RESIST FASCIST TERROR IN WB BY TMC-MAOIST-POLICE-MEDIA NEXUS

(CLICK ON CAPTION/LINK/POSTING BELOW TO ENLARGE & READ)

Sunday, November 30, 2014

CIA ZINDABAD

CIA AGENTS ON THE INDIAN GROUND

NARENDRA MODI ZINDABAD-MAMATA

BJP-MAMATA ARE BHAI AND BAHAN

CIA AGENTS IN INDIA

MAMATS IS GRATEFUL TO PERVERTED MAOISTS RAPISTS AND BUTCHERS FOR HELPING HER IN BECOMING CHIEF MINISTER

BJP-LADEN-MAMATA AND KISHANJI ARE THE FISHES OF THE SAME POND

KISHANJI AND MAMATA WERE BROTHER AND SISTER

MAOISTS ARE THE MASK OF CIA

MAMATA IS SUPPORTED BY ALQAUIDA

MAMATA IS THE MASK OF BJP

LADEN AND MAMATA ARE TWO SIDES OF THE SAME COIN

MAMATA GETS SUPPORT FROM ISLAMIC FUNDAMENTALISTS

ISLAMIC TERRORISTS-MAMATA NEXUS

A Conspiracy to Erase the Gory Memory of the Gujarat Riots

THE Gujarat government appointed Nanavati Commission has finally submitted its final report on the Godhra incident and the post-Godhra carnage, 2002. Media reports state that the Commission has found no reason to summon the then Gujarat CM Narendra Modi in order to probe the responsibility and role of the state government in the riots. This reported conclusion contradicts the evidence provided to different committees and commissions setup in the last decade to investigate the pre-planned character of the riots. It also explicitly contradicts the significant observations made in the Naroda Patiya case where a then minister of the state government was convicted for her role in the riots. Thus the apparent conclusion of the Nanavati Commission appears to be an attempt to succumb to political pressure and contribute to the project of erasure of memory of 2002 Gujarat Carnage. This is a politically important exercise as it establishes the false reputation of Modi as a secular leader who is interested only in development. In this context, keeping the memory of Gujarat and the struggle for justice of its victims alive is itself a politically crucial task.
FIXING MODI’S RESPONSIBILITY
In the immediate aftermath of the Gujarat riots, the then prime minister and BJP leader Atal Behari Vajpayee urged the chief minister of Gujarat to keep his ‘Raj Dharm’ and discharge his constitutional duties without showing any discrimination between the people on the basis of caste, creed or religion. Made three months after the riots, the statement showed that the state government had not discharged its duties properly. This was also noted by the National Human Rights Commission in March 2002 when it stated in its preliminary report about the role of the state government that “Grave questions arise of fidelity to the Constitution and to treaty obligations. There are obvious implications in respect of the protection of civil and political rights.... But most of all, the recent events have resulted in the violation of the Fundamental Rights to life, liberty, equality and the dignity of citizens of India as guaranteed in the Constitution. And that, above all, is the reason for the continuing concern of the Commission” (NHRC Case No 1150/6/2001-2002, Order, April 1, 2002).
Subsequent fact finding committees and commissions only buttressed this apparent truth and proved the willful failure of the Modi government. For example the affidavits of senior police officers Sanjeev Bhatt and Sreekumar to the Special Investigation Team (SIT) showed the complicity of the Chief Ministers Office (CMO) in abetting the riots by giving a free hand to the Bajrang Dal and other Sangh Parivar activists. Though the SIT dismissed Sanjiv Bhatt’s account of the meeting of February 27, 2002 (where Modi had allegedly asked the district administration to go slow and give a free hand to the Hindu mobs), the final report of the Amicus Curie Raju Ramchandran’s final report saw little reason to disbelieve the police officer. Rather his report stated that a court of law should rule on the authenticity of the statements of both Sanjiv Bhatt and B Sreekumar. This it argued was all the more important because all records pertaining to the attendance and minutes of the February 27 evening meeting were missing and therefore there was no possibility of finding out what actually happened.
The indication of the CMO’s complicity in the riots is strengthened by the evidence provided in Zakia Jafri’s protest petition in the Supreme Court against the closure report in the Gulberg Society Case in 2013. The protest petition clearly points out that the SIT ignored, disregarded and discredited some crucial evidence that showed the role of Narendra Modi and his government in the riots of February 2002. The main example of this is of the nine affidavits filed by former police officer, B Sreekumar, who was then the additional director general of police, intelligence. In his affidavits Sreekumar gave ample evidence of the messages recorded in his register which warned the government about the gathering mobs for welcoming and parading the bodies of the dead kar sevaks in different funeral processions. For example the protest petition records give a description of the violence in Gulberg in the following way: “From the 28th morning rampaging mobs of those associated with the Bajrang Dal, VHP, BJP attacked Muslim localities, houses and business establishments. Muslim men were killed and beaten and women were raped and killed. Gory murders, rapes and molestations took place at Gulberg Society Chamanpura, Meghaninagar (where 69 persons including Ex MP Jafri were killed and 10–12 women were raped in a mob attack which lasted for 7 hours – till 4.30 p.m. Jafri had made numerous calls for help to the Commissioner Mr PC Pande, to the home minister and the chief minister. At about 2.30 Jafri was stripped, paraded naked & cut into pieces. Police stood by and did not even try to stop the rioters. The chief minister was also dismissive of Mr Jafri‘s calls for help – and in fact later attributed the violence to firing by Mr Jafri. Minimal Police intervention took place only after 4.30 p.m” (Zakia Jafri Protest Petition Volume 1, p.8). Such instances are supported by the intelligence messages provided as evidence by the petition. Thus the inaction of the government obviously created a space and abated the actions of the Sangh Parivar. In this sense the head of the government cannot be absolved of his dereliction of duties.
A PREMEDITATED CONSPIRACY TO ERASE MEMORY
The space created by the inaction of the CMO and the mass mobilisation of the Sangh Parivar is evident in the judgement of the Naroda Patiya Case and also the preceding NHRC reports. In 2002 itself, the NHRC pointed to the fact that most rioters with serious charges like murder and rape had been released on bail. The judgement in the Naroda Patiya Case provided more detailed evidence about hatching the process of erasure of the memory of the riots. It is pertinent to recall some crucial elements of the judgement. For example, on the role of the first investigating officer, the Judge writes that “The ideal Investigation Officer (IO) hears the statement, perceives the same and then puts it in concise form into the context. He should also make re-statement of the text and explain the same. As emerged on record Shri K K Mysorewala has done nothing of the sort. As discussed above the First IO, Shri K K Mysorewala did not take even elementary and routine steps and has totally avoided to do investigation altogether…. As seems, the first investigating agency wasted lots of time right from 28/02/2002 to 08/03/2002 and even wasted available resources, did not secure scientific evidences…. Shri K K Mysorewala was fully aware that the bigwigs were also present in the mob, but he has not paid any heed to the fact while investigating the crime…. While people were flocking the streets, leaving their households inside, Shri K K Mysorewala has reported to the Control Room that "everything is Okay (Khairiyat Hai - There is peace and happiness in Patiya area); it was like When Rome was burning, Nero was playing fiddle" [Ibid, pp 485-487]. The attempt to stall the investigation at the first step is evident from the evidence provided by the prosecution witnesses who have been complaining that the first investigating officer. In effect Shri Mysorewala had made “a mockery of investigation” and the records filed by him were “no investigation at all” [p 496]. This deliberate attempt to erase the existence of the riots has in fact supported the arguments of the accused who have stated that the riots of February 2002 were not an ‘organised communal riot,’ but a ‘free fight.’ The counsel for Mayaben Kodnani, the convicted BJP MLA, argued this point, which was dismissed by the court. This trend in investigations continued and the second investigating officer, PN Barot, displayed utter disregard and carelessness towards the Muslim victims. The Naroda Patiya Judgement has ample evidence to show that the previous investigating officers, the police witnesses in the case have also tried to help the counsels for the defence in their own testimonies.


The instances give ample evidence of the overall failure of administration and the complicity of the administration in orchestrating the riots. Political developments also show that the current central and state governments will use everything in their power to erase the memory of the riots and give Modi a clean chit. Hence the Nanavati Commission needs to be contested both ideologically and through mass mobilisation of all secular forces.


Massive Protest in Rural Bengal Against Dilution of MGNREGA


From Our Special Correspondent in Kolkata


MASSIVE protest action took place in rural West Bengal on November 26 against centre’s move to dilute MGNREGA , corruption in rural employment programme in the state and demanding remunerative prices for agricultural produces. Four Left peasant organisations called for stoppage of agricultural-related work and demonstrations while the CITU called upon the rural unorganised working people to join in the struggle.

The peasants of the state are being forced to sell their produces, particularly paddy in distress price. There is complete inaction on behalf of the state government for procurement. The state markets have virtually collapsed in most places. On the other hand, rural employment generation has come down miserably, forcing thousands to migrate to other states. Already massive corruption has corroded MGNREGA for the last three and half years of the TMC rule. The curtailment of the programme will add to this distress.

From the morning, peasants and agricultural workers gathered in villages and organised processions and demonstrations. In large parts of the state, there was no work in the fields. Later, they moved towards BDO or panchayat offices and submitted deputations.

In northern Bengal, one of the remarkable features was the participation of tea workers in many places in solidarity with the peasants. Tea workers, fresh from a united two-day strike, helped peasants to organise. In tea garden areas like Birpara, Odlabari, Kalchini, Malbazar in Alipurduar districts, hundreds of peasants joined in rallies and demonstrated in front of BDO offices. In Coochbehar, peasants participated in sit-in in many places. In Maldah, apart from protests of the peasants, a big procession of the workers and employees marched through district town.

In Nadia, the peasants were particularly fuming. On November 24, TMC armed gang attacked peasants in Krishnaganj to capture a large tract of agricultural land, and shot dead a peasant woman Aparna Bag. More than 50 peasant families are cultivating the land for more than four decades now. TMC gang attacked them to capture the land on behalf of land mafias, now active in many parts of the state. To the peasants of Nadia, it was a fight to protect the right to land also. In 111 village panchayats, the peasants rallied in the main road to express their demands.

In Murshidabad, demonstrations took place in 161 areas. In Burdwan, there were demonstrations in almost all blocks. In many areas, peasants blocked roads for hours. In Hooghly, peasants in the terrorised areas braved the attacks and joined in protest actions. The same was true for North 24 Parganas, West Midnapore and East Midnapore. Thousands gathered in spontaneous actions in villages of Howrah.

Nripen Chowdhury, secretary of the Provincial Kisan Sabha congratulated the peasantry for their big response to the call of protest which followed the peasant jathas throughout the state in October.

WTO impasse over,India's food security concerns taken on board - See more at: http://ganashakti.com/english/news/details/6939#sthash.SuKjNFEf.dpuf

Argentina’s presidential election, which will happen a year from now, might be won by the neoliberal right. And Dilma’s margin of victory was closer than it should have been, though that she won by running on economic-justice issues in the face of bond-market hostility and the “overwhelmingly anti-Rousseff mainstream media” indicates the vitality of the organized Brazilian left, broadly defined. Abstaining or voiding ballots was not an option for many activists critical of the PT, including those who led impressive street protests over the last year. Unlike in the United States, there is something more than a dime’s worth of difference between the options presented to the electorate (Clinton versus Bush, really? They should just run on the same ticket). With Pou, the right has now tried pretty much every play in its book to retake power: the neoliberal technocrats have failed. The “modernizers” have failed (Chile’s Sebastián Piñera, for example, won election in Chile in 2010 by basically accepting the social and economic premises of the center left, positioning himself as a European-style conservative who didn’t hate gay people. His presidency was a failure, paving the way for the return of Bachelet). And the traditionalists have failed (for a while, Spain’s neo-fascist José María Aznar was touring around Latin America, trying to pull together a Catholic-neoliberal-anti-Muslim alliance that could compete with Chavismo). And now with Pou the cultural warriors have failed (fingers crossed!). That pretty much leaves the right with coups and putsches, as what happened in Haiti in 2004, Honduras in 2009 and Paraguay in 2012. The inability of the right to pull together a coalition and articulate a larger vision shows the depths to which the Cold War in Latin America served as something like a five-decade-long voter-preference-suppression project. Washington-led and financed anti-communism united the right’s various branches. Without such an organizing principle the right can’t electorally compete, at least for now, with what voters, all things considered, want: economic justice, a dignified life, peace and social welfare. Courtesy:www.thenation.com

Brazil's President Dilma Rousseff. (Reuters/Ueslei Marrelino) Hugo Chávez was first elected in Venezuela in 1998, which means we are more than a decade and a half into Latin America’s “left turn.” With these votes in Brazil and Uruguay, along with the recent re-elections of Michelle Bachelet in Chile, Rafael Correa in Ecuador and Evo Morales in Bolivia, the developmentalist social-welfare left—both its “moderate” and “populist” wings—is showing remarkable endurance, having moved on from its first generation of leaders, Chávez, Kirchner in Argentina and Lula in Brazil. It’s not hard to understand why: economics. Few want to go back to the disastrous neoliberalism of the 1980s and 1990s. Mark Weisbrot breaks it down here for Brazil. Ben Dangl does the same for Bolivia. And here’s Reuters on Uruguay: “Uruguay’s $55 billion economy has grown an average 5.7 percent annually since 2005. The government forecasts lower growth of 3 percent this year, although that is still better than in neighboring giants Argentina and Brazil. The number of Uruguayans living in poverty has fallen sharply to 11.5 percent from more than a third in 2006. ‘I want to stick with the Broad Front that ensures success,’ said Soledad Fernandez, a 27-year-old student. ‘Vazquez and Mujica looked after the vulnerable people.’ ”

In Brazil, Dilma beat back a neoliberal-technocrat challenge. In Uruguay, Vázquez, a medical doctor, will face a more traditional conservative in November, Lacalle Pou, the son of a former right-wing president. Pou’s campaign is notable since it is among the first in Latin America to bet the bank on Richard Nixon–style wedge issues, hoping to use abortion, drugs and crime to take power. Reuters reports this from a Pou supporter: “ ‘So we are killing babies now and the state will sell marijuana,’ said Adriana Herrera, a 68-year-old pensioner. ‘My frustration is not just with the handout policies but also with the laws that have been approved that are terrible for the country.’ ” The nice use of the word pensioner here transports us back to the salad days of the New Right, to Margaret Thatcher’s kitschy shopkeeper authoritarian conservatism. Pou also promises tax cuts. He lost, and early polls expect he will lose the runoff. But he did get a third of the vote.

Red flags are flying in Rio and Montevideo. Not only did Dilma Rousseff win in Brazil on Sunday but next door in Uruguay, Tabaré Vázquez, the presidential candidate for Frente Amplio—or Broad Front, the political heir to the insurgent Tupamaros of the 1970s—did better than expected in a first-round vote and is predicted to win a November runoff. Vázquez, a former president (Uruguay prohibits consecutive re-election) would follow the beat-up-beetle-driving, pot-, same-sex-marriage-, and abortion-legalizing, flower-growing, three-legged-dog owner, former political prisoner and renunciant incumbent, José Mujica.

WHY THE LEFT CONTINUES TO WIN IN LATIN AMERICA

http://ganashakti.com/english/comments/details/144

MOBARAK ALI, RAJAKAR, ANOTHER WAR CRIMINAL GIVEN DEATH SENTENCE http://ganashakti.com/english/news/details/6904

Washington, Nov 25 : Defense Secretary Chuck Hagel, who quit amid differences with President Barack Obama, understood the strategic importance of India and opened up the US military a little bit more for the Sikhs. - See more at: http://ganashakti.com/english/news/details/6907#sthash.xTnyM18A.dpuf

N Korea holds rally against UN rights resolution http://ganashakti.com/english/news/details/6908

Modi govt is "right reactionary": CPI - http://ganashakti.com/english/news/details/6936

Saturday, November 29, 2014

All India Railwaymen's Federation to oppose FDI in railways - See more at: http://ganashakti.com/english/news/details/6947#sthash.Fx3KY4Yd.dpuf

Several protesters taken into custody in Ferguson

Ganasakti



FARGUSAN PROTEST

16TH DECEMBER RALLY OF CPI (M) IN KOLKATA

TAMLUK - LEFTISTS WIN IN COOPERATIVE ELECTION

SRIRAMPUR HOSPITAL

CITU WINS IN DURGAPUR STEEL PLANT

SFI, JANGIPUR

GANGAJALGHATI-PANCHAYATS UNDER TMC TERROR

CPI (M), NALHATI

সরকার আর তার প্রশাসনকে সঠিক পথে পরিচালনার জন্য একটা শাসনতন্ত্র আছে ভারতীয় সংবিধান। যে-কোন সরকারের প্রাথমিক দায়িত্ব রাজ্যবাসীকে নিরাপত্তা দেওয়া — আর সেই নিরাপত্তা আসে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায়। তিন বছরের বেশি এই সময়ে আইন আছে কারণ সংবিধান আছে — কিন্তু শাসন নেই কারণ সরকার আইন বা সংবিধান কারোরই তোয়াক্কা করে না। ফলে, একদিকে যেমন তলা থেকে লুম্পেন জাগরণ ঘটেছে আর একদিকে ক্ষমতার বেপরোয়া অপব্যবহার আইনের শাসনের সমস্ত রাস্তাগুলো বন্ধ করে দিয়েছে। প্রশাসনের প্রধান এই বিশ্বমানের ষড়যন্ত্রের গভীরতা উপলব্ধিতে ব্যর্থ না উদাসীন? কোন ধর্মবিশ্বাস, মানবিকতা সন্ত্রাসবাদের কাছে মাথা নোয়ানো যায় না। একমাত্র ক্ষমতার নারকীয় লিপ্সা এই ধ্বংস আর আগুনের সাথে সওদা করতে পারে। এই রাজ্য কি সেই সর্বনাশের কিনারায় দাঁড়িয়ে?

কোথা থেকে হিন্দু-মুসলিম, মৌলবাদী সংগঠন, উগ্র সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠী এত আলো হাওয়া জল পাচ্ছে বেড়ে ওঠার জন্য? ভোটের অঙ্ক রাজনৈতিক আকাঙ্ক্ষা পূর্ববর্তী সরকারের কার্যক্রমের মধ্যে থেকেছে বলে যদি তর্কের খাতিরেও ধরে নেওয়া যায় — তারা যে নিজের ডাল কেটে কালিদাস নয়, সে প্রমাণ সে কাণ্ডজ্ঞান তারা দেখিয়েছে। যে মাটিতে ভোটের অঙ্ক কষা রাজনৈতিক মেরুকরণের চেষ্টা, সেই মাটিটাকে বিপন্ন করা চলে না, সুরক্ষা দিতে হয় এই সাধারণ বিবেচনাটা বর্তমান সরকারের আগের কোন সরকারই পশ্চিমবঙ্গে জলাঞ্জলি দেয়নি। আসলে, প্রশাসন মানে তো কেবল একটা যন্ত্র নয় — একটা নীতি একটা রাজনৈতিক সদিচ্ছা একটা আদর্শের ইচ্ছাপূরণ অথবা বিকল যন্ত্রের যাঁতাকলে শারীরিক মানসিক নিষ্পেষণ।

পশ্চিমবঙ্গ, আজ সেই সন্ত্রাসের ভয়ঙ্কর কালো চাদরটাই ক্রমশ ঢাকা পড়ে যাচ্ছে। যে-কোন রঙের দুর্বৃত্তর জন্য যে বঙ্গভূমি দুর্জয় ঘাঁটি — সেখানে আল কায়েদা জাওয়াহিরিরা বা আই এস আই এস-এর জঙ্গী নেতারা বুক ফুলিয়ে আশাবাদী হয়ে উঠল কেমন করে? সীমান্ত অনুপ্রবেশ সমস্যা বা নেপাল-পাকিস্তান-বাংলাদেশ-মায়ানমারের অবস্থান তো কিছু নতুন নয় — তবু তো পশ্চিমবঙ্গ কখনই সন্ত্রাসবাদীদের নিরাপদ আশ্রয় হয়ে ওঠেনি। হয়ে ওঠেনি কোন ধর্মীয় মৌলবাদীদের উর্বরভূমি। আজ কট্টর হিন্দুত্ববাদী আর এস এস তাল ঠুকছে গোটা দেশে এমন কি পশ্চিমবঙ্গেও। কি ব্যাখ্যা বঙ্গীয় প্রশাসনের, ২০১১ সালের ৫৮০টি শাখা কোন জাদুমন্ত্রে ১৫২৫টি আর এস এসের শাখায় পল্লবিত হয়ে উঠল?

সোস্যাল নেটওয়ার্কে ফুটে ওঠা — সিরিয়ার কোন সেনার কাটা মুণ্ডে শিশুর পা-এর ছবি কি সত্যি কোন সমাধান? কঠোর হলেও লক্ষ্যে পৌঁছলেও হয়তো তা বরদাস্ত করা যায়। কিন্তু এই সন্ত্রাস কেবলই বিভীষিকার কানাগলি — উদ্ধার নেই। (সন্ত্রাসের ভয়ঙ্কর পরিণতি হলো, যারা এ কাজে অভ্যস্ত, তারা ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়। ধীরে কিন্তু নিশ্চিতভাবে, তাদের জীবনদীপ নিভে যায় যারা অন্যের জীবনের আলো নিভিয়ে দিতে চায়।) আজকে ঐ আরব দুনিয়ায় যে বাবা হিংস্র আনন্দে শত্রুর কাটা মুণ্ডে ছেলেকে বল খেলাচ্ছে তার কাটা মুণ্ডেই হয়তো আর এক শিশু লাথি মারবে এমনি করেই আর এক সকালবেলা।

পণ্ডিত ব্যক্তিদের কথামতো লড়াই যদি আজ পশ্চিমী সভ্যতা বনাম ইসলামিক সভ্যতা হয় ও আইডেন্টিটি ক্রাইসিসে বসুন্ধরার বুক চিরে চিরে যায়ও সব থেকে পুরানো যুদ্ধটা সব থেকে মৌলিক যুদ্ধটা আজও সমান তীব্র —শোষক আর শোষিতের লড়াই। কোন প্রযুক্তি, কোন আধুনিকতার তত্ত্ব ঐ লড়াইটাকে এড়াতে পারে না। আর সেই যুদ্ধ, গুহায় লুকিয়ে, দরজায় খিল তুলে, বোরখার আড়ালে, মন্দিরের অদূরে, রাজনৈতিক দলের দপ্তরের ছায়ায় — মানুষকে ভয় করে, মানুষকে লুকিয়ে জয় করা যায় না। এই যুদ্ধে, আরাবুল-অনুব্রতরা যেমন নয়, তেমনি রিওয়াজ ভাটকল নয়, নয় মন্দির-মসজিদের ধামাধরারা অংশীদার। রুটি-রুজির ন্যায় যুদ্ধ থেকে — ছোট্ট জায়গার বড় নীতির ‘হোক কলরবের’ ছোট লড়াইই হোক — দৃঢ় পদ মানুষের অংশগ্রহণ ছাড়া বঞ্চিত আর প্রবঞ্চকের লড়াইটা হয় না। সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে জলে জঙ্গলে নৃশংস হওয়া যায় পাষাণে পরিণত হওয়া যায়। বঞ্চিতের আত্ম প্রতিষ্ঠার যে সভ্যতার সংঘাত সেখানে একমাত্র ধারালো এবং নিশ্চিত অস্ত্র মানুষ — ঐক্যবদ্ধ রাস্তায় নামা মানুষ। সেই মানুষের ভরসা বামপন্থীরা ব্রাজিল-বলিভিয়া আবার প্রমাণ করল তাই। সন্ত্রাসের ঘাঁটিতে লাঞ্ছিত — স্বৈরাচারে জর্জরিত-অরাজকতায় অস্থির এই রাজ্যের মানুষের জন্য বামপন্থীদের আরও শক্তি সঞ্চয় করে দ্রুত গণতন্ত্রের পতাকা অবাধে ওড়াতেই হবে। আর তার জন্য, সরকার বদল কি বদল নয়, জনস্বার্থবিরোধী নীতির প্রতিবাদই নয়, এই লড়াই স্বার্থপরতা আদর্শহীনতার বিরুদ্ধে, দেশের মাটির জন্যে, মানুষের জন্য মানুষের প্রতিদিনের প্রতি ইঞ্চির লড়াই। এই লড়াই নিজের ভালো হওয়ার লড়াই — নিজের ভালো থাকার লড়াই। এই লড়াই সন্ত্রাসকে সন্ত্রস্ত করে। পশুর মতন চোখ জ্বেলে রাখা হিংস্র শ্বাপদঘেরা এই সময়ে — বামপন্থীরাই মানবতার মৃত্যু রোধ করতে পারে, তারাই পারে আপসহীন-দ্বিধাহীন সংগ্রামের পথে মানবিক আকাঙ্ক্ষার আয়ুকে মজবুত করতে। পারে কাটা মুণ্ডের নরক নয় — ফোটা ফুলের মেলা সাজাতে।

‘আইডেন্টিটি ক্রাইসিস’ — আধুনিকতম এই জিগিরকে, ধর্ম-ভাষা-সম্প্রদায়-জাত-উপজাতের মহিমায়, এমন শুদ্ধ পবিত্র উত্তর আধুনিক মোড়কে তুলে ধরা হচ্ছে যে, সভ্যতার গতিপথ এখানেই স্তব্ধ হয়ে যাবে। বঞ্চিতের অশান্ত হৃদয়, ক্ষুব্ধ সত্তাকে সান্ত্বনা দিতে একটা লড়াই দরকার আসল শত্রু আড়াল করে শত্রুর ‘ডামির’ সামনে এদের দাঁড় করিয়ে দিলে এদের যুদ্ধের ইচ্ছেও পূরণ হবে অস্ত্রের ব্যবসাও চলবে — চলবে আধিপত্যের দৌড়ও।

দুনিয়াজুড়ে আছে আত্মপ্রতিষ্ঠার লড়াই ধর্মীয় মৌলবাদ থেকে শুরু করে জাতিগত — সম্প্রদায়গত সত্তা আছে সেই যুদ্ধে। পরিচিতির সংকটে আহত অভিমান, রাস্তা খুঁজতে গিয়ে সন্ত্রাসবাদের আবর্তে ঢুকেপড়া কিছু অস্বাভাবিক নয়। কিন্তু তাতে কি সত্যিই সঙ্কট কাটে? যে অর্থনৈতিক-সামাজিক শোষণ-বঞ্চনার দরুন নিজের বা সম্প্রদায়ের সত্তার পরিচিতি ঘটে না — তার দিকে অস্ত্র না উঁচিয়ে সেই শোষক-প্রবঞ্চকদের সৃষ্টি করা শত্রুর উপরে ঝাঁপিয়ে পড়লে কি সত্তার বিকাশ ঘটানো সম্ভব?

পৃথিবীবাসীর নিঃশ্বাসে-প্রশ্বাসে এখন এই বীভৎসতম শব্দটি ‘সন্ত্রাস’। পেটের ভাত পরনের কাপড় এইসব চিন্তার অবকাশও নেই। কারণ যার জন্য ভাত কাপড়ের চাহিদা সেই প্রাণটুকুই উপদ্রুত — তাকেই ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী ম্যানপ্যাডে রকেটলঞ্চ-একে ৪৭ এম বি, আর ডি এক্স-এর হাত থেকে রক্ষা করতে পারাটাই বড় চ্যালেঞ্জ। সন্ত্রাসবাদ এক উন্মাদনার বুদবুদ মাত্র। ক্ষুব্ধ বঞ্চিত হৃদয়ের এক মানসিক আশ্রয়। বঞ্চনার পাত্রগুলিতে কখনও বিধর্মী কখনও একই ধর্মের সম্প্রদায়গত বিদ্বেষ বিষে পূর্ণ করে দেওয়া হয়। জাতপাত-ভাষা-আঞ্চলিকতা যেকোন কিছুর অপূর্ণতা নিয়েই শুরু হয়ে যেতে পারে জঙ্গীয়ানা। হিংস্রতা ও চরম অযৌক্তিকতা সন্ত্রাসবাদের চালিকাশক্তি।

পৃথিবীজুড়ে চলছে আধিপত্যবাদের দৌড়। অর্থনৈতিক-রাজনৈতিক আধিপত্য প্রতিষ্ঠা সোজা পথেই সব সময়ে হয় না — বাঁকা পথ আজ সন্ত্রাসের করাল রূপ ধরেই আসে। অর্থনৈতিক-রাজনৈতিক সাংস্কৃতিক মাতব্বরীর জন্য উগ্র-সন্ত্রাসবাদ আজ এক অত্যন্ত ধারালো অস্ত্র। বিশ্বের আগ্রাসীতম শক্তি মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের ঔরসে সন্ত্রাসবাদের জন্মটা কিছু গল্পকথা নয় — আফগানিস্তানের তালিবান থেকে আল কায়দার জন্ম বৃত্তান্তে তার হদিশ পাওয়া যায় না কি?

ছোট ছেলে-মেয়েদের হাতে খেলনা বন্দুক নয়, শিক্ষিকা-সহপাঠী-ঘাতী মারণাস্ত্র থাকে। আমেরিকার অর্থনীতিতে মিলিটারি কমপ্লেক্স একটি অত্যাবশ্যকারী পণ্য। তারজন্য দুনিয়াজুড়ে যুদ্ধ পরিবেশ প্রয়োজনীয়, তারজন্য একইরকমভাবে প্রয়োজন আল কায়দা থেকে আই এস আই এস, জামায়েতী ইসলাম থেকে ইন্ডিয়ান মুজাহিদিন জঙ্গী গোষ্ঠী। ত্রাণ শিবিরের নবজাত ওবামার মা সুলতান জানতেও পারে না যাদের জন্য তাদের প্রিয় শহর কোবানের দিকে তাকিয়ে চোখের জল ঝরে, সেই জঙ্গী গোষ্ঠীর হাতেও মজুত হয়তো বা কোন না কোন চোরাপথে চলে আসা আমেরিকারই কোন ভয়ঙ্কর অস্ত্র। আই এস ই বর্তমান বিশ্বের সব থেকে ধনশালী সন্ত্রাসবাদী সংগঠন। হোয়াইট হাউসের হিসেবে, গত জুন থেকে ১২০ কোটি ইউরো খবর করেছে ওরা। নিজেদের হিসেব এর থেকে বেশি বই কম নয়।

আজকের বিশ্বায়িত অর্থনীতির উৎসে কত শতাংশ কৃষি ফসল, কত শতাংশ শিল্প ফসল বা উন্নত প্রযুক্তির, তার সাথে হিসেব কষে দেখতে হয় কত শতাংশ আইনি চুক্তির অস্ত্র ব্যবসা আর বেআইনি অস্ত্রের চোরা চালান। ইরাকে এক রাত্রে ৩০০ জনকে গণকবর দিয়েছে ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড সিরিয়া — ৫ বছরের শিশু থেকে ৭০ বছরের বৃদ্ধ বাদ যায়নি কেউ। ইউফ্রেটিসের জলেও ভেসে উঠেছে মৃতদেহ। ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের খুব কাছ থেকে গুলিবিদ্ধ করা হয়েছে। কোবানের দখল নিয়ে আই এস আই এসের বিরুদ্ধে মোকাবিলায় মার্কিন প্রশাসনও। ইরাকের আনবার প্রদেশের মানুষেরা আমেরিকার সাহায্যপ্রার্থী — আমেরিকা আকাশপথে জঙ্গীদের উপর সতর্ক নজরদারিতে ত্রুটি রাখছে না। কোবানের বাসিন্দা মা সুলতান আর তার স্বামী মাহমুদ বেকো ত্রাণ শিবিরে আগন্তুক, কৃতজ্ঞতায় আপ্লুত হয়ে তাদের সন্তানের নাম দিয়েছে ‘ওবামা’। ঐ কুর্দদম্পতি কি কল্পনা করতে পারে, যে নামটায় তাদের সমস্ত আশা বেঁধেছে — সেই রাষ্ট্রপতির দেশ আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র স্তব্ধ হয়ে যাবে একদিন অস্ত্রের দোকান ঘরের ঝাঁপ বন্ধ হয়ে গেলে।

বাম আমল কি হাল আমল, পশ্চিমবঙ্গ তো অজস্র জলরাশির মধ্যের একটি বিচ্ছিন্ন দ্বীপ নয়। গোটা পৃথিবীটাই তো ভীষ্মের শরশয্যার মতন। অসীমকাল সাগরে শুধু নয় ভুবন ভেসে চলেছে অন্তহীন অস্ত্রের স্রোতে। যে বিশ্বে ইজরায়েল থাকে সেই বিশ্বে অস্ত্র ব্যবসা, অস্ত্রের চোরাচালান চলবে না ভাবাই তো বাতুলতা। হোয়াইট হাউসের বিলাস-ব্যসন থেকে শুরু করে, আমেরিকার গগনচুম্বী প্রাসাদ আর তার যাবতীয় বৈভবের আড়ালে কি সেই অস্ত্রের মহিমা নেই? নেই কি আরব মরু প্রান্তরে — আফগানিস্তানের রুক্ষ্ম-তপ্ত মাটিতে বুকে হেঁটে যে তারুণ্য প্রতি মুহূর্তে আলেয়ার পিছনে ছুটে নিজেকে নিঃশেষ করছে তার কবজি, তার বুক আষ্টেপৃষ্ঠে সেই অস্ত্রে বাধা?

‘পশ্চিমবঙ্গ একটি ক্ষুদ্র রাজ্য, না এক বিপুল, বিস্তীর্ণ অস্ত্রাগার?’ প্রশ্নের উত্তরের দিক- নির্দেশে সেই চৌত্রিশ বছর। ‘বঙ্গভূমিতে এই আয়ুধস্রোত আনয়নের পিছনে বামপন্থীদের ভূমিকা যথার্থ ঐতিহাসিক, এই বিষয়ে বামফ্রন্ট সরকার ভগীরথের ভূমিকা দাবি করিতে পারে।’ জীবজগতের প্রাণীদের মধ্যে কার যেন কেবল নোংরা জঞ্জালেই দৃষ্টি আটকে যায়। না হলে, ভূমিহীনের জমির অধিকারে — অবৈতনিক শিক্ষা প্রসারে — নারীর সম্মান ও ক্ষমতায়নে, অটুট সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে সংখ্যালঘুর অধিকারেও নিরাপত্তায় গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা রক্ষায়, গণতন্ত্র-শান্তি-সুস্থিতির বাতাবরণ রচনায় বামফ্রন্টের সেই ভগীরথ মূর্তিটিই চোখে পড়ত। জঞ্জাল ঘেঁটে দুর্গন্ধ ছড়াবার বদ ইচ্ছে থেকে নিজেকেও নিয়ন্ত্রণ করতে পারত। ভগীরথের আনা পবিত্র গঙ্গা স্রোত দেশে দেশে কালে কালে কলুষিত হয়েছে। বামফ্রন্টের ভাগীরথীগুলিও অল্প সময়ের মধ্যেই দূষিত হয়ে উঠেছে তাকে দূষণমুক্ত করতেই হবে। কিন্তু বর্তমান সরকারের ব্যর্থতা-অপদার্থতা-অভিসন্ধির সামনে বাম আমলকে ঢাল করে যারা রাখে তারা কি বর্তমান সরকারের সমস্ত অসঙ্গত কাজের বর্ধিত শক্তি হিসেবে কাজ করছে না? নেতিবাচক এই নৈতিক সমর্থন, একটা আইনের শাসনহীন রাজ্যে কত বড় সর্বনাশের ইন্ধন হয়ে উঠতে পারে, তার ধারণা নিশ্চয়ই তাদের আছে যারা বঙ্গ-মগজ প্রতিদিন সৃষ্টি করেন বলে দাবি তোলেন। এই নীতিহীনতা ক্ষত-বিক্ষত আজকের পশ্চিমবঙ্গকে কি আরও রক্তাক্ত করার সঙ্কেত দেয় না? বাম আমলে কোথাও কোন অস্ত্রের সন্ধান পাওয়া যায়নি, বেআইনি অস্ত্র ধরা পড়েনি — এমন দাবি করাটা বালিতে মুখ গুঁজে থাকার মতন। আজকের পশ্চিমবঙ্গ অস্ত্রাগারের ভিত যদি হয়, বাম আমল, বাম সরকারকে কি তাহলে সাফাইয়ের জন্য বলতে হতো গোপালপাঁঠা — ফাটাকেষ্টর বোমা যুদ্ধ আগের আঠাশ বছরের কংগ্রেসী শাসন — ’৪৬-এর দাঙ্গা অথবা ইংরেজের ক্লাইভ হাউস থেকে তাদের নীলকুঠি, বা তারও আগের সিরাজদৌল্লা মুর্শিদকুলি খাঁ-র অস্ত্রসম্ভার — বা রাজা গোপালের অস্ত্রভাণ্ডারের কথা? কারণ এই বঙ্গের মাটিটা তো আর সত্যি সত্যিই বিদেশ থেকে আমদানি করা না — মাটি তো এখানকারই।

এখন সংবাদ শিরোনাম—বারুদের স্তূপে বঙ্গ — যেন ঘুমন্ত বারুদের স্তূপ। যে-কোন সময় তার বিধ্বংসী জাগরণ ঘটবে। কলকাতা শহরের কোন গগনচুম্বী মিনার, এমনকি আমেরিকান কনস্যুলেটও হয়ে যেতে পারে ধূলিসাৎ, যদি সত্যিই বারুদ আর ঘুমিয়ে থাকতে না চায়। জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদ মহা উদ্বেগে — উদ্বেগ বহির্বিশ্বে। বছরের শুরুতেই হয়তো তালিবান জঙ্গীরা নাশকতার বিপুল আয়োজনে তাদের জানান দেবে। বাংলাদেশের জামাতুল মুজাহিদিন গোষ্ঠী পশ্চিমবঙ্গের মাটি থেকে রস টেনে নিজেদের পুষ্টিবিধান করছে। প্রতিবেশী বাংলাদেশের মাননীয়া প্রধানমন্ত্রী যখন গভীর আত্মবিশ্বাসের সাথে বলেন, ভারত-বিরোধী জঙ্গীদের উৎখাত করেছে তাঁর সরকার, তখন কৃতজ্ঞতার অশ্রু মাটিতে ঝরে পড়তে চায়। কিন্তু যখন খেদের সুরে বলেন, ‘‘জঙ্গীদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দেওয়াটা সে কি মারাত্মক, সবাইকে তা উপলব্ধি করতে হবে।’’ তখন যার উপলব্ধি নেই, সেই লজ্জায় মাটিতে মিশে যেতে ইচ্ছে হয়। এর নাম কি গোপনে গোপনে দেশদ্রোহের পতাকা বওয়া নয়? অখ্যাত খাগড়াগড়-রাষ্ট্রের সীমানা ছাড়িয়ে ভিনরাষ্ট্রের প্রধানকে নিকেশ করার স্পর্ধা রেখেছে বলে গোয়েন্দা দপ্তরের রিপোর্ট। খাগড়াগড়ের বিস্ফোরকের গন্তব্য ছিল বাংলাদেশ — লক্ষ্য ছিল খোদ প্রধানমন্ত্রী — এমন কি বিরোধী রাজনীতির নেত্রী খালেদা জিয়াও। আর এই রাজ্যের দুঃখী প্রতারিত মানুষের কষ্টের টাকা সারদা চিট ফান্ড থেকে এই ধ্বংসের জন্য উড়ান দিয়েছে বলে তো তদন্তই শুরু হয়েছে। অন্য রাষ্ট্র তছনছ করার খেলায় এই রাজ্যের — এই রাষ্ট্রের নাম, এই দুঃখ এই লজ্জা রাখার জায়গা কোথায়! মনের মধ্যে ভিড় করে আসে যে, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের দিনগুলি — ওপারের মানুষের জন্য এপারের মানুষের অন্তহীন, উদ্বেগ আর ব্যাকুলতা — ওপারের স্বাধীনতা দেশপ্রেমের অগ্নিশিখাকে জ্বালিয়ে রাখতে একইরকম মমতা-সম্ভ্রম আর তেজের ধুনো ছড়িয়ে দেওয়া এপার বাংলায়! প্রত্যক্ষ করেনি মানুষ, বন্ধুত্ব-সৌহার্দ — প্রতিবেশীর দায়িত্ব-কর্তব্য আর মানবতার অবারিত স্রোত? এক থালায় দু’দেশের হাতে অন্নভাগ? এক চাদরে রাম-রহিমের পাঠ ঢেকে রাখা?

বেঙ্গল লিড্সও তো হয়েছিল — কিন্তু লিড হলো না। শেষপর্যন্ত সিঙ্গাপুর সদলবল যাত্রা। মনোরম সিঙ্গাপুর — প্রাণে খুশির তুফান। পাখিরালয়ের স্কেচ হাতে করে ফিরে এলেন, শিল্পোন্নত পশ্চিমবঙ্গের সূচনায় মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী। নাম আর ওঠে না এসবে। তবে নাম উঠেছে কবেই উলটোদিক থেকে। মেয়েদের শ্লীলতাহানি আর ধর্ষণে রাজ্য একেবারে নিজের নামটা তুলে দিয়েছে সবার উপরে। আইনের শাসনহীন রাজ্য হিসেবেও পশ্চিমবঙ্গের বেশ নাম-ডাক হয়েছে। আর তো নাম ছড়িয়েছে রাজ্য সরকারের গৌরী সেনের দৌলতে। সরকারী নজরদারিতে শাসকদলের সংগঠিত প্রতারণার অপরাধের নাম সারদা কেলেঙ্কারি। লক্ষ লক্ষ প্রতারিত মানুষের দীর্ঘশ্বাসে শুকিয়ে যাচ্ছে রাঢ়বঙ্গের রসালো মাটি। গরিবের রক্ত জল করা টাকায়, আই পি এলের সোনার হার, বঙ্গভূষণ-বিভূষণ, পাহাড়-মাটি-সৈকত উৎসবের আলোয় মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর নিজের নাম কেনা। রাজ্য সরকারের দলতন্ত্রহীন শিক্ষাতন্ত্রের গুণে সম্মানীয় ‘ভি সি’ (ভাইস্ চ্যান্সেলর) সংক্ষিপ্ত শব্দটি এখন ইতরতা-তাচ্ছিল্য-ঘৃণা আর ক্রোধের বাণী রূপে পরিণত হয়েছে। তবু এসবই নিজের রাজ্যে। নিজের দেশে সীমানা ছাড়ালো না। খাগড়াগড় কাণ্ড সেদিক থেকে একটা বড় মাইল স্টোন — একেবারে সীমানা ছাড়ানো। এবার রাজ্যের নাম উঠেছে সেই-ই আন্তর্জাতিকস্তরে। বিশ্ব সন্ত্রাসবাদের অংশীদার পশ্চিমবঙ্গ। পৃথিবীর ভয়ঙ্করতম বর্বরতা যে সন্ত্রাসবাদ, তার ক্রেশে পরিণত হয়েছে। রবীন্দ্রনাথ-বিবেকানন্দ-নজরুল প্রমুখ হিংস্রতা আর ঈর্ষা- বিরোধী চারণদের জন্মভূমি। বিশ্বের কল্যাণে না হোক, অকল্যাণে তো পশ্চিমবঙ্গের নাম উঠল। পর্বত যেন নিরুদ্দেশ মেঘ হলো — অনিয়মের অরাজকতায় শংসাপত্র।

চাইলেই হয় কি - হয় না। প্রকৃতির প্রাণসত্তা তার নিয়ম! ঐ রাজ্যে অনিয়ম চলে না। নিয়মের অস্বীকার হলেই বিপর্যয়। সাহারার বুকে মিসিসিপি বইতে পারে না। যে চিৎ হয়ে শুতে পারে না, চিৎ হয়ে শুতে গেলেই তাকে ক্ষতবিক্ষত হতে হয় — হতে হয় রক্তাক্ত। পর্বত বৈশাখের নিরুদ্দেশ মেঘ হয়ে উঠতে পারেনি — পারে না। কিন্তু খাগড়াগড় এক অসম্ভবের সম্ভব। ২০১৩ সালের এই সময়েরও আগে থেকে রাজ্যের শাসকদলের সে কি সুখ-স্বপ্নের মধুকাল। সামনেই লোকসভা নির্বাচন। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী তো প্রায় হাত তুলে নিয়েছেন। ওদিকে ভাইব্র্যন্ট গুজরাট হয়ে গেছে। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ভারতবর্ষের শিল্পপতিদের চোখের তারায় নরেন্দ্র দামোদর মোদী। কিন্তু উইঙের এপাশে ওপাশে আরও কিছু মুখ। তার মধ্যে একখানি মুখ এরাজ্যের মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীরও। মণিপুর-ঝাড়খণ্ড-বিহার-অরুণাচলে তৃণমূল কংগ্রেস আসন পাতছে — যন্তরমন্তরে এফ ডি আই নিয়ে আগেই একদফা জাতীয় স্তরের কুস্তি হয়ে গেছে — দিল্লি বোধহয় সত্যিই খুব দূরে নয়। কিন্তু যুগপৎ ছন্দপতন ঘটালেন বেরসিক আন্না হাজারে। প্রধানমন্ত্রীর মসনদে নরেন্দ্র

মুক্তিযুদ্ধে জয়ী সোনার বাংলাকে ছারখার করার জন্য এপার বাংলায় ষড়যন্ত্রের জাল, গোটা রাজ্য, গোটা দেশের অবমাননা। অস্ত্রাগার কথাটার সাথে অনিবার্যভাবে মনে আসে যে শব্দটি আপনা থেকে, সেটি হলো চট্টগ্রাম — চট্টগ্রাম যুব বিদ্রোহ। দেশপ্রেম আর স্বাধীনতার আকাঙ্ক্ষার লেলিহান শিখা — পদানতের প্রতিস্পর্ধী উন্নত শির চট্টগ্রাম যুব বিদ্রোহ। মাস্টারদা সূর্য সেন আর তার বাহিনীর দৃপ্ত পদবিক্ষেপ — ত্যাগ-সাহস আর শৌর্যের গৌরবময় রসায়ন। আজকের প্রজন্মের সামনে এসেছে — খাগড়াগড় থেকে মঙ্গলকোট, মুর্শিদাবাদের লালগোলা, বেলডাঙ্গা, নদীয়ার থানারপাড়া — বীরভূমের স্বাস্থ্যকেন্দ্র, দু-একটি খারিজ মাদ্রাসাও বাদ যাচ্ছে না অস্ত্রাগার হয়ে ওঠায়। এত অস্ত্র মজুত হলো কখন কবে কি করে? পশ্চিমবঙ্গ কি শুধুই ঘুমন্ত বারুদের স্তূপ — নাকি ঘুমন্ত প্রশাসনের সব পেয়েছির আসর?

পশ্চিমবঙ্গ তথা গোটা দেশ এর আগে কখনও এমন বিপন্ন সময়ের মুখোমুখি হয়নি। ধর্মীয় উন্মাদনা ঘা সাম্প্রদায়িকতার সীমানা ঘেঁষে চলছে, তারই আধারে বিভেদের বিষপান করে, অরাজকতার অঙ্কুশে বিপর্যস্ত আশা, সন্ত্রাসের পথে মুক্তির উপায় খুঁজতে ঝাঁপিয়ে পড়ার একটা উপযুক্ত সময় একটা অনুকূল হাওয়া খুঁজে পেয়েছে। বহু বিজ্ঞাপিত সুদিন যে দুরাশা একটু একটু করে স্বচ্ছ হয়ে উঠছে। রাজ্যে বাম-বিমুখ হয়ে মানুষ তৃণমূল কংগ্রেস ও তার নেত্রীকে যে ‘right to rule’ উজারু করে দিয়েছিল, তা যখন power to rule-এর ভয়ঙ্কর দানবীয় চেহারা নিয়েছে তখন চোরাগোপ্তা পথে হতাশা, হিংসা-বিদ্বেষের মারমূর্তি ধারণ করছে — নিরীহ-নির্জন খাগড়াগড় এক ভিসুভিয়াস হয়ে উঠেছে। নদীয়ার কালীগঞ্জের ডাঙ্গাপাড়ার পাউরুটি কেক লজেন্স বিক্রি করা সাইকেল আরোহী তালহা শেখের দাম হয়েছে দশ লক্ষ টাকা। ঐ দশ লাখ টাকা জনগণের। জনগণ কি পাবে — আল কায়েদার ‘খাজওয়া হিন্দ’ ভারতের চূড়ান্ত যুদ্ধ, অথবা ইসলামিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জেহাদিতে? কি পেয়েছে আরব দুনিয়ার জঙ্গী সংঘর্ষ আর গণহত্যা — রাস্তায় ছড়ানো কাটামুণ্ড আর খণ্ড বিখণ্ড দেহ কোন বেহেস্তের পথ দেখায়? এই ধর্মীয় উন্মত্ততা যদি অন্য ধর্মে দেখা দেয়, তা কি দেখায় সুখের স্বর্গের পথ? বাবরি মসজিদ ধ্বংসের পর কোন কর সেবকের ঘর আলো করে স্বর্গের নন্দনকানন সৃষ্টি হয়েছে ভারতবর্ষে?

চাই মানুষের মিলিত পদশব্দ - বনবাণী ভট্টাচার্য

পর্বত চাহিল হতে বৈশাখের নিরুদ্দেশ মেঘ . . .

চাইলেই হয় কি - হয় না। প্রকৃতির প্রাণসত্তা তার নিয়ম! ঐ রাজ্যে অনিয়ম চলে না। নিয়মের অস্বীকার হলেই বিপর্যয়। সাহারার বুকে মিসিসিপি বইতে পারে না। যে চিৎ হয়ে শুতে পারে না, চিৎ হয়ে শুতে গেলেই তাকে ক্ষতবিক্ষত হতে হয় — হতে হয় রক্তাক্ত। পর্বত বৈশাখের নিরুদ্দেশ মেঘ হয়ে উঠতে পারেনি — পারে না।

কিন্তু খাগড়াগড় এক অসম্ভবের সম্ভব। ২০১৩ সালের এই সময়েরও আগে থেকে রাজ্যের শাসকদলের সে কি সুখ-স্বপ্নের মধুকাল। সামনেই লোকসভা নির্বাচন। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী তো প্রায় হাত তুলে নিয়েছেন। ওদিকে ভাইব্র্যন্ট গুজরাট হয়ে গেছে। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ভারতবর্ষের শিল্পপতিদের চোখের তারায় নরেন্দ্র দামোদর মোদী। কিন্তু উইঙের এপাশে ওপাশে আরও কিছু মুখ। তার মধ্যে একখানি মুখ এরাজ্যের মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীরও। মণিপুর-ঝাড়খণ্ড-বিহার-অরুণাচলে তৃণমূল কংগ্রেস আসন পাতছে — যন্তরমন্তরে এফ ডি আই নিয়ে আগেই একদফা জাতীয় স্তরের কুস্তি হয়ে গেছে — দিল্লি বোধহয় সত্যিই খুব দূরে নয়। কিন্তু যুগপৎ ছন্দপতন ঘটালেন বেরসিক আন্না হাজারে। প্রধানমন্ত্রীর মসনদে নরেন্দ্র মোদী।

বেঙ্গল লিড্‌সও তো হয়েছিল — কিন্তু লিড হলো না। শেষপর্যন্ত সিঙ্গাপুর সদলবল যাত্রা। মনোরম সিঙ্গাপুর — প্রাণে খুশির তুফান। পাখিরালয়ের স্কেচ হাতে করে ফিরে এলেন, শি‍‌ল্পোন্নত পশ্চিমবঙ্গের সূচনায় মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী।

নাম আর ওঠে না এসবে। তবে নাম উঠেছে কবেই উলটোদিক থেকে। মেয়েদের শ্লীলতাহানি আর ধর্ষণে রাজ্য একেবারে নিজের নামটা তুলে দিয়েছে সবার উপরে। আইনের শাসনহীন রাজ্য হিসেবেও পশ্চিমবঙ্গের বেশ নাম-ডাক হয়েছে। আর তো নাম ছড়িয়েছে রাজ্য সরকারের গৌরী সেনের দৌলতে। সরকারী নজরদারিতে শাসকদলের সংগঠিত প্রতারণার অপরাধের নাম সারদা কেলেঙ্কারি। লক্ষ লক্ষ প্রতারিত মানুষের দীর্ঘশ্বাসে শুকিয়ে যাচ্ছে রাঢ়বঙ্গের রসালো মাটি। গরিবের রক্ত জল করা টাকায়, আই পি এলের সোনার হার, বঙ্গভূষণ-বিভূষণ, পাহাড়-মাটি-সৈকত উৎসবের আলোয় মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর নিজের নাম কেনা। রাজ্য সরকারের দলতন্ত্রহীন শিক্ষাতন্ত্রের গুণে সম্মানীয় ‘ভি সি’ (ভাইস্‌ চ্যান্সেলর) সংক্ষিপ্ত শব্দটি এখন ইতরতা-তাচ্ছিল্য-ঘৃণা আর ক্রোধের বাণী রূপে পরিণত হয়েছে। তবু এসবই নিজের রাজ্যে। নিজের দেশে সীমানা ছাড়ালো না। খাগড়াগড় কাণ্ড সেদিক থেকে একটা বড় মাইল স্টোন — একেবারে সীমানা ছাড়ানো। এবার রাজ্যের নাম উঠেছে সেই-ই আন্তর্জাতিকস্তরে। বিশ্ব সন্ত্রাসবাদের অংশীদার পশ্চিমবঙ্গ। পৃথিবীর ভয়ঙ্করতম বর্বরতা যে সন্ত্রাসবাদ, তার ক্রেশে পরিণত হয়েছে। রবীন্দ্রনাথ-বিবেকানন্দ-নজরুল প্রমুখ হিংস্রতা আর ঈর্ষা- বিরোধী চারণদের জন্মভূমি। বিশ্বের কল্যাণে না হোক, অকল্যাণে তো পশ্চিমবঙ্গের নাম উঠল। পর্বত যেন নিরুদ্দেশ মেঘ হলো — অনিয়মের অরাজকতায় শংসাপত্র।

এখন সংবাদ শিরোনাম—বারুদের স্তূপে বঙ্গ — যেন ঘুমন্ত বারুদের স্তূপ। যে-কোন সময় তার বিধ্বংসী জাগরণ ঘটবে। কলকাতা শহরের কোন গগনচুম্বী মিনার, এমনকি আমেরিকান কনস্যুলেটও হয়ে যেতে পারে ধূলিসাৎ, যদি সত্যিই বারুদ আর ঘুমিয়ে থাকতে না চায়। জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদ মহা উদ্বেগে — উদ্বেগ বহির্বিশ্বে। বছরের শুরুতেই হয়তো তালিবান জঙ্গীরা নাশকতার বিপুল আয়োজনে তাদের জানান দেবে। বাংলাদেশের জামাতুল মুজাহিদিন গোষ্ঠী পশ্চিমবঙ্গের মাটি থেকে রস টেনে নিজেদের পুষ্টিবিধান করছে। প্রতিবেশী বাংলাদেশের মাননীয়া প্রধানমন্ত্রী যখন গভীর আত্মবিশ্বাসের সাথে বলেন, ভারত-বিরোধী জঙ্গীদের উৎখাত করেছে তাঁর সরকার, তখন কৃতজ্ঞতার অশ্রু মাটিতে ঝরে পড়তে চায়। কিন্তু যখন খেদের সুরে বলেন, ‘‘জঙ্গীদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দেওয়াটা সে কি মারাত্মক, সবাইকে তা উপলব্ধি করতে হবে।’’ তখন যার উপলব্ধি নেই, সেই লজ্জায় মাটিতে মিশে যেতে ইচ্ছে হয়। এর নাম কি গোপনে গোপনে দেশদ্রোহের পতাকা বওয়া নয়? অখ্যাত খাগড়াগড়-রাষ্ট্রের সীমানা ছাড়িয়ে ভিনরাষ্ট্রের প্রধানকে নিকেশ করার স্পর্ধা রেখেছে বলে গোয়েন্দা দপ্তরের রিপোর্ট। খাগড়াগড়ের বিস্ফোরকের গন্তব্য ছিল বাংলাদেশ — লক্ষ্য ছিল খোদ প্রধানমন্ত্রী — এমন কি বিরোধী রাজনীতির নেত্রী খালেদা জিয়াও। আর এই রাজ্যের দুঃখী প্রতারিত মানুষের কষ্টের টাকা সারদা চিট ফান্ড থেকে এই ধ্বংসের জন্য উড়ান দিয়েছে বলে তো তদন্তই শুরু হয়েছে। অন্য রাষ্ট্র তছনছ করার খেলায় এই রাজ্যের — এই রাষ্ট্রের নাম, এই দুঃখ এই লজ্জা রাখার জায়গা কোথায়! মনের মধ্যে ভিড় করে আসে যে, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের দিনগুলি — ওপারের মানুষের জন্য এপারের মানুষের অন্তহীন, উদ্বেগ আর ব্যাকুলতা — ওপারের স্বাধীনতা দেশপ্রেমের অগ্নিশিখাকে জ্বালিয়ে রাখতে একইরকম মমতা-সম্ভ্রম আর তেজের ধুনো ছড়িয়ে দেওয়া এপার বাংলায়! প্রত্যক্ষ করেনি মানুষ, বন্ধুত্ব-সৌহার্দ — প্রতিবেশীর দায়িত্ব-কর্তব্য আর মানবতার অবারিত স্রোত? এক থালায় দু’দেশের হাতে অন্নভাগ? এক চাদরে রাম-রহিমের পাঠ ঢেকে রাখা?

মুক্তিযুদ্ধে জয়ী সোনার বাংলাকে ছারখার করার জন্য এপার বাংলায় ষড়যন্ত্রের জাল, গোটা রাজ্য, গোটা দেশের অবমাননা। অস্ত্রাগার কথাটার সাথে অনিবার্যভাবে মনে আসে যে শব্দটি আপনা থেকে, সেটি হলো চট্টগ্রাম — চট্টগ্রাম যুব বিদ্রোহ। দেশপ্রেম আর স্বাধীনতার আকাঙ্ক্ষার লেলিহান শিখা — পদানতের প্রতিস্পর্ধী উন্নত শির চট্টগ্রাম যুব বিদ্রোহ। মাস্টারদা সূর্য সেন আর তার বাহিনীর দৃপ্ত পদবিক্ষেপ — ত্যাগ-সাহস আর শৌর্যের গৌরবময় রসায়ন। আজকের প্রজন্মের সামনে এসেছে — খাগড়াগড় থেকে মঙ্গলকোট, মুর্শিদাবাদের লালগোলা, বেলডাঙ্গা, নদীয়ার থানারপাড়া — বীরভূমের স্বাস্থ্যকেন্দ্র, দু-একটি খারিজ মাদ্রাসাও বাদ যাচ্ছে না অস্ত্রাগার হয়ে ওঠায়। এত অস্ত্র মজুত হলো কখন কবে কি করে? পশ্চিমবঙ্গ কি শুধুই ঘুমন্ত বারুদের স্তূপ — নাকি ঘুমন্ত প্রশাসনের সব পেয়েছির আসর?

প্রশ্ন উঠছে সঙ্গতভাবেই ‘পশ্চিমবঙ্গ একটি ক্ষুদ্র রাজ্য, না এক বিপুল, বিস্তীর্ণ অস্ত্রাগার?’ প্রশ্নের উত্তরের দিক- নির্দেশে সেই চৌত্রিশ বছর। ‘বঙ্গভূমিতে এই আয়ুধস্রোত আনয়নের পিছনে বামপন্থীদের ভূমিকা যথার্থ ঐতিহাসিক, এই বিষয়ে বামফ্রন্ট সরকার ভগীরথের ভূমিকা দাবি করিতে পারে।’ জীবজগতের প্রাণীদের মধ্যে কার যেন কেবল নোংরা জঞ্জালেই দৃষ্টি আটকে যায়। না হলে, ভূমিহীনের জমির অধিকারে — অবৈতনিক শিক্ষা প্রসারে — নারীর সম্মান ও ক্ষমতায়নে, অটুট সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে সংখ্যালঘুর অধিকারেও নিরাপত্তায় গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা রক্ষায়, গণতন্ত্র-শান্তি-সুস্থিতির বাতাবরণ রচনায় বামফ্রন্টের সেই ভগীরথ মূর্তিটিই চোখে পড়ত। জঞ্জাল ঘেঁটে দুর্গন্ধ ছড়াবার বদ ইচ্ছে থেকে নিজেকেও নিয়ন্ত্রণ করতে পারত। ভগীরথের আনা পবিত্র গঙ্গা স্রোত দেশে দেশে কালে কালে কলুষিত হয়েছে। বামফ্রন্টের ভাগীরথীগুলিও অল্প সময়ের মধ্যেই দূষিত হয়ে উঠেছে তাকে দূষণমুক্ত করতেই হবে। কিন্তু বর্তমান সরকারের ব্যর্থতা-অপদার্থতা-অভিসন্ধির সামনে বাম আমলকে ঢাল করে যারা রাখে তারা কি বর্তমান সরকারের সমস্ত অসঙ্গত কাজের বর্ধিত শক্তি হিসেবে কাজ করছে না? নেতিবাচক এই নৈতিক সমর্থন, একটা আইনের শাসনহীন রাজ্যে কত বড় সর্বনাশের ইন্ধন হয়ে উঠতে পারে, তার ধারণা নিশ্চয়ই তাদের আছে যারা বঙ্গ-মগজ প্রতিদিন সৃষ্টি করেন বলে দাবি তোলেন। এই নীতিহীনতা ক্ষত-বিক্ষত আজকের পশ্চিমবঙ্গকে কি আরও রক্তাক্ত করার সঙ্কেত দেয় না? বাম আমলে কোথাও কোন অস্ত্রের সন্ধান পাওয়া যায়নি, বেআইনি অস্ত্র ধরা পড়েনি — এমন দাবি করাটা বালিতে মুখ গুঁজে থাকার মতন। আজকের পশ্চিমবঙ্গ অস্ত্রাগারের ভিত যদি হয়, বাম আমল, বাম সরকারকে কি তাহলে সাফাইয়ের জন্য বলতে হতো গোপালপাঁঠা — ফাটাকেষ্টর বোমা যুদ্ধ আগের আঠাশ বছরের কংগ্রেসী শাসন — ’৪৬-এর দাঙ্গা অথবা ইংরেজের ক্লাইভ হাউস থেকে তাদের নীলকুঠি, বা তারও আগের সিরাজদৌল্লা মুর্শিদকুলি খাঁ-র অস্ত্রসম্ভার — বা রাজা গোপালের অস্ত্রভাণ্ডারের কথা? কারণ এই বঙ্গের মাটিটা তো আর সত্যি সত্যিই বিদেশ থেকে আমদানি করা না — মাটি তো এখানকারই।



বাম আমল কি হাল আমল, পশ্চিমবঙ্গ তো অজস্র জলরাশির মধ্যের একটি বিচ্ছিন্ন দ্বীপ নয়। গোটা পৃথিবীটাই তো ভীষ্মের শরশয্যার মতন। অসীমকাল সাগরে শুধু নয় ভুবন ভেসে চলেছে অন্তহীন অস্ত্রের স্রোতে। যে বিশ্বে ইজরায়েল থাকে সেই বিশ্বে অস্ত্র ব্যবসা, অস্ত্রের চোরাচালান চলবে না ভাবাই তো বাতুলতা। হোয়াইট হাউসের বিলাস-ব্যসন থেকে শুরু করে, আমেরিকার গগনচুম্বী প্রাসাদ আর তার যাবতীয় বৈভবের আড়ালে কি সেই অস্ত্রের মহিমা নেই? নেই কি আরব মরু প্রান্তরে — আফগানিস্তানের রুক্ষ্ম-তপ্ত মাটিতে বুকে হেঁটে যে তারুণ্য প্রতি মুহূর্তে আলেয়ার পিছনে ছুটে নিজেকে নিঃশেষ করছে তার কবজি, তার বুক আষ্টেপৃষ্ঠে সেই অস্ত্রে বাধা? আজকের বিশ্বায়িত অর্থনীতির উৎসে কত শতাংশ কৃষি ফসল, কত শতাংশ শিল্প ফসল বা উন্নত প্রযুক্তির, তার সাথে হিসেব কষে দেখতে হয় কত শতাংশ আইনি চুক্তির অস্ত্র ব্যবসা আর বেআইনি অস্ত্রের চোরা চালান। ইরাকে এক রাত্রে ৩০০ জনকে গণকবর দিয়েছে ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড সিরিয়া — ৫ বছরের শিশু থেকে ৭০ বছরের বৃদ্ধ বাদ যায়নি কেউ। ইউফ্রেটিসের জলেও ভেসে উঠেছে মৃতদেহ। ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের খুব কাছ থেকে গুলিবিদ্ধ করা হয়েছে। কোবানের দখল নিয়ে আই এস আই এসের বিরুদ্ধে মোকাবিলায় মার্কিন প্রশাসনও। ইরাকের আনবার প্রদেশের মানুষেরা আমেরিকার সাহায্যপ্রার্থী — আমেরিকা আকাশপথে জঙ্গীদের উপর সতর্ক নজরদারিতে ত্রুটি রাখছে না। কোবানের বাসিন্দা মা সুলতান আর তার স্বামী মাহমুদ বেকো ত্রাণ শিবিরে আগন্তুক, কৃতজ্ঞতায় আপ্লুত হয়ে তাদের সন্তানের নাম দিয়েছে ‘ওবামা’। ঐ কুর্দদম্পতি কি কল্পনা করতে পারে, যে নামটায় তাদের সমস্ত আশা বেঁধেছে — সেই রাষ্ট্রপতির দেশ আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র স্তব্ধ হয়ে যাবে একদিন অস্ত্রের দোকান ঘরের ঝাঁপ বন্ধ হয়ে গেলে। ছোট ছেলে-মেয়েদের হাতে খেলনা বন্দুক নয়, শিক্ষিকা-সহপাঠী-ঘাতী মারণাস্ত্র থাকে। আমেরিকার অর্থনীতিতে মিলিটারি কমপ্লেক্স একটি অত্যাবশ্যকারী পণ্য। তারজন্য দুনিয়াজুড়ে যুদ্ধ পরিবেশ প্রয়োজনীয়, তারজন্য একইরকমভাবে প্রয়োজন আল কায়দা থেকে আই এস আই এস, জামায়েতী ইসলাম থেকে ইন্ডিয়ান মুজাহিদিন জঙ্গী গোষ্ঠী। ত্রাণ শিবিরের নবজাত ওবামার মা সুলতান জানতেও পারে না যাদের জন্য তাদের প্রিয় শহর কোবানের দিকে তাকিয়ে চোখের জল ঝরে, সেই জঙ্গী গোষ্ঠীর হাতেও মজুত হয়তো বা কোন না কোন চোরাপথে চলে আসা আমেরিকারই কোন ভয়ঙ্কর অস্ত্র। আই এস ই বর্তমান বিশ্বের সব থেকে ধনশালী সন্ত্রাসবাদী সংগঠন। হোয়াইট হাউসের হিসেবে, গত জুন থেকে ১২০ কোটি ইউরো খবর করেছে ওরা। নিজেদের হিসেব এর থেকে বেশি বই কম নয়।

পৃথিবীজুড়ে চলছে আধিপত্যবাদের দৌড়। অর্থনৈতিক-রাজনৈতিক আধিপত্য প্রতিষ্ঠা সোজা পথেই সব সময়ে হয় না — বাঁকা পথ আজ সন্ত্রাসের করাল রূপ ধরেই আসে। অর্থনৈতিক-রাজনৈতিক সাংস্কৃতিক মাতব্বরীর জন্য উগ্র-সন্ত্রাসবাদ আজ এক অত্যন্ত ধারালো অস্ত্র। বিশ্বের আগ্রাসীতম শক্তি মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের ঔরসে সন্ত্রাসবাদের জন্মটা কিছু গল্পকথা নয় — আফগানিস্তানের তালিবান থেকে আল কায়দার জন্ম বৃত্তান্তে তার হদিশ পাওয়া যায় না কি?

পৃথিবীবাসীর নিঃশ্বাসে-প্রশ্বাসে এখন এই বীভৎসতম শব্দটি ‘সন্ত্রাস’। পেটের ভাত পরনের কাপড় এইসব চিন্তার অবকাশও নেই। কারণ যার জন্য ভাত কাপড়ের চাহিদা সেই প্রাণটুকুই উপদ্রুত — তাকেই ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী ম্যানপ্যাডে রকেটলঞ্চ-একে ৪৭ এম বি, আর ডি এক্স-এর হাত থেকে রক্ষা করতে পারাটাই বড় চ্যালেঞ্জ। সন্ত্রাসবাদ এক উন্মাদনার বুদবুদ মাত্র। ক্ষুব্ধ বঞ্চিত হৃদয়ের এক মানসিক আশ্রয়। বঞ্চনার পাত্রগুলিতে কখনও বিধর্মী কখনও একই ধর্মের সম্প্রদায়গত বিদ্বেষ বিষে পূর্ণ করে দেওয়া হয়। জাতপাত-ভাষা-আঞ্চলিকতা যেকোন কিছুর অপূর্ণতা নিয়েই শুরু হয়ে যেতে পারে জঙ্গীয়ানা। হিংস্রতা ও চরম অযৌক্তিকতা সন্ত্রাসবাদের চালিকাশক্তি। দুনিয়াজুড়ে আছে আত্মপ্রতিষ্ঠার লড়াই ধর্মীয় মৌলবাদ থেকে শুরু করে জাতিগত — সম্প্রদায়গত সত্তা আছে সেই যুদ্ধে। পরিচিতির সংকটে আহত অভিমান, রাস্তা খুঁজতে গিয়ে সন্ত্রাসবাদের আবর্তে ঢুকেপড়া কিছু অস্বাভাবিক নয়। কিন্তু তাতে কি সত্যিই সঙ্কট কাটে? যে অর্থনৈতিক-সামাজিক শোষণ-বঞ্চনার দরুন নিজের বা সম্প্রদায়ের সত্তার পরিচিতি ঘটে না — তার দিকে অস্ত্র না উঁচিয়ে সেই শোষক-প্রবঞ্চকদের সৃষ্টি করা শত্রুর উপরে ঝাঁপিয়ে পড়লে কি সত্তার বিকাশ ঘটানো সম্ভব? ‘আইডেন্টিটি ক্রাইসিস’ — আধুনিকতম এই জিগিরকে, ধর্ম-ভাষা-সম্প্রদায়-জাত-উপজাতের মহিমায়, এমন শুদ্ধ পবিত্র উত্তর আধুনিক মোড়কে তুলে ধরা হচ্ছে যে, সভ্যতার গতিপথ এখানেই স্তব্ধ হয়ে যাবে। বঞ্চিতের অশান্ত হৃদয়, ক্ষুব্ধ সত্তাকে সান্ত্বনা দিতে একটা লড়াই দরকার আসল শত্রু আড়াল করে শত্রুর ‘ডামির’ সামনে এদের দাঁড় করিয়ে দিলে এদের যুদ্ধের ইচ্ছেও পূরণ হবে অস্ত্রের ব্যবসাও চলবে — চলবে আধিপত্যের দৌড়ও।



পশ্চিমবঙ্গ, আজ সেই সন্ত্রাসের ভয়ঙ্কর কা‍‌লো চাদরটাই ক্রমশ ঢাকা পড়ে যাচ্ছে। যে-কোন রঙের দুর্বৃত্তর জন্য যে বঙ্গভূমি দুর্জয় ঘাঁটি — সেখানে আল কায়েদা জাওয়াহিরিরা বা আই এস আই এস-এর জঙ্গী নেতারা বুক ফুলিয়ে আশাবাদী হয়ে উঠল কেমন করে? সীমান্ত অনুপ্রবেশ সমস্যা বা নেপাল-পাকিস্তান-বাংলাদেশ-মায়ানমারের অবস্থান তো কিছু নতুন নয় — তবু তো পশ্চিমবঙ্গ কখনই সন্ত্রাসবাদীদের নিরাপদ আশ্রয় হয়ে ওঠেনি। হয়ে ওঠেনি কোন ধর্মীয় মৌলবাদীদের উর্বরভূমি। আজ কট্টর হিন্দুত্ববাদী আর এস এস তাল ঠুকছে গোটা দেশে এমন কি পশ্চিমবঙ্গেও। কি ব্যাখ্যা বঙ্গীয় প্রশাসনের, ২০১১ সালের ৫৮০টি শাখা কোন জাদুমন্ত্রে ১৫২৫টি আর এস এসের শাখায় পল্লবিত হয়ে উঠল? কোথা থেকে হিন্দু-মুসলিম, মৌলবাদী সংগঠন, উগ্র সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠী এত আলো হাওয়া জল পাচ্ছে বেড়ে ওঠার জন্য? ভোটের অঙ্ক রাজনৈতিক আকাঙ্ক্ষা পূর্ববর্তী সরকারের কার্যক্রমের মধ্যে থেকেছে বলে যদি তর্কের খাতিরেও ধরে নেওয়া যায় — তারা যে নিজের ডাল কেটে কালিদাস নয়, সে প্রমাণ সে কাণ্ডজ্ঞান তারা দেখিয়েছে। যে মাটিতে ভোটের অঙ্ক কষা রাজনৈতিক মেরুকরণের চেষ্টা, সেই মাটিটাকে বিপন্ন করা চলে না, সুরক্ষা দিতে হয় এই সাধারণ বিবেচনাটা বর্তমান সরকারের আগের কোন সরকারই পশ্চিমবঙ্গে জলাঞ্জলি দেয়নি। আসলে, প্রশাসন মানে তো কেবল একটা যন্ত্র নয় — একটা নীতি একটা রাজনৈতিক সদিচ্ছা একটা আদর্শের ইচ্ছাপূরণ অথবা বিকল যন্ত্রের যাঁতাকলে শারীরিক মানসিক নিষ্পেষণ। সরকার আর তার প্রশাসনকে সঠিক পথে পরিচালনার জন্য একটা শাসনতন্ত্র আছে ভারতীয় সংবিধান। যে-কোন সরকারের প্রাথমিক দায়িত্ব রাজ্যবাসীকে নিরাপত্তা দেওয়া — আর সেই নিরাপত্তা আসে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায়। তিন বছরের বেশি এই সময়ে আইন আছে কারণ সংবিধান আছে — কিন্তু শাসন নেই কারণ সরকার আইন বা সংবিধান কারোরই তোয়াক্কা করে না। ফলে, একদিকে যেমন তলা থেকে লুম্পেন জাগরণ ঘটেছে আর একদিকে ক্ষমতার বেপরোয়া অপব্যবহার আইনের শাসনের সমস্ত রাস্তাগুলো বন্ধ করে দিয়েছে। প্রশাসনের প্রধান এই বিশ্বমানের ষড়যন্ত্রের গভীরতা উপলব্ধিতে ব্যর্থ না উদাসীন? কোন ধর্মবিশ্বাস, মানবিকতা সন্ত্রাসবাদের কাছে মাথা নোয়ানো যায় না। একমাত্র ক্ষমতার নারকীয় লিপ্সা এই ধ্বংস আর আগুনের সাথে সওদা করতে পারে। এই রাজ্য কি সেই সর্বনাশের কিনারায় দাঁড়িয়ে?

পশ্চিমবঙ্গ তথা গোটা দেশ এর আগে কখনও এমন বিপন্ন সময়ের মুখোমুখি হয়নি। ধর্মীয় উন্মাদনা ঘা সাম্প্রদায়িকতার সীমানা ঘেঁষে চলছে, তারই আধারে বিভেদের বিষপান করে, অরাজকতার অঙ্কুশে বিপর্যস্ত আশা, সন্ত্রাসের পথে মুক্তির উপায় খুঁজতে ঝাঁপিয়ে পড়ার একটা উপযুক্ত সময় একটা অনুকূল হাওয়া খুঁজে পেয়েছে। বহু বিজ্ঞাপিত সুদিন যে দুরাশা একটু একটু করে স্বচ্ছ হয়ে উঠছে। রাজ্যে বাম-বিমুখ হয়ে মানুষ তৃণমূল কংগ্রেস ও তার নেত্রীকে যে ‘right to rule’ উজারু করে দিয়েছিল, তা যখন power to rule-এর ভয়ঙ্কর দানবীয় চেহারা নিয়েছে তখন চোরাগোপ্তা পথে হতাশা, হিংসা-বিদ্বেষের মারমূর্তি ধারণ করছে — নিরীহ-নির্জন খাগড়াগড় এক ভিসুভিয়াস হয়ে উঠেছে।

নদীয়ার কালীগঞ্জের ডাঙ্গাপাড়ার পাউরুটি কেক লজেন্স বিক্রি করা সাইকেল আরোহী তালহা শেখের দাম হয়েছে দশ লক্ষ টাকা। ঐ দশ লাখ টাকা জনগণের। জনগণ কি পাবে — আল কায়েদার ‘খাজওয়া হিন্দ’ ভারতের চূড়ান্ত যুদ্ধ, অথবা ইসলামিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জেহাদিতে? কি পেয়েছে আরব দুনিয়ার জঙ্গী সংঘর্ষ আর গণহত্যা — রাস্তায় ছড়ানো কাটামুণ্ড আর খণ্ড বিখণ্ড দেহ কোন বেহেস্তের পথ দেখায়? এই ধর্মীয় উন্মত্ততা যদি অন্য ধর্মে দেখা দেয়, তা কি দেখায় সুখের স্বর্গের পথ? বাবরি মসজিদ ধ্বংসের পর কোন কর সেবকের ঘর আলো করে স্বর্গের নন্দনকানন সৃষ্টি হয়েছে ভারতবর্ষে?

সোস্যাল নেটওয়ার্কে ফুটে ওঠা — সিরিয়ার কোন সেনার কাটা মুণ্ডে শিশুর পা-এর ছবি কি সত্যি কোন সমাধান? কঠোর হলেও লক্ষ্যে পৌঁছলেও হয়তো তা বরদাস্ত করা যায়। কিন্তু এই সন্ত্রাস কেবলই বিভীষিকার কানাগলি — উদ্ধার নেই। (সন্ত্রাসের ভয়ঙ্কর পরিণতি হলো, যারা এ কাজে অভ্যস্ত, তারা ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়। ধীরে কিন্তু নিশ্চিতভাবে, তাদের জীবনদীপ নিভে যায় যারা অন্যের জীবনের আলো নিভিয়ে দিতে চায়।) আজকে ঐ আরব দুনিয়ায় যে বাবা হিংস্র আনন্দে শত্রুর কাটা মুণ্ডে ছেলে‍‌কে বল খেলাচ্ছে তার কাটা মুণ্ডেই হয়তো আর এক শিশু লাথি মারবে এমনি করেই আর এক সকালবেলা।



পণ্ডিত ব্যক্তিদের কথামতো লড়াই যদি আজ পশ্চিমী সভ্যতা বনাম ইসলামিক সভ্যতা হয় ও আইডেন্টিটি ক্রাইসিসে বসুন্ধরার বুক চিরে চিরে যায়ও সব থেকে পুরানো যুদ্ধটা সব থেকে মৌলিক যুদ্ধটা আজও সমান তীব্র —শোষক আর শোষিতের লড়াই। কোন প্রযুক্তি, কোন আধুনিকতার তত্ত্ব ঐ লড়াইটাকে এড়াতে পারে না। আর সেই যুদ্ধ, গুহায় লুকিয়ে, দরজায় খিল তুলে, বোরখার আড়ালে, মন্দিরের অদূরে, রাজনৈতিক দলের দপ্তরের ছায়ায় — মানুষকে ভয় করে, মানুষকে লুকিয়ে জয় করা যায় না। এই যুদ্ধে, আরাবুল-অনুব্রতরা যেমন নয়, তেমনি রিওয়াজ ভাটকল নয়, নয় মন্দির-মসজিদের ধামাধরারা অংশীদার। রুটি-রুজির ন্যায় যুদ্ধ থেকে — ছোট্ট জায়গার বড় নীতির ‘হোক কলরবের’ ছোট লড়াইই হোক — দৃঢ় পদ মানুষের অংশগ্রহণ ছাড়া বঞ্চিত আর প্রবঞ্চকের লড়াইটা হয় না। সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে জলে জঙ্গলে নৃশংস হওয়া যায় পাষাণে পরিণত হওয়া যায়। বঞ্চিতের আত্ম প্রতিষ্ঠার যে সভ্যতার সংঘাত সেখানে একমাত্র ধারালো এবং নিশ্চিত অস্ত্র মানুষ — ঐক্যবদ্ধ রাস্তায় নামা মানুষ। সেই মানুষের ভরসা বামপন্থীরা ব্রাজিল-বলিভিয়া আবার প্রমাণ করল তাই। সন্ত্রাসের ঘাঁটিতে লাঞ্ছিত — স্বৈরাচারে জর্জরিত-অরাজকতায় অস্থির এই রাজ্যের মানুষের জন্য বামপন্থীদের আরও শক্তি সঞ্চয় করে দ্রুত গণতন্ত্রের পতাকা অবাধে ওড়াতেই হবে। আর তার জন্য, সরকার বদল কি বদল নয়, জনস্বার্থবিরোধী নীতির প্রতিবাদই নয়, এই লড়াই স্বার্থপরতা আদর্শহীনতার বিরুদ্ধে, দেশের মাটির জন্যে, মানুষের জন্য মানুষের প্রতিদিনের প্রতি ইঞ্চির লড়াই। এই লড়াই নিজের ভালো হওয়ার লড়াই — নিজের ভালো থাকার লড়াই। এই লড়াই সন্ত্রাসকে সন্ত্রস্ত করে। পশুর মতন চোখ জ্বেলে রাখা হিংস্র শ্বাপদঘেরা এই সময়ে — বামপন্থীরাই মানবতার মৃত্যু রোধ করতে পারে, তারাই পারে আপসহীন-দ্বিধাহীন সংগ্রামের পথে মানবিক আকাঙ্ক্ষার আয়ুকে মজবুত করতে। পারে কাটা মুণ্ডের নরক নয় — ফোটা ফুলের মেলা সাজাতে।

- See more at: http://ganashakti.com/bengali/news_details.php?newsid=62359#sthash.eH25hS6U.dpuf

সারদার সঙ্গে জড়িয়ে তৃণমূলের দুর্নীতিগ্রস্ত চরিত্র প্রকাশ্যে বেরিয়ে এসেছে। চমক, হুঁশিয়ারি, হুমকি আর চক্রান্তের তত্ত্বে সারদা কেলেঙ্কারি ঢাকা দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

তৃণমূলপন্থী বুদ্ধিজীবীদের তালিকায় ১নম্বর নাম ছিল চিত্রশিল্পী শুভাপ্রসন্নর। এখন তিনি নিজেই সারদা কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত, তাঁর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ করেছে ই ডি। সারদার মমতা ঘনিষ্ঠ ঐ চিত্রশিল্পীর সঙ্গে ব্যবসায়িক লেনদেনের প্রচুর তথ্য মিলেছে। তিনি এখন লোকচক্ষুর আড়ালে। আগে তিনিই থাকতেন তৃণমূলী বুদ্ধিজীবী মিছিলের পুরোভাগে। এখন যে দু-তিনজন ব্যবসায়ী বুদ্ধিজীবী মিছিলের সামনে তাদেরও কি চিট ফান্ড যোগ রয়েছে?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বোঝা উচিত তাঁর দল কালো টাকা, দুর্নীতি, আর্থিক কেলেঙ্কারির বিরুদ্ধে বক্তব্য রাখার নৈতিক অধিকার হারিয়েছে। চুরি এবং চোরেদের সমর্থনে ‘বুদ্ধিজীবী’-দের মিছিলও হাস্যকর হয়ে উঠেছে।

সৃঞ্জয় বসুর গ্রেপ্তার এবং মদন মিত্র জেরার নোটিস পাওয়ার পরে তৃণমূল মরিয়া হয়ে নিজেদের বাঁচাতে নেমেছে। সারদা কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত তৃণমূল সাংসদরাই সংসদে কালো টাকার বিষয়ে বিক্ষোভ দেখাচ্ছে। সারদা প্রতারণায় অভিযুক্ত তৃণমূল সাংসদদের মধ্যে রয়েছেন হাসান ইমরান, অর্পিতা ঘোষ, শতাব্দী রায়, মিঠুন চক্রবর্তী প্রমুখ।

২০১০-১১ সালে সারদা-তৃণমূল আঁতাত এই কারবারের শ্রীবৃদ্ধিতে সাহায্য করে। আবার সারদার অর্থে তৈরি সংবাদপত্র এবং টি ভি চ্যানেল ঢালাও প্রচার করেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তৃণমূলের সমর্থনে। এস এফ আই ও যে সংগৃহীত অর্থের পরিমাণের কথা বলেছে তার থেকে কয়েকগুণ বেশি অর্থ তোলা হয়েছে বলে তদন্তকারী সংস্থাগুলির ধারণা। তৃণমূলের হাতে রেলমন্ত্রক থাকাকালীনই রেলের সংস্থার সঙ্গে সারদা গোষ্ঠীর চুক্তি হয়েছে।

২০০৯ সালের কেন্দ্রীয় সরকারে তৃণমূলের যোগ দেওয়ার পর থেকেই সারদার শ্রীবৃদ্ধি ঘটতে থাকে। এস এফ আই ও’র রিপোর্ট বলছে এ পর্যন্ত পাওয়া তথ্য অনুসারে সারদা পশ্চিমবঙ্গ থেকে মোট ২১৩১ কোটি টাকা তুলেছিল। এরমধ্যে সিংহভাগ টাকাই তোলা হয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পরে।

সারদা চিট ফান্ড সংস্থার উত্থানের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনের যোগাযোগ ছিল। কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলির তদন্তে জানা গেছে ২০১১ সালের ১৩ই জানুয়ারি থেকে ২৪শে জানুয়ারির মধ্যে ৯২টি ভুয়া সংস্থা খুলেছিল সারদা। এই সংস্থাগুলির অ্যাকাউন্ট থেকেই কোটি কোটি টাকা চালান হয় তৃণমূলের ভোটের কাজে। ২০০২ সালের পর এই সংস্থাগুলির আর খোঁজ মেলেনি।

এরাজ্যে মিছিল, ধরনা করে সি বি আই এবং ই ডি’র তদন্ত আটকাতে চাইছেন তৃণমূল নেত্রী। তিনি এমন হুমকি দিয়েছেন, তদন্ত না থামলে দিল্লি অচল করে দেওয়া হবে। তদন্ত যেহেতু এগোচ্ছে তৃণমূল নেতাদের বিরুদ্ধে, সে কারণে চক্রান্তের তত্ত্ব হাজির করেছেন তৃণমূল নেত্রী।

শাসকদলের চাপে পেশাগত কারণে অনেক চিত্র তারকা মিছিলে যোগ দিতে বাধ্য হচ্ছেন। কেন মিছিল? কিসের মিছিল তাও জানা নেই অনেকের। সাধারণত দুর্নীতির তদন্তের দাবিতে মিছিল, সভার আয়োজন করে রাজনৈতিক দল। বিশিষ্টজনেরাও স্বাধীনভাবে দুর্নীতির বিরুদ্ধে মত প্রকাশ করেন। এরাজ্যের শাসকদল তার ব্যতিক্রম।

সারদা নিয়ে অভিযোগকে ধামাচাপা দিতে সংসদে তৃণমূল সদস্যরা বিদেশে কালো টাকা উদ্ধারের দাবি তুলেছেন। কিন্তু সারদার কালো টাকা উদ্ধারের কি হবে, সে জবাব কি দেবেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী? তৃণমূল নেত্রী তার হাতেগোনা কয়েকজন সুবিধাভোগী ‘বুদ্ধিজীবী’কেও নামিয়েছেন সারদা চুরিকে সমর্থনের উদ্দেশ্যে।

তৃণমূল সার্কাস সারদা চিট ফান্ড কেলেঙ্কারির তদন্তের চাপে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন তৃণমূল নেত্রী ও তাঁর সঙ্গী নেতারা। প্রকাশ্যে নিজেকে জোর গলায় ‘চোর’ বলে ‘সাধু’ সাজার কৌশল নিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সারদা প্রতারণা থেকে নিজেদের আড়াল করার জন্য মিছিল, ধরনা শুরু করেছে তৃণমূল। কখনও কালো ছাতার নিচে, কখনও বা কালো শাল গায়ে তৃণমূল সাংসদরা এই বিক্ষোভকে সার্কাসের চেহারা দিয়েছেন।

Friday, November 28, 2014

SRIKANT MOHATA - বি জে পি রাজ্য সভাপতি রাহুল সিনহা এদিন বলেন, চোরেদের গ্রেপ্তার করা যাবে না। চুরি করায় বাধা দেওয়া যাবে না, চুরি করতে দিতে হবে। অর্থাৎ চুরির অধিকারকে স্বীকৃতি দেওয়ার দাবিতে যে মিছিলটি এদিন তৃণমূল করলো সেটি রাজ্যের গণতন্ত্রের ইতিহাসে এক কলঙ্কিত অধ্যায় হিসেবে চিহ্নিত হয়ে রইলো। বি জে পি-র পক্ষ থেকে এদিন পালটা মিছিলের কথা ঘোষণা করা হয়। ২রা ডিসেম্বর কলেজ স্কোয়ার থেকে ধর্মতলা পর্যন্ত কোনো দলীয় পতাকা, ফেস্টুন ছাড়াই মিছিল করবে বি জে পি। টেলিফোন করে বুদ্ধিজীবীদের সেই মিছিলে অংশ নিতে অনুরোধ করা হবে। রাহুল সিনহার বক্তব্য, চোরেদের মিছিলের বিরুদ্ধে এই মিছিল হবে সততার মিছিল।

INDRANIL SEN - চূড়ান্ত বিশৃঙ্খলার মধ্যেই নন্দন চত্ত্বর থেকে শুরু হলো মিছিল। এক্সাইড মোড়, বিড়লা তারামণ্ডল হয়ে ছন্নছাড়া মিছিল গেল আকাদেমি পর্যন্ত। মিছিলে শামিল ছিলেন অভিনেতা দেব, রুদ্রনীল, নুসরত জাহান, সোহম, রিমঝিম, মিমি, সাহেব, রূপাঞ্জনা, পরিচালক রাজ চক্রবর্তী, গায়ক নচিকেতা, সৈকত মিত্র-সহ একগুচ্ছ টি ভি সিরিয়াল অভিনেতা অভিনেত্রী। ভিড় বাড়াতে বিভিন্ন ক্লাব সংগঠন থেকে অনেককেই শামিল করা হয়েছে মিছিলে। আনা হয়েছে দক্ষিণেশ্বর স্কুল ও হীরালাল গার্লস কলেজের ছেলেমেয়েদেরও। মিছিল চলতে শুরু করলে অভিনেতা দেব-কে দেখতে ভিড় বাড়তে থাকে রাস্তায়। এক্সাইড মোড়ের আগেই ছত্রভঙ্গ হয়ে যায় এদিনের মিছিল। উদ্যোক্তা আর তারকারা ছিটকে যান এদিক ওদিক। তারকাদের প্রশ্ন করা হলে প্রায় সবাই পরে বলব বলে এড়িয়ে গেলেন। দু-একজন বললেন, বাংলার সংস্কৃতি রক্ষার জন্য নাকি এই মিছিল। ক্লাব সংগঠন থেকে আসা কয়েকজন অবশ্য বললেন, তৃণমূল দল থেকে আসতে বলা হয়েছে। কেন তা জানি না। উদ্যোক্তাদের মধ্যে অরিন্দম শীল, ইন্দ্রনীল, সুবোধ সরকারকে প্রশ্ন করা হলে তাঁরা মিছিলের পর বলবেন বলে জানান। কিন্তু মিছিল শেষে কার্যত আর তাঁদের টিকিও দেখা গেল না। কোনোমতে আকাদেমি পর্যন্ত গিয়েই মুখে কুলুপ এঁটে গা ঢাকা দেন তাঁরা।


এবার প্রচার হলো বাংলার প্রতি বঞ্চনা রুখতেই নাকি এই মিছিল। বাংলার সংস্কৃতি বজায় রাখতে মিছিল। অবশ্য কে বা কারা বাংলার সংস্কৃতি নষ্ট করতে চাইছে সে কথা এদিন জানা গেল না কারো কাছ থেকেই। আশ্চর্যজনকভাবে সারদা কেলেঙ্কারির প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা চুরি নিয়ে কোনোই উল্লেখ ছিল না মিছিলের স্লোগানে। ছিল না ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় ১৭ লক্ষ মানুষের কথা। ছিল না অসহায় আত্মঘাতী প্রায় ৭৬ জনের কথাও। অথচ এদিন ‘বাংলা আনার গর্ব’ লেখা প্ল্যাকার্ড নিয়ে ঘুরলেন অনেকেই।

SUBODH SARKAR - এর আগের মিছিলে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্লোগান ছিল- ‘আমরা সবাই চোর’। সেই স্লোগানকে সামনে রেখে সি বি আই তদন্তকে কটাক্ষ করে, নিজেদের নির্দোষ ঘোষণা করে পরবর্তী মিছিলের কর্মসূচী ঘোষণা করেছিলেন তিনি। মিছিলের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল ব্রাত্য বসু, অরিন্দম শীল, সুবোধ সরকার, ইন্দ্রনীল সেন, শ্রীকান্ত মোহতাদের ওপরেই। তবে ঠিক মিছিল শুরু হওয়ার আগের দিন মিছিলের উদ্দেশ্য নিয়ে আগের বক্তব্য থেকে একশো আশি ডিগ্রি ঘুরে গেলেন তৃণমূল নেত্রী।

ARINDAM SIL - শুক্রবার সি বি আইয়ের জেরার ভয়ে পালিয়ে বেড়ানো শিল্পী শুভাপ্রসন্নকে ছাড়াই মুখ্যমন্ত্রীর অনুগতদের সেই দিশাহীন মিছিল হলো। মিছিলে অনুপস্থিত ই ডি’র জেরায় জেরবার অপর্ণা সেনও। তবে কি তাঁরা শিল্পী নয়? উঠলো আরো একপ্রস্থ প্রশ্ন। অন্যদিকে মিছিল শুরু আর শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে একপ্রস্থ বচসা হলো পুলিস ও স্বেচ্ছাসেবীদের। টলিউডি কিছু শিল্পীদের মিছিলে সামনের সারিতে শামিল করা হলো ক্লাব, স্কুল কলেজের ছেলেমেয়েদেরও। নন্দন থেকে আকাদেমি—চূড়ান্ত বিশৃঙ্খলার মিছিল কোনোমতে শেষ করে, সংবাদ মাধ্যমকে দায়ী করে গা ঢাকা দিলেন উদ্যোক্তারা।

এক সময়ের তৃণমূলপন্থী ছিলেন এমন অনেক শিল্পী-বুদ্ধিজীবীই নেই এদিনের মিছিলে। মিছিলের উদ্দেশ্য শুনে আগেই পাশ কাটিয়েছেন কয়েকজন। যাঁরা মিছিলে ছিলেন তাঁদের অনেকেরই আবার মিছিলের কারণ নিয়ে সংশয় নিজেদের মধ্যেই। তাঁদের বক্তব্য, হয়তো বিভিন্ন কারণেই এই মিছিল, তবে সঠিক জানা নেই—এস এম এস পেয়ে এসেছি, পরে বলব। মিছিলে শামিল কিছু উৎসাহী বললেন, তৃণমূল দল থেকে আসতে বলেছে, তাই এসেছি। কেউ কেউ মুখে কিছু না বলে আঙ্গুল তুলে সোজা দেখিয়ে দিচ্ছেন প্ল্যাকার্ডগুলির দিকে। সেখানে বিভিন্নভাবে লেখা একটাই সারমর্ম, রাজ্যের প্রতি বঞ্চনার জন্যই এই মিছিল। কিসের বঞ্চনা, কার বঞ্চনা—লেখা নেই খোলসা করে।

এক সময়ের তৃণমূলপন্থী ছিলেন এমন অনেক শিল্পী-বুদ্ধিজীবীই নেই এদিনের মিছিলে। মিছিলের উদ্দেশ্য শুনে আগেই পাশ কাটিয়েছেন কয়েকজন। যাঁরা মিছিলে ছিলেন তাঁদের অনেকেরই আবার মিছিলের কারণ নিয়ে সংশয় নিজেদের মধ্যেই। তাঁদের বক্তব্য, হয়তো বিভিন্ন কারণেই এই মিছিল, তবে সঠিক জানা নেই—এস এম এস পেয়ে এসেছি, পরে বলব। মিছিলে শামিল কিছু উৎসাহী বললেন, তৃণমূল দল থেকে আসতে বলেছে, তাই এসেছি। কেউ কেউ মুখে কিছু না বলে আঙ্গুল তুলে সোজা দেখিয়ে দিচ্ছেন প্ল্যাকার্ডগুলির দিকে। সেখানে বিভিন্নভাবে লেখা একটাই সারমর্ম, রাজ্যের প্রতি বঞ্চনার জন্যই এই মিছিল। কিসের বঞ্চনা, কার বঞ্চনা—লেখা নেই খোলসা করে।

এক সময়ের তৃণমূলপন্থী ছিলেন এমন অনেক শিল্পী-বুদ্ধিজীবীই নেই এদিনের মিছিলে। মিছিলের উদ্দেশ্য শুনে আগেই পাশ কাটিয়েছেন কয়েকজন। যাঁরা মিছিলে ছিলেন তাঁদের অনেকেরই আবার মিছিলের কারণ নিয়ে সংশয় নিজেদের মধ্যেই। তাঁদের বক্তব্য, হয়তো বিভিন্ন কারণেই এই মিছিল, তবে সঠিক জানা নেই—এস এম এস পেয়ে এসেছি, পরে বলব। মিছিলে শামিল কিছু উৎসাহী বললেন, তৃণমূল দল থেকে আসতে বলেছে, তাই এসেছি। কেউ কেউ মুখে কিছু না বলে আঙ্গুল তুলে সোজা দেখিয়ে দিচ্ছেন প্ল্যাকার্ডগুলির দিকে। সেখানে বিভিন্নভাবে লেখা একটাই সারমর্ম, রাজ্যের প্রতি বঞ্চনার জন্যই এই মিছিল। কিসের বঞ্চনা, কার বঞ্চনা—লেখা নেই খোলসা করে।

কীসের মিছিল, জবাব না দিয়ে গা ঢাকা দিলেন সংগঠকরা নিজস্ব প্রতিনিধি: কলকাতা, ২৮শে নভেম্বর—সি বি আই তদন্তের বিরুদ্ধে আর চুরির সপক্ষে মিছিল। মিছিল সারদার টাকা আত্মসাৎকারীদের পাশে দাঁড়ানোর পক্ষেই। কিন্তু নিতান্ত চক্ষুলজ্জায় সে কথা বলতে না পেরে সাংবাদিকদের সামনে মুখে কুলুপ আঁটলেন তৃণমূলপন্থী শিল্পী, বুদ্ধিজীবীরা।

কীসের মিছিল, জবাব না দিয়ে গা ঢাকা দিলেন সংগঠকরা নিজস্ব প্রতিনিধি: কলকাতা, ২৮শে নভেম্বর—সি বি আই তদন্তের বিরুদ্ধে আর চুরির সপক্ষে মিছিল। মিছিল সারদার টাকা আত্মসাৎকারীদের পাশে দাঁড়ানোর পক্ষেই। কিন্তু নিতান্ত চক্ষুলজ্জায় সে কথা বলতে না পেরে সাংবাদিকদের সামনে মুখে কুলুপ আঁটলেন তৃণমূলপন্থী শিল্পী, বুদ্ধিজীবীরা।

CITU LEADER ARATI DASGUPTA NO MORE

FRAUDS IN THE UNIFORM OF INTELLECTUALS

CPI (M) LEADER ANANDA PATHAK

MAMATA - SUDIPTA SEN DELO MEETING

BURDWAN BLAST AND BANGLADESHI POLICE

MAMATA BANERJEE MEETS SUDIPTA SEN OF SARADHA CHIT FUND

BANGLADESHI POLICE IN KHAGRAGARH

CURTAILMENT OF SERVICE SECTOR

FRAUD INTELLECTUALS BRING OUT PROCESSION IN KOLKATA IN FAVOUR OF THIEVES AND RAPISTS

ANANDA PATHAK

ARATI DASGUPTA


AMIT SAHA TO ADDRESS MEETING IN KOLKATA

MOLESTATION OF GIRL BY POLICE IN WEST BENGAL

MINIMUM WAGES - STATUROY PROTECTION

GOVERNMENT SHARE IN BANKS