RESIST FASCIST TERROR IN WB BY TMC-MAOIST-POLICE-MEDIA NEXUS

(CLICK ON CAPTION/LINK/POSTING BELOW TO ENLARGE & READ)

Wednesday, June 24, 2015

SURYA MISHRA - তীব্র আন্দোলনের মধ্যে দিয়েই বদল হবে রাজনৈতিক ভারসাম্য।সর্বস্তরের মানুষকে যুক্ত করেই লড়াই, বললেন সূর্য মিশ্র *******************************কলকাতা, ২৩শে জুন– বুথস্তর থেকে রাজ্যস্তর পর্যন্ত আন্দোলন-সংগ্রামকে আরো তীব্র করা এবং পার্টি সংগঠনকে আরো সক্রিয় ও শক্তিশালী করার মধ্যে দিয়েই রাজ্যের রাজনৈতিক ভারসাম্য পরিবর্তন করা সম্ভব। এই লক্ষ্যেই পার্টিকর্মীদের সক্রিয় হবার আহ্বান জানিয়েছে সি পি আই (এম) পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য কমিটি। পার্টির পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য কমিটির দু’দিনের বৈঠক শেষে মঙ্গলবার রাজ্য সম্পাদক সূর্য মিশ্র একথা জানিয়ে বলেন, গত পার্টি কংগ্রেসের আহ্বান ছিল, আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে পার্টির স্বাধীন রাজনৈতিক শক্তির বিকাশ ঘটাতে হবে। এরাজ্যে আমরা সেই লক্ষ্যেই কর্মসূচি নিয়ে চলছি। একইসঙ্গে, এরাজ্যে বামফ্রন্টকে শক্তিশালী করা এবং বামফ্রন্টের বাইরে থাকা বামপন্থী দল, সংগঠন ও ব্যক্তিদের নিয়ে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করার উদ্যোগ আমরা নিয়েছি। এছাড়া, বামপন্থীদের মূল ভিত্তি—শ্রমিক-কর্মচারী, কৃষক, খেতমজুর, ছাত্র, যুব, মহিলাসহ বিভিন্ন শ্রেণিসংগঠন ও গণসংগঠনগুলির নিজ নিজ অংশের আশু দাবি নিয়ে সমাজের ব্যাপক অংশের মানুষকে যুক্ত করে তীব্র আন্দোলন-সংগ্রাম গড়ে তুলতে হবে। পার্টির রাজ্য কমিটির দু’দিনের সভায় সভাপতিত্ব করেন বিমান বসু। পার্টির সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি সভায় উপস্থিত ছিলেন। এদিন মুজফ্ফর আহ্মদ ভবনে সাংবাদিক সম্মেলনে বৈঠকের সিদ্ধান্তগুলি জানাতে গিয়ে সূর্য মিশ্র বলেন, আগামী ২রা সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জনজীবনের আশু দাবিগুলি নিয়ে বামফ্রন্টের পক্ষ থেকে যে আন্দোলন-সংগ্রামের কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে, তাকে সফল করার জন্য সব জেলায় সর্বাত্মকভাবে উদ্যোগ নিতে বলা হয়েছে। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সারা রাজ্যে বামফ্রন্টের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে হাজার হাজার মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। অনেক জায়গায় আমাদের পার্টির জেলার নেতৃত্বের বিরুদ্ধেও মিথ্যা মামলা চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। জুন-জুলাই মাসে এর প্রতিবাদে এবং অবিলম্বে মিথ্যা মামলা খারিজের দাবিতে সর্বত্র থানার সামনে বিক্ষোভ-অবস্থান করা হবে। অনেক জায়গায় শুরু হয়েছে। তবে এখন যেহেতু রমজান মাস চলছে, তাই জেলা থেকে এলাকা দেখে ঠিক করতে হবে, কোথায় দু’দিন হবে, কোথায় একদিন হবে। আগামী ২৬শে জুন জরুরি অবস্থার ৪০বছর উপলক্ষে কেন্দ্রীয়ভাবে এবং জেলায় জেলায় কর্মসূচি নেওয়া হবে বলে জানান সূর্য মিশ্র। ১৯৭৫সালের ২৫শে জুন রাত ১২টায় জারি হওয়া এই জরুরি অবস্থার ঘটনা ছিল স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে দেশের সংসদীয় গণতন্ত্রের ওপর সবচেয়ে বড় আক্রমণ। নতুন প্রজন্মকে সেই ঘটনার কথা স্মরণ করিয়ে দেওয়া এবং পুরানোদের সেকথা পুনঃস্মরণ করাই এই কর্মসূচির উদ্দেশ্য, বিশেষ করে যখন গণতন্ত্রের ওপর নতুন করে আক্রমণ নেমে আসছে। দেশে ও এরাজ্যের কৃষি ও কৃষকজীবনে ব্যাপক সংকট নেমে আসার কথা তুলে ধরে সূর্য মিশ্র এদিন বলেন, ধানের সহায়ক মূল্য যা ঠিক হয়েছে, তা ন্যায্য ও লাভজনক দর নয় এবং দামের ওপর যে বোনাস দেওয়ার কথা, তাও তুলে দেওয়ার কথা বলা হচ্ছে। এরফলে কৃষকরা খুবই সংকটে পড়েছেন। বিশেষ করে আমাদের রাজ্যে ন্যূনতম সহায়ক মূল্যে ধান সংগ্রহের যে কাঠামো ছিল, সেটা কার্যত ভেঙে পড়েছে। কৃষকরা কোথায় ধান বিক্রি করবেন, কার কাছে বিক্রি করবেন, কোনও কিছুই ঠিক নেই। সূর্য মিশ্র রাজ্যের গ্রামাঞ্চলের করুণ অবস্থার কথা তুলে ধরে বলেন, গ্রামবাংলায় কার্যত কোনো কাজ নেই। এম এন রেগা বা ১০০দিনের কাজের বরাদ্দ ছাঁটাই করা হয়েছে। আবার যে কাজ হয়েছে, তার অনেক টাকাই বকেয়া রয়েছে। এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। দানবীয় জমি অধিগ্রহণ বিলের বিরুদ্ধে গোটা দেশে আন্দোলন শুরু হয়েছে। এরাজ্যেও বামপন্থী কৃষক সংগঠনগুলির উদ্যোগে এর বিরুদ্ধে স্বাক্ষরসংগ্রহ হয়েছে। গত ২রা জুন জেলায় জেলায় সর্বত্র সকাল ৯টা থেকে ১১টা দু’ঘণ্টার জন্য পথ অবরোধে ব্যাপক সাড়া পাওয়া গেছে। মিশ্র জানান, বামপন্থী কৃষক সংগঠনগুলি এরপর ‘নবান্ন অভিযান’-এর কর্মসূচি নিচ্ছে। কবে, কোথায়, কিভাবে হবে তাঁরাই জানাবেন। আমরা কৃষক সংগঠনগুলির এই আন্দোলনের পাশে আছি। তাদের কর্মসূচিকে সফল করার জন্য পার্টি সর্বতোভাবে চেষ্টা করবে। জিনিসপত্রের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি, বিদ্যুতের মাশুলের হারবৃদ্ধি, রেশনের ওপর আক্রমণ, খাদ্য সুরক্ষায় সমস্যা, কলকারখানা বন্ধ ও রুগ্ণ হওয়া, কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়ছে না প্রভৃতি জনজীবনের জ্বলন্ত সমস্যাগুলি নিয়েও আন্দোলন গড়ে তোলার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। তবে এইসব আন্দোলন গড়ে তোলার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় বাধা হচ্ছে গণতন্ত্রের ওপর আক্রমণ। পুলিশ প্রশাসনকে যুক্ত করে শাসকদল এই আক্রমণ নামিয়ে আনছে। অনেক জেলার সর্বোচ্চ নেতৃত্বকে জড়িয়ে মিথ্যা মামলা করা হয়েছে তাঁদের হেনস্তা করার জন্য। আমাদের কর্মীদের খুন, আক্রমণ, বাড়িছাড়া ইত্যাদি করা হচ্ছে। রাজ্যে নারী নির্যাতনের ঘটনা কমেনি, বরং বাড়ছে। এমনকি, শাসকদলের নিজেদের মধ্যেও ব্যাপক কোন্দল শুরু হয়েছে, যার জেরে খুনোখুনি হচ্ছে। খন্ডঘোষে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে ৩জন নিহত হওয়ার ঘটনা তারই উদাহরণ। মিশ্র বলেন, আক্রান্ত মানুষদের কতজনের কাছে আমরা পৌঁছাতে পেরেছি, তা নিয়ে রাজ্য কমিটির বৈঠকে আমরা পর্যালোচনা করেছি। সিদ্ধান্ত হয়েছে, প্রতিটি আক্রান্তের কাছেই আমাদের পৌঁছাতে হবে। এরাজ্যে চিট ফান্ড নিয়ে নজিরবিহীন দুর্নীতির ঘটনা উল্লেখ করে সূর্য মিশ্র বলেন, শাসকদলের সর্বোচ্চ নেতৃত্ব এরাজ্যে নজিরবিহীন চিট ফান্ড দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত। শুধু সারদাই নয়, টেট, এস এস সি, পি এস সি, বেআইনি কয়লা তোলাসহ বিভিন্ন কেলেঙ্কারির ঘটনা প্রকাশ্যে এসেছে। সর্বত্র ব্যাপকহারে তোলাবাজি চলছে। শাসকদলের প্রত্যক্ষ মদতে এই লুট চলছে। সমস্ত ক্ষেত্রে সামগ্রিকভাবে দুর্নীতি চলছে। মিশ্র বলেন, কেন্দ্রের বি জে পি সরকার কালো টাকা উদ্ধারের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এলেও এখন নিজেরাই কালো টাকার কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়েছে। তাই এখন বি জে পি-ও তৃণমূলের দুর্নীতি নিয়ে কিছু বলছে না, তৃণমূলও বি জে পি-র কালো টাকা কেলেঙ্কারি