RESIST FASCIST TERROR IN WB BY TMC-MAOIST-POLICE-MEDIA NEXUS

(CLICK ON CAPTION/LINK/POSTING BELOW TO ENLARGE & READ)

Monday, December 29, 2014

AIDWA seeks CBI probe into functioning of Aurobindo Ashram

Ganasakti



Raisen (MP), Dec 29 : A curfew was clamped today in Gairatganj town near here after members of two communities clashed with each other, pelted stone and torched more than half a dozen shops, forcing the police to lob teargas shells.

Ganasakti



Chennai, Dec 29 : Commuters were hit hard for the as a number of state run buses remained off the roads across Tamil Nadu due to a strike by employees of government-run transport corporations pressing for various demands, including wage revision, for the second day today.

Ganasakti



Chennai, Dec 29 : Commuters were hit hard for the as a number of state run buses remained off the roads across Tamil Nadu due to a strike by employees of government-run transport corporations pressing for various demands, including wage revision, for the second day today.

Ganasakti



CPI(M) POLIT BUREAU CALLS FOR NATIONAL SOLIDARITY ACTIONS WITH ASSAM ADIVASIS

Ganasakti



Bodo militants had targeted tribals, who retaliated, followed by police firing, leaving over 80 dead.

Ganasakti



Passengers at Allahabad railway station wrap themselves in blankets to protect themselves from the biting cold during a foggy morning in Allahabad on Monday. - See more at: http://ganashakti.com/english/news/top_story/7296#sthash.q6epmSpm.dpuf

Ganasakti



Family members of Bhawani Bala, the deceased in the Bengaluru blast, mourn outside a hospital in Bengaluru on Monday. - See more at: http://ganashakti.com/english/news/top_story/7288#sthash.KigylTZO.dpuf

Ganasakti



AirAsia plane with 162 aboard missing en route to Singapore - See more at: http://ganashakti.com/english/news/top_story/7280#sthash.LPSYXJzk.dpuf

Ganasakti



Left won’t join TMC in harmony cause - The Times of India

Left won’t join TMC in harmony cause - The Times of India



I have proof against Mamata Banerjee in Saradha: Kunal Ghosh - The Times of India

I have proof against Mamata Banerjee in Saradha: Kunal Ghosh - The Times of India



A call-centre lady got acid attack on her face - The Times of India

A call-centre lady got acid attack on her face - The Times of India



KOLKATA: The CBI on Friday registered two fresh cases against Saradha boss Sudipta Sen in connection with alleged cheating of investors in Assam by his company. On the same day, central agencies began tracing more than Rs 50 crore that Sudipta had reportedly parked with his immediate family before he fled Kolkata in April last year. - The Times of India

CBI files new case against Saradha - The Times of India



Govt privatizing railways by stealth, claims Congress - The Times of India

Govt privatizing railways by stealth, claims Congress - The Times of India



Saradha scam: ED looks to crack Shankudeb’s role - The Times of India

Saradha scam: ED looks to crack Shankudeb’s role - The Times of India



A different kind of success story - The Times of India

A different kind of success story - The Times of India



Nobel laureate’s take on education - The Times of India

Nobel laureate’s take on education - The Times of India



Shahid Divas venue not for opposition: Kolkata Municipal Corporation - The Times of India

Shahid Divas venue not for opposition: Kolkata Municipal Corporation - The Times of India



Are TMC leaders testing water before BJP plunge?

http://timesofindia.indiatimes.com/city/kolkata/Are-TMC-leaders-testing-water-before-BJP-plunge/articleshow/45682020.cms

Shankudeb at ED door, face hidden behind black shawl

Shankudeb at ED door, face hidden behind black shawl

‘BJP exploiting state’s latent communalism’ Rakhi Chakrabarty,TNN | Dec 30, 2014, 06.03 AM IST

http://timesofindia.indiatimes.com/city/kolkata/BJP-exploiting-states-latent-communalism/articleshow/45683298.cms

Sleuths dig into Siddiqui-TMC ties ******************************************************* http://timesofindia.indiatimes.com/city/kolkata/Sleuths-dig-into-Siddiqui-TMC-ties/articleshow/45683309.cms

KOLKATA: A special officer of Kolkata Municipal Corporation health department resigned on Monday. He cited malpractices corroding the birth certificate wing as the reason for his decision. ******************************************* http://timesofindia.indiatimes.com/city/kolkata/Officer-resigns-over-KMC-dept-malpractices/articleshow/45683313.cms?cfmid=2000000

TV actress molested, passersby ignore cries

http://timesofindia.indiatimes.com/city/kolkata/TV-actress-molested-passersby-ignore-cries/articleshow/45683320.cms

'Kissing’ baba arrested ************************************ http://timesofindia.indiatimes.com/city/hyderabad/Kissing-baba-arrested/articleshow/45644803.cms?intenttarget=no&utm_source=TOI_AShow_OBWidget&utm_medium=Int_Ref&utm_campaign=TOI_AShow

NEW DELHI: The Congress on Monday slammed government over the ordinance to amend Land Acquisition Act within a week after end of Parliament session and said every word changed in the law brought by the UPA will have to stand scrutiny of Parliament during the Budget session. http://timesofindia.indiatimes.com/india/Congress-JDU-slam-govt-over-land-acquisition-ordinance/articleshow/45680557.cms

Union Cabinet approves ordinance to amend Land Acquisition Act http://timesofindia.indiatimes.com/…/articlesh…/45682213.cms

Thursday, December 11, 2014

If you condemn Agra 'ghar vapasi' can you now defend evangelical, Muslim conversion drives?

http://www.firstpost.com/india/can-those-who-condemn-agra-ghar-vapasi-still-defend-missionary-muslim-conversion-drives-1844701.html

After Agra, it's Aligarh: Get ready for a spate of reconversion drives in UP

http://www.firstpost.com/india/after-agra-its-aligarh-get-ready-for-a-spate-of-reconversion-drives-in-up-1844633.html

BJP, RSS spreading communal disharmony through conversions: BSP

http://www.firstpost.com/politics/bjp-rss-spreading-communal-disharmony-through-conversions-bsp-1845291.html

BJP asks Mamata Banerjee to 'respect federal structure', attend PM's meet

http://timesofindia.indiatimes.com/india/BJP-asks-Mamata-Banerjee-to-respect-federal-structure-attend-PMs-meet/articleshow/45396471.cms

Nathuram Godse a 'patriot', says BJP MP Sakshi Maharaj, retracts later

http://www.firstpost.com/politics/nathuram-godse-patriot-says-bjp-mp-sakshi-maharaj-retracts-later-1845337.html

Watch: TMC MP Kalyan Banerjee gets aggressive when asked about Saradha scam

http://www.firstpost.com/politics/watch-tmc-mp-kalyan-banerjee-gets-aggressive-asked-saradha-scam-1832655.html

Saradha scam: CBI to quiz Bengal minister Mitra today

http://zeenews.india.com/news/west-bengal/saradha-scam-cbi-to-quiz-bengal-minister-mitra-today_1512835.html

WB reluctant on January civic polls

http://timesofindia.indiatimes.com/city/kolkata/WB-reluctant-on-January-civic-polls/articleshow/45442824.cms

ALL INDIA COAL WORKERS’ FEDERATION CONGRATULATES THE COAL WORKERS FOR THE BATTLE OF BARRICADES AGAINST COAL DE-NATIONALISATION AND ANNOUNCES NATIONWIDE STRIKE ON 13TH. JANUARY, 2015


PRESS RELEASE:

ALL INDIA COAL WORKERS’ FEDERATION CONGRATULATES THE COAL WORKERS FOR THE BATTLE OF BARRICADES AGAINST COAL DE-NATIONALISATION AND ANNOUNCES NATIONWIDE STRIKE ON 13TH. JANUARY, 2015

Shri Jibon Roy, General Secretary of All India Coal Workers Federation has issued the following statement on the above subjects for favour of publication and communication:


“ All Inida Coal Workers Federation  applauds  the Indian  Coal Workers  for their valiant   patriotic response against  Central  Government’s   role to  obtain Parliamentary consent for  Denationalization Coal Industry. Government resorted to this act  while over riding all Parliamentary  procedure and  with an  unprecedented  hurry. The  unilateralism initiated by the Honble Coal Minister,  in his act  of   flattening  the   steps  one to another,  coercive    humiliation to the coal workers and  their leaders which has  culminated  to  enactment of the  Denationalisation Law, is being concurrently  responded   yesterday  by the workers   in the way of  putting barricades. The act of protest has been carried  simultaneously cutting across, length and breadth of the Coal producing areas in the country.  This epic confrontation,  probably  brings the end  to an  era  in the history of  Industrial relation system   which began five decades ago with the formation of   bipartite machinery in   Steel Industry for dealing such  relations  in the way  of   country wide  negotiation.  It may be simultaneously, the beginning of the  end of  the desperation of  Multinational-Corporate hegemony exploiting  religious fundamentalism to settle score in the arena of  industrial relations.  

Federation views  that if the de-nationalisation of  Coal  which has been  followed the withdrawal of  legislative umbrella  from 72% of the industrial workers in this country, tantamount to biggest and concurrent  onslaught in the current century,  against the workers,  the appearance of the barricades in the widest part of the country for the first time after independence, would probably influence the beginning for   setting  the course of the history in the present crisis  . Had the Honble Minister who is happened to be the employer of the second largest work force in the country, saw it easy to humiliate those respectable  leaders  who came out of the way for  withdrawing 24th November Strike and refused to meet them even after his commitment ,  the to-days battle of barricade be taken as the appropriate response . It has to be noted that had  there  not been  more worst for the country then the denationalization, there  would not have been appropriate rejoinder, had not the second largest labour detachment exercised the symbol of block against restoration of slavery and  putting  the poor out of civilized life. 

Protest has been overwhelmed, began on tenth itself when the news poured into the coal cities about the incidence of introduction, spread like fire from one to the other states. Black flags were seen hoisted in union offices and public places in the coal mining societies.  Protest took the shape of revolt  by  noon  today.  The protest demonstration within the pit heads began shifting to cities and barricades surfaced.  Consequently, workers action behind the barricades   from  sub-area offices, towards the   main road  and then barricades   appeared on the  National high way with huge mobilization. .  Thousands of workers gathered accompanied   with other social forces, including women, students and youth. The national highways affected widespread.  Besides, the Ranjiganj coal filed in West Bengal, a vast area of Jharkhand  covering  Jharia, Dhanbad,  Ramgarh, Bermo, Barkashial,  Kathara    were effected.  Demonstration and road blockage have taken place  in all  areas  of WCCL and  SECCL, covering  Bilaspur, Korba, Chirimiri,  Nagpur, Samner, Umred and  Chandrapur areas.  Demonstration and  Road blockages in Singarani coal field has been massive.  Barricades and demonstrations appeared in vast areas of Mahanadi Coal fields which include  Talcher,  Basundhara and  the Head quarter.  In NCL  (UP & MP)  workers came out into the streets in hundreds in every mining areas which includes. In North East Coalfield Margarrata has been one of the boiling point of  Assam.  

Federation wish to humbly  submit that it wish to be conscious of its responsibility for burdening the leadership of the great upsurge , after the leaders  of three other trade unions have failed to absorb the warmth.  

In response to this bounden task,  it thought to calls upon the Coal Workers to raise their resistance to the new organised height out of the spontaneity .  It calls the   Nation wide strike on 13th of January, 2015 and it sponsors the strike with the belief that the battle of barricade representing 11th. December would provide courage to those leaders for rejoining the workers with their revered leadership.  

Federation Calls upon the coal workers, never to forget   that they are  in street neither for  themselves alone, nor they can survive the crisis alone. They must address the struggle with an urge for resurrection which never returns alone for a particular detachment.  They can survive   only when they are effectively supported by the other section of  working population and  democratic opinion. Federation calls them further to go each and every family members and the democratic opinion in the coal mining society and ensure their presence in the Human chain   of 16th. December, as succeeding to   similar program over the pit heads on 12th December. 

Federation urge upon the workers in this country, irrespective of affiliation and democratic opinion to accept the strike of 13th as the expression of common agony which got almost suppressed under ‘glimmer’ of market.  

Federation requests the Government   for maintaining restraint while dealing the strike and warns in case of  state or any such repression the strike may get extended  in its automatic course.”   

Wednesday, December 10, 2014

CHIT FUND AND TMC

DEPOSITORS OF SARADHA CHIT FUND

PRIVATISATION OF COAL INDUSTRY

INSURANCE BILL INTRODUCED BY MODI GOVERNMENT

NAKASHIPARA, NADIA

RANI RASHMONI ROAD AND THE LEFTISTS

ENTERTAINMENT TOURS OF MAMATA BANERJEE

SURYAPURI LANGUAGE

RAPE UNDER NARENDRA MODI'S RULE

LEFTISTS IN ORISSA

CPI (M) STATE CONFERENCES IN INDIA

RIGHT TO SUICIDE IN INDIA

WEST BENGAL HUMAN RIGHTS COMMISSION-WEST BENGAL GOVERNOR

CALCUTTA UNIVERSITY ELECTION WITH OTHER COLLEGES

DHULAURI, LALGOLA

CIVIL SERVICE EXAMINATION

CONVERSION TO HINDUISM IN AGRA

SUBSIDY IN POTATO

DINENDRANATH BHATTACHARYA

GIRL COMMITS SUICIDE TO SAVE HONOUR

MINDNAPORE COLLEGE IN ANARCHY

WOMEN MOST UNSAFE IN THE HANDS OF GOONS OF MAMATA

SANTRAGACHI RAPE CASE

POULTRY FARMERS OF MIDNAPORE

MYSTERY OF BHAGWAT GEETA

JUJARSHA PN MANNA INSTITUTION, PANCHLA

CONFISCATE PROPERTIES OF SARADHA CHIT FUND

BANKURA MUNICIPALITY-NO CONFIDENCE

NATIONAL HIGH WAY-60

SASHTI BOURI

FDI IN INDIAN RAILWAYS

SIMLAPAL-BIKRAMPUR

AYODHYA, PURULIA - VILLAGE BEING SHIFTED

ARSHA BLOCK IN PURULIA

বিশ্ব মানবাধিকার দিবস ও আমরা - কান্তি বিশ্বাস ******************************************************************************************************************************************************আজ ১০ই ডিসেম্বর। সমগ্র বিশ্বে ১৯৪৮ সাল থেকে এই দিবসটি ‘‘বিশ্ব মানব অধিকার দিবস’’ হিসাবে উদ্‌যাপিত হয়ে আসছে। আজ এই অতীব গুরুত্বপূর্ণ দিবসে স্মৃতিপটে ভেসে ওঠে ১৮৯৩ সালে ১১ই সেপ্টেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরে স্বামী বিবেকানন্দ-র সেই উদ্দীপনাময়ী তাৎপর্যপূর্ণ ভাষণ। তিনি ঐ বিশ্ব-ধর্ম সম্মেলনে বলেছিলেন — ‘‘সাম্প্রদায়িকতা, গোঁড়ামি ও এগুলোর ফলে ধর্মের উন্মত্ততা এই সুন্দর পৃথিবীকে বহুদিন অধিকার করে রেখেছে। এরা পৃথিবীকে করেছে হিংসায় পূর্ণ। বারবার একে ভিজিয়েছে মানুষের রক্তে। সভ্যতাকে করেছে ধ্বংস এবং সমস্ত জাতিকে টেনে নিয়ে গেছে হতাশার মধ্যে। এসব ভয়ঙ্কর পিশাচগুলো যদি না থাকতো, তাহলে মানবসমাজ আগের তুলনায় অনেক উন্নত ও মহান হতো। তবে ভয় নেই। এদের মৃত্যুর সময় হয়ে এসেছে।’’ স্বামীজীর ঐ আত্ম-প্রত্যয়ী, সুমহান প্রেরণাদায়ক ভাষণের ৪৬ বছর পর ১৯৩৯ সালে জার্মানির নাৎসিবাহিনীর সাম্রাজ্যবাদী লিপ্সায় শুরু হলো দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ। চললো ১৯৪৪ সাল পর্যন্ত। শুধুমাত্র সমাজতান্ত্রিক সোভিয়েতে মৃত্যু হলো ২ কোটির বেশি মানুষের। লক্ষ কোটির টাকার সম্পদ হলো ধ্বংস। জাপানে নিক্ষিপ্ত নাৎসিবাহিনীর আণবিক বোমার বিষক্রিয়া এখনও জীবনকে করে চলেছে আক্রান্ত। মানবতা-বিরোধী এই চরম হিংস্রতাপূর্ণ যুদ্ধে জার্মানি ও তার মিত্র শক্তির পরাজয়ের পর সোভিয়েত ইউনিয়ন, চীন, গ্রেট ব্রিটেন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৪৪ সালের ২১শে আগস্ট থেকে ৭ই অক্টোবর পর্যন্ত কয়েক দফা আলোচনা করে ‘‘রাষ্ট্রসঙ্ঘ’’ গঠনের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে এবং তা কার্যকর হয় ১৯৪৫ সালের ২৪শে অক্টোবর। ঐ দিনটি রাষ্ট্রসঙ্ঘের জন্ম দিবস হিসাবে ধরা হয়। এই বিশ্ব সংস্থা গোটা বিশ্বের মানব অধিকারকে সুরক্ষিত করার পথ-পন্থা নির্ণয় করার জন্য ১৯৪৮ সালের জুন মাসে ‘‘ইউনাইটেড নেশনস কমিশন অফ হিউম্যান রাইটস’’ শীর্ষক একটি কমিশন নিয়োগ করে। ঐ কমিশনের সুপারিশ অনুসারে রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ পরিষদের প্যারিস শহরে অনুষ্ঠিত অধিবেশনে গ্রহণ করা হয় মানব অধিকারের সর্বজনীন ঘোষণা। এই গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা করা হয়েছিল ১৯৪৮ সালের ১০ই ডিসেম্বর। সেই থেকে ১০ই ডিসেম্বর দিবসটি বিশ্বের সর্বত্র স্বমহিমায় পালিত হয় ‘‘বিশ্ব মানবাধিকার দিবস’’। ঐ গুরুত্বপূর্ণ দিবস উদ্‌যাপনের শুরু থেকে ৬৬ বছর অতীত হয়েছে। ঐ মনোমুগ্ধকর ঘোষণায় ৩০টি অনুচ্ছেদ আছে। তার সবগুলির পরিণত আলোচনা করা এখানে সম্ভব নয়। সেজন্য মাত্র কয়েকটির অবস্থা সম্পর্কে সম্পর্কিত তথ্যাবলীর উল্লেখ করছি। প্রথম অনুচ্ছেদে বলা আছে সকল মানব সন্তানই স্বাধীনভাবে জন্মগ্রহণ করে জীবনে সমান মর্যাদা ও অধিকার পাবে। আজ বিশ্ব ক্ষুধা সূচকে দেখা যাচ্ছে বিশ্বের মোট জনসংখ্যার ২৬ শতাংশ মানুষ পেটের ক্ষুধা নিয়ে রাত্রে ঘুমাতে যায়, আর আই এম এফ-র প্রতিবেদন অনুসারে বিশ্বের ৮৫টি পরিবার বিশ্বের মোট জনসংখ্যার দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাসকারী মানুষের মোট সম্পদের অর্ধেকের বেশি মালিক। ‘মিলেনিয়াম ডেভেলপমেন্ট গোল’-র ২০১৪ সালের প্রতিবেদন অনুসারে বিশ্বের গরিব হিসাবে চিহ্নিতদের এক-তৃতীয়াংশই ভারতে। রাষ্ট্রসঙ্ঘের প্রতিবেদন অনুসারে জন্মগ্রহণ করার পর প্রতি এক হাজার শিশুর মধ্যে ৩৭টি শিশুর মৃত্যু ঘটে এক বছরের মধ্যে। ভারতে ঐ শিশু মৃত্যুর হার ৪৭। মানব অধিকারের ২৩ নম্বর অনুচ্ছেদে কাজের অধিকারকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। সর্বশেষে বিশ্ব প্রতিবেদন অনুসারে ১৮ শতাংশ কর্মক্ষম এবং কর্মে যোগ দেওয়ায় ইচ্ছুক যুবক বেকার। ঐ অধিকারের ২৫ নম্বর অনুচ্ছেদে জননী ও শিশুদের অধিকারের কথা বলা হয়েছে। বিশ্বে প্রতি বছর ৫ লক্ষ ৬৬ হাজার প্রসূতি মায়ের সন্তান প্রসবের সময় মৃত্যু হয়। প্রতি বছর ৪৪ লক্ষ নারী ভিন্ন দেশে পাচার হয়। ঐ অধিকারের ২৬ নম্বর অনুচ্ছেদে বলা আছে বিশ্বের প্রত্যেক নাগরিকের বিনা খরচে প্রারম্ভিক শিক্ষা — ১৪ বৎসর বয়স এবং অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষার অধিকার প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণের উপযুক্ত বয়সের ৮ কোটি ১২ লক্ষ শিশু এই বিশ্বে বিদ্যালয়ের অঙ্গনে পা রাখার সুযোগ থেকে বঞ্চিত। এই ভাগ্যহীন শিশুদের ৬১ শতাংশই কন্যা শিশু। ২২ নম্বর অনুচ্ছেদে প্রত্যেক দেশে প্রত্যেক নাগরিকের সামাজিক সুরক্ষার নিশ্চয়তার বিধান দেওয়া আছে। কিন্তু বিশ্বের অঙ্গন থেকে অস্পৃশ্যতার মতো মানবিকতাহীন প্রথার এখনও বিলোপ ঘটেনি। ভারতে মানবিক অধিকার সুজলা-সুফলা এই ভারত স্বাধীনতা লাভের পর ৬৭ বৎসর পার হয়ে ৬৮ বছরে পা রেখেছে। কতখানি সুরক্ষিত এখানে মানবিক অধিকার। ভারতে কেন্দ্রীয় সরকারের দ্বারা নিযুক্ত একটি মানবাধিকার কমিশন আছে। কিন্তু এদের না আছে কাঙ্ক্ষিত ক্ষমতা, না আছে যোগ্য ভূমিকা। একটা দেশের মোট জনসংখ্যার কত অংশ অর্থাভাবের কারণে ক্ষুধার যন্ত্রণা ভোগ করে — তাকে ভিত্তি করে প্রতি বছর প্রকাশিত হয় ‘বিশ্বের ক্ষুধা সূচক’। সর্বশেষ ঐ প্রতিবেদনে ভারতের থেকে ঐ মানবিক অধিকার বেশি সুরক্ষিত বিশ্বের ৯৩টি দেশে। কাজের অধিকারকে মানবিক অধিকার হিসাবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। ভারতে ২০১১ সালের লোক গণনার প্রতিবেদন অনুসারে ১৫ থেকে ২৪ বৎসর বয়সের বয়স্কদের ২০ শতাংশ কর্মরত হতে ইচ্ছুক হওয়া সত্ত্বেও কর্মহীন, বেকার। আন্তর্জাতিক ধন ভাণ্ডারের (আই এম এফ)-র অধিকর্তা ক্রিস্টিনা গত ৩রা ফেব্রুয়ারি এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন ভারতে গত ১৫ বৎসরে কোটিপতি পরিবারের সংখ্যা বেড়েছে ১২ গুণ — এটা বিশ্বের সর্বাধিক। মানবিক অধিকারে শিক্ষার অধিকারও অন্তর্ভুক্ত। বিশ্বের মোট জনসংখ্যার ১৭ শতাংশের বাস ভারতে — আর বিশ্বের মোট নিরক্ষরদের ৩৪ শতাংশ আছে ভারতে। অবৈতনিক আবশ্যিক শিক্ষা আইন (৬ থেকে ১৪ বৎসর বয়সের) ভারতে প্রবর্তিত হয়েছে। কিন্তু তার জন্য সরকারী ব্যয়-বরাদ্দের বি‍‌শেষ করে কেন্দ্রীয় সরকারের ব্যয়-বরাদ্দে ঐ বাবদ প্রয়োজনীয় অর্থের কোনো সংস্থান নেই। তাই এই অভাগা শিশুরা বঞ্চিত হচ্ছে শিক্ষা গ্রহণের অধিকার থেকে। সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপে মানবিক অধিকার ক্ষুণ্ণ হয় বলে রাষ্ট্রসঙ্ঘের দলিলে বলা হয়েছে। ভারতে কাশ্মীরসহ কয়েকটি রাজ্যে বর্তমান বৎসরে যে কয়েকটি মারাত্মক ধরনের সন্ত্রাসবাদী হিংস্র ঘটনা ঘটেছে এটাও বিশ্বের একটি মর্মান্তিক, বেদনাদায়ক উদাহরণ। সরকারী তৎপরতার কাঙ্ক্ষিত ভূমিকার অভাবেই এই ঘটনারাজি সঙ্ঘটিত হতে পারছে। নারী ও শিশুদের অধিকারের কথা বিশ্বে মানবিক অধিকারে বলা হয়েছে। ইউনিসেফ প্রকাশিত ‘‘স্টেট অব দ্য ওয়ার্ল্ড চিল্ড্রেন’’-র প্রতিবেদন ২০১৩-র সূত্র অনুসারে সন্তান প্রসবের সময় প্রসূতি মৃত্যু এবং শিশু মৃত্যুর বিচারে বিশ্বের সর্বাধিক ভাগ্যহীন দেশ ভারত। ভারত থেকে নারী পাচারের সংখ্যা বিশ্বের সর্বাধিক, দেশের অভ্যন্তরে ঐ সংখ্যা উৎকণ্ঠার বিষয়! রাজনৈতিক, সামাজিক, আর্থিক অধিকার অর্জনের ক্ষেত্রেও ভারতের নারী সমাজের অবস্থান বিশ্বের অত্যন্ত নিচুতে (রাষ্ট্রসঙ্ঘ প্রকাশিত — দ্য ওয়ার্ল্ড উইমেন)। সামাজিক ন্যায় বিচারের ক্ষেত্রে ভারতের অত্যন্ত করুণ দশা। রাষ্ট্রসঙ্ঘের প্রতি‍‌বেদন (Commission for Elimination of Racial Discrimination)-র তথ্য অনুসারে বর্ণবৈষম্যের তীব্রতা এবং অস্পৃশ্যতায় হিংস্রতা বিশ্বের মধ্যে সর্বাধিক ভারতে। আলোচনা আর বৃদ্ধি করতে চাই না — কিন্তু এই বেদনা নিয়ে ভারতে পালিত হবে ‘মানবাধিকার দিবস’। পশ্চিমবঙ্গের অবস্থা বঙ্গ জননীর খ্যাতিমান সন্তান বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ রচনা করেছিলেন সঙ্গীত — ‘‘আজি বাংলাদেশের হৃদয় হতে কখন আপনি, তুমি এই অপরূপ রূপে বাহির হলে জননী। *** ওগো মা, তোমায় দেখে দেখে আঁখি না ফিরে / তোমার দুয়ার আজি খুলে গেছে সোনার মন্দিরে।’’ এ শুধু কবির কল্পনা নয়, নারী-জীবনের হিংস্রতম প্রথা সতীদাহ প্রথা প্রচলিত ছিল এই ভারতে। বঙ্গসন্তান রামমোহন রায়-র দৃঢ় উদ্যোগে ১৮২৯ সালে এই নিকৃষ্ট প্রথা হয়েছিল নিষিদ্ধ। ১৮৫৬ সালে বিধবা বিবাহের প্রচলন এবং নারী শিক্ষার প্রসারে বিশ্বের খ্যাতি অর্জন করেছিলেন বঙ্গসন্তান পণ্ডিত ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর। ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রাণকেন্দ্র ছিল এই বাংলা। স্বাধীনতা লাভের পর এই খণ্ডিত বাংলার ১৯৭৭ সাল থেকে ২০১১ সালের ১৯শে মে পর্যন্ত এই রাজ্যে সরকারে ছিল বামফ্রন্ট। সাংবিধানিক ও আর্থিক সীমাবদ্ধতার মধ্যে থেকেও এই রাজ্যের নারীর মর্যাদা ও অধিকার, শিশু সুরক্ষা, শিক্ষার প্রসার, কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি, মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠা প্রভৃতি বিষয়ে শুধু ভারতে অনুসরণযোগ্য দৃষ্টান্ত রচনা করেছে, তা-ই নয়, রাষ্ট্রসঙ্ঘের ‘মানব উন্নয়ন প্রতিবেদন — ২০০৩’’-এ আছে তার সপ্রশংস উল্লেখ। আর গত তিন বছর সাত মাস রাজ্যে ক্ষমতাসীন আছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে গঠিত তৃণমূল কংগ্রেস সরকার। এই সময়ের মধ্যে সমগ্র দেশকে স্তম্ভিত করে এই রাজ্যে মানুষের সর্বপ্রকার অধিকার হয়েছে শোচনীয়ভাবে আক্রান্ত। কেন্দ্রীয় সরকারের স্বরাষ্ট্র বিভাগের অধীন ‘ক্রাইম রেকর্ড ব্যুরো’ প্রকাশিত বার্ষিক প্রতিবেদনে দেখানো হয়েছে এই রাজ্যে নারী-নির্যাতন ও নারী-ধর্ষণ দেশের শীর্ষবিন্দুতে পৌঁছেছে। দেশের জনসংখ্যার ৯ শতাংশের বাস পশ্চিমবঙ্গে, আর নারী মুখ্যমন্ত্রীর শাসনে সারা দেশের নারী সমাজের অধিকারের উপর নির্লজ্জ আক্রমণের ১৭ শতাংশ ঘটেছে এই বঙ্গে। মানুষের নিরাপত্তা হয়েছে উদ্বেগজনকভাবে বিপন্ন। ৪ দিন আগে হুগলী জেলার এক যুবক ভিন্ন রাজনৈতিক দলের সভায় যোগদান করার অপরাধে তাকে শাসকদলের অফিসে তুলে এনে বিবস্ত্র করে আগুনের স্যাঁকা দিয়ে তার বুকে বড় করে লিখে দিয়েছে TMC। ধর্ষক, খুনি, আক্রমণকারীদের একজনের বিরুদ্ধেও রাজ্য প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। এই সময়ের মধ্যে একটি শিল্প কারখানাও রাজ্যে স্থাপিত হয়নি। উপরন্তু হলদিয়ার বড় কারখানাটি সহ কয়েকটি কারখানা বন্ধ হয়ে গেছে। সিঙ্গুরের বিশাল প্রস্তাবিত মোটর গাড়ি কারখানা এই আমলে বন্ধ হয়ে গেছে। এর সামগ্রিক ফল হিসাবে বেকারের সংখ্যা দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে — কাজের অধিকার হচ্ছে নির্মমভাবে বিঘ্নিত — সঙ্কুচিত। সর্বস্তরে শিক্ষার প্রসার স্তব্ধ। বিদ্যালয় স্তরে শিক্ষক নিয়োগের পরীক্ষা এই সময়ে একবার মাত্র হয়েছে, চরম অনিয়মে হয়েছে তা কলুষিত, প্রচুর সংখ্যক পদ শূন্য থেকে শিক্ষার সুযোগ হচ্ছে মারাত্মকভাবে সঙ্কুচিত। সর্বস্তরের শিক্ষায় ও শিক্ষা প্রশাসন হীন-দলতন্ত্রের অকল্পনীয় দাপটে হচ্ছে কলুষিত। শিক্ষার অধিকার হচ্ছে মারাত্মকভাবে আক্রান্ত। সন্ত্রাসবাদী হিংস্র কাজকর্মের তৎপরতা এই সময়ের মধ্যে উদ্বেগজনকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্ধমানের খাগড়াগড় কাণ্ড এবং তার পরে যে সকল তথ্য প্রকাশিত হচ্ছে, তা থেকে এর ভয়াবহতা পরিষ্কার হচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রী নিজের হাতে রেখেছেন অনেকগুলি দপ্তর। তার মধ্যে একটি স্বাস্থ্য দপ্তর। মুখ্যমন্ত্রীর খামখেয়ালি, স্বাস্থ্য পরিষেবার প্রতি উপেক্ষা, চিকিৎসা কেন্দ্রগুলিতে হীনতম দলবাজির অনিবার্য পরিণতিতে প্রসূতি পরিষেবা চরমভাবে ব্যাহত। বাড়ছে প্রসূতি মৃত্যু ও শিশু মৃত্যু। এককথায় বহু গৌরবে গৌরবান্বিত এই বাংলায় আজ মানব অধিকারের অন্ত্যোষ্টিক্রিয়ার পর্ব চলছে। এই স্বল্প সম‍‌য়ের মধ্যে এই গরবিনী বাংলায় মানবাধিকারের উপর শাসক দল ও তার নিয়ন্ত্রিত প্রশাসনের আক্রমনে নিকৃষ্ট উদাহরণ রচিত হয়েছে। আজ এই বেদনাদায়ক অবস্থায় দাঁড়িয়ে স্মরণ করতে হবে কবিগুরুর সেই শিক্ষামূলক কথা ‘‘অন্যায় যে করে, আর অন্যায় যে সহে, তব ঘৃণা তারে যেন তৃণসম দহে।’’ তাই সকলের শপথ হোক মানবিক অধিকার আদায়ে দলমত, বর্ণ-ধর্ম-ধনী-দরিদ্র নির্বিশেষে আমরা হবো ঐক্যবদ্ধ, গড়ে তুলবো সংগ্রাম। - See more at: http://ganashakti.com/bengali/news_details.php?newsid=62750#sthash.S7lMOewB.dpuf

এস এস কে এম হাসপাতালে রক্ত দেওয়ার অভাবে নবম শ্রেণীর ছাত্রী সুহানা ইয়াসিন মণ্ডলের মর্মান্তিক মৃত্যুরও প্রতিবাদ জানাবেন তাঁরা। ওইদিনই বেলা সাড়ে তিনটেয় এস এস কে এম হাসপাতাল সুপারের কাছে এই ঘটনার বিরুদ্ধে ডেপুটেশন দেবেন তাঁরা। এছাড়া মানসিক প্রতিবন্ধী কোরপান শাহ ও কমলা মজুমদারের ওপর অমানুষিক অত্যাচার ও হত্যার তীব্র বিরোধিতা করেছে এস এফ আই। কোরপান শাহের গরিব পরিবারের পাশে দাঁড়াতে আগামী ২০শে ডিসেম্বর অর্থ সংগ্রহ অভিযানে নামবেন ছাত্রছাত্রীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতেও পরিচালনমণ্ডলীতে সরকার মনোনীত নিয়োগ চলছে। এটি অত্যন্ত অগণতান্ত্রিক। শুধু তাই নয়, শুরু হয়েছে শিক্ষায় বাণিজ্যিকীকরণ ও গেরুয়াকরণ। কেন্দ্রের বি জে পি সরকার বেসরকারী ও প্রযুক্তি কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলিকে ছাড়পত্র দিয়ে শিক্ষার বাণিজ্যিকীকরণ করছে। বিভিন্ন বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে নির্দিষ্ট ফি কাঠামো নেই। আকাশছোঁয়া ফি অনেক ছাত্রছাত্রীদেরই সাধ্যাতীত। নেই পড়াশোনার কোর্সের কোনো নির্দিষ্ট মাপকাঠি। এককথায় নিয়ন্ত্রণ নেই কোনো। ছাত্র নেতৃবৃন্দের বক্তব্য, ৭টি বিশ্ববিদ্যালয় রাজ্যে তৈরি হয়েছে। ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং ও ম্যানেজমেন্ট, নেওটিয়া ইউনিভার্সিটি, জে আই এস ইউনিভার্সিটি, অ্যামাইটি ইউনিভার্সিটি, টেকনো ইন্ডিয়া ইউনিভার্সিটি, সিকোম স্কিল ইউনিভার্সিটি, অ্যাডামাস ইউনিভার্সিটিতে এ রাজ্যে বসবাসকারী ছাত্রছাত্রছাত্রীদের জন্য মাত্র ২৫শতাংশ সংরক্ষণ। যাঁদের অর্থ আছে তাঁরা এখানে পড়তে পারবে। বিষয়টি অত্যন্ত অগণতান্ত্রিক। এটা চলতে পারে না। এর বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামছেন ছাত্রছাত্রীরা। বৃহস্পতিবার মিছিল ও বিক্ষোভে শামিল হচ্ছেন তাঁরা।

দিনের পর দিন আক্রমণ চলছে ছাত্রছাত্রীদের ওপর। বিভিন্ন স্কুল কলেজ ক্যাম্পাসে বহিরাগত তৃণমূলী দুষ্কৃতীদের হামলার ঘটনা ঘটছে। হামলা চলছে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের ওপরেও। সোমবার হরিদাসপুর আনন্দমার্গ স্কুলের শিক্ষিকা অদিতি অধিকারীর ওপর গুলি চালিয়েছে তৃণমূলের নেতা। এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছে এস এফ আই নেতৃবৃন্দ। অন্যদিকে, চুঁচুড়ায় দুষ্কৃতীদের ছোঁড়া গুলিতে দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র সুদেব দাসের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। প্রতিবাদে এদিন চুঁচুড়ায় পথ অবরোধ ও বিক্ষোভে শামিল হয় এস এফ আই। শুধু তাই নয়, লেডি ব্র্যাবোর্ন কলেজের হস্টেলে বহিরাগতদের উপদ্রবে অতিষ্ট ছাত্রীরা। অন্যদিকে, এম সি আই জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষায় নম্বরের কারচুপির ঘটনা এখন সবার চোখের সামনে। এস এফ আই রাজ্য সম্পাদক দেবজ্যোতি দাসের বক্তব্য, এই যখন অবস্থা তখন রাজ্য সরকার নিশ্চুপ। ঘটনার তদন্ত, দোষীদের গ্রেপ্তার বা শাস্তির কোনো উদ্যোগ নেই। গত সাড়ে তিন বছরে ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষক শিক্ষিকাদের ওপর আক্রমণের বহু ঘটনা সামনে এসেছে। অরাজকতা ও নৈরাজ্য গোটা শিক্ষাক্ষেত্রে। এমন কি কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে পরিচালনমণ্ডলীতে ছাত্রছাত্রীদের প্রতিনিধিত্ব আর থাকছে না।

শিক্ষায় বেসরকারীকরণ, গেরুয়াকরণ রোধ ও গণতান্ত্রিক অধিকার রক্ষার দাবিতে লাগাতার আন্দোলনে নামছেন ছাত্রছাত্রীরা। এস এফ আই-এর ডাকে বৃহস্পতিবার কলেজ স্ট্রিট থেকে ধর্মতলা ওয়াই চ্যানেল পর্যন্ত এক মহামিছিলে শামিল হবেন তাঁরা। মিছিল শুরু হবে দুপুর ১টায়। একই সঙ্গে ওই দিনই নবম শ্রেণীর ছাত্রী সুহানা ইয়াসমিন মণ্ডলের অবহেলায় মৃত্যুর তীব্র বিরোধিতা করে এস এস কে এম হাসপাতাল সুপারের কাছে ডেপুটেশন দেবেন ছাত্রছাত্রীরা। এছাড়া আগামী ২০শে ডিসেম্বর এন আর এস হাসপাতালে নিহত কোরপান শাহ’র পরিবারের পাশে দাঁড়াতে অর্থ সংগ্রহ অভিযানেও নামছেন ছাত্রছাত্রীরা। মঙ্গলবার এক সাংবাদিক বৈঠকে এস এফ আই রাজ্য সম্পাদক দেবজ্যোতি দাস একথা বলেছেন।

পেট্রোল-ডিজেলের দাম কমানোর দাবিতে বিধিবদ্ধ প্রস্তাব আনলো সি পি আই (এম) নিজস্ব প্রতিনিধি ***************************************************নয়াদিল্লি, ৯ই ডিসেম্বর— পেট্রোল-ডিজেলের দাম কমানোর দাবিতে সি পি আই (এম)-র তরফে বিধিবদ্ধ প্রস্তাব আনা হলো রাজ্যসভায়। মঙ্গলবার সীতারাম ইয়েচুরি এবং কে এন বালাগোপাল এই প্রস্তাব জমা দিয়েছেন। দাবি করা হয়েছে, আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম হ্রাসের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে পেট্রোল-ডিজেলের দাম কমাতে হবে। বিধিবদ্ধ প্রস্তাব হওয়ায় এই প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা ও ভোটাভুটি করতে সরকার বাধ্য হবে। রাজ্যসভায় এখনও বি জে পি-র যে শক্তি, তার ফলে এমন ভোটাভুটি সরকারপক্ষের কাছে উদ্বেগজনক হয়ে গেছে। পেট্রোল-ডিজেলের দামের বিনিয়ন্ত্রণের পরে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম অনেকটাই কমেছে। কিন্তু সেই পরিমাণে দেশের বাজারে দাম কমানো হয়নি। উপরন্তু সরকার অন্তঃশুল্ক বাড়িয়ে নিজের রাজস্ব আদায় বাড়িয়ে নিয়েছে। মঙ্গলবার রাজ্যসভায় বালাগোপাল বলেন, গত কয়েকদিনে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম প্রায় ৪৫শতাংশ কমে গেছে। যখন আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বাড়ে তখন সরকার সেই যুক্তি দেখিয়ে দেশেও জ্বালানির দাম বাড়ায়। তাহলে এখন যখন কমছে, তখন সেই আনুপাতে দাম কমানো হবে না কেন? আন্তর্জাতিক বাজারে ব্যারেলপ্রতি ১১৫ডলার থেকে দাম কমে হয়েছে ব্যারেলপ্রতি ৬৭ডলার। যদি ৪০শতাংশও কমানো হতো তাহলে এখন ভারতে পেট্রোলের মূল্য লিটারপ্রতি ৬৮টাকা থেকে কমে ৪৫টাকা হওয়া উচিত। ডিজেলের দাম হওয়া উচিত লিটারপ্রতি ৪০টাকা। কিন্তু দাম কমানো হয়েছে মাত্র ১০শতাংশের মতো। উপরন্তু অন্তঃশুল্ক বাড়িয়ে ক্রেতাদের ওপরে বোঝা বাড়ানোই হয়েছে। এই দাবিতেই ইয়েচুরি ও বালাগোপাল বিধিবব্ধ প্রস্তাবও পেশ করেন। পরে, সাংবাদিক সম্মেলনে ইয়েচুরি বলেন, পেট্রোল-ডিজেলের দাম আরো কমে যাওয়া উচিত। সরকার যদি বেসরকারী কোম্পানিগুলিকে মুফতে বিপুল মুনাফা না পাইয়ে দেয় তাহলেই এই দাম কমতে পারে। বিধিবদ্ধ প্রস্তাব দেওয়ায় এই বিষয়ে বিতর্ক ও সিদ্ধান্ত নিতেই হবে। যদি এই প্রস্তাব বাতিল করতে হয় তাহলে হয় আমাদের প্রস্তাব প্রত্যাহার করে নিতে হবে অথবা রাজ্যসভায় এই প্রস্তাবকে ভোটে পরাস্ত করতে হবে। অর্থাৎ ভোট করতে হবে। সাংবাদিক সম্মেলনে ইয়েচুরি বলেন, বীমা বিলে সিলেক্ট কমিটি যে রিপোর্ট দিয়েছে, তাতে বিরোধী অভিমত নথিভুক্ত করেছে সি পি আই (এম)। জনতা দল (ইউ) এবং সমাজবাদী পার্টিও বিরোধী নোট দিয়েছে। সি পি আই (এম) এই বিল পেশ হলেই ভোট চাইবে। রাজ্যসভায় কংগ্রেস বৃহত্তম শক্তি। তারা বিলে পাসে সম্মত হলে তবেই বিল দিনের আলোর মুখ দেখবে।

অবৈধ কয়লা খাদানের দখলদারি নিয়ে খয়রাশোলে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে খুন - নিজস্ব সংবাদদাতা ************************************************************** সিউড়ি, ৯ই ডিসেম্বর— ফের তৃণমূলের হাতেই খুন তৃণমূল কর্মী। বীরভূমের খয়রাশোলের তৃণমূলের বিবদমান দুই গোষ্ঠীর নেতা অশোক ঘোষ ও অশোক মুখার্জি খুন এবং পালটা খুনে নিহত হলেও তাদের অনুগামীদের মধ্যে বিবাদ কমেনি বিন্দুমাত্র। থেকে থেকেই দুই গোষ্ঠীর বোমাগুলির লড়াইয়ে উত্তপ্ত হয়েছে খয়রাশোল ব্লকের বিস্তীর্ণ এলাকা। এলাকার অবৈধ কয়লাখনির দখলদারি কার হাতে থাকবে সেটাই এই দ্বন্দ্বের একমাত্র কারণ বলেই মনে করা হচ্ছে। সেই বিবাদ থেকেই ফের রক্ত ঝরলো খয়রাশোলের কাঁকড়তলায়। তৃণমূলের বিবদমান দুই গোষ্ঠীর লড়াইয়ে প্রাণ গেল অশোক ঘোষ গোষ্ঠী অনুগামী শেখ ইসরাফিল (৩৪) নামে এক তৃণমূল কর্মীর। চোখে গুলি লেগে গুরুতর জখম হলো এই গোষ্ঠীরই মহম্মদ ইকবাল নামে আরো একজন। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, অবৈধ কয়লার দখলদারি নিয়েই তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে নতুন করে বোমাবাজি শুরু হয় গত সোমবার রাত থেকেই। খয়রাশোল ও ঝাড়খণ্ড সীমান্তের মুড়োবেড়িয়া গ্রামে সোমবার রাতে ব্যাপক বোমাবাজি হয়। বোমার আঘাতে গুরুতর জখম হয় মদন মু্ন্সি নামে অশোক মুখার্জি গোষ্ঠীর সদস্য এক তৃণমূল কর্মীর। নাগাড়ে চলা বিবাদের মীমাংসার জন্য দুই পক্ষকে এদিন ডাকা হয় খয়রাশোল থানায়। কিন্তু সেখানে কোনো মীমাংসা সূত্র না মেলায় দুই গোষ্ঠীর বিবাদ জিইয়েই থাকে। এরপর বিকেল সাড়ে চারটে নাগাদ খয়রাশোল ব্লকের কাঁকড়তলার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ফের ওই দুই গোষ্ঠীর মধ্যে শুরু হয় বোমা-গুলির লড়াই। সেই সংঘর্ষে গুলি লাগে তৃণমূলকর্মী শেখ ইসরাফিলের। তাকে স্থানীয় নাকড়াকোন্দা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানেই তার মৃত্যু হয়। এই সংঘর্ষে চোখে গুলি লেগে গুরুতর জখম অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছে মহম্মদ ইকবাল নামে আরো এক তৃণমূল কর্মী। নিহত ও জখম উভয় তৃণমূল কর্মীই খয়রাশোলে গত বছর নিহত তৃণমূল নেতা অশোক ঘোষ গোষ্ঠীর অনুগামী বলেই পরিচিত। ঘটনায় আক্রান্ত তৃণমূলীরা অভিযোগ তুলেছে তৃণমূলেরই অপর গোষ্ঠী এবছর আগস্ট মাসে নিহত অশোক মুখার্জির অনুগামীদের নিয়ে। তবে ঘটনার পিছনে রাজনীতির যোগ আছে বলে মানতে চায়নি তৃণমূল নেতৃত্ব। তৃণমূলের জেলা সহ-সভাপতি তথা খয়রাশোল ব্লকের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা মলয় মুখার্জি জানিয়েছেন, ‘খুন হওয়া শেখ ইসরাফিল তৃণমূলের একজন কর্মী। তবে তাকে খুনের ঘটনায় রাজনীতির কোনো যোগ নেই।’ তবে কী কারণে এই খুন ? এলাকা সূত্রে জানা গেছে, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে খয়রাশোল সীমানায় থাকা এক বেসরকারী কয়লা ব্লক বন্ধের নির্দেশ জারি হয়েছে। কিন্তু অভিযোগ, খাদানে ইতোমধ্যে উত্তোলিত কয়লা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বিক্রি করতে চাইছে খাদান কর্তৃপক্ষ। আর তা করতে গেলে শাসকদলকে ‘ম্যানেজ’ করা অপরিহার্য। তাই সেই খাদানের মুনাফার একটা অংশ খাদান কর্তৃপক্ষ পৌঁছে দিচ্ছে শাসকদলের কর্মী-নেতাদের হাতে। আর এখান থেকেই শুরু বিবাদের। সেই ভাগবাঁটোয়ায় কার কর্তৃত্ব বেশি থাকবে এ নিয়েই লাগাতার বিবাদ শাসকদলের দুই গোষ্ঠীর। যার পরিণামেই খয়রাশোল ব্লকের বিভিন্ন এলাকায় ঘটছে একের পর এক খুন, বোমাবাজি, অগ্নিসংযোগ, মারধরের ঘটনা। অতিষ্ঠ হচ্ছে সাধারণ মানুষ। এই কারণেই মাসকয়েক আগে এলাকায় শান্তি ফিরিয়ে আনার দাবিতে সরব হয়ে রাস্তায় পর্যন্ত নেমেছিল এলাকার শুভবুদ্ধিসম্পন্ন মানুষেরা। তবুও হাল ফেরেনি এলাকার তা প্রমাণ করল আজকের এই ঘটনা।

মালদহের বিদ্যুৎ বণ্টন দপ্তরের সহকারী ইঞ্জিনিয়ারকে কলার ধরে শাসানো ও মারধরে অভিযুক্ত হন তৃণমূল নেতা বিশ্বজিৎ রায়, ওরফে বুলেট। জনমতের চাপে বুলেটকে প্রকাশ্যে বহিষ্কার করতে বাধ্য হয় তৃণমূল নেতৃত্ব। কিন্তু ঐ বহিষ্কার যে লোক-দেখানো, তার প্রমাণ পেতে দেরি হয়নি। জনমতের চাপে ঐ হামলাকারীদের গ্রেপ্তার করে পুলিস। ধৃত তৃণমূল দুষ্কৃতীরা আদালত চত্বরে স্লোগান দেয়, মমতা জি্ন্দাবাদ, তৃণমূল কংগ্রেস জিন্দাবাদ। সরকারী অফিসারের ওপর হামলাকারীরা জানে, তাদের সহায় রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী স্বয়ং। ক্ষমতায় আসার পর থেকেই মুখ্যমন্ত্রী তাঁর মনোভাব স্পষ্ট করে দিয়েছেন পুলিস-প্রশাসনের কাছে। রায়গঞ্জ কলেজে অধ্যক্ষ নিগ্রহের ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রী প্রশ্রয়ের সুরে বলেন, ছোটদের কাজ। ফলে কলেজ ক্যাম্পাসের মধ্যে অধ্যক্ষকে মারধরের পরেও অপরাধীদের কয়েক ঘণ্টার মধ্যে জামিনের ব্যবস্থা করে দেয় পুলিস। এই দলেরই সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় গত কয়েক বছর ধরে তার রাজনৈতিক বিরোধীদের সম্পর্কে কুৎসিত ব্যক্তিগত আক্রমণ করে চলেছেন। মুখ্যমন্ত্রীর সবুজ সংকেত ছাড়া ঐ সাংসদ কীভাবে কুৎসিত মন্তব্য করতে পারেন? একইভাবে দলের সাংসদ তাপস পাল প্রকাশ্য সভায় বলেন, ছেলে ঢুকিয়ে খুন, রেপ করিয়ে দেবো? এই ধরনের মন্তব্যকেও ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখেছেন মুখ্যমন্ত্রী। দলনেত্রীর প্রশ্রয় থাকার ফলে তৃণমূলের এইসব সাংসদরা নির্দ্বিধায় কুৎসিত মন্তব্য করে চলেছেন। তাপস পালের মন্তব্য ভারতীয় দণ্ডবিধি অনুসারে উসকানিমূলক হওয়া সত্ত্বেও পুলিস কোনও পদক্ষেপ নিতে পারেনি। রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল, বিধায়ক মণিরুল ইসলাম—প্রত্যেকেই উসকানিমূলক মন্তব্য করেছেন। তৃণমূল দলনেত্রী এদের উৎসাহিত করেছেন দলের সম্পদ বলে। এই ধরনের অন্যায় অসভ্যতা যারা করতে পারে, তারাই তৃণমূল দলের সম্পদ। এই সম্পদকে ব্যবহার করে পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে গুন্ডামি, তোলাবাজি, অশালীন আচরণকে স্বীকৃতি দেওয়ার চেষ্টা করছেন তৃণমূল নেত্রী। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের সুস্থ রাজনৈতিক সংস্কৃতির কাছে খুব শীঘ্রই এই অসভ্যতা পরাজিত হবে।

রাজ্যের ক্ষমতায় আসার পর এদের ছোট-বড় সব নেতাই ধরে নিয়েছে তৃণমূলের সকলেই আইনের ঊর্ধ্বে। মুখ্যমন্ত্রীর অশালীন কথা, অশোভন আচরণ, বিশ্রী অঙ্গভঙ্গি তৃণমূলের অন্য নেতাদের গায়ে হাতে তুলতে উৎসাহিত করছে। তৃণমূল নেতারা অসভ্য আচরণ করার সময়ও জোর গলায় বলছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই তাদের রক্ষাকর্তা।

রাজ্যের তৃণমূল মন্ত্রী এবং সাংসদরা কুৎসিত গালিগালাজ করেন। সর্বোপরি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই অশালীন মন্তব্য এবং কুৎসিত ইঙ্গিত করতে দ্বিধাবোধ করেন না। সভ্য বা সুস্থ রাজনৈতিক সংস্কৃতি অনুসরণ করে না এই রাজনৈতিক দলটি।

একটি স্বীকৃত রাজনৈতিক দল হয়েও তৃণমূল কংগ্রেস যে ন্যূনতম সভ্যতা, শালীনতা রক্ষা করেনা তা বারে বারে প্রমাণিত হচ্ছে। এই দলের নেতারা জুতো পেটা করতে ভালোবাসেন। কারোর ওপর রাগ হলেই চড়-থাপ্পড় মারেন তৃণমূল নেতারা।

পশ্চিমবঙ্গের আক্রান্ত মানুষ ধরনা দিলেন রাজধানীতে - নিজস্ব প্রতিনিধি নয়াদিল্লি, ***************************************************************************************************************************************************************************** ৯ই ডিসেম্বর- প্রায় রোজই দিল্লির যন্তর মন্তরে নানা ধরনের ধরনা, বিক্ষোভ হয়। দেশের নানা প্রান্ত থেকেই মানুষ আসেন। মঙ্গলবার যন্তর মন্তর দেখলো অন্য রকমের এক প্রতিবাদ। এমন প্রায় পঞ্চাশজন মানুষ ধরনায় বসলেন, যাঁদের কেউ সন্তান হারিয়েছেন, কেউ পিতা, কেউ স্বামীকে। কাউকে শুধু প্রশ্ন তোলার অপরাধে জেলে কাটাতে হয়েছে। কারোকে রোহ হয়রানি করা হচ্ছে শাসকদলের নির্দেশে। পশ্চিমবঙ্গে সাড়ে তিন বছরের তৃণমূল রাজত্বে আক্রান্ত মানুষজন ও তাঁদের আত্মীয়স্বজনরা এদিন রাজধানীর রাজপথে জানিয়ে গেলেন তাঁদের যন্ত্রণার কথা, জানিয়ে দিয়ে গেলেন গণতন্ত্রের কী হাল মমতা ব্যানার্জির রাজত্বে। দিল্লির প্রবল ঠাণ্ডায় খালি গায়ে শিলাদিত্য চৌধুরী নিজেকেই মোটা দড়ি দিয়ে বেঁধে রেখে এই প্রতিবাদের মূর্ত প্রতীক হয়ে দাঁড়িয়ে রইলেন। দেখলেন দিল্লির মানুষ, যন্তর মন্তরে বিক্ষোভ দেখাতে আসা অন্য রাজ্যের মানুষ। ‘আক্রান্ত আমরা’ সংগঠনের তরফে এদিন এই ধরনার আয়োজন করা হয়েছিল। সোমবার জাতীয় মানবাধিকার কমিশন, মহিলা কমিশন, সংখ্যালঘু কমিশনের কাছে স্মারকলিপি দেবার পরে এদিন সংগঠনের প্রতিনিধিরা গিয়েছিলেন রাষ্ট্রপতির কাছে। পরে, সংগঠনের তরফ থেকে অম্বিকেশ মহাপাত্র জানান, রাষ্ট্রপতিকে আমরা বিশদে একটি চিঠি দিয়েছি। অজস্র ঘটনার কথা উল্লেখ করেছি। বলেছি কীভাবে রাজ্যে সাধারণ মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন। রাষ্ট্রপতি অত্যন্ত মনোযোগ দিয়ে সেই চিঠি পড়েছেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কাছে আমাদের বক্তব্য পাঠিয়ে দেবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন। ধরনায় একের পর এক বক্তা জানান কীভাবে অত্যাচার চলছে পশ্চিমবঙ্গে। ছিলেন নিহত তপন দত্তের স্ত্রী প্রতিমা দত্ত, বর্ধমানে আত্মঘাতী কৃষকের আত্মীয় বাবর মোল্লা, রায়গঞ্জ কলেজের অধ্যক্ষ দিলীপ দে সরকার, নিহত বরুণ বিশ্বাসের পিতা-মাতা, কামদুনির মৌসুমী কয়াল, প্রদীপ মুখোপাধ্যায়, বিশ্বজিৎ কয়াল, পাড়ুইয়ের নিহত সাগর ঘোষের পুত্র হৃদয় ঘোষ, নিহত ছাত্রনেতা সাইফুদ্দিমন মোল্লার ভাই মেহবুব হাসান মোল্লা, বীরভূমে নিহত হীরালাল শেখের আত্মীয় শেখ আবদুল মাকিম, পূর্ব মেদিনীপুরে ধর্ষণের পরে খুন হওয়া মহিলার স্বামী ব্যোমকেশ গিরি, ধূপগুড়ির ধর্ষিতা-নিহত ছাত্রীর পিতার মতো অনেকে। ছিলেন আরো অনেকে যাঁদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে, গ্রেপ্তার করা হয়েছে, বাসভূমি থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। তাঁরা যখন ঘটনার বিবরণ দিয়েছেন, অবাক বিস্ময়ে শুনেছেন উপস্থিত মানুষ। ধরনায় এসেছিলেন সি পি আই (এম) সাংসদ সীতারাম ইয়েচুরি। তাঁর হাতে শিলাদিত্য চৌধুরী একটি স্মারকলিপি তুলে দেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের স্ট্যান্ডিং কমিটির জন্য। ইয়েচুরি তাঁর ভাষণে আক্রান্ত মানুষের প্রতি সহমর্মিতা জানিয়ে বলেন, মমতা ব্যানার্জির সরকারের আর কোনো বিশ্বাসযোগ্যতা নেই। কেন্দ্রে এখন বি জে পি সরকার। তাদের মানবাধিকারের নজির আদৌ ভালো নয়। কাজেই খুব বেশি কিছু আশা করা উচিত হবে না। জনগণকে সমবেত করে অত্যাচারী সরকারকে উচ্ছেদ করাই একমাত্র পথ। সংসদে সি পি আই (এম) পশ্চিমবঙ্গে অত্যাচারের কথা তুলে ধরছে, ধরবে। ধরনা মঞ্চে এসে সংহতি জানিয়ে যান সাংসদ মহম্মদ সেলিম, বদরুদ্দোজা খান, তপন সেন, ঋতব্রত ব্যানার্জি, সি পি আই (এম) নেতা হান্নান মোল্লা, সুনীত চোপড়া, কংগ্রেসের নেতা আবদুল মান্নান, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। কংগ্রেস সাংসাদ প্রদীপ ভট্টাচার্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান হওয়ায় ধরনা মঞ্চে তাঁর হাতে স্মারকলিপি তুলে দেন অম্বিকেশ মহাপাত্র। স্ট্যান্ডিং কমিটির সামনে তিনি এই অভিযোগ পেশ করবেন বলে জানান ভট্টাচার্য। ‘আক্রান্ত আমরা’-র তরফে অরুণাভ গাঙ্গুলি বলেন, এখানে যাঁরা এসেছেন তাঁরা ব্যক্তিগতভাবে লড়াই করেছেন। এখন সমবেত লড়াইয়ের পর্ব। গোটা দেশের মানুষের কাছে, কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে তাঁরা জানিয়ে গেলেন তৃণমূল কংগ্রেসের অত্যাচারের কাহিনী।

‘আক্রান্ত আমরা’-র তরফে অরুণাভ গাঙ্গুলি বলেন, এখানে যাঁরা এসেছেন তাঁরা ব্যক্তিগতভাবে লড়াই করেছেন। এখন সমবেত লড়াইয়ের পর্ব। গোটা দেশের মানুষের কাছে, কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে তাঁরা জানিয়ে গেলেন তৃণমূল কংগ্রেসের অত্যাচারের কাহিনী।

নয়াদিল্লি, ৯ই ডিসেম্বর- প্রায় রোজই দিল্লির যন্তর মন্তরে নানা ধরনের ধরনা, বিক্ষোভ হয়। দেশের নানা প্রান্ত থেকেই মানুষ আসেন। মঙ্গলবার যন্তর মন্তর দেখলো অন্য রকমের এক প্রতিবাদ। এমন প্রায় পঞ্চাশজন মানুষ ধরনায় বসলেন, যাঁদের কেউ সন্তান হারিয়েছেন, কেউ পিতা, কেউ স্বামীকে। কাউকে শুধু প্রশ্ন তোলার অপরাধে জেলে কাটাতে হয়েছে। কারোকে রোহ হয়রানি করা হচ্ছে শাসকদলের নির্দেশে। পশ্চিমবঙ্গে সাড়ে তিন বছরের তৃণমূল রাজত্বে আক্রান্ত মানুষজন ও তাঁদের আত্মীয়স্বজনরা এদিন রাজধানীর রাজপথে জানিয়ে গেলেন তাঁদের যন্ত্রণার কথা, জানিয়ে দিয়ে গেলেন গণতন্ত্রের কী হাল মমতা ব্যানার্জির রাজত্বে। দিল্লির প্রবল ঠাণ্ডায় খালি গায়ে শিলাদিত্য চৌধুরী নিজেকেই মোটা দড়ি দিয়ে বেঁধে রেখে এই প্রতিবাদের মূর্ত প্রতীক হয়ে দাঁড়িয়ে রইলেন। দেখলেন দিল্লির মানুষ, যন্তর মন্তরে বিক্ষোভ দেখাতে আসা অন্য রাজ্যের মানুষ।