করেছিলেন রাজ্যবাসী। সেদিন নিবেদিতা সেতুর টোল প্লাজায় ভুল লেনে গাড়ি ঢোকানোর পরে তা আটকান কর্তব্যরত কর্মীরা। গাড়ি থেকে নেমে সপাটে চড় মেরেছিলেন তৃণমূলের এই নেত্রী। সেদিনও কোন মামলা হয়নি। শুক্রবার দুপুরে চিনার পার্কে সিভিক পুলিশ কর্মীকে প্রকাশ্যে চড় মারার হুমকির পরও কোন অভিযোগ দায়ের হয়নি। বরং তৃণমূল নেত্রীর রোষানলে পড়ে ঐ কর্তব্যরত সিভিক পুলিশ কর্মী চাকরি খোয়াবে কিনা সেই সংশয়ই বড় হয়ে দাড়িয়েছে। কর্তব্যরত ট্রাফিক সার্জেনকে সপাটে চড় মারার পরেও তৃণমূলের শাসনে ‘আইন আইনের পথেই’ চলেছে। গ্রেপ্তার তো দূরের কথা মিনিট খানেকের জন্য আটকও করা হয়নি তৃণমূলের সাংসদ প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়কে। কলকাতার মেয়রের ভাইঝি থেকে আবু আয়েশ মণ্ডল, শাসকদলের তকমা থাকলেই ‘সাত খুন মাফ’। ট্রাফিক আইন ভেঙে উলটে পুলিশ কর্মীকেই নিগ্রহের ঘটনায় মেয়রের ভাইঝিও রেহাই পেতে চলেছেন। বরং কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশ কর্মীকেই পাঠানো হয়েছিল ‘লম্বা ছুটিতে’। খোদ মুখ্যমন্ত্রী বিধানসভায় আইন ভাঙা মেয়েরের ভাইঝিকেই সমর্থন করে বলেছিলেন ‘বাচ্চা মেয়ে’। তবে দোলা সেনও সেই ‘বাচ্চা মেয়ের’ তালিকায় পড়ছেন কিনা তাও এখন দেখার। এবার আর শুধু শাসানি নয়, কর্তব্যরত ট্রাফিক কর্মীকে রাস্তায় দাঁড়িয়ে কান ধরে ওঠবোস করার নির্দেশ দিলেন তৃণমূলের সাংসদ দোলা সেন। তৃণমূলের শাসনে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলার এখন এটাই দস্তুর। শুক্রবারের ঘটনা তা যেন আরও একবার স্পষ্ট করলো। কী হয়েছিল শুক্রবার দুপুরে রাজারহাটের চিনার পার্কে? এদিন বেলা সওয়া বারোটা নাগাদ একটা অ্যাম্বাসডার গাড়ি বাগুইহাটি-জোড়ামন্দিরের রাস্তা দিয়ে চিনার পার্কের মুখে আসে। গাড়িটা ডিভাইডারের বাঁদিক দিয়ে না গিয়ে ডানদিক দিয়ে রাজারহাট-নিউটাউনের রাস্তার দিকে যেতে চায়। সেই সময়েই ঐ সিগন্যালে কর্তব্যরত এক সিভিক পুলিশ কর্মী গাড়িটি আটকান। গাড়ির চালককে ঐ পুলিশ কর্মী ট্রাফিক সিগন্যাল কেন ভাঙা হলো সেকথা বলেন। তখন ঐ গাড়ির চালক পাল্টা উত্তর দেন যে গাড়িতে এম পি বসে আছে। তখন ঐ কর্তব্যরত সিভিক পুলিশ কর্মী জানান, এম পি থাকলে কি ট্রাফিক নিয়ম মানা যায় না! এই কথা বলার পরেই গাড়ির পিছন সিটে বসা তৃণমূল নেত্রী দোলা সেন জানালার কাচ নামিয়ে চিৎকার করে বলতে, থাপ্পড় মারবো, আমি এই রাস্তা দিয়েই যাবো। শুরু হয় বচসা। ততক্ষণে রাস্তায় যানজট শুরু হয়ে যায়। লাগোয়া ট্রাফিক বুথ থেকে একজন সাব-ইনস্পেক্টরও ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। তিনি দোলা সেনকে অনুরোধ করেন যাতে গাড়িটি ব্যাক করে তিনি চলে যান। এতে আরও অগ্নিশর্মা হয়ে ওঠনে মমতা ব্যানার্জির ঘনিষ্ঠ এই সাংসদ। রাস্তায় দাঁড়িয়ে পুলিশ কর্মীকে ধমকানো শুরু করেন তিনি। তিনি ঐ সাব ইন্সপেক্টরকে নির্দেশ দেন যাতে তাঁর গাড়ি আটকানো ঐ সিভিক পুলিশ কর্মীকে তাঁর সামনে কান ধরে উঠবোস করতে হবে। যতক্ষণ না রাস্তায় দাড়িয়ে উঠবোস করবে ততক্ষণ আমি যাবো না। এর মধ্যেই বারবার ঐ সিভিক পুলিশ কর্মীকে থাপ্পড় মারা এমনকি চাকরি কেড়ে নেওয়ার হুমকিও দিতে থাকেন এই তৃণমূলী সাংসদ। ততক্ষণে আরও পুলিশ কর্মী ছুটে আসেন। যদিও তাতে নেত্রীর রাগ গলেনি, বরং মেজাজ আরও বেড়ে যায়। তাঁর মেজাজের সামনে পুলিশও তটস্থ হয়ে দাড়িয়ে থাকে। কিছুক্ষণ তা চলার পরে ঐ কর্তব্যরত সিভিক পুলিশের নাম, ঠিকানা সহ তথ্য নিয়ে দোলা সেন রাজারহাট নিউটাউনের দিকে গাড়ি নিয়ে চলে যান। আশ্চর্যের হলো, এত কিছুই পরেও তিনি সেই ট্রাফিক নিয়ম না মেনে গাড়ি ঐ রাস্তা দিয়েই নিয়ে যান। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, তৃণমূলী সাংসদের গাড়ি আটকানো ঐ সিভিক পুলিশের নাম বিভাস রায়। যদিও এদিন ঘটনার কয়েকঘণ্টা পরেই ঐ এলাকায় ট্রাফিকের দায়িত্বে থাকা পুলিস কর্মীদের তুলে নেওয়া হয়। যদিও দোলা সেন পরে দাবি করেছেন, এরকম কোন ঘটনাই ঘটেনি, গোটাটাই মিথ্যা কথা। তবে সংবাদমাধ্যমের সামনে ঐ সিভিক পুলিশ কর্মী বিভাস রায় জানিয়েছেন, গাড়ি রংরুট দিয়ে যাচ্ছিলো বলেই আটকেছিলাম। বলা হলো এম পি আছে, এবং আমি নাকি তাঁকে গালিগালাজ করেছি। গাড়ির কাচ তো তোলা ছিল। তাহলে উনি শুনলেন কী করে আমি গালি দিয়েছি। পরে উনি গাড়ির কাচ নামিয়ে আমাকে থাপ্পড় মারার কথা বলেন’।

MODI-SUSHAMA-BASHUNDHARA RAJE SINDHIA - ললিতকাণ্ডে অভিযুক্তদেরপক্ষেই দাঁড়াচ্ছে বি জে পি নয়াদিল্লি, ১৯শে জুন— ললিত মোদী কাণ্ডে বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের ইস্তফার সম্ভাবনা উড়িয়ে দিলো বি জে পি। একই সঙ্গে, এই প্রথম দলের সর্বভারতীয় নেতৃত্বের পক্ষ থেকে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরারাজে সিন্ধিয়ার পাশে দাঁড়িয়ে বলা হলো, কোনো অন্যায়ের ঘটনা ঘটেনি। জালিয়াতি, তছরূপের দায়ে অভিযুক্ত ললিত মোদীর পাশে দাঁড়ানোর এবং ঘনিষ্ঠ যোগাযোগের একের পর এক তথ্য সামনে আসার পরেও বি জে পি দুই নেত্রীর পাশেই থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ভারতে অভিযুক্ত এবং ‘পলাতক’ ললিত মোদীর ভিসার ব্যবস্থা করার জন্য উদ্যোগ নিয়েছিলেন বিদেশমন্ত্রী। এই ঘটনায় রাজনৈতিক এবং কূটনৈতিক মহলে প্রবল আলোড়ন উঠলেও এর মধ্যে দোষের কিছুই খুঁজে পাচ্ছে না বি জে পি নেতৃত্ব। শুক্রবার দলের দপ্তরে মুখপাত্র সুধাংশু ত্রিবেদী বলেন, কোনো আইনি, পদ্ধতিগত অন্যায় ঘটেনি। দুর্নীতির সংজ্ঞার মধ্যে এ ঘটনা পড়ে না। এ সম্পর্কে বিরোধীদের অভিযোগ হাস্যকর। তারা তিলকে তাল করছে। ভারতে অভিযুক্ত এবং ‘পলাতক’ ললিত মোদীর ভিসার ব্যবস্থা করার জন্য উদ্যোগ নিয়েছিলেন বিদেশমন্ত্রী। রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনিও ললিত মোদীর ভিসা জোগাড়ে সুপারিশ করেছেন। এ সংক্রান্ত নথি স্বয়ং ললিত মোদীই প্রকাশ করেছেন। বসুন্ধরারাজের পুত্রের হোটেল ব্যবসায়ে টাকাও ঢেলেছেন ললিত মোদী। তিনদিন ধরে আপাত-দ্বিধা দেখালেও এদিন বি জে পি মুখপাত্র বলেন, সিন্ধিয়ার বিরুদ্ধে যে নথির কথা বলা হচ্ছে তা এখনও পরীক্ষিত না। তবে, রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দলের নেতৃত্বের যে আলোচনা চলছে তা স্বীকার করে মুখপাত্র বলেন, দলের নেতাদের কাছে সিন্ধিয়া যা ব্যাখ্যা করার করেছেন। ‘প্রমাণ কিছু নেই’, এই দাবিই এদিন বারংবার করতে থাকেন বি জে পি-র মুখপাত্র। বসুন্ধরারাজের পুত্র এবং দলের সাংসদ দুষ্মন্ত্য সিংয়ের ব্যবসা নিয়ে অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে বলা হয়েছে, এ কোনো গোপন বিষয় নয়। সাংসদের আয়কর রিটার্নেও এই তথ্য দেওয়া রয়েছে। কোনো বেআইনি ব্যাপার ঘটেনি। তীব্র সমালোচনার মুখেও সুষমা-বসুন্ধররাজের পাশে দাঁড়ানোর এই রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত পাকা হয়েছে বৃহস্পতিবার রাতে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং দলের সভাপতি অমিত শাহের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বৈঠক করার পরে সরাসরি অভিযুক্তদের সপক্ষেই সওয়াল করার সিদ্ধান্ত হয়। আর এস এস নেতাদের সঙ্গেও শাহ কথা বলেছেন। সিন্ধিয়ার শুক্রবার পাঞ্জাবে যাবার কথা ছিলো। সেখানে রাজনাথ এবং অমিত শাহের সঙ্গে একই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার কথা ছিলো তাঁর। সিন্ধিয়া যাননি, সরকারি ভাবে জানানো হয়েছে ‘পিঠের ব্যথার জন্য’ চিকিৎসকরা না যেতেই পরামর্শ দিয়েছেন। এ নিয়ে রাজনৈতিক জল্পনা হলেও পরে দেখা যায় বি জে পি নেতৃত্ব সিন্ধিয়ার পাশেই থাকছেন। রাজনৈতিক মহলে খবর, ললিত মোদীর ঘটনায় সুষমা-সিন্ধিয়ার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে গেলে হিতে বিপরীত হতে পারে বলে বি জে পি নেতারা মনে করছেন। একদা রাজস্থান এবং ভারতীয় ক্রিকেট মহলে প্রবল প্রতিপত্তিশালী এবং বিপুল বাণিজ্যিক সম্পত্তির মালিক ললিত মোদীর তূণে আরো অনেক তীর রয়েছে। বিপদ বুঝলে তিনি তা ছুঁড়তেও পারেন এমন ইঙ্গিত দিয়েই রেখেছেন। বসুন্ধরারাজে যে তাঁর হয়ে সওয়াল করেছিলেন, একথা ফাঁস করে ললিত মোদী বার্তা দিয়েছেন তাঁর অন্যান্য যোগাযোগের কথাও এভাবেই প্রকাশ হতে পারে। সেই তালিকায় বি জে পি-র সর্বোচ্চ নেতারাও পড়বেন বলে আশঙ্কা করেই এই ঘটনা নিয়ে বেশি না ঘাঁটানোর পথেই যাচ্ছেন বি জে পি নেতারা। সুষমা স্বরাজ ভিসার ব্যাপারে যে উদ্যোগ নিয়েছিলেন তা প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের অনুমতিক্রমেই কিনা, এ প্রশ্নও উঠেছে। সি পি আই (এম) নেতা সীতারাম ইয়েচুরি সংশয় প্রকাশ করে জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী এই কেলেঙ্কারি নিয়ে নীরব কি এই কারণেই? কংগ্রেস শুক্রবার জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রী মুখ না খুললে এবং অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া না হলে সংসদের বাদল অধিবেশনে এই প্রসঙ্গ নিয়ে তোপের মুখে পড়তে হবে সরকারকে। কংগ্রেস নেতা জয়রাম রমেশ এদিন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ললিত মোদীর ‘গভীর আঁতাতের’ অভিযোগও তোলেন। রমেশের অভিযোগ, অমিত শাহের সঙ্গেও ললিত মোদীর যোগাযোগ ছিলো। প্রধানমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ শিল্পপতি গৌতম আদানির সঙ্গে ললিত মোদীর যোগসাজশ রয়েছে।

MAMATA ON CBI - মুখ্যমন্ত্রীর সিবিআই-ভুল, তীব্র কটাক্ষ সূর্য মিশ্রর, সহযোগিতার বার্তা রাজনাথের, বিজেপি’র ‘গভীর চিন্তায়’ নিশ্চিন্ত মমতা! নিজস্ব প্রতিনিধি কলকাতা, ২৬শে মে — পশ্চিমবঙ্গের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে ‘গভীর চিন্তা’ ছাড়া কেন্দ্রীয় সরকারের কিছু করার নেই। এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকার ‘প্রয়োজনীয় সহায়তা করতে পারে।’ তবে মমতা ব্যানার্জি চাইলে। কলকাতা প্রেস ক্লাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং তা জানিয়েছেন মঙ্গলবার দুপুরে। আর সেই ‘সহযোগিতার’ ইঙ্গিতে ভর করে এদিনই বিধানসভায় মমতা ব্যানার্জি বিরোধীদের উদ্দেশে শুনিয়েছেন তাঁর নয়া উপলব্ধি — সি বি আই তদন্ত চেয়ে কোনও লাভ নেই। বি জে পি-তৃণমূল কংগ্রেসের চমৎকার বোঝাপড়া ফুটে উঠলো প্রবল আর্দ্রতার দুপুরে, মঙ্গলবার। এই বিষয়ে তাই নরেন্দ্র মোদী-মমতা ব্যানার্জির একান্ত বৈঠকের কথা মনে করিয়ে দিয়ে বিধানসভায় বিরোধী দলনেতা সূর্য মিশ্রের বক্তব্য,‘‘নজরুল মঞ্চের পিছনে যদি ওনাদের এটি আলোচনা হয়ে থাকে ভালো। পারস্পরিক আলোচনার ভিত্তিতে বি জে পি-তৃণমূল কংগ্রেস এমন পারস্পরিক সাহায্য-সহযোগিতা করতেই পারে।’’ কলকাতা প্রেস ক্লাবে সাংবাদিকদের উপর্যুপরি প্রশ্নের জবাবে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে বলেছেন,‘‘রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি গম্ভীর চিন্তার বিষয়।’’ তারপর বলেছেন, ‘‘অর্থনৈতিক উন্নয়নে এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নতির জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে যে ধরনের সাহায্য রাজ্য চাইবে, কেন্দ্র তা করবে।’’ আবার ওই একই বিষয়ে আর একটি প্রশ্নের জবাবে সিং বলেন,‘‘রাজ্যের আইনশৃঙ্খলার উন্নতিতে অনেক কিছু করার দরকার আছে।’’ মমতা ব্যানার্জির অপশাসনের বিরুদ্ধে কোনও কথা বলেননি রাজনাথ সিং। বিধানসভাতেও মমতা ব্যানার্জি বি জে পি কিংবা মোদী — কারও বিরুদ্ধে কোনও কথা বলেননি। তাঁর আক্রমণের লক্ষ্য ছিল শুধুই সি পি আই (এম)সহ বামফ্রন্ট। বিধানসভায় সি বি আই সম্পর্কে নিজের ‘গবেষণা’ শুনিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর বক্তব্য, ‘‘পলিটিক্যালি যেটা সুট করবে, ওরা (সিবিআই) শুধু সেটারই তদন্ত করবে।’’ গলায় যথাসম্ভব আক্ষেপ মিশিয়ে বলেছেন,‘‘আমি ১৪টি কেস এদের দিয়েছিলাম ওয়াকফ কেসসহ। চিঠি দিয়ে বলেছে পারবে না তদন্ত করতে।’’ কিন্তু কেন সি বি আই ওই তদন্তগুলি করলো না? তবে কি ওই ১৪টি কেসে বামফ্রন্টকে ফাঁসাতে গিয়ে কি বর্তমান শাসকদলই ফেঁসে যেতে পারে —এমন আশঙ্কা ছিল? প্রশ্ন উঠেছে এদিনই। কারণ, মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন ‘ওরা সেই তদন্তই করে, যা ‘পলিটিক্যালি সুট’ করে। আশঙ্কা উসকে উঠেছে রাজনাথ সিংয়ের বক্তব্যেও। বি জে পি-তৃণমূল কংগ্রেসের বোঝাপড়ার কারণেই কি সারদা কেলেঙ্কারির তদন্তের গতি শ্লথ হয়েছে? এই প্রশ্নের জবাবে রাজনাথ সিং শুধু বলেছেন,‘‘তদন্ত চলছে।’’ জামাত-উল-মুজাহিদিনের মতো উগ্রপন্থী সংগঠনের সদস্যরা রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেসের আশ্রয় পাচ্ছে, এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকার কী ভাবছে? এই প্রশ্নের জবাবেও তাঁর কৌশলী উত্তর, ‘‘পরিস্থিতির উন্নতির জন্য কেন্দ্রীয় সরকার প্রয়োজনীয় সাহায্য করতে প্রস্তুত। আমরা পারস্পরিক সহায়তার পথে এগোচ্ছি।’’ প্রসঙ্গত, খাগড়াগড় বিস্ফোরণকাণ্ডে জামাত-উল-মুজাহিদিন বাংলাদেশ এবং তৃণমূল কংগ্রেসের ঘনিষ্ঠতার বেশ কিছু অভিযোগ উঠেছিল। ওই ঘটনার তদন্ত করছে এন আই এ। কিন্তু তাদের প্রাথমিক চার্জশিটে ওই চক্র সম্পর্কে একটি কথাও মেলেনি। সি বি আই সহ কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থাগুলি সম্পর্কে বলতে গিয়ে মমতা ব্যানার্জি স্বভাব বিরুদ্ধভাবে ‘ভুল স্বীকার’ করেছেন এদিন। কিন্তু সেটিও বিলক্ষণ কৌশল। তিনি বলেছেন,‘‘আমিও আগে সি বি আই, সি বি আই করতাম। কিন্তু আমার ধারণা ভুল ছিল। সিঙ্গুর, নন্দীগ্রাম, নেতাই, তারপরে রানাঘাট — এসব দেখে সি বি আই সম্পর্কে আমার ধারণা ভেঙে গেলো। বুঝলাম এরা শুধু মার্কেটিং-এ চলছে। রবীন্দ্রনাথের নোবেলটা ওরা আনতে পারলো?’’ প্রসঙ্গত, বিশ্বভারতী থেকে নোবেল চুরির ঘটনার যাবতীয় দায় বামফ্রন্ট সরকারের ঘাড়ে চাপিয়েছিলেন মমতা ব্যানার্জি — ‘পলিটিক্যালি সুট’ করেছিল বলে। কিন্তু ইতিহাস কী বলছে? সিঙ্গুরের তাপসী মালিকের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় সি পি আই (এম) নেতাদের হেনস্তা করে ‘পলিটিক্যাল’ সুবিধা পেতে সি বি আই তদন্তের দাবি করেছিলেন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী। বামফ্রন্ট সরকার বাধা দেয়নি। ফল কী হয়েছে? সি পি আই (এম) নেতা গ্রেপ্তার হওয়ায় মমতা ব্যানার্জির প্রচারের ফায়দা হলেও ওই ঘটনার প্রকৃত রহস্য উদ্ঘাটিত হয়নি। নন্দীগ্রামের ১৪ই মার্চের ঘটনায় তৃণমূল কংগ্রেস সি বি আই চেয়েছিল। হাইকোর্ট স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে তার নির্দেশ দিয়েছিল। কিন্তু অনেক চেষ্টা করেও ওই পুলিশি গুলি চালনার ঘটনায় বামফ্রন্টের নেতা, মন্ত্রীদের অপরাধী সাব্যস্ত করতে পারেনি সি বি আই। ওই ঘটনাতেও সি বি আই তদন্তের নির্দেশে মমতা ব্যানার্জির রাজনৈতিক সুবিধা হয়েছিল। কিন্তু মূল অপরাধীরা আড়ালে থেকে গেছে। নন্দীগ্রামের কোনও লাভ হয়নি। উলটে যে পুলিশ অফিসারদের জেরা করার অনুমতি চেয়েছিল সি বি আই, মমতা ব্যানার্জি মুখ্যমন্ত্রী হয়ে সেই অনুমতি দেননি। এদিন নন্দীগ্রাম প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন,‘‘নন্দীগ্রামে কী করলো সিবিআই? কেবল নিচু তলার কর্মীদের ফাঁসাচ্ছে। উঁচু তলার কর্মীরা বাদ কেন?’’ কে নিচু তলার কর্মী? সি বি আই যে পুলিসকর্মীদের জেরা করতে বা যাদের বিরুদ্ধে ‘প্রসিকিউশন’-র অনুমতি চেয়েছিল, তাঁরা সবাই এস ডি পি ও পর্যায়ের উপরের পর্যায়ের পুলিশ অফিসার। যে ম্যাজিস্ট্রেট গুলি চালানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন, তাঁকে এক গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীর ব্যক্তিগত সচিব করেছেন মমতা ব্যানার্জি স্বয়ং। আসলে ওই ঘটনায় প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের কোনও ভূমিকা চেষ্টা করেও খুঁজে পায়নি সি বি আই। বরং পুলিশকে হামলা করা, প্ররোচিত করা তৃণমূল কংগ্রেস নেতা, কর্মীদের হদিশ পেয়েছিল কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা। মমতা ব্যানার্জির ক্ষোভের কারণ এটিই। আর নেতাইয়ের ঘটনা এখন আদালতে বিচারাধীন। যেখানে চার্জশিটে প্রৌঢ়া, অসুস্থ এক সি পি আই(এম) নেত্রী গুলি ছুঁড়তে ছুঁড়তে ছুটছিলেন বলে চার্জশিটে দাবি করেছে সিবিআই। বলা বাহুল্য, নেতাইয়ের ঘটনার সি বি আই তদন্ত হয়েছে দ্বিতীয় ইউ পি এ সরকারের সময়কালে। মমতা ব্যানার্জি তখন সেই সরকারের শরিক। ‘পলিটিক্যালি সুট’ করেছিল বলেই কী সেই তদন্ত, চার্জশিট? মুখ্যমন্ত্রী বিধানসভায় বলেছেন,‘‘সারাক্ষণ সারাদিন কেবল কেন্দ্রের হস্তক্ষেপ চাইছে। ফেডারেল স্ট্রাকচারে মোটেই ভালো না এটা।’’ এই প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বিধানসভায় বিরোধী দলনেতা সূর্য মিশ্র বলেন,‘‘কেন্দ্র-রাজ্য সম্পর্ক নিয়ে আমরাই নীতিনিষ্ঠ অবস্থান নিয়ে চলি। উনি(মুখ্যমন্ত্রী) যখন যেমন, তখন তেমন। আমি গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারি, এই অবস্থানে উনি আগামীদিনে থাকবেন না।’’ এদিন কলকাতা প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করেন রাজনাথ সিং। মূলত মোদীর প্রধানমন্ত্রিত্বের এক বছরে সরকারের ‘সাফল্য’ তুলে ধরাই ছিল তাঁর উপলক্ষ। একের পর এক হিংসাত্মক ঘটনায় রক্তাক্ত পশ্চিমবঙ্গ এখন। এই পরিস্থিতিতে রাহুল সিন্হা, শমীক ভট্টাচার্যদের পাশে বসিয়ে রাজ্য সরকারকে কড়া হুঁশিয়ারি দেবেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী — এমনটাই রাজ্যের বি জে পি নেতাদের আকাঙ্ক্ষা ছিল। পশ্চিমবঙ্গের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে একাধিকবার নানা আঙ্গিকে প্রশ্ন করেন সাংবাদিকরা। কিন্তু ‘গম্ভীর চিন্তা’ করা এবং প্রয়োজনে রাজ্যকে সাহায্য করা ছাড়া কোনও কথাই রাজনাথ সিং বলেননি। কেন তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতি এই ‘শাক দিয়ে মাছ ঢাকার’ কৌশল? তার ইঙ্গিত এদিন রয়েছে রাজনাথ সিংয়ের অন্য জবাবেই। সংসদের আগামী বর্ষাকালীন অধিবেশনে জমি বিল রাজ্যসভায় পাশ করানো যাবে বলে সাংবাদিক সম্মেলনে দাবি করেছেন রাজনাথ সিং। এক্ষেত্রে মমতা ব্যানার্জির সঙ্গে বোঝাপড়ায় পৌঁছানোর সম্ভবনা উজ্বল বলেই বিজেপি মনে করছে। ভারত-বাংলাদেশ জলবণ্টন চুক্তি, যা মনমোহন সিং প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন বাধা দিয়েছিলেন মমতা ব্যানার্জি, সেই চুক্তিও দ্রুত করা সম্ভব হবে বলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এদিন জানিয়েছেন। তাঁর বক্তব্য, ‘‘এই বিষয়ে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের কাছ থেকে সহযোগিতার আশ্বাস পাওয়া গেছে।’’ -

যোগ ধামাকা - হরিলাল নাথ **************************************************************************************** রাষ্ট্রসঙ্ঘের ঘোষণা অনুযায়ী ২১শে জুন পালিত হচ্ছে ‘বিশ্ব যোগ দিবস’। বিশ্বজুড়ে মানব সভ্যতার সামনে নানান সমস্যা সম্পর্কে সচেতন করা, ক্ষতিকর প্রবণতা থেকে মানুষকে রক্ষা করা, অনেক বিপদ-বিপর্যয় থেকে মানব জাতিকে রক্ষা করার আগাম সতর্কতা ইত্যাদি প্রশ্নে সামগ্রিকভাবে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে রাষ্ট্রসঙ্ঘের পক্ষ থেকে বছরের বিভিন্ন দিনে এক একটি দিবস পালনের আহ্বান জানানো হয়। কিছু কিছু দিবস কোন বছরের একটা দিনেই পালিত হয়। আবার কিছু কিছু দিবস আছে যেগুলি প্রতি বছরই একটা নির্দিষ্ট দিনে পালিত হয়। সমগ্র মানব জাতি তথা মানব সমাজের বৃহত্তর স্বার্থের কথা ভেবে এধরনের দিবস উদ্যাপনের রীতি চালু হলেও ইদানিং পুঁজিবাদী তথা কর্পোরেট বিশ্বায়নের যুগে বৃহৎ পুঁজি ও কর্পোরেট স্বার্থের চাপেও কিছু কিছু দিবস পালিত হচ্ছে। এক্ষেত্রে কর্পোরেট সংস্থা ও কর্পোরেট মিডিয়া বাড়তি উদ্যোগ নিয়ে বিভিন্ন ধরনের পণ্য ও পরিষেবার বাজার সম্প্রসারণের ব্যবস্থা করে। পরোক্ষে ভোগবাদী মানসিকতাকে উসকে দিয়ে বাড়তি মুনাফার পথ সুগম করে। যে সমস্ত দিবস পালনে মানব জাতির বৃহত্তর স্বার্থ সুরক্ষিত হবার সম্ভাবনা থাকলেও কর্পোরেট পুঁজির কোন স্বার্থ থাকে না, বরং কর্পোরেট স্বার্থহানির আশঙ্কা থাকে সে সব ক্ষেত্রে কর্পোরেট মিডিয়া হাত গুটিয়ে নেয়। এমনকি বৃহৎ পুঁজির প্রতিনিধিত্বকারী সরকারগুলিও উদাসীন থাকে। এসব ক্ষেত্রে সামনে এগিয়ে আসে জনস্বার্থের পক্ষে আন্দোলনকারী বিভিন্ন ধরনের সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলি। আবার কিছু ক্ষেত্রে শাসকদলের রাজনৈতিক ও আদর্শগত স্বার্থে সর্বাগ্রে থাকে সরকার ও শাসকদল। ‘বিশ্ব যোগ দিবস’ পালনের সঙ্গে সঙ্ঘ পরিবার এবং বি জে পি তাদের হিন্দু সাংস্কৃতিক জাতীয়তাবাদী আদর্শের সম্পর্ক খুঁজে পেয়েছে এবং এই দিবসকে সামনে রেখে সাম্প্রদায়িক বিভাজন ও ধর্মীয় মেরুকরণের উজ্জ্বল সম্ভাবনা দেখতে পেয়েছে। তাই বিশ্ব যোগ দিবস পালনের সিদ্ধান্তটি ১৭৭টি দেশের সহমতের ভিত্তিতে গৃহীত হলেও এবং এর উদ্যাপনে বিশ্বের আর কোন দেশে তেমন উৎসাহ দেখা না গেলেও মোদী সরকারের উৎসাহ ও উদ্দীপনার অন্ত নেই। যোগ দিবস পালনের পরিকল্পনা ও প্রচার প্রস্তুতিতে অত্যুৎসাহ ও অত্যাশ্চর্য তৎপরতায় মোদী সরকার যেভাবে ঝাঁপিয়ে পড়েছে এবং তার সঙ্গে বি জে পি তথা গোটা সঙ্ঘ পরিবার যেভাবে মাতামাতি শুরু করেছে তাতে মনে হচ্ছে এই মুহূর্তে ভারতের জনগণের আর কোন সমস্যা নেই, ছিটেফোঁটা কিছু থাকলেও যোগাসনে মাতাল হাওয়ায় সব ধুয়ে মুছে সাফ হয়ে যাবে। সরকার মনে করছে যোগচর্চার মধ্য দিয়ে সারা দুনিয়ায় সাড়া ফেলে দেবে। আর দেশের মানুষের দৃষ্টি যাবতীয় সমস্যা-সংকট থেকে সরিয়ে যোগানন্দে মোহময় করে তুলবে। দেশে ভয়াবহ কৃষি সংকট। কৃষি উৎপাদন তলানিতে। কৃষকের আত্মহত্যার মিছিল দ্রুত দীর্ঘায়িত হচ্ছে। এরই মধ্যে গোদের ওপর বিষ ফোঁড়ার মতো খরার আশঙ্কা। শিল্পে বিনিয়োগ হচ্ছে না। কর্মসংস্থান সৃষ্টি হচ্ছে না। মানুষের আয় বাড়ছে না। পণ্য-পরিষেবার চাহিদা কমছে। জীবন-জীবিকার সংকট ও অনিশ্চয়তা বাড়ছে। এমন এক পরিস্থিতিতে যখন সরকারের যুদ্ধকালীন তৎপরতা নিয়ে কাজে নামার কথা তখন তা না করে সরকার মেতে উঠেছে যোগচর্চায়। প্রধানমন্ত্রী মনযোগ দিয়েছেন প্রতিদিন টুইট করে এক একটি যোগাসন ক্রিয়া বর্ণনায়। প্রতি বছর ৩৬৫ দিনের মধ্যে অন্তত ১৫০ দিন কোন না কোন উপলক্ষে আন্তর্জাতিক দিবস পালিত হয়। এর অধিকাংশেরই কেউ খবর রাখে না। চলতি জুন মাসেই রয়েছে ১৯টি আন্তর্জাতিক দিবস। এর মধ্যে ১লা জুন পিতামাতা দিবস, ৫ই জুন পরিবেশ দিবস, ৬ই জুন রুশ ভাষা দিবস, ১৪ই জুন রুক্তদান দিবস, ১৫ই জুন বয়স্কদের অপব্যবহারের বিরুদ্ধে সচেতনতা দিবস, ২৩শে জুন বিধবা দিবস, ২৫শে জুন নাবিক দিবস ইত্যাদি। সবকটিই রাষ্ট্রসঙ্ঘ ঘোষিত। এই দিবসগুলি নিয়ে কোন উচ্চবাচ্য না করলেও মোদী সরকারের পাখির চোখ শুধুমাত্র যোগ দিবসের দিকে। সরকারের তরফে বলা হচ্ছে বিশ্ব যোগ দিবস পালনের সিদ্ধান্তের পেছনে নরেন্দ্র মোদীর ভূমিকা সর্বাধিক। গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ পরিষদে বিশ্বজুড়ে যোগচর্চা ও যোগ সাধনা প্রসারের উদ্দেশ্যে বিশ্ব যোগ দিবস পালনের সওয়াল করেছিলেন মোদী। ডিসেম্বর মাসে রাষ্ট্রসঙ্ঘ সিদ্ধান্ত নেয় ২১শে জুন বিশ্ব যোগ দিবস পালিত হবে। এই ২১শে জুনেই যোগ দিবস পালনের জন্য জোরাজুরিও করেছিলেন নরেন্দ্র মোদী। উদ্দেশ্য পরিষ্কার। ঐদিন আর এস এস-র প্রতিষ্ঠাতা হেডগেওকারের জন্মদিন। আবার এই আর এস এস-ই বহুকাল ধরে প্রচার করে আসছে যোগ হলো হিন্দুদের জীবনাচরণের অংশ (হিন্দু ওয়ে অব লাইফ) সমস্ত আর এস এস সদস্যদের হিন্দু ধর্মীয় জীবনাচরণে অভ্যস্ত হয়ে উঠতে নিয়মিত যোগচর্চা বাধ্যতামূলক। তেমনি আর এস এস-র হিন্দুত্ববাদী সাংস্কৃতিক জাতীয়তাবাদ প্রচার ও প্রসারের অন্যতম বাহন হিসেবে ব্যবহৃত হয় যোগচর্চা। দেশে যত ‘যোগগুরু’ আছে তাদের অধিকাংশ প্রায় আর এস এস-র মতাদর্শের অনুসারী। ফলে আর এস এস, বি জে পি, যোগগুরু, মোদী সরকার, যোগচর্চা ইত্যাদি সবকিছু মিলেমিশে একাকার হয়ে আছে হিন্দুত্ববাদের গহিন জলে। স্বাভাবিকভাবেই যোগ দিবস পালনে মোদী সরকার প্রায় সব দপ্তরের মন্ত্রী-আমলা-কর্মী সকলকে নিয়ে নেমে পড়েছে। বি জে পি-রও এখন একটাই দলীয় কর্মসূচি। যোগ দিবসের কর্মসূচিতে গোটা পার্টিকে নামানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। আর সঙ্ঘ পরিবার তো আত্মহারা। বিশ্ব যোগ দিবস ঘোষণার পেছনে নরেন্দ্র মোদীর কৃতিত্ব প্রচার করা হলেও এই ভাবনাটা প্রথম মাথায় আসে এক পর্তুগিজ যোগগুরুর। লিসবনের বাসিন্দা জনৈক অমৃতসূর্যানন্দ ২০০৪ সালে এই প্রস্তাব দিয়েছিলেন। অমৃতসূর্যানন্দর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ আছে যোগগুরু এইচ আর নগেন্দ্রর। বাঙ্গালুরুর স্বামী বিবেকানন্দ যোগ অনুসন্ধান সংস্থানের (ডিম্ড বিশ্ববিদ্যালয়) উপাচার্য হলেন নগেন্দ্র। এই যোগ কেন্দ্রে নরেন্দ্র মোদীর যাতায়াত আছে। এই নগেন্দ্রকেই মোদী আন্তর্জাতিক যোগ দিবসের অর্গানাইজিং কমিটির প্রধান করেছেন। বস্তুত মোদী ক্ষমতায় আসার পরই যোগ নিয়ে আন্তর্জাতিক স্তরে প্রচার-পরিকল্পনা শুরু করে দিয়েছিলেন। ডিসেম্বরে রাষ্ট্রসঙ্ঘের তরফে যোগ দিবস পালনের কথা ঘোষিত হবার পরই মোদী সরকার সিদ্ধান্ত নেয় দেশে ও বিদেশে এই দিবস পালনে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। পরিকল্পনা অনুযায়ী দেশের সর্বত্র ৬৫০টি শহরে এই অনুষ্ঠান হবে। দিল্লির রাজপথে হবে কেন্দ্রীয় কর্মসূচি। তাতে অংশ নেবেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী। অন্য মন্ত্রীরা যাবেন দেশের অন্যান্য শহরে। দেশের বাইরে ১৯২টি দেশে যেখানে ভারতীয় দূতাবাস আছে সর্বত্র এই কর্মসূচি পালন করবে ভারত। সর্বত্র অনুষ্ঠানগুলিতে প্রশিক্ষক পাঠানো হবে। সমস্ত খরচ হবে ভারত সরকারের তহবিল থেকে। নিউ ইয়র্কে রাষ্ট্রসঙ্ঘের সদর দপ্তরের অনুষ্ঠানে হাজির থাকবেন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। সঙ্গে যাবেন যোগগুরু রবিশঙ্কর। এইভাবে দেশে বিদেশে কয়েক শত প্রশিক্ষক পাঠানোর খরচ দেবে সরকার। দিল্লিতে মোদীর সঙ্গে থাকবেন রামদেব। দিল্লিতে একযোগে ৩৫ হাজার মানুষের যোগচর্চা করিয়ে বিশ্ব রেকর্ড করার পরিকল্পনা হয়েছে। তার জন্য ৪৫ হাজার জমায়েতের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করে প্রস্তুতি চলছে। সব মিলিয়ে লক্ষ্য ২ কোটি জমায়েতের। ২১শে জুন রবিবার সত্ত্বেও মহারাষ্ট্র সরকার ঐ দিন সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা রেখে সকল ছাত্রছাত্রীকে যোগ অনুষ্ঠানে হাজির থাকতে বলেছে। যোগ দিতে বলা হয়েছে ১১ লক্ষ এন সি সি ক্যাডেটকে। যোগ দিতে হবে ১৩ লক্ষ সেনা জওয়ানকে এবং ৯ লক্ষ সশস্ত্র পুলিশকে। এর বাইরে সঙ্ঘ পরিবার চালিত প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনগুলি হাজির করবে তাদের সঙ্গে যুক্ত সকলকে। বি জে পি-ও তাদের সর্বস্তরের সংগঠনের মাধ্যমে জমায়েত করবে। সন্দেহ নেই যোগ অনুষ্ঠানের নামে সরকারি কোষাগার থেকে বেরিয়ে যাবে কয়েকশো কোটি টাকা। সাধারণ মানুষের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যোন্নতির জন্য মোদী সরকার এমন বিপুলায়তন কর্মসূচি নিয়েছে এমনটা ভাবার কোন কারণ নেই। মূলত তিনটি বিশেষ উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে এই নজিরবিহীন আলোড়ন সৃষ্টির চেষ্টা হচ্ছে। প্রথমত, দেশে আর এস এস-বি জে পি-র রাজনৈতিক ও মতাদর্শগত প্রভাব বিস্তার ও শক্তিশালী করার জন্য সাম্প্রদায়িক বিভাজন ও ধর্মীয় মেরুকরণকে জোরদার করা। দ্বিতীয়ত, যোগের ভারতীয় উৎসকে সফ্ট পাওয়ার হিসেবে ব্যবহার করে বিদেশে ভারতের প্রভাব বিস্তার করা। তৃতীয়ত, জনজীবনের জরুরি সমস্যাগুলিকে চাপা দিতে এবং সরকারের প্রতিশ্রুতি পালনের ব্যর্থতাকে আড়াল করতে যোগ দিবস নিয়ে অস্বাভাবিক, অপ্রাসঙ্গিক ও অপ্রয়োজনীয় মাতামাতি করে মানুষের নজর ঘোরানো। এটা ঠিক যোগচর্চার আদি উৎস ভারত। প্রধানত মুনি, ঋষি, সাধু, সন্ন্যাসীরা তাদের ধর্মাচরণের অনুষঙ্গ হিসেবে যোগকে ব্যবহার করতেন। ধ্যানকালে বা দেবতার প্রার্থনায় মনসংযোগ বৃদ্ধির জন্যও যোগচর্চা অভ্যাস করা হতো। গুরু থেকে শিষ্যদের মধ্যে এই চর্চা প্রসারিত হতো। অর্থাৎ শুরুতে হিন্দু ধর্মীয় সংস্কারের অঙ্গ হিসেবে যোগ আচরীয় প্রথায় পরিণত হয়। সেই সুবাদে বেদ-উপনিষদসহ নানা ধর্মগ্রন্থ ও ধর্মাশ্রয়ী গ্রন্থে যোগ নানাভাবে জায়গা দখল করে নিয়েছে। পরবর্তীকালে আধুনিক চিন্তার বিকাশ ও শিক্ষার প্রসারের ফলে যোগচর্চা শরীর ও মনের সুস্থতা রক্ষায় ব্যায়াম হিসেবে সাধারণের মধ্যে গ্রহণযোগ্য হয়ে ওঠে। কিন্তু তথাকথিত ধর্মগুরুরা তাদের প্রভাব-প্রতিপত্তি বাড়াতে ও ধরে রাখতে যোগকে কৌশলে ধর্মাচরণের মোড়কে জনপ্রিয় রাখতে বদ্ধপরিকর। তাই যত যোগগুরুর আবির্ভাব ঘটেছে তাদের প্রায় সকলেরই আধার হিন্দু ধর্মীয় ঘরানা। আশ্রম, ধর্মচর্চা, দেবতার ভজন-পূজন, আধ্যাত্মিক জীবনাচরণ ইত্যাদির সঙ্গে তারা যোগকেও যুক্ত করে নেন। হিন্দু ধর্মীয় সংস্কৃতির আধারেই যেহেতু তৈরি হয়েছে আর এস এস-র হিন্দু সাংস্কৃতিক জাতীয়তাবাদ তাই হিন্দুত্বের ধারণার প্রসারে অন্যান্য অনেক আচরণের সঙ্গে যোগ হয়ে উঠেছে হিন্দুত্বের অন্যতম হাতিয়ার। যোগকে আশ্রয় করে তারা হিন্দুত্বের আওতায় আরও বেশি বেশি মানুষকে আনতে চায়। সেজন্য বহুদিন আগে থেকেই তারা যোগচর্চাকে হিন্দু ওয়ে অব লাইফ হিসেবে প্রচার করছে। বিশ্ব যোগ দিবস এবং তাকে ঘিরে এমন উন্মাদনা ও মাতামাতির রহস্য লুকিয়ে আছে এখানেই। কোন দেশের কোন বিশেষ সামাজিক বা সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য বা উত্তরাধিকারকে ব্যবহার করে অন্য দেশের ওপর প্রভাব বিস্তারের প্রচেষ্টাকে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বা বৈদেশিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে ‘সফ্ট পাওয়ার’ হিসেবে গণ্য করা হয়। বিভিন্ন দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলার ক্ষেত্রে ‘সফ্ট পাওয়ার’ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বি জে পি ভারতের অতীত ঐতিহ্যগুলিকে ধর্মীয় মোড়কে সাজিয়ে গুছিয়ে তার উত্তরাধিকার দাবি করছে। এইসব ঐতিহ্যের কিছু কিছু বিদেশে প্রচার করে মোদী সরকার প্রভাব বিস্তার করতে চায়। বৌদ্ধ ধর্মের আবির্ভাব ভারতে। অথচ এখন ভারতে বৌদ্ধ ধর্মের প্রভাব ক্ষীণ হয়ে গেলেও বিশ্বের বহু দেশে বৌদ্ধই প্রধান ধর্ম। নরেন্দ্র মোদী তার বিদেশ সফরের সময় বৌদ্ধ ধর্মের আদিভূমি হিসেবে ভারতকে তুলে ধরছেন সচেতনভাবে। শ্রীলঙ্কা, মায়ানমার, চীন প্রভৃতি দেশে বৌদ্ধ ধর্মকে ভারতের সফ্ট পাওয়ার হিসেবে ব্যবহার করে সেইসব দেশের মানুষের মধ্যে ভারতের প্রভাব বৃদ্ধির চেষ্টা করেছেন। সর্বত্র তিনি বৌদ্ধ মন্দিরে যাচ্ছেন। বৌদ্ধদের ধর্মীয় অনুষ্ঠানে অংশ নিচ্ছেন। একইভাবে মোদী সরকার যোগকে সফ্ট পাওয়ার হিসেবে ব্যবহার করে বিশ্বের সব দেশে প্রভাব ফেলতে চান। তাদের সমীহ আদায় করতে চান। তাই বিদেশের মাটিতে ঘটা করে যোগ দিবস পালনের এত আয়োজন। তৃতীয় কারণটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সবে মাত্র সরকারের এক বছর পূর্ণ হয়েছে। ক্ষমতায় আসার আগে এবং পরে প্রতিশ্রুতি আর বাগাড়ম্বরের বন্যা বইয়ে দিয়ে মানুষকে মোহগ্রস্ত করা হলেও বাস্তবে কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। এমন একটি ক্ষেত্র নেই যেখানে প্রতিশ্রুতি মতো কাজ হচ্ছে। সাধারণ মানুষের জীবন-জীবিকার সংকটের কোন সুরাহা হচ্ছে না। উলটে সংকট আরও বাড়ছে। ফলে মানুষের মধ্যে ক্ষোভ-বিক্ষোভ, অসন্তোষ বাড়ছে। কমছে মোদীর জনপ্রিয়তা। সরকারের ওপর আস্থা ও বিশ্বাস কমছে। এমন এক অস্বস্তিকর পরিবেশে কম গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে মাতামাতি, চমক সৃষ্টির মূলে আছে মানুষের দৃষ্টিকে মূল সমস্যা থেকে অন্যদিকে ঘুরিয়ে দেওয়া। তাই বিশ্ব যোগ দিবসকে যোগ ধামাকায় পরিণত করে মানুষকে তাক লাগিয়ে দেবার চেষ্টা হচ্ছে। যোগ দিবসের চারদিন আগে ১৭ই জুন আন্তর্জাতিক মরুভূমি প্রসার ও খরা প্রতিরোধ দিবস। ক্রমবর্ধমান কৃষি সংকট এবং খরার আশঙ্কার প্রেক্ষাপটে এখন সবচেয়ে জরুরি এই দিনটি পালন করা। কিভাবে কম বৃষ্টিপাতের মোকাবিলা হবে? অসময়ের অতি বৃষ্টিতে বিপুল ক্ষতি কিভাবে পূরণ হবে? সেচের এলাকা কিভাবে বাড়ানো হবে? এইসব নিয়েই সরকারের সবচেয়ে বেশি মাথা ঘামানো দরকার। অথচ সরকার কৃষক সমাজের তথা সমগ্র দেশবাসীর এই কঠিন সময়ে যোগানন্দে আত্মহারা হয়ে উঠেছে। -


ITIHAS PARISHAD - ইতিহাস পরিষদে এবার ইস্তফা সদস্য-সচিবের। সঙ্ঘ পরিবারের সাম্প্রদায়িক দাপটের জের।********************************************************নয়াদিল্লি, ১৯শে জুন — সঙ্ঘ পরিবারের কুৎসিত সাম্প্রদায়িক তৎপরতায় তিতিবিরক্ত হয়ে মেয়াদ শেষের আগেই ইস্তফা দিতে বাধ্য হলেন ভারতীয় ইতিহাস গবেষণা পরিষদের সদস্য-সচিব গোপীনাথ রবীন্দ্রন। আর এস এস মনোনীত নবনিযুক্ত চেয়ারপারসন ওয়াই সুদর্শন রাও যেভাবে গুরুত্বপূর্ণ এই গবেষণা সংস্থাটির ধর্মনিরপেক্ষ চরিত্র ধ্বংস করতে পরিকল্পিতভাবে উদ্যোগী হয়েছেন, তার প্রতিবাদেই রবীন্দ্রন চলতি সপ্তাহের গোড়ায় পদত্যাগ করেছেন বলে খবর। সদস্য-সচিব হিসেবে ২০১৬সাল পর্যন্ত তাঁর মেয়াদ ছিলো। কেন্দ্রে মোদী সরকার ক্ষমতাসীন হওয়ার পরেই গত জানুয়ারিতে ভারতীয় ইতিহাস গবেষণা পরিষদ (আই সি এইচ আর)-এর মাথায় বিতর্কিত সুদর্শন রাওকে বসিয়ে দেওয়া হয়। ধর্মনিরপেক্ষ ও বস্তুনিষ্ঠ ইতিহাস গবেষণার জন্য সুদীর্ঘকাল ধরে আন্তর্জাতিক স্তরে অত্যন্ত সুনামের অধিকারী এই সংস্থায় সাম্প্রদায়িক হানাদারি শুরু হয় তখন থেকেই। গত মাসেই ইতিহাস পরিষদের অতি মর্যাদাসম্পন্ন জার্নাল ‘দি ইন্ডিয়ান হিস্টরিক্যাল রিভিউ’-এর সম্পাদকীয় বোর্ড এবং উপদেষ্টা কমিটি ভেঙে দেওয়া হয়। সরিয়ে দেওয়া হয় রোমিলা থাপার, ইরফান হাবিবের মতো বিশ্ববন্দিত ২১জন ঐতিহাসিককে। যেসব বিশিষ্ট ঐতিহাসিকের পরিশ্রমের জন্য এই জার্নাল খ্যাতিমান হয়েছে, মোদী সরকারের ব্লু-প্রিন্ট তাঁদেরই ছেঁটে ফেলায়, সাময়িকীটির ভবিষ্যৎ নিয়েই বিদগ্ধ মহলে জোরালো প্রশ্ন উঠে যায়। জানা গেছে, পরিষদের পক্ষে এই আত্মঘাতী সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা করেছিলেন রবীন্দ্রন। কিন্তু সঙ্ঘ পরিবারের দাপটে তাঁর মতামত গুরুত্ব পায়নি। বরং এই প্রতিবাদের কারণেই পরিষদের অভ্যন্তরে তাঁকে কোণঠাসা করে ফেলা হয়। প্রসঙ্গত, গত এপ্রিলে জার্নালের প্রধান সম্পাদক খ্যাতনামা ইতিহাসবিদ সব্যসাচী ভট্টাচার্য পদত্যাগ করার পর থেকেই পরিষদে সঙ্ঘ পরিবারের বহু অপকর্ম প্রকাশ্যে আসতে শুরু করে। ভট্টাচার্য প্রকাশ্যে ইস্তফার কোন কারণ না জানালেও, জানা গেছে ইতিহাস পরিষদকে যেভাবে সাম্প্রদায়িক পথে টেনে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, তাতে তিনিও অত্যন্ত অখুশি ছিলেন।

ATROCITIES ON WOMEN IN NORTH 24 PARGANAS - গৌতম দেব বলেন, শাসকদলের সন্ত্রাস ও অত্যাচার সত্ত্বেও উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় সি পি আই (এম)-র সদস্য সংখ্যা বাড়ছে। ২০১২ সালে যেখানে সদস্য সংখ্যা উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় ছিল ১৯,৮১০। ২০১৩ সালে ২১,২৬১, ২০১৪ সালে ২১,৯৪৭ এবং ২০১৫ সালে এর মধ্যেই তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৪,৬২৪। কৃষকসভায় গত বছরে জেলায় সদস্য সংখ্যা ছিল ৪,৪৯,০১৫ সেখানে ২০১৫ সালে হয়েছে ৪,৭৬,৫০৪। দেব বলেন, কৃষকদের অবস্থা শোচনীয়। আবহাওয়া পরিসংখ্যান বলছে এ বছর ১২ থেকে ১৪ শতাংশ বৃষ্টি হবে। ফসলের ক্ষতি হবে। এই রাজ্যে কৃষকরা ইতিমধ্যে ফসলের দাম পাচ্ছেন না। আত্মহত্যা করছেন। অথচ এই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর এ বিষয়ে কোনো দুশ্চিন্তাই নেই। তিনি পাহাড়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। আর দেশের প্রধানমন্ত্রী পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ ঘুরে বেড়াচ্ছেন। তাই ১০ই আগস্ট বামফ্রন্টের নেতৃত্বে সুন্দরবন তথা বাংলার কৃষকরা নবান্ন অভিযান করবেন। ওইদিন কলকাতা থেকে মিছিল হবে নবান্নের উদ্দেশ্যে। পুলিশ যেখানে আটকাবে সেখানেই কৃষকরা শুয়ে পড়বে। তিনি বলেছেন, উত্তর ২৪ পরগনা জেলার সংখ্যালঘু ৫০০ ছাত্র-ছাত্রীকে নিয়ে ৩০শে জুলাই বারাসত বিদ্যাসাগর হলে সেমিনার হবে। বিষয় থাকবে সাম্প্রদায়িকতার বিপদ। সেই সেমিনারের মইনুল হাসানসহ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থাকবেন। ভারত, বাংলাদেশ, বার্মাসহ অন্যান্য দেশের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত থাকবেন। ৩রা জুলাই পার্টি কংগ্রেসের রিপোর্টের উপর আলোচনা হবে বারাসত বিদ্যাসাগর মঞ্চে। উপস্থিত থাকবেন শ্রীদীপ ভট্টাচার্য, মহম্মদ সেলিমসহ নেতৃবৃন্দ। ৮ই জুলাই জ্যোতি বসুর জন্মদিবস পালন করা হবে। জ্যোতি বসুর নামে গবেষণা কেন্দ্র করার জন্য ৫ একর জমি রাজারহাট নিউটাউনে নেওয়া হয়েছিল। ঐ জমির টাকা হিডকো-কে দেওয়া হয়েছিল। সেই জায়গাতেই ৮ই জুলাই সমাবেশ করা হবে। গৌতম দেব জানিয়েছেন, ২৬শে জুন অভ্যন্তরীণ জরুরি অবস্থা জারির ৪০ বছর। সেই জরুরি অবস্থা কী ভয়ঙ্কর ছিল তা নতুন প্রজন্মের সামনে তুলে ধরা হবে। এই বিষয়ের উপর ২৬শে জুন একাধিক সভা হবে জেলায়। দেব বলেছেন, মহিলাদের উপর অত্যাচারমাত্রা ছাড়িয়েছে। জেলায় ২০০ জন মহিলাকে নিয়ে একটি দল তৈরি করা হয়েছে। যেখানে মহিলাদের ওপরে অত্যাচার হবে সেখানেই এই মহিলা দল পৌঁছে যাবে। এলাকায় গিয়ে কথা বলবে। প্রয়োজনে থানা ঘেরাও করবে দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে। কারণ কামদুনি এখনো বিচার পেল না। মধ্যমগ্রামের ট্যাক্সিচালক মধ্যমগ্রামে থাকতে না পেরে বিহারে চলে গেলেন। এ লজ্জা আমাদের। তিনি বলেন, রাজ্য সরকার বিভিন্ন ক্লাবকে কোটি কোটি টাকা বিলি করেছে। উত্তর ২৪ পরগনায় অনেক ক্লাব খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক ক্রীড়া কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত থেকেও এই টাকা থেকে বঞ্চিত। এই বঞ্চিত ক্লাবগুলিকে একজোট করে তাদের নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে দাবি জানানো হবে।

GOUTAM DEB - পুলিশকে দলদাস বানিয়ে মিথ্যা অভিযোগে বামফ্রন্ট কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা সাজানোর প্রতিবাদে উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় আগামী ১১ ও ১২ই জুলাই ২০টি থানার সামনে অবস্থান বিক্ষোভ হবে। শুক্রবার বারাসতে সাংবাদিক বৈঠক করে সি পি আই (এম)-র উত্তর ২৪ পরগনা জেলা সম্পাদক গৌতম দেব একথা জানিয়ে বলেছেন, তৃণমূল কংগ্রেসের সন্ত্রাস, স্বৈরাচার, নারী নির্যাতন এবং মিথ্যা অভিযোগে পুলিশকে দিয়ে মামলা সাজানোর প্রতিবাদে জেলার ২০টি থানার সামনে অবস্থান বিক্ষোভ হবে। এরমধ্যে ৬টি থানার সামনে ১১ই এবং ১২ই জুলাই দু’দিন ধরে দিনরাত অবস্থান বিক্ষোভ হবে।তিনি অভিযোগ করেছেন, পুলিশের একাংশকে দিয়ে পুরোপুরি তৃণমূলের দলীয় কাজ করানো হচ্ছে, অপরাধও করানো হচ্ছে। মিথ্যা অভিযোগ চাপানো হচ্ছে বামফ্রন্টের নেতা কর্মীদের নামে। রাজারহাটে পুলিশের লুকিয়ে রাখা পিস্তল একটা নালা থেকে উদ্ধার করে অভিযোগ চাপানো হলো সেখানকার প্রাক্তন পৌরপ্রধান তাপস চ্যাটার্জির নামে। এরকম অজস্র নজির আছে। আমরা আইনজীবীদের সঙ্গে পরামর্শ করে পুলিশের বিরুদ্ধেও মামলা করবো। সেই সঙ্গে হাজার হাজার মানুষের বিক্ষোভ হবে থানার সামনে। গৌতম দেব আরো জানিয়েছেন, আগামী ২রা সেপ্টেম্বর দেশব্যাপী সাধারণ ধর্মঘটের সমর্থনে জুলাই ও আগস্ট মাসজুড়ে প্রায় ২৫টি জনসভা হবে উত্তর ২৪ পরগনা জেলায়। এই সমস্ত জনসভায় সীতারাম ইয়েচুরি, প্রকাশ কারাত, বৃন্দা কারাত, মানিক সরকার, বিমান বসু, বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য এবং সি পি আই (এম)-র কেন্দ্রীয়, রাজ্য ও জেলা নেতৃত্ব উপস্থিত থাকবেন। এদিনের সাংবাদিক সম্মেলনে গৌতম দেব ছাড়াও সি পি আই -র জেলা সম্পাদক স্বপন ব্যানার্জি, ফরওয়ার্ড ব্লকের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সরল দেব, আর এস পি-র মনোজ ভট্টাচার্য, সি পি আই (এম) নেতা নেপালদেব ভট্টাচার্য, রঞ্জিত কুণ্ডু, রঞ্জিত মিত্র, বাবুল কর উপস্থিত ছিলেন।

Friday, June 19, 2015

Saradha Group financial scandal - Wikipedia

https://en.wikipedia.org/wiki/Saradha_Group_financial_scandal

KUNAL GHOSH AND MADAN MITRA - আর এস পি বিধায়ক সুভাষ নস্কর বিল নিয়ে আলোচনার সময় বলেছেন, সিঙ্গুর আইনের সময় সরকার বিরোধীদের কথা শুনলে সিঙ্গুরের জমির এই অবস্থা হতো না। পরিষদীয় সচিব তৈরির আইন রচনার সময় বিরোধীদের কথা শুনলে হাইকোর্টে সরকারের এই হাল হতো না। আর চিট ফান্ড বিল নিয়েও বামফ্রন্টের পরামর্শ শুনলে বিলের এই অনিশ্চয়তা দেখা দিতো না। এখন রাজ্য সরকার যদি চিট ফান্ড নিয়ে সত্যি সত্যি আলোচনা চাইতো, তাহলে প্যারোলে মুক্তি দিয়ে একমন্ত্রীকে বিধানসভায় এনে ভাষণ দেওয়ানো উচিত ছিলো। ফরওয়ার্ড ব্লক বিধায়ক উদয়ন গুহ বলেন, চারবছরে একই বিধানসভায় এই একটি বিলের ওপরেই আমি তিনবার ভাষণ দিচ্ছি। বামফ্রন্ট সরকারের সময়ে তৈরি হওয়া বিলটি বাতিল না করে যদি আপনারা সেটিকেই প্রয়োজনমতো পরিবর্তন করে নিতেন, তাহলে এই সমস্যায় পড়তে হতো না। বামফ্রন্টের সময়কার বিলের সঙ্গে আপনাদের বিলের ৯০শতাংশই এক, যে ১০শতাংশ ফারাক করেছেন, তার জন্যই বিলটি বারবার জটিলতায় আটকে পড়ছে। শেষপর্যন্ত তৃণমূল সরকারের আইন তৈরির খেলায় চিট ফান্ডের প্রতারিতরা ন্যায়বিচার পাবেন কিনা তা নিয়ে সংশয় রয়েই গেলো। উদয়ন গুহ তাই ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন, আইন আইনের পথেই চলবে বলে আপনারা দাবি করেন। দেখবেন, আইন যেন চলতে চলতে ক্লান্ত হয়ে পি জি হাসপাতালে শুয়ে না থাকে।

JUSTICE SHYAMAL SEN - কম্পিটেন্ট অথরিটিকে এই ৬মাস সময়সীমা এবং অনুমোদন স্থগিত রাখার ক্ষমতা দেওয়ার তীব্র বিরোধিতা করেন বামফ্রন্ট বিধায়করা। ৬মাসের বদলে ১০দিন সময়সীমা দেওয়ার জন্য এবং অনুমোদন স্থগিত রাখার ধারা বাতিলের জন্য দুটি সংশোধনীও জমা দেন বামফ্রন্টের পক্ষে বিধায়ক আনিসুর রহমান। যদিও ভোটাভুটিতে তা খারিজ হয়ে যায়। সূর্য মিশ্র বলেছেন, অর্থমন্ত্রী মুখে আইনকে কঠোর করার কথা বলছেন, আর কাজে আইনকে শিথিল করছেন। রাষ্ট্রপতির সম্মতির জন্য যে সংশোধন করতে উনি বাধ্য নন, অতি উৎসাহ দেখিয়ে সেটাও করছেন। মিশ্র বলেন, কম্পিটেন্ট অথরিটি মানে তো সরকারি অফিসার! এরা যাদের দলদাসে পরিণত করে, চাপ দিয়ে পক্ষপাতপূর্ণ কাজ করায়, তাদের অনুমতি না মেলা পর্যন্ত অভিযুক্তদের আদালতে তোলা যাবে না? ৬মাস সময় দিলে তারমধ্যে বেআইনি সম্পত্তি হস্তান্তর হওয়ার আশঙ্কা থাকবে। আর কাদের বিরুদ্ধে তদন্ত হবে এবং কাদের বিরুদ্ধে হবে না, তা নিয়ে নানারকম অবৈধ রাজনৈতিক অর্থনৈতিক খেলা চলবে।

CHIT FUND BILL IN WEST BENGAL - রাষ্ট্রপতির সম্মতির শর্ত হিসাবে কেন্দ্রীয় সরকার কেবলমাত্র ২২নম্বর ধারায় সংশোধনীর মুচলেকা আদায় করেছিলো রাজ্য সরকারের কাছ থেকে। এছাড়া কিছু পরামর্শ দিলেও সেগুলি কোনো শর্ত ছিলো না, মানার বাধ্যবাধকতাও ছিলো না রাজ্য সরকারের। কিন্তু রাজ্য সরকার শর্ত হিসাবে ২২নম্বর ধারা পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে এদিন অতিরিক্ত কিছু পরিবর্তনও করেছে বিলটিতে। অমিত মিত্র জানিয়েছেন, অভিযুক্তের আগাম জামিনের সম্ভাবনা বন্ধ করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকার পরামর্শ দিয়েছিলো, অপরাধী জরিমানা দিয়ে যাতে হাজতবাসের সাজা থেকে রেহাই পায় তার সুযোগ বিবেচনা করতে। কিন্তু আমরা তা মানিনি। মানলে আইনটি লঘু হয়ে যেতো। আমরা আইনকে কঠোর করার পক্ষে। একইসঙ্গে দুটি ধারা সংশোধন করে এদিনের বিলটিতে বলা হয়েছে, আর্থিক প্রতারণার অভিযোগে তদন্ত সম্পূর্ণ করার পরে আদালতে মামলার জন্য তদন্তকারী সংস্থাকে কম্পিটেন্ট অথরিটি বা দায়িত্বপ্রাপ্ত সরকারি কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমোদন নিতে হবে। অনুমোদনের জন্য ৬মাসের সময়সীমা দেওয়া হয়েছে কম্পিটেন্ট অথরিটিকে। গুরুত্ব বিচার করে কম্পিটেন্ট অথরিটি অনুমোদন দিতেও পারে, অনুমোদন স্থগিতও রাখতে পারে। অমিত মিত্র এই প্রসঙ্গে বলেছেন, তদন্তের জন্য যাদের অনুমোদনদানের ক্ষমতা থাকবে, তাদের অনুমোদন না দেওয়ার ক্ষমতাও দিতেই হবে। আর বিবেচনার জন্য ৬মাস সময় তো দিতেই হবে।

ARPITA GHOSH AND KUNAL GHOSH - তাহলে কি এখনো আইনে রেট্রোস্পেকটিভ এফেক্টের সুযোগ রয়ে গেলো? সাংবাদিক বৈঠকে এই প্রশ্ন শুনে অমিত মিত্র বললেন, আর্থিক প্রতারণার বিষয়ে কমিশন অব এনকোয়ারি অ্যাক্ট (১৯৫২) অনুসারে একটাই কমিশন আমাদের এখানে গঠিত হয়েছিলো, সেটা শ্যামল সেন কমিশন। সেই কমিশন সরকারের কাছে কাউকে দোষী সাব্যস্ত করে সুপারিশ করেনি। তাই ঘটে যাওয়া অপরাধে এই আইন প্রয়োগের আর কোনো প্রশ্নও রইলো না। বিরোধীরা বারবার দাবি করলেও শ্যামল সেন কমিশনের রিপোর্ট রাজ্য সরকার এখনো প্রকাশ্যে আনেনি। এই কমিশন গঠন করেই মমতা ব্যানার্জি এর মাধ্যমে চিট ফান্ডে প্রতারিতদের টাকা ফেরানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। প্রতিদিন রাজ্যের কোনো না কোনো প্রান্তে চিট ফান্ডে প্রতারিত এজেন্ট ও আমানতকারীরা বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন আর সরকারের পক্ষে তাঁদের আশ্বাস দেওয়া হচ্ছে নতুন আইনে প্রতারকদের সম্পত্তি বিক্রির কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কিন্তু সেই আশ্বাসের যে কোনো ভিত্তিই নেই এদিন অমিত মিত্রের কথায় তা স্পষ্ট হয়ে গেছে। এদিন বিধানসভায় সরকারপক্ষের তিন মন্ত্রী বিলের পক্ষে সওয়াল করে বলেছেন, রাজ্য সরকার প্রতারিতদের টাকা ফেরাতে আন্তরিক সদিচ্ছা আছে বলেই বারবার বিধানসভায় বিল নিয়ে আলোচনা করা হচ্ছে। সূর্য মিশ্র তাঁদের বলেন, প্রতারিতদের টাকা ফেরানোর জন্য বিলের চেয়েও বেশি প্রয়োজন রাজনৈতিক সদিচ্ছা। আর্থিক প্রতারণার মামলায় আপনাদের একমন্ত্রী জেলে গেলেন, সঙ্গে সঙ্গে আইনমন্ত্রী তদন্তের বিরুদ্ধে মিছিলে নামলেন, এমনই আপনাদের সদিচ্ছা। মিশ্র বলেন, বামফ্রন্ট সরকারের সদিচ্ছা ছিলো। সেই কারণেই তারা হাইকোর্টে জনস্বার্থে মামলা করে প্রচলিত প্রতারণাবিরোধী আইনের সাহায্যেই প্রতারক আর্থিক সংস্থাগুলির সম্পত্তি নিলাম করে টাকা ফেরানোর ব্যবস্থা করেছিলো। সদিচ্ছা যদি থাকতো তাহলে আপনারাও তাই করতেন। সে পথে আপনারা এগোননি।

SARADHA CHIT FUND AND KUNAL GHOSH - সংশোধনী বিলটি নিয়ে আলোচনার সময় বিধানসভায় সরকারের তিন মন্ত্রী অমিত মিত্র, পার্থ চ্যাটার্জি এবং চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যের একজনও আর রেট্রোস্পেকটিভ এফেক্ট দেওয়ার বিষয়ে একটি কথাও বলেননি। বরং রাষ্ট্রপতির সম্মতি শর্ত হিসাবে সেই ২২নম্বর ধারায় সংশোধন করে নেওয়ার কথা বলেছেন। ২২নম্বর ধারার ২নম্বর উপধারায় বলা ছিলো, ‘কমিশন অব এনকোয়ারি অ্যাকট (১৯৫২) অনুসারে গঠিত কোনো কমিশন (অর্থাৎ শ্যামল সেন কমিশন) আইনটি কার্যকরী হওয়ার পরে সরকারের কাছে আর্থিক সংস্থাগুলির অপরাধ নিয়ে কোনো রিপোর্ট দিলে সংস্থার সম্পত্তি আটক ও দখল নেওয়ার জন্য আইনটি ব্যবহার করা যাবে।’ এই অংশটির কোনো পরিবর্তন সরকার করেনি। তবে ২২নম্বর ধারায় প্রচলিত আইনগুলির সঙ্গে বর্তমান আইনের কোনো বিরোধ হলে বর্তমান আইনটিকেই কার্যকরী হওয়ার ক্ষমতা দেওয়া হয়েছিলো। সেই অংশটিকে সংশোধন করে ফের প্রচলিত আইনকেই অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে। এই কারণে সূর্য মিশ্র বিধানসভায় বলেন, রাষ্ট্রপতির কাছ থেকে সুনির্দিষ্টভাবে আপনারা কী বার্তা পেয়েছিলেন? কোন মুচলেকা দিয়ে শর্তসাপেক্ষে বিলটিতে রাষ্ট্রপতির সম্মতি পাওয়া গেছে, তা বিধানসভাকে জানাচ্ছেন না কেন? আমাদের আশঙ্কা আপনি আবারও অসাংবিধানিক অংশ বিলে রেখে দিচ্ছেন।

KUNAL GHOSH-AMIT MITRA: ফাঁস হয়ে গলায় চেপে বসছে বলেই অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রকে একই বিল দুবছরের মধ্যে তিনবার বিধানসভায় আনতে হলো, এবং তারপরেও শেষপর্যন্ত সাংবাদিক বৈঠকে স্বীকার করে নিতে হলো, এই আইনে সারদাসহ ইতোমধ্যেই ঘটে যাওয়া চিট ফান্ডগুলির বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থাই নেওয়া যাবে না। বেআইনি আর্থিক প্রতিষ্ঠানবিরোধী আইনের ২২নম্বর ধারাতে রেট্রোস্পেকটিভ এফেক্ট দিয়ে সারদাসহ ঘটে যাওয়া আর্থিক প্রতারণা মামলাগুলির বিচারের সুযোগ রাখা আছে বলে সরকার দাবি করেছিলো। ২০১৩ সালের ৩০শে এপ্রিল বিধানসভায় বিল পাশের সময় সূর্য মিশ্র সরকারকে সতর্ক করে বলেছিলেন, ফৌজদারি অপরাধে রেট্রোস্পেকটিভ এফেক্ট হয় না। এটা সংবিধানের ২০/১ ধারা বিরোধী। তাই ২২নম্বর ধারা থাকলে বিলটি সংবিধান বিরোধী হয়ে বাতিল হয়ে যাবে। এই ধারা পালটে এমন ধারা রাখা হোক যাতে ঘটে যাওয়া আর্থিক অপরাধগুলির ক্ষেত্রে ভারতীয় দণ্ডবিধি ও ফৌজদারি দণ্ডবিধি, সেবি অ্যাক্ট, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া অ্যাকটের প্রয়োগ করে বিচার করা যাবে। সেদিন বিরোধীদের কথা শোনেনি তৃণমূল সরকার। পরিষদীয় মন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জি মুখ্যমন্ত্রীর ইচ্ছার কথা জানিয়ে বলেছিলেন, ‘২২নম্বর ধারার মাধ্যমে আমরা সারদাসহ পুরানো ঘটনার সঙ্গে যাদের যোগাযোগ আছে তাদেরও বিচারের জন্য টেনে আনতে পারবো।’

AMIT MITRA ON SARADHA CHIT FUND - কলকাতা, ১৮ই জুন— সারদাসহ মানুষের টাকা লুট করা চিট ফান্ডগুলির বিরুদ্ধে নতুন কড়া আইনে ব্যবস্থা নিয়ে টাকা ফেরানোর যে আশ্বাস এতদিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি দিয়ে আসছিলেন, বাস্তবে তার কোনো সম্ভাবনাই নেই বলে জানিয়ে দিলেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের তিনি বলেছেন, শ্যামল সেন কমিশনের রিপোর্টে কাউকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়নি। ফলে এইসব আর্থিক অপরাধসহ কোনো ঘটে যাওয়া অপরাধে চিট ফান্ড বিরোধী নতুন আইন প্রয়োগ করারও প্রশ্ন ওঠে না। বেআইনি চিট ফান্ড রুখতে তৃণমূল সরকার ২০১৩ সালের এপ্রিলে যে বিল পাশ করিয়েছিলো তা কেন্দ্রীয় সরকারের অনুমোদন পায়নি। সেই বিল প্রত্যাহার করে ডিসেম্বরে ফের নতুন বিল পাশ করানো হয়। প্রায় দেড় বছর পরে সেই বিলে রাষ্ট্রপতির সম্মতি মিললেও শর্ত দিয়ে পাঠানো হয়, আইন কার্যকরীর ৬মাসের মধ্যে আইনের ২২নম্বর ধারা সংশোধন করে নিতে হবে। সেই বাধ্যবাধকতা থেকেই বৃহস্পতিবার বিধানসভায় রাজ্য সরকার সদ্যজাত আইনটিতে সংশোধন করতে দ্য ওয়েস্টে বেঙ্গল প্রোটেকশন অব ইন্টারেস্ট অব ডিপোজিটরস্ ইন ফিনান্সিয়াল এস্টাবলিশমেন্টস্ (অ্যামেন্ডমেন্ট) বিল ২০১৫ পাশ করিয়েছে। কিন্তু এরপরেও সংশয় আর আশঙ্কার অবসান ঘটলো না। বিরোধী দলনেতা সূর্য মিশ্র বলেছেন, ‘বেআইনি চিট ফান্ড রুখতে আইন তৈরিতে আমরা আগেও বিরোধিতা করিনি, এখনো বিরোধিতা করছি না। কিন্তু বজ্র আঁটুনির নাম করে ফস্কা গেরোর যে আশঙ্কা আমরা আগে বলেছিলাম, এখনো সেই আশঙ্কা রয়েই গেলো। আইনে ফস্কা গেরো আপনারা বারবার রেখেই দিচ্ছেন, যা ক্রমশ আপনাদের গলায় ফাঁস হয়ে চেপে বসবে।’

Thursday, June 18, 2015

Lalit Modi-Sushama Swaraj row: I knew nothing about this case, says Sujatha Singh

http://www.indiatvnews.com/politics/national/lalit-modi-passport-sushama-swaraj-sujatha-singh-30157.html

LALIT-SUSHAMA SAMACHAR : আর্থিক দুর্নীতির একগুচ্ছ অভি‍‌যোগের ভিত্তিতে ই ডি এবং আয়কর দপ্তর তদন্ত শুরু করেছিল প্রাক্তন আই পি এল কর্তা ললিত মোদীর বিরুদ্ধে। ২০১০ সালে প্রথম দফা ই ডি এবং আই টি-র জেরার মুখে পড়েই প্রমাদ গোনেন তিনি। তাই আর কালবিলম্ব না করে চটজলদি তল্পিতল্পা গুটিয়ে লন্ডনে পাড়ি দেন তিনি। তারপর থেকে ব্রিটেনই তার বাসস্থান। প্রাক্তন আই পি এল কর্তা ললিত মোদীর লন্ডনে পালিয়ে যাওয়ায় ফাঁপরে পড়ে ই ডি এবং অন্যান্য তদন্ত সংস্থা। তদন্তের কাজ গুটিয়ে আনতে জরুরি ছিল আরও বার কয়েক জেরা করা। কিন্তু পাখি উড়ে যাবার ফলে সেকাজ অথৈ জলে। প্রাক্তন আই পি এল কর্তা ললিত মোদীর বিলাসী জীবন কাটছে বিলেতে। ভারতে বসবাস করার বিন্দুমাত্র আগ্রহও দেখা যায়নি তার। তেমনি বিলেতেও কতদিন ভাল লাগে। এক ঘেঁয়ে হয়ে উঠেছে কয়েক বছরে। তাই মনে মনে বাসনা জাগছে বিশ্ব ভ্রমণের। এক দেশ থেকে অন্য দেশে, এক হোটেল থেকে অন্য হোটেলে আয়েসী-বিলাসী জীবন না কাটলে এমন অঢেল অর্থের মালিকদের কি চলে। বিশেষ করে ৮০ কোটি টাকায় কেনা ব্যক্তিগত বিমানে চলাফেরা যার অভ্যেস তার পক্ষে একটা দেশে কার্যত বন্দি হয়ে থাকা মানায়! প্রাক্তন আই পি এল কর্তা ললিত মোদীর সু‍‌যোগ এসে যায় স্ত্রীর অসুস্থতা। সেই অজুহাতে দু’দশকেরও বেশি সময় ধরে পরিচিত ও ঘনিষ্ঠ স্বরাজ পরিবারের সাহায্য প্রার্থনা। এই পরিবারের কত্রীই এখন দেশের বিদেশমন্ত্রী। এই সুযোগ কোন মতেই হাত ছাড়া করা যায় না। তাছাড়া তার হাত ধরে অতীতে এই পরিবার অনেক সুবিধা আদায় করেছে। যেমন ভাবা তেমন কাজ। সুষমা স্বরাজ বিদেশমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন ২০১৪ সালের ২৭শে মে। মাসখানেক পরেই পলাতক ললিত মোদীর আবদার পৌঁছে যায় সুষমার কাছে। সঙ্গে সঙ্গে অতি তৎপর হয়ে ওঠেন সুষমা। ভারতস্থ ব্রিটিশ হাই কমিশন এবং জনৈক ব্রিটিশ সাংসদের মাধ্যমে যোগাযোগ করে অনতিবিলম্বে ললিত মোদীকে ব্রিটেনের বাইরে যাবার অনুমতির ব্যবস্থা করে দেন। স্ত্রীর চিকিৎসার অজুহাতে অনুমতি হাতিয়ে নিয়ে তিনি এখন বিদেশে প্রমোদ ভ্রমণ করছেন। সম্প্রতি কিউবায় বিলাসবহুল হোটেলে ও অনুষ্ঠানে তাকে দেখা গেছে ফুর্তির মেজাজে। প্রশ্ন হলো যে দেশের আইনে তার বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে এবং তদন্ত এড়াতে যিনি বিলেতে পালিয়ে গেছেন তারজন্য সেদেশের বিদেশমন্ত্রীর এত দরদ কেন? ললিতের বিরুদ্ধে অভিযোগ ২০১০ আই পি এল-এ ম্যাচ ফিক্সিং ও বেটিং। বিদেশি মুদ্রা বিধি লঙ্ঘনের জন্য তার পাসপোর্ট বাজেয়াপ্ত হয়। সব বন্দর-বিমানবন্দরে সতর্কবার্তা জারি হয় তাকে পেলেই ই ডি-র হাতে তুলে দেবার। ভারতে ঢুকলেই তাকে আটক করা হতো। ৪২৫ কোটি টাকা জালিয়াতির তদন্ত চলছে। বিদেশে কালো টাকা পাচারের তদন্তও চলছে। লক্ষণীয় ২০১৩ সালে বি সি সি আই শৃঙ্খলা কমিটি (অরুণ জেটলি এর সদস্য) ললিতকে দোষী সাব্যস্ত করে। এরপরও সুষমার কল্যাণে ললিতের বন্ধন মুক্তি। দুর্নীতির বিরুদ্ধে যাদের এত প্রচার, তারা ক্ষমতায় এসে গর্বে বুক ফোলাচ্ছে দুর্নীতিমুক্ত সরকার গড়ার। বর্ষপূর্তির সময়ও সোচ্চারে দাবি করা হয়েছে মোদী সরকারের কলঙ্কহীনতার। এখন দেখা যাচ্ছে দুর্নীতিরই পৃষ্ঠপোষণ করছে এই সরকার। আরও আশ্চর্যের বিষয় এত বড় একটা অন্যায়-অপরাধ ধরা পড়ার পরও গলার শিরা ফুলিয়ে বলছে যা করেছি বেশ করেছি। বলা হচ্ছে এতে কোন অন্যায় নেই। মানবিকতার খাতিরে একজন ভারতীয়কে সাহায্য করা হয়েছে। ললিত ছাড়া বাকি সব ভারতীয় অপরাধী-অভিযুক্তের ক্ষেত্রেই কি মোদী সরকার এমন মানবিকতা দেখাবে? মানবিকতার দোহাই দিয়ে কোটি কোটি টাকা দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত অপরাধীকে সাহায্য করার পরও তার পক্ষে দাঁড়িয়েছে গোটা শাসকদল এবং সঙ্ঘ পরিবার। অতএব বোঝা যাচ্ছে এই সরকারের নৈতিক অভিমুখ কোন দিকে।

JANGALMAHAL - জঙ্গলমহলে হাতে নেওয়া প্রকল্পের অর্ধেকই শেষ করতে পারেনি রাজ্য *******************************কলকাতা, ১৫ই জুন— প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছিল ৩২৯টি। তারমধ্যে মাত্র ১২৭টি প্রকল্পের কাজ শেষ করা সম্ভব হয়েছে। এই চিত্র মাওবাদী প্রভাবিত পশ্চিমাঞ্চল উন্নয়ন দপ্তরের ২৪টি ব্লক এলাকার। তথ্য দিয়েছেন রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চল উন্নয়ন দপ্তরের মন্ত্রী শান্তিরাম মাহাতো। ৩২৯টি প্রকল্পের মধ্যে ১২৭টি প্রকল্পের বাস্তবায়নের অর্থ, ৬২শতাংশ প্রকল্পের কাজই শেষ করা যায়নি! পশ্চিম মেদিনীপুর, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, বীরভূম ও বর্ধমান এই পাঁচ জেলার ৭৫টি ব্লক নিয়ে পশ্চিমাঞ্চল উন্নয়ন দপ্তরের কর্মকাণ্ড। তারমধ্যেও মাত্র তিনটি জেলার ২৪টি ব্লককে সরকার আলাদাভাবে মাওবাদী প্রভাবিত অঞ্চল হিসাবে চিহ্নিত করে উন্নয়ন করার জন্য পরিকল্পনা গ্রহণ করে। পশ্চিম মেদিনীপুর, বাঁকুড়া ও পুরুলিয়ার এই তিন জেলার মাওবাদী প্রভাবিত মাত্র ২৪টি ব্লকেও অর্থ ব্যয় করতে ব্যর্থ রাজ্য সরকার। রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চল উন্নয়ন মন্ত্রীর কাছে লিখিতভাবে প্রশ্ন করেছিলেন সি পি আই আই (এম) বিধায়ক রামেশ্বর দলুই। বিধায়কের প্রশ্নের লিখিত জবাব দিয়েছেন পশ্চিমাঞ্চল উন্নয়ন দপ্তরের মন্ত্রী শান্তিরাম মাহাতো। পশ্চিমাঞ্চলের ৫টি জেলায় মাওবাদী প্রভাবিত ব্লকগুলিতে ২০১৪-১৫সালে উন্নয়নের জন্য কতগুলি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছিল? এই প্রশ্নের লিখিত জবাবে মন্ত্রী জানিয়েছেন, ‘‘পশ্চিমাঞ্চলের পাঁচ জেলার মধ্যে এল ডব্লিউ ই (লেফট উইং এক্সটিমিস্ট) প্রভাবিত ব্লকগুলি বাঁকুড়া, পশ্চিম মেদিনীপুর ও পুরুলিয়া জেলায় অবস্থিত। এই ২৪টি ব্লকে উন্নয়নের জন্য ৩২৯টি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছিল। এরমধ্যে বাঁকুড়া জেলায় ১১৫টি, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় ৬৯টি ও পুরুলিয়া জেলার ১৪৫টি প্রকল্প আছে।’’ প্রসঙ্গত, জঙ্গলমহলের পাঁচ জেলায় সরকারের সব দপ্তরই তাদের বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে উন্নয়নের কাজ করে থাকে। পশ্চিমাঞ্চল উ