নিয়ে মুখ খুলছে না। পরস্পরের মধ্যে বোঝাপড়া এই যে, আমারটা নিয়ে তুমি কিছু বলো না, তোমারটা নিয়েও আমি কিছু বলবো না। এই দুর্নীতিরাজের বিরুদ্ধে আমাদের মানুষকে বলতে হবে। স্থানীয় বা আঞ্চলিক ভিত্তিতে সেই সব এলাকার বিশেষ সমস্যাগুলি আন্দোলন-সংগ্রাম গড়ে তোলার কথাও পার্টির রাজ্য কমিটির বৈঠকে আলোচনা হয়েছে বলে জানান মিশ্র। সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ভারত-বাংলাদেশ ছিটমহল বিনিময় নিয়ে যে চুক্তি হয়েছে, তাকে কার্যকর করার ক্ষেত্রে যে নতুন নতুন বিষয়গুলি উঠে আসছে, সেগুলি সুসম্পন্ন করার জন্য সংশ্লিষ্ট জেলাগুলিকে নিয়ে একটি সমন্বয় কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে তিনি জানান। পাহাড়ের সমস্যা, জঙ্গলমহল, সুন্দরবনের সমস্যা নিয়ে আঞ্চলিক ভিত্তিতে মানুষকে নিয়ে আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে তিনি জানান। শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের নির্বাচন গত ১বছর ধরে বকেয়া রয়েছে। এই নির্বাচন দ্রুত ঘোষণা করার জন্য আইনিভাবে এবং নির্বাচন কমিশনের হস্তক্ষেপের দাবিতে আন্দোলন করা হবে বলে তিনি জানান। -সি পি আই (এম) রাজ্য সম্পাদক সূর্য মিশ্র আগামী ২রা সেপ্টেম্বর সর্বভারতীয় শ্রমিক সংগঠনগুলির ডাকে সাধারণ ধর্মঘট হবে। এই ধর্মঘটকে সফল করার জন্য সমস্ত শক্তি নিয়ে পার্টি পাশে থাকবে। বামপন্থী গণসংগঠনগুলিও অনেক ক্ষেত্রে যৌথমঞ্চ গড়ে তুলে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলন গড়ে তুলছে। -সি পি আই (এম) রাজ্য সম্পাদক সূর্য মিশ্র মিশ্র এদিন বলেন, রাজ্যের ৭৭হাজার বুথেই বুথ সংগঠন গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত পার্টি নিয়েছে। এছাড়া প্রতিটি বুথ এলাকার নিজস্ব বৈশিষ্ট্য অনুসারে আশু আদায়যোগ্য দাবিগুলিকে চিহ্নিত করে মানুষকে যুক্ত করে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। নাগরিক জীবনের সমস্যায় ইতিবাচক হস্তক্ষেপ করতে হবে পার্টিকে। বুথস্তর থেকে রাজ্যস্তর পর্যন্ত আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে পার্টি সংগঠনকে সক্রিয় ও শক্তিশালী করার মধ্যে দিয়েই রাজ্যে রাজনৈতিক ভারসাম্য পরিবর্তন করা সম্ভব হবে এই আত্মবিশ্বাস আমাদের আছে। -সি পি আই (এম) রাজ্য সম্পাদক সূর্য মিশ্র সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এদিন মিশ্র বলেন, এবারের রাজ্য কমিটির বৈঠকে আমরা নির্বাচন নিয়ে কোনও আলোচনা করিনি, আন্দোলন-সংগ্রাম নিয়েই আলোচনা হয়েছে। আর কংগ্রেসের সঙ্গে কোনো জোট বা আতাঁত গড়ার কোনও প্রশ্নই ওঠে না। গত পার্টি কংগ্রেসেই এবিষয়ে আমাদের সুস্পষ্ট সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। রাজ্য কমিটির কোনো সদস্য আলোচনায় এই প্রসঙ্গ তোলেননি। অপর এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, গৌতম দেব এরকম জোট গড়ার কথা বলেননি, তাঁর কথা নিয়ে বিভ্রান্তি যাতে না হয়, তার জন্য পার্টির সাধারণ সম্পাদক ও রাজ্য সম্পাদককে চিঠি দিয়ে জানিয়েও দিয়েছেন। মিশ্র বলেন, গত পৌরনির্বাচনের ফলাফলে এটা প্রতিষ্ঠিত যে এরাজ্যে বামফ্রন্টই বিকল্প। নির্বাচনে সন্ত্রাস সত্ত্বেও তৃণমূলের অপশাসনের বিরুদ্ধে ধারাবাহিক আন্দোলনের মধ্যে দিয়েই আমাদের জনসমর্থন বাড়ছে এবং শাসকদল ক্ষয়িষ্ণু হয়ে পড়েছে। সেকারণেই ওরা আতঙ্কিত হয়ে সন্ত্রাস নামিয়ে এনেছিল। সন্ত্রাস না হলে জনসমর্থনের ক্ষেত্রে তৃণমূলের সঙ্গে বামফ্রন্টের ব্যবধান অনেকখানি কমে আসতো।

No comments: