RESIST FASCIST TERROR IN WB BY TMC-MAOIST-POLICE-MEDIA NEXUS

(CLICK ON CAPTION/LINK/POSTING BELOW TO ENLARGE & READ)

Wednesday, June 24, 2015

NO ALLIANCE WITH CONGRESS - SITARAM YECHURY : কংগ্রেসের সঙ্গে জোটের প্রশ্নই নেই: ইয়েচুরি ************************************কলকাতা, ২২শে জুন— কোনোভাবেই কংগ্রেসের সঙ্গে কোনরকম ফ্রন্ট বা জোট গড়া সম্ভব নয় বলে জানালেন সি পি আই (এম)-র সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি। সোমবার কলকাতায় মুজফ্‌ফর আহ্‌মদ ভবনে সি পি আই (এম)-র রাজ্য কমিটির সভা চলাকালীন সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে একথা বললেন ইয়েচুরি। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে সীতারাম ইয়েচুরি বলেন, ২১তম পার্টি কংগ্রেসেই আমরা স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছি কংগ্রেস এবং বি জে পি সম্পর্কে আমাদের অবস্থান। এই দুই রাজনৈতিক দলই নয়া উদারনীতির পথে চলছে। কোনোভাবেই কংগ্রেসের সঙ্গে কোনরকম ফ্রন্ট বা জোট গড়া সম্ভব নয়। পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য গৌতম দেবের মন্তব্য বলে প্রচারিত সংবাদ সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে ইয়েচুরি বলেন, গৌতম দেব পার্টির কাছে চিঠি দিয়ে জানিয়েছেন এ প্রসঙ্গে তাঁর মন্তব্য নিয়ে যে বিভ্রান্তি ঘটেছে । তিনি কী কী বলেছেন এবং কী কী বলেননি তা পার্টির রাজ্য কমিটিকে চিঠি দিয়ে জানিয়েছেন। পার্টি কংগ্রেসে এ প্রশ্নে আমাদের সিদ্ধান্তকে কোনভাবেই লঙ্ঘন করছেন না গৌতম দেব। সেকথা জানিয়েই তিনি চিঠি দিয়েছেন। সাংবাদিকদের প্রশ্ন ছিল, সি পি আই (এম) কি একক শক্তি হিসেবে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে লড়তে পারবে? জবাবে ইয়েচুরি জানান, সি পি আই (এম) দীর্ঘদিন ধরেই একক শক্তি হিসেবে নয়, বামফ্রন্টগতভাবেই এরাজ্যে রাজনৈতিক লড়াইতে শামিল। ইয়েচুরি এদিন আরো বলেন, কেন্দ্রের মোদী সরকারের সর্বাত্মক বিরোধিতায় সংসদের মধ্যে লড়াইয়ে আমরা আছি। সেখানেও কোনও কোনও ইস্যুতে কংগ্রেস দলও বি জে পি সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে শামিল হচ্ছে। সেই দৃষ্টান্ত তো নানা প্রশ্নেই রয়েছে। যেমন ভূমি বিলের প্রশ্নে সংসদের মধ্যে আমাদের সঙ্গে কংগ্রেসের বিরোধিতাও ছিল। একসঙ্গে রাষ্ট্রপতির কাছেও স্মারকলিপি পেশ করতে গিয়েছি আমরা। কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট বা ফ্রন্ট গড়ে রাজনৈতিক লড়াই চালানো হবে। এমনকি, শ্রমিক-কর্মচারীদের বিভিন্ন মঞ্চও তো কেন্দ্রের নীতির বিরুদ্ধে একজোট হচ্ছে। সাংবাদিকরা এদিন মোদী সরকারের তরফে ‘যোগদিবস’ পালনের কর্মসূচি সম্পর্কে প্রশ্ন করলে ইয়েচুরি বলেন, সুস্বাস্থ্যের জন্য যোগাসনের প্রয়োজন রয়েছে। কিন্তু দেশের মানুষ বাঁচবে কিনা আজ এই প্রশ্নই সবচেয়ে জরুরি হয়ে সামনে এসেছে। স্রেফ হিন্দুত্বের অ্যাজেন্ডা নিয়েই মোদী এই দিবস নিয়ে দেশজোড়া প্রচারে নেমেছে। যোগাসন তো সুস্বাস্থ্যের জন্য। কিন্তু দেশের ৫৩শতাংশ শিশুই আজ অপুষ্টির শিকার। প্রতি এক হাজার শিশুর মধ্যে ৫২জন শিশুর মৃত্যু হয় পাঁচ বছর বয়স হওয়ার আগেই। যোগাসন শরীরে অক্সিজেন জোগানের কাজ করে। কিন্তু দেশের প্রতিটা মানুষের পর্যাপ্ত অক্সিজেনের জোগান দেওয়া যাচ্ছে কি? এমনকি একটি কুকুরও ঘুম থেকে উঠে আড়মোড়া ভেঙে যোগের মতোই শরীর টান টান করে দেয়। কিন্তু এসব ভাবনা নিয়ে মোদীর যোগদিবসের প্রচার সাড়ম্বরে পালিত হচ্ছে না, হচ্ছে হিন্দুত্বের আরও বেশি প্রচারের ভাবনা নিয়ে। বিশেষত হিন্দু রাষ্ট্রের প্রচার করার লক্ষ্য নিয়েই এই যোগদিবসের ভাবনা।

No comments: