RESIST FASCIST TERROR IN WB BY TMC-MAOIST-POLICE-MEDIA NEXUS

(CLICK ON CAPTION/LINK/POSTING BELOW TO ENLARGE & READ)

Sunday, June 21, 2015

ATROCITIES ON WOMEN IN NORTH 24 PARGANAS - গৌতম দেব বলেন, শাসকদলের সন্ত্রাস ও অত্যাচার সত্ত্বেও উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় সি পি আই (এম)-র সদস্য সংখ্যা বাড়ছে। ২০১২ সালে যেখানে সদস্য সংখ্যা উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় ছিল ১৯,৮১০। ২০১৩ সালে ২১,২৬১, ২০১৪ সালে ২১,৯৪৭ এবং ২০১৫ সালে এর মধ্যেই তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৪,৬২৪। কৃষকসভায় গত বছরে জেলায় সদস্য সংখ্যা ছিল ৪,৪৯,০১৫ সেখানে ২০১৫ সালে হয়েছে ৪,৭৬,৫০৪। দেব বলেন, কৃষকদের অবস্থা শোচনীয়। আবহাওয়া পরিসংখ্যান বলছে এ বছর ১২ থেকে ১৪ শতাংশ বৃষ্টি হবে। ফসলের ক্ষতি হবে। এই রাজ্যে কৃষকরা ইতিমধ্যে ফসলের দাম পাচ্ছেন না। আত্মহত্যা করছেন। অথচ এই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর এ বিষয়ে কোনো দুশ্চিন্তাই নেই। তিনি পাহাড়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। আর দেশের প্রধানমন্ত্রী পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ ঘুরে বেড়াচ্ছেন। তাই ১০ই আগস্ট বামফ্রন্টের নেতৃত্বে সুন্দরবন তথা বাংলার কৃষকরা নবান্ন অভিযান করবেন। ওইদিন কলকাতা থেকে মিছিল হবে নবান্নের উদ্দেশ্যে। পুলিশ যেখানে আটকাবে সেখানেই কৃষকরা শুয়ে পড়বে। তিনি বলেছেন, উত্তর ২৪ পরগনা জেলার সংখ্যালঘু ৫০০ ছাত্র-ছাত্রীকে নিয়ে ৩০শে জুলাই বারাসত বিদ্যাসাগর হলে সেমিনার হবে। বিষয় থাকবে সাম্প্রদায়িকতার বিপদ। সেই সেমিনারের মইনুল হাসানসহ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থাকবেন। ভারত, বাংলাদেশ, বার্মাসহ অন্যান্য দেশের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত থাকবেন। ৩রা জুলাই পার্টি কংগ্রেসের রিপোর্টের উপর আলোচনা হবে বারাসত বিদ্যাসাগর মঞ্চে। উপস্থিত থাকবেন শ্রীদীপ ভট্টাচার্য, মহম্মদ সেলিমসহ নেতৃবৃন্দ। ৮ই জুলাই জ্যোতি বসুর জন্মদিবস পালন করা হবে। জ্যোতি বসুর নামে গবেষণা কেন্দ্র করার জন্য ৫ একর জমি রাজারহাট নিউটাউনে নেওয়া হয়েছিল। ঐ জমির টাকা হিডকো-কে দেওয়া হয়েছিল। সেই জায়গাতেই ৮ই জুলাই সমাবেশ করা হবে। গৌতম দেব জানিয়েছেন, ২৬শে জুন অভ্যন্তরীণ জরুরি অবস্থা জারির ৪০ বছর। সেই জরুরি অবস্থা কী ভয়ঙ্কর ছিল তা নতুন প্রজন্মের সামনে তুলে ধরা হবে। এই বিষয়ের উপর ২৬শে জুন একাধিক সভা হবে জেলায়। দেব বলেছেন, মহিলাদের উপর অত্যাচারমাত্রা ছাড়িয়েছে। জেলায় ২০০ জন মহিলাকে নিয়ে একটি দল তৈরি করা হয়েছে। যেখানে মহিলাদের ওপরে অত্যাচার হবে সেখানেই এই মহিলা দল পৌঁছে যাবে। এলাকায় গিয়ে কথা বলবে। প্রয়োজনে থানা ঘেরাও করবে দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে। কারণ কামদুনি এখনো বিচার পেল না। মধ্যমগ্রামের ট্যাক্সিচালক মধ্যমগ্রামে থাকতে না পেরে বিহারে চলে গেলেন। এ লজ্জা আমাদের। তিনি বলেন, রাজ্য সরকার বিভিন্ন ক্লাবকে কোটি কোটি টাকা বিলি করেছে। উত্তর ২৪ পরগনায় অনেক ক্লাব খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক ক্রীড়া কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত থেকেও এই টাকা থেকে বঞ্চিত। এই বঞ্চিত ক্লাবগুলিকে একজোট করে তাদের নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে দাবি জানানো হবে।

No comments: