RESIST FASCIST TERROR IN WB BY TMC-MAOIST-POLICE-MEDIA NEXUS

(CLICK ON CAPTION/LINK/POSTING BELOW TO ENLARGE & READ)

Sunday, June 21, 2015

DR. SURYA KANTA MISHRA - একসঙ্গে লড়াই করুন সব অংশের আক্রান্তরা - আহ্বান সূর্য মিশ্রের *****************************************************************************************************************************চুঁচুড়া, ২৪শে মে— সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে তীব্র লড়াইয়ের বার্তা দিতে পথে নামলেন হুগলী জেলার মানুষ। জেলায় হাজার হাজার মিথ্যে মামলায় জড়িয়ে দেওয়া হয়েছে বামপন্থী কর্মীদের থেকে বহু সাধারণ মানুষকে। তীব্র সন্ত্রাস ও আক্রমণের হুমকিতে ঘরে ফিরতে পারছেন না অনেকেই। গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার দাবিতে পথে নেমে রবিবার সোচ্চার প্রতিবাদ জানালেন মানুষ। তাঁদের এই দাবিকে সমর্থন করে সি পি আই (এম) রাজ্য সম্পাদক ও রাজ্যের বিরোধী দলনেতা সূর্য মিশ্র এদিন বলেন, চারদিক থেকে ভয়ঙ্কর আক্রমণ নেমে আসছে কৃষক, শ্রমিক থেকে শুরু করে সব অংশের সাধারণ মানুষের ওপর। শুধু বামপন্থীদের ওপরেই আক্রমণ হচ্ছে না, এই শাসকদলের সামান্যতম সমালোচনা করলেই আক্রমণ নেমে আসছে সবার ওপর, তা সে তৃণমূলপন্থীই হোন বা বি জে পি-পন্থী। কেউই রেহাই পাচ্ছেন না। তাই সবাই এগিয়ে আসুন, আমরা একসাথে লড়াই করি। মুখ্যমন্ত্রী জেনে রাখুন, আমরা আমাদের সর্বশক্তি দিয়ে প্রতিরোধের বার্তা দিতে প্রস্তুত। দরকারে হাজারবার আমরা মিটিং-মিছিল করব। -সূর্য মিশ্র সি পি আই (এম) হুগলী জেলা কমিটির ডাকে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে এদিন ব্যানার, পতাকা, ফেস্টুন নিয়ে পথে নামেন মানুষ। বিশাল এক মিছিলে স্বতঃস্ফূর্তভাবে শামিল হন তাঁরা। মিছিল থেকে মুহুর্মুহু ওঠে স্লোগান। জেলা, রাজ্যে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার দাবির পাশাপাশি পার্টিকর্মী-সমর্থকসহ বহু মানুষের ওপর থেকে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও ঘরছাড়াদের ঘরে ফেরানোর দাবি জানান তাঁরা। ব্যান্ডেল মোড় থেকে শুরু হয় মিছিল। বালিমোড়, চক বাজার, পিপুলপাতি মোড় পেরিয়ে মিছিল শেষ হয় চুঁচুড়া ঘড়ি মোড়ে। মিছিলে সূর্য মিশ্র ছাড়াও ছিলেন সি পি আই (এম) রাজ্য সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য শ্রীদীপ ভট্টাচার্য, পার্টির হুগলী জেলা সম্পাদক সুদর্শন রায়চৌধুরী, পার্টি নেতা বিনয় দত্ত, রূপচাঁদ পাল, দেবকুমার চ্যাটার্জি, স্নেহাশিস রায়, মোজাম্মেল হোসেন, পরিতোষ ঘোষ প্রমুখ। মিছিল যত এগিয়েছে ততই বিভিন্ন এলাকা থেকে মানুষ যোগ দিয়েছেন মিছিলে। রাস্তার মোড়ে মোড়ে মিছিলে শামিল পরিশ্রান্তদের জন্য এগিয়ে দিয়েছেন খাবার জল। বিভিন্ন বাড়িগুলি থেকে বাসিন্দারা এগিয়ে এসে দাঁড়িয়েছেন রাস্তার ধারে। এদিন তাঁদের হাত নেড়ে অভিবাদন জানান সূর্য মিশ্র। এরপর ঘড়ি মোড়ে একটি পথসভা হয়। সেখানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মিতালী কুমার। ঘড়ির মোড়ে আয়োজিত পথসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে সূর্য মিশ্র বলেন, আমাদের রাজ্যে প্রতিদিনই মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন। শুধু বামপন্থীরাই নয়, অন্য বিরোধীরাও সরকারের সমালোচনা করলেই আক্রান্ত হচ্ছেন। এ কোন রাজ্য, যেখানে তৃণমূলের দুষ্কৃতীদের হাতেই খুন হচ্ছেন তৃণমূলীরা। আক্রান্ত হচ্ছেন পুলিশও। গার্ডেনরিচে যখন পুলিশ কর্মী খুন হন, তখন মুখ্যমন্ত্রী দীঘাতে। এই তো অবস্থা! আক্রান্ত হচ্ছেন সংবাদমাধ্যমের কর্মীরাও। এমনকি আক্রান্ত বিচারকও। আর, রাজ্যজুড়ে মহিলারা তো রোজই আক্রমণ, ধর্ষণের শিকার হচ্ছেন। অথচ মুখ্যমন্ত্রী বলছেন, এটি নাকি স্বাভাবিক। রানাঘাটের সিস্টারকে ধর্ষিতা হয়ে দেশ ছেড়ে চলে যেতে হলো। এ কি লজ্জা আমাদের। -সূর্য মিশ্র সূর্য মিশ্র বলেন, মানুষের জীবন-জীবিকার ওপরে আঘাত আসছে। ফসলের দাম পাচ্ছেন না কৃষক। ১কেজি আলু উৎপাদন করতে যদি ৫টাকা ৫০পয়সা খরচ হয়, তাহলে তিনি দাম পাচ্ছেন ৩ টাকা। ধান, পাট কেনার লোক নেই- কৃষক বাঁচবেন কী করে? এসব নিয়ে আন্দোলন করলেই মুখ্যমন্ত্রীর মনে ভয় ঢুকছে। আন্দোলনকে দমন করছেন। কীসের এত ভয়? -সূর্য মিশ্র ঠিক সময়ে ঠিক ঠিকভাবে ভোট করতেই বা ভয় কেন? হাজার হাজার মানুষ মিথ্যা মামলায় জর্জরিত। ঘর ছাড়া বহু কর্মী। তাঁদের কী হবে? মানুষের কাজের কী হবে? মুখ্যমন্ত্রী যা হিসাব দিচ্ছেন, তাতে প্রায় ৫০ লক্ষ লোকের কাজ হওয়ার কথা। তাই হচ্ছে কি? উপরন্তু ব্যবসা করতে গেলে তোলা দিতে হচ্ছে। সিঙ্গুরে কারখানা হলো না। মুখ্যমন্ত্রীর মিথ্যা প্রতিশ্রুতি ছিল মানুষ জমি ফেরত পাবেন। কিন্তু তাও হলো না। -সূর্য মিশ্র প্রতিদিনই বিপদ বাড়ছে সাধারণ মানুষের। বিদ্যুতের দাম বাড়ছে ক্রমশ। নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বাড়ছে। আর ওদিকে কেন্দ্রে বি জে পি-র সঙ্গে আঁতাত চলছে। চলছে চিট ফান্ডের কোটি কোটি টাকা লুঠপাটের দুর্নীতিগুলি চাপা দেওয়ার মরিয়া চেষ্টা। বাংলাদেশের জামাতুল মুজাহিদিন গোষ্ঠীকে গোপনে আহ্বান করছে শাসকদল। তার ফল আমরা দেখলাম সাম্প্রতিক বোমা বিস্ফোরণ কাণ্ডে। -সূর্য মিশ্র যে সরকারের মন্ত্রী জেলে থাকেন, তাদের কাছ থেকে কী ভালো আশা করা যায়? বামফ্রন্ট সরকারের আমলে এরকম কোনোদিন হয়েছে? প্রধানমন্ত্রী কালো টাকা ফিরিয়ে আনবেন বলে ঠিক করেছেন, অথচ রাজ্যের দুর্নীতিগুলি দেখছেন না। তাই কেন্দ্রের বি জে পি ও রাজ্যের তৃণমূলকে হটাতে হলে এবার আরো জোরদার প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। -সূর্য মিশ্র এদিনের সভায় সভাপতিত্ব করেন সুদর্শন রায়চৌধুরী। তিনি বলেন, মত প্রকাশের স্বাধীনতা আর নেই। শুধু আক্রমণ আর আক্রমণ। আরামবাগ, ধনিয়াখালি এলাকাসহ বহু এলাকার মানুষ ঘছাড়া। তাঁদের মধ্যে বৃদ্ধ, মহিলা শিশুও রয়েছেন। মিথ্যে মামলা দেওয়া হয়েছে অনেকের বিরুদ্ধে। আক্রান্তদের ঘরে ফেরাতে হবে। মিথ্যা মামলাগুলি তুলে নিতে হবে প্রশাসনকে। না হলে আরো তীব্র আন্দোলনে নামবেন পার্টিকর্মী-সমর্থকরা। -সূর্য মিশ্র


No comments: