RESIST FASCIST TERROR IN WB BY TMC-MAOIST-POLICE-MEDIA NEXUS

(CLICK ON CAPTION/LINK/POSTING BELOW TO ENLARGE & READ)

Tuesday, April 30, 2013

NEW BILL TO DEAL WITH CHIT-FUNDS KICKS OFF ROW - N.S.Sajith


NEW BILL TO DEAL WITH CHIT-FUNDS KICKS OFF ROW - N.S.Sajith

Kolkata, Apr 29 The new bill to be moved by the Mamata Banerjee government tomorrow following the chit fund scam by the Saradha Group has kicked off a row with opposition claiming that it is similar to the one passed during the previous Left Front regime.

"There is 90 per cent similarity between the two bills. Then what is the need for this new bill needs to clarified.

Why is the old bill being called back?" asked senior CPI(M) leader Surya Kanta Mishra, who is also the Leader of the Opposition.

"Under which clause of the Constitution have they called back the bill needs to be answered. They can't just bulldoze the demand of the opposition," he said.
Congress leader Manas Bhuinya claimed that 98 per cent of the contents of the new bill are similar to the provisions of the previous bill.

If implemented, the bill would have no power to punish offenders, he claimed.

The ruling Trinamool Congress countered that the Left Front too did not bother to call back a 2003 bill on curbing chit funds when a new bill was introduced in 2009.

Industries minister and deputy leader of the House Partha Chatterjee said that the Left Front also did not bother to get presidential assent after the bill was passed in the assembly in 2009.

"What were they doing all these years? Why didn't they get presidential assent when the bill was passed in 2009? Did they call back the previous bill of 2003 before passing a new bill in 2009?" asked Chatterjee.

"They will get all the answers tomorrow," he said.
The West Bengal Protection of Interest of Depositors in Financial Establishments Bill, 2013 will be introduced tomorrow.

It will replace the earlier West Bengal Protection of Depositors Interest Bill 2009 introduced by the previous Left Front government on December 22, 2009.

Copies of the bill were circulated among the members on the first day of the 2-day special session of the Assembly today.

Government Chief Whip Sobhandev Chattopadhyay told reporters that there would be a three hour discussion on the bill.

The Industry minister said a whip has been issued to all TMC members to be present in the Assembly from 10:00 am.

WB ASSEMBLY WITHDRAWS 2009 BILL PASSED DURING LF REGIME - PTI


WB ASSEMBLY WITHDRAWS 2009 BILL PASSED DURING LF REGIME - PTI

PTI

    Kolkata, Apr 30 The West Bengal Assembly today passed a resolution to withdraw a bill on safeguarding the interest of depositors in chitfunds passed during the Left Front regime which would be replaced by a new one brought by the present Trinamool Congress government.

    The motion for withdrawal of the West Bengal Protection of Investors in Financial Establishments Bill 2009 was passed through a division which was sought by the Opposition.

    Earlier, introducing the motion in the House, Parliamentary Affairs minister Partha Chatterjee said that in 2009, the bill was passed in the assembly which was reserved by the West Bengal governor.

    He said that the Centre had returned the bill as it had been decided to recast the legislation in order to strenghthen it.

    Opposing the method in which the motion for withdrawal was introduced, senior CPI(M) member and Leader of the Opposition Surya Kanta Mishra said that since the bill was passed in the House, the communication route should have been from the President to the governor and then to the Speaker.

    The Centre did not hold any constitutional right to intervene. This was totally against democratic norms, he said.

    Mishra said that in order to protect investors, the state government should not stay neutral when fraudsters were duping investors as it would strengthen their hands.

    In his reply, Chatterjee said that the Left Front did nothing to deal with these companies as no follow-up action was taken when a similar bill of 2003 was returned by the president for being faulty and incomplete.

    He said that the since the present government was introducing a stronger bill, it was necessary to withdraw the previous one as per the Constitution.

BENGAL GOVT ALLOWING CHIT FUND OPERATORS TO RELOCATE BUSINESS - PTI


BENGAL GOVT ALLOWING CHIT FUND OPERATORS TO RELOCATE BUSINESS - PTI

New Delhi, Apr 30  CPI(M) today claimed West Bengal government's move to enact a new law to protect small depositors was only to provide chit fund operators to re-locate their properties.

CPI(M) leader Sitaram Yechury said the previous West Bengal Assembly during Left Front rule had passed a Bill on safeguarding the interest of depositors and the same was pending before the President for his assent.

"West Bengal government's move would provide crucial time to chit fund operators to re-locate their properties. It is just buying time. The Trinamool Congress-led government is protecting chit fund operators," he said.

On the issue of Chinese incursions in Ladakh, Yechury said both India and China need to address the issue with maturity but there should be no compromise with national interest.

"Both the governments are involved in negotiations on this issue. The Foreign Minister is slated to visit China. We think the government, with maturity, must settle this issue," he said.


NEW BILL ON CHIT FUND PASSED IN WB HOUSE-PTI


NEW BILL ON CHIT FUND PASSED IN WB HOUSE-PTI

Kolkata, Apr 30 The West Bengal Assembly today passed a new bill formulated by the Trinamool Congress government for protection of investors in chit fund companies, amidst a walkout by the Opposition Congress.

Congress members trooped out when an amendment to the new West Bengal Protection of Interest of Depositors in Financial Establishment Bill, 2013, was not accepted by state finance minister Amit Mitra who tabled it at a two-day special session of the Assembly.

Opposition leader Suryakanta Mishra said there is mention of a competent authority in the bill, but it is not clear about that individual's identity.

Since the Saradha scam affected other states as well, CBI should investigate it, he said.

Mishra criticised the government for not accepting some amendments to the bill.

Earlier, the House passed a resolution to withdraw the West Bengal Protection of Investors in Financial Establishments Bill 2009, passed by the Left Front government.

It was passed after a division, which was sought by the Opposition.

GREECE TO CUT 15,000 CIVIL SERVICE JOBS: GREECE TO CUT 15,000 CIVIL SERVICE JOBS: Protesters hold flags as they gather in front of the parliament in Athens on April 28, 2013.


AP
Athens,april 29 :Greek lawmakers have passed a bill that will clear the way for 15,000 civil servants to be fired by the end of the next year to secure another 8.8 billion euros ($11.5 billion) in bailout funds.

The Greek parliament approved the bill by 168 votes to 123 on Sunday.


As legislators debated the measures inside parliament, several hundred demonstrators vociferously opposed the bill outside the parliament. They took part in a protest called by the civil service trade confederation, Adedy, and the private sector GSEE union.


They were demonstrating against what the unions called "those politicians who are dismantling the public service and destroying the welfare state."


Critics say the law, which is part of a larger package of measures, will only add to Greece's record unemployment rate of 27 percent.


They say many of those who will lose their jobs are older workers already struggling to support their families and make ends meet.


Under the new law, some 2,000 civil servants will lose their jobs by the end of June, another 2,000 by the end of the year, and a further 11,000 by the end of 2014.


Greece t would see 150,000 state jobs go by the end of 2015.


Eurozone finance ministers are expected to meet on May 16 Monday to decide on the next installment of aid for the cash-strapped Greek government.


Greece has already received about 200 billion euros from the European Union and the International Monetary Fund since mid-2010.


The European country has been at the epicenter of the eurozone debt crisis and is experiencing its sixth year of recession, while harsh austerity measures have left tens of thousands of people without jobs.


Many Greek workers are currently unemployed, banks are in a shaky position, and pensions and salaries have been slashed.


Greek youths have also been badly affected, and more than half of them are unemployed.


SARADHA GROUP IN UTTAR DINAZPUR


জেলাশাসককে ডেপুটেশন বামফ্রন্টের চিট ফান্ডগুলি বন্ধ করার দাবি|

নিজস্ব প্রতিনিধি,গণশক্তি

রায়গঞ্জ, ২৯শে এপ্রিল — উত্তর দিনাজপুর জেলার বিভিন্ন ব্লকে বেশ কয়েকটা চিট ফান্ডের ব্যবসা রমরমিয়ে চলছে। প্রশাসনের কোন হেলদোল নেই। সারদা গ্রুপ নিয়ে দেশজুড়ে তোলপাড় হচ্ছে, ধরপাকড় শুরু করে বিভিন্ন জেলার অফিসগুলো সিল করা হচ্ছে অথচ উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ, রায়গঞ্জ, টুঙ্গিদিঘি, ডালখোলা, ইসলামপুরের অফিসগুলো সিল করা হচ্ছে না। ফলে রাতারাতি কম্পিউটার সফ্‌টওয়্যার উধাও হয়ে গেলে লক্ষ লক্ষ আমানতকারীর ভবিষ্য্যৎ কি হবে? এই প্রশ্ন তুলে সোমবার বিকেল ৩টায় জেলাশাসকের কাছে ডেপুটেশন দিল উত্তর দিনাজপুর জেলা বামফ্রন্ট কমিটি। সি পি আই (এম) নেতা দিলীপ নারায়ণ ঘোষ, অপূর্ব পাল, সি পি আই জেলা সম্পাদক সমর ভৌমিক, প্রাক্তন মন্ত্রী শ্রীকুমার মুখার্জি, ভানু রায়, ফরোয়ার্ড ব্লকের জেলা নেতা হরিশঙ্কর ঝা, আর এস পি জেলা নেতা রাধাচরণ মণ্ডল, আর সি পি আই জেলা সম্পাদক হৃদয় সূত্রধর ডেপুটেশনে প্রতিনিধিত্ব করেন।

বামফ্রন্টের শরিক দলগুলির পার্টি অফিস ভাঙচুরকারীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তারসহ আইনানুগ ব্যবস্থার দাবি, মিথ্যা মামলায় অভিযুক্ত হয়ে ইসলামপুর জেল হেফাজতে রহস্যজনকভাবে মৃত্যু হয় সি পি আই (এম) কর্মী কমরেড মুজিবর রহমানের। মৃত্যুর উচ্চ পর্যায়ে তদন্ত করতে হবে। মৃত্যুর পর তাঁর পরিবার অসহায় নিঃস্ব হয়ে পড়েছে, প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। মেয়াদকালের মধ্যে পঞ্চায়েত নির্বাচন করতে হবে, জুন মাসে ডালখোলা পৌরসভার নির্বাচন করতে হবে। মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার রক্ষার দা‍‌বিসহ কলকাতায় পুলিস হেফাজতে ছাত্রনেতা কমরেড সুদীপ্ত গুপ্তর হত্যাকাণ্ডের বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানানো হয় জেলা প্রশাসনকে।

SARADHA GROUP IN NORTH 24-PARGANAS


চিটফান্ড কাণ্ডে অভিযুক্তদের শাস্তির দাবিতে উত্তাল হল দক্ষিণ ২৪ পরগনা|

নিজস্ব প্রতিনিধি,গণশক্তি

জয়নগর , ২৯শে এপ্রিল – চিটফান্ডের সরকার আর নেই দরকার- এই শ্লোগানকে সামনে রেখে রবিবার মিছিল, সভায় উত্তাল হল দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা। চিটফান্ড কাণ্ডে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি এবং সর্বস্বান্ত আমানতকারীদের টাকা ফেরতের দাবিতে সোচ্চার হলেন জয়নগরের ছাত্র - যুবরা। এস এফ আই, ডি ওয়াই এফ আই জয়নগর জোনাল কমিটির আহ্বানে সুবিশাল মিছিল পরিক্রমা করে সাত কিলোমিটার এলাকা। জয়নগরের পদ্মেরহাট হাসপাতাল মোড় থেকে মিছিল শুরু হয়। শেষ হয় বহড়ু ঢিবেরহাট মোড়ে। মিছিল শেষে বহড়ু গার্লস হাইস্কুলে সভা হয়। মহামিছিলের সামনের সারিতে ছিলেন গণ আন্দোলনের নেতা সুজন চক্রবর্তী, কান্তি গাঙ্গুলি, অলোক ভট্টাচার্য, আশিস ঘোষ, যোগেশ ঘোষ। ছিলেন এস এফ আই দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা সম্পাদক অপূর্ব প্রামাণিক। এছাড়াও ছিলেন ছাত্র ও যুব আন্দোলনের নেতৃবৃন্দ। মিছিলের স্লোগানে কণ্ঠ মিলিয়েছেন পথ চলতি সাধারণ মানুষ। মিছিল যতো এগিয়েছে ততই মিছিলের সারি দীর্ঘ হয়েছে। রাস্তার দুধারে ছিলেন অগণিত সাধারণ মানুষ। পুলিস হেফাজতে ছাত্রনেতা সুদীপ্ত গুপ্তর মৃত্যুর ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্তর দাবি জানিয়েছেন জয়নগরের ছাত্র, যুবরা। মিছিল শেষে সভায় কান্তি গাঙ্গুলি বলেন, এই সময়ে ছাত্র–যুবদের ঐতিহাসিক দায়িত্ব পালন করতে হবে। রাজ্য জুড়ে যে নৈরাজ্য, সন্ত্রাস, চিটফান্ডের নামে গরিব সাধারণ মানুষের টাকা লুট চলছে তার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। সভায় অপূর্ব প্রামাণিক, শমীক ভট্টাচার্য, ফারুক হালদার এবং ছাত্র- যুব নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। সি পি আই (এম) মগরাহাট জোনাল কমিটির ডাকেও মিছিল হয়। মগরাহাটের ২ নম্বর বিডিও মাঠ থেকে মিছিল বের হয়ে শেষ হয় হরিশংকরপুর স্কুল মাঠে। মিছিলে সি পি আই (এম) দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা সম্পাদক সুজন চক্রবর্তী, তুষার ঘোষ, দীপক দাস, আব্দুল খালেক মল্লিক, বাসন্তী কয়াল প্রমুখ নেতৃবৃন্দ ছিলেন। চিটফান্ড নিয়ে রাজ্য সরকারের মিথ্যাচার, অভিযুক্তদের আড়াল করার অপচেষ্টার বিরুদ্ধে গ্রামের গরিব মানুষ প্রতিবাদে সোচ্চার হয়েছেন। তাঁরা ধরে ফেলেছেন মুখ্যমন্ত্রী, তৃণমূল নেত্রীর দ্বিচারিতার রাজনীতি। আর তাই নিজেদের অভিজ্ঞতা দিয়ে লাল ঝাণ্ডার মিছিলে শামিল হচ্ছেন জেলার সর্বত্রই। এ বি টি এ এবং এ বি পি টি এ দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা কমিটির আহ্বানে কাকদ্বীপে রবিবার শিক্ষা কনভেনশন হয়। অশোক অধিকারী, সাইফুদ্দিন মোল্লা, রবীন রায়, চিত্তরঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। কনভেনশন পরিচালনা করেন মিলন পড়ুয়া।

CPI (M) DEMANDS PROTECTION OF DEPOSITORS OF SARADHA GROUP


আমানতকারীদের স্বার্থরক্ষার দাবি জানালো সি পি আই (এম)|

নিজস্ব প্রতিনিধি,গণশক্তি

কলকাতা, ২৯শে এপ্রিল— চিট ফান্ডের প্রতারণার ফাঁদে ক্ষতিগ্রস্ত আমানতকারীদের স্বার্থরক্ষার দাবি করলো সি পি আই (এম)-র পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য কমিটি। সোমবার পার্টির রাজ্য কমিটির বৈঠকের পরে একটি বিবৃতি দিয়ে বলা হয়েছে, রাজ্য কমিটি স্থির করেছে, এই সময়ে ক্ষতিগ্রস্ত আমানতকারীদের পাশে দাঁড়াতে হবে। একই সঙ্গে, সারদা কেলেঙ্কারিতে জড়িত সমস্ত দোষীদের যথোচিত শাস্তির দাবি তুলেছে রাজ্য কমিটি। 

এদিন সি পি আই (এম)-র রাজ্য কমিটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে মুজফ্‌ফর আহ্‌মদ ভবনে। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন নিরুপম সেন। রাজ্য কমিটির বিবৃতিতে বলা হয়েছে, রাজ্যে চিট ফান্ডের প্রতারণার ফাঁদে পড়ে বিপুল অংশের সাধারণ মানুষের ক্ষতি হয়েছে। জেলাগুলিতে কীভাবে মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, রাজ্য কমিটির সদস্যরা তা নিয়ে আলোচনা করেন। রাজ্যের শাসক দলের সঙ্গে চিট ফান্ডের যোগসাজশ প্রকাশ্যে চলে এসেছে। রাজ্য কমিটি স্থির করেছে, এই সময়ে ক্ষতিগ্রস্ত আমানতকারীদের পাশে দাঁড়াতে হবে। বামপন্থী কৃষক, শ্রমিক, যুব, ছাত্র মহিলা সংগঠনগুলি আমানতকারীদের স্বার্থরক্ষার দাবিতে আন্দোলনের কর্মসূচী গ্রহণ করছে। একই সঙ্গে, সারদা কেলেঙ্কারিতে জড়িত সমস্ত দোষীদের যথোচিত শাস্তির দাবি তুলেছে রাজ্য কমিটি। রাজ্য বামফ্রন্টের সুপারিশ অনুসারে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের স্বার্থরক্ষায় বামপন্থী ছাত্র-যুব-মহিলা সংগঠনসমূহের নেতৃত্বে কনভেনশন এবং অবস্থান বিক্ষোভের কর্মসূচীকে রাজ্য কমিটি সমর্থন করেছে। 

বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, রাজ্যে ৯ই এপ্রিল থেকে পরপর কয়েকদিন তৃণমূল কংগ্রেস যে ভয়ঙ্কর আক্রমণ নামিয়ে এনেছিল, জেলাগুলি থেকে তার বিস্তারিত বিবরণ বৈঠকে পেশ করা হয়েছে। সি পি আই (এম) এবং বামফ্রন্টের অন্যান্য দলগুলির অফিসে নজিরবিহীন আক্রমণ হয়েছে। বহু অফিস ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে, পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে, লুঠতরাজ চলেছে। বিভিন্ন বামপন্থী গণ সংগঠনের অফিস ভাঙচুর করা হয়েছে। গ্রামে গ্রামে মানুষের ওপরে আক্রমণ সংগঠিত করা হয়েছে। জেলাগুলির রিপোর্টে স্পষ্ট, দুর্বৃত্ত বাহিনী পরিকল্পিত ভাবে এই কাজ করেছে। এই হামলার বিরুদ্ধে জেলায় জেলায় মিছিল, বিক্ষোভের কর্মসূচীতে বিপুল সংখ্যক মানুষের অংশগ্রহণ ঘটেছে। 

রাজ্যে পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। রাজ্য কমিটির সদস্যদের আলোচনার উপসংহারে রাজ্য সম্পাদক বিমান বসু বলেছেন, সময়মতো পঞ্চায়েত নির্বাচন করার দাবিতে জনগণকে সমবেত করে আন্দোলন চালিয়ে যেতে হবে। নির্বাচনের জন্য সাংগঠনিক প্রস্তুতি বিন্দুমাত্র শিথিল করা চলবে না। বামফ্রন্টের মধ্যে আসন সংক্রান্ত সমঝোতা প্রায় সর্বত্রই সম্পন্ন হয়েছে। যে অল্প কিছু ক্ষেত্রে তা বাকি আছে, তা অবিলম্বে শেষ করে ফেলতে হবে। ১৩টি পৌরসভায় নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতিও নিতে হবে। 

বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, খাদ্য নিরাপত্তা-সহ ৬দফা দাবির ভিত্তিতে ১৫ই —৩১শে মে দেশব্যাপী আন্দোলনের ডাক দিয়েছে সি পি আই (এম) কেন্দ্রীয় কমিটি। পশ্চিমবঙ্গে সমস্ত স্তরে এই আন্দোলনের কর্মসূচী পালিত হবে।

শোকপ্রস্তাব: সি পি আই (এম)-র পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য কমিটির একাদশ অধিবেশন গভীর শোকপ্রকাশ করেছে ছাত্রনেতা কমরেড সুদীপ্ত গুপ্তের মৃত্যুতে। শোকপ্রস্তাবে বলা হয়েছে, এস এফ আই-র রাজ্য কমিটির সদস্য সুদীপ্ত গুপ্ত গত ২রা এপ্রিল কলকাতায় আইন অমান্য আন্দোলনে অংশ নিয়ে গ্রেপ্তার হওয়ার পরে পুলিসী হেফাজতে নিগৃহীত হয়ে নিহত হয়েছে। মাত্র ২৩ বছর বয়সী এই উজ্জ্বল ছাত্রনেতার মর্মান্তিক মৃত্যুর পরে পুলিসের দায়িত্ব আড়াল করতে প্রথমে দুর্ঘটনার কথা এবং পরে তুচ্ছ ঘটনা বলে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী যে মন্তব্য করেছেন এই সভা তার তীব্র নিন্দা করছে এবং সুদীপ্তর মৃত্যুর বিচারবিভাগীয় তদন্তের দাবি জানাচ্ছে। কমরেড সুদীপ্তর পিতা, তার পরিজন এবং বন্ধু সহকর্মীদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করা হচ্ছে। 

প্রবীণ কমিউনিস্ট নেতা, পার্টির দার্জিলিঙ জেলা সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য কমরেড বীরেন বসুর জীবনাবসান ঘটেছে সোমবার সকালে। চা শ্রমিকদের আন্দোলনে তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিলেন। রাজ্য কমিটি তাঁর জীবনাবসানে শোকপ্রকাশ করেছে।

শিলিগুড়িতে রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় নির্দোষ বামপন্থী কর্মী সমর্থকদের গ্রেপ্তার করে রাখাকালীন ধৃত যুবকর্মী অমিত দে-র মা বাণী দে প্রয়াত হয়েছেন উৎকন্ঠাজনিত হৃদরোগে। ইসলামপুরে পুলিসের হেফাজতে মৃত্যু হয়েছে প্রবীণ সি পি আই (এম) কর্মী কমরেড মুজিবর রহমানের। গত ২৪শে মার্চ দক্ষিণ ২৪পরগনার জয়নগরে দুষ্কৃতীদের আক্রমণে নিহত হয়েছেন সি পি আই (এম) কর্মী কমরেড জাহাঙ্গির মিস্ত্রী। রাজ্য কমিটির সভা তাঁদের মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেছে।

সাম্প্রতিক সময়ে প্রয়াত হয়েছেন সি পি আই (এম)-র বীরভূম জেলা কমিটির সদস্য ও আদিবাসী আন্দোলনের নেতা কমরেড কালীচরণ কিস্কু, অল ইন্ডিয়া রিজিওনাল রুরাল ব্যাঙ্ক এমপ্লয়িজ ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কমরেড দিলীপকুমার মুখার্জি, নিখিলবঙ্গ অধ্যক্ষ পরিষদের প্রথম সভাপতি কার্তিক দেউটি, শ্রমিক কর্মচারী আন্দোলনের নেতা কমরেড মৃণালকান্তি ঘোষদস্তিদার, বাঁকুড়ার সমবায় আন্দোলনের নেতা কমরেড উমাপদ রায়, টেলিকম কর্মচারী আন্দোলনের নেতা কমরেড মৃণালকান্তি দাশগুপ্ত। পথদুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন সি পি আই (এম)-র খড়গপুর শহর মধ্য আঞ্চলিক কমিটির সম্পাদক কমরেড সর্বেশ্বর রাও এবং হাওড়ার সাঁকরাইল ২নম্বর আঞ্চলিক কমিটির সম্পাদক কমরেড অরূপ দেবনাথ। রাজ্য কমিটির সভা থেকে তাঁদের সকলের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন ও শোকপ্রকাশ করা হয়েছে। 

সম্প্রতি প্রয়াত হয়েছেন চট্টগ্রাম বিদ্রোহের সেনানী বিনোদবিহারী চৌধুরী, শতবর্ষ পেরোনো এই স্বাধীনতা সংগ্রামী চট্টগ্রাম যুববিদ্রোহে সূর্য সেনের সহযোগী ছিলেন। সাম্প্রতিক সময়ে জীবনাবসান হয়েছে প্রাচীন ভারতীয় ইতিহাসের বিশিষ্ট অধ্যাপক পদ্মশ্রী ব্রতীন্দ্রনাথ মুখার্জির। সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি জে এস ভার্মারও জীবনাবসান হয়েছে। এই সভা শ্রদ্ধার সঙ্গে তাঁদের স্মরণ করেছে এবং তাঁদের প্রয়াণে শোকজ্ঞাপন করছে। সম্প্রতি প্রয়াত হয়েছেন কিংবদন্তী সঙ্গীত শিল্পী শামসাদ বেগম, লোকসঙ্গীত শিল্পী প্রহ্লাদ ব্রহ্মচারী, সুরকার অজয় দাস, সঙ্গীতশিল্পী সনৎ সিংহ, শিল্পপতি রমাপ্রসাদ গোয়েঙ্কার। এই সভা তাঁদের প্রয়াণেও গভীর শোকজ্ঞাপন করেছে। 

প্রবীণ সি পি আই নেতা ও রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী কমরেড কামাখ্যানন্দন দাসমহাপাত্রের মৃত্যুতে সভা গভীর শোকজ্ঞাপন করেছে। শোকপ্রকাশ করেছে তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ অম্বিকা ব্যানার্জির মৃত্যুতে। 

গত ৩১শে মার্চ প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের টেট পরীক্ষা দিতে গিয়ে চরম অব্যবস্থার শিকার হয়েছেন লক্ষ লক্ষ পরীক্ষার্থী। প্রবল ভিড়ে ট্রেন থেকে পড়ে গিয়ে গুরুতর আহত সোনারপুরের রীতা দাসের মৃত্যু হয়েছে ২৫শে এপ্রিল। চিট ফান্ডগুলির বেআইনী কার্যকলাপে আর্থিকভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে সম্প্রতি ৫জন আত্মহত্যা করেছেন। উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহন নিগমের কর্মী কোচবিহারের বাসিন্দা বিশ্বনাথ দাস অনিয়মিত বেতনের কারণে মানসিক উদ্বেগে আত্মঘাতী হয়েছেন গত ৩০শে মার্চ। ১লা এপ্রিল বর্ধমানের কাটোয়ার ভাগচাষী মিলন ঘোষ কীটনাশক খেয়ে আত্মঘাতী হয়েছেন আলুর দাম না পেয়ে। বর্ধমানের জামালপুরের ভাগচাষী রঘুনাথ মুণ্ডা আত্মঘাতী হয়েছেন আলু চাষ করে ঋণ শোধ না করতে পেরে ৬ই এপ্রিল। ফসলের দাম না পেয়ে আত্মঘাতী হয়েছেন হুগলীর কৃষক নিধুরাম সামন্ত। মর্মান্তিক এইসব জীবনহানির ঘটনায় গভীর শোকপ্রকাশ করেছে রাজ্য কমিটির এই সভা। গত ৪ঠা এপ্রিল মহারাষ্ট্রের থানেতে নির্মীয়মাণ বহুতল ভেঙে ৭৪জনের মৃত্যু ঘটেছে, যার মধ্যে ১১জন মালদহের শ্রমিক। ২৮শে মার্চ হরিয়ানার গুড়গাঁওতে টাওয়ারে উঠে কাজ করার সময় টাওয়ার ভেঙে পড়ায় দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে মালদহের ইংরেজবাজারের চারজন শ্রমিকের। এইসব দুর্ঘটনা ও সাম্প্রতিক সময়কালে দেশে ও বিদেশে দুর্ঘটনায় মৃত্যুর সকল ঘটনায় শোকজ্ঞাপন করেছে রাজ্য কমিটির এই সভা।

CBI ENQUIRY INTO SARADHA SCAM


সি বি আই তদন্ত চেয়ে তৃতীয় মামলা রুজু

নিজস্ব প্রতিনিধি,গণশক্তি

কলকাতা, ২৯শে এপ্রিল— সারদাকাণ্ডে সি বি আই তদন্ত চেয়ে সোমবার আরও একটি জনস্বার্থের মামলা দায়ের হলো কলকাতা হাইকোর্টে। এই নিয়ে সারদা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে সি বি আই তদন্ত দাবি করে তিনটি মামলা রুজু হলো। এদিন মামলা দায়ের করে আইনজীবী উত্তম মজুমদার বলেন, সারদা গোষ্ঠীর কেলেঙ্কারির সমস্ত তথ্য জনসমক্ষে প্রকাশ হওয়া প্রয়োজন। সি বি আই-কে দিয়ে তদন্ত ছাড়া এই ঘটনা জনসমক্ষে আসবে না। দোষী ব্যক্তিরাও ধরা পড়বে না। আইনজীবী মজুমদার বলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি প্রদীপ ভট্টাচার্য প্রথম থেকেই সারদাকাণ্ডের সি বি আই তদন্ত দাবি করে আসছেন। সেই দাবি নিয়েই আমরা আদালতের দ্বারস্থ হয়েছি।

গত বৃহস্পতিবার হাইকোর্ট সারদাকাণ্ডে দায়ের হওয়া আগের মামলা দুটির শুনানি গ্রহণ করে রাজ্য সরকারকে ২রা মের মধ্যে হলফনামা জমা দেবার নির্দেশ দিয়েছে। এই মামলার ৩রা মে শুনানি হবার কথা। এর মধ্যে সোমবার তৃতীয় মামলাটি দায়ের হলো। সি বি আই তদন্তের দাবি সহ সারদার আমানতকারীদের জন্য স্পেশাল প্যাকেজ ঘোষণার দাবি জানিয়ে গত সপ্তাহে দুটি পৃথক মামলা দায়ের হয়েছিল। মামলা করেছেন আইনজীবী বাসবী রায়চৌধুরী এবং আইনজীবী অনিন্দ্য সুন্দর দাস। বৃহস্পতিবারই কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি অরুণ মিশ্র এবং বিচারপতি জয়মাল্য বাগচীর ডিভিশন বেঞ্চ নির্দেশ দিয়েছিল, সারদা গোষ্ঠীর সমস্ত ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট সিজ করতে হবে। একই সঙ্গে আদালত নির্দেশ দিয়েছিল সারদা গোষ্ঠীর সম্পত্তি কোনরকম হ্স্তান্তর, মর্টগেজ এবং বিক্রি করা যাবে না। ওই দিন ডিভিশন বেঞ্চ সিকিউরিটি অ্যান্ড একচেঞ্জেস বোর্ড অব ইন্ডিয়াকে (সেবি) বলেছে, সারদাগোষ্ঠীর দায় এবং সম্পত্তির পরিমাণ হিসাব করে আদালতকে জানাতে হবে। 

আদালতে সেবির আইনজীবী প্রশান্ত দত্ত জানিয়েছিলেন,তিন মাস আগেই আমরা সারদা গোষ্ঠীকে সতর্ক করেছিলাম। আদালতের প্রশ্নের উত্তরে সি বি আই— এর আইনজীবী হিমাংশু দে জানান সারদা গোষ্ঠীর ব্যাপারে প্রাথমিক অনুসন্ধানের কাজ আমরা শুরু করেছি। চিট ফান্ড সম্পর্কিত গুয়াহাটি হাইকোর্টের দেওয়া এক নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে সি বি আই কাজ করছে। সারদা গোষ্ঠীর অফিস দেশের বিভিন্ন রাজ্যে আছে। এই সময় আদালত মন্তব্য করেছিল দেশব্যাপী তদন্তের কাজ করতে আপনাদেরই সুবিধা হবে।

SARADHA GROUP: পুরনো বিল কেন প্রত্যাহার, না জানিয়েই নতুন বিল


পুরনো বিল কেন প্রত্যাহার, না জানিয়েই নতুন বিল

নিজস্ব প্রতিনিধি,গণশক্তি

কলকাতা, ২৯শে এপ্রিল – চিট ফান্ড সংক্রান্ত যে বিলটি ২০০৯ সালে বিধানসভায় সর্বসম্মতভাবে পাস হয়ে রাষ্ট্রপতির সইয়ের জন্য গিয়েছিল সেই বিল কেন প্রত্যাহার করা হচ্ছে তার ব্যাখ্যা বিধায়কদের না জানিয়েই রাজ্য সরকার মঙ্গলবার ‘ইন্টারেস্ট অব ডিপোজিটার ইন ফিন্যান্সিয়াল এস্টাব্লিশমেন্ট বিল, ২০১৩’ আনতে চলেছে। কিন্তু বিরোধীরা বিল নিয়ে আলোচনার সময় বাড়ানোর দাবি করলেও তাতে সায় দেয়নি সরকারপক্ষ। ২০০৯ সালের বিল প্রত্যাহারের প্রেক্ষাপট না জানিয়ে প্রস্তাব নিয়ে আলোচনায় বিরোধীপক্ষ আপত্তি জানিয়েছে। বিরোধীরা দাবি জানিয়েছে, রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে রাষ্ট্রপতির কাছে বিল প্রত্যাহারের জন্য বলা হয়েছিল কিনা তা জানানোর। যে বিল বিধানসভায় সর্বসম্মতভাবে পাস হয়েছে সেই বিল বিধানসভার অনুমতি ছাড়া রাজ্য সরকার প্রত্যাহার করতে পারে না। তা যদি হয় তাহলে রাজ্য সরকার সম্পূর্ণ এক্তিয়ার বহির্ভূত কাজ করেছে। আসলে একটা চাপ ছিল এই বিলটাতে সই না করার। দু’বারই যখন বিলটি পাঠানো হয় তখন কেন্দ্রীয় সরকারে তৃণমূল। তাই বিল প্রত্যাহারের কারণ জানাতে ভয় পাচ্ছে সরকারপক্ষ।

সোমবার রাজ্যের বিরোধী দলনেতা সূ্র্যকান্ত মিশ্র বলেন, আজকের বিধানসভার কার্য উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে মঙ্গলবার সভার বিষয় নিয়ে ঐকমত্যে পৌঁছানো যায়নি। আমরা মঙ্গলবার বিধানসভার অধিবেশনে আলোচনার সময়ের ব্যাপারে দ্বিমত পোষণ করি। আমাদের বক্তব্য হচ্ছে ২০০৯সালে যে বিলটি বিধানসভায় সর্বসম্মতভাবে পাস হয়ে রাজ্যপাল মারফত রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের জন্য গেল সেটি কেন প্রত্যাহার করা হচ্ছে তার ব্যাখ্যা না দিয়ে আলোচনা করা যায় না। নিয়মানুযায়ী বিধানসভায় পাসের পর রাজ্যপালের কাছে সম্মতির জন্য পাঠানো হয়। রাজ্যপালের সেই বিলের ব্যাপারে মতামত না থাকলে তিনি সেটা ফের বিধানসভায় পাঠাতে পারেন। তারপর বিধানসভায় আলোচনার পর পাঠানো হলে রাজ্যপাল তাতে সম্মতি দিতে বাধ্য। আবার রাষ্ট্রপতির সম্মতির জন্য বিলে রাষ্ট্রপতির কোন বক্তব্য থাকলে তা রাজ্য সরকার অন্তর্ভুক্ত করতে পারে। সংবিধানে কোথাও বলা নেই বিধানসভায় সর্বসম্মতভাবে যে বিল পাস হয়েছে তা কোন কারণ ছাড়া ফেরত পাঠানো যায়।

বিরোধী দলনেতা সূর্যকান্ত মিশ্র বলেন, মঙ্গলবার সরকারপক্ষ যে বিল আনতে চলেছে সেই প্রস্তাবিত বিলে কারণ হিসাবে বলা হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের পরামর্শ অনুযায়ী বিল আনা হচ্ছে। তাহলে ২০০৯ সালের বিলের ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতি কী বার্তা দিয়েছেন তা জানা দরকার। এর আগে তাই হয়েছিল। রাষ্ট্রপতি এবার কী মতামত দিয়েছেন সেটা জানাতেই সরকারপক্ষ অস্বীকার করছে। আমরা বিরোধীরা দাবি জানাই রাষ্ট্রপতির মতামত বিলের সঙ্গে দেওয়া হোক। তাতে আলোচনা করতে সুবিধা হবে। বিধানসভার ৩৪৩ নং বিধিতে একথা বলা আছে। তাছাড়া সরকারপক্ষ যে প্রস্তাব আনছে সে বিষয়ে ১ ঘন্টা এবং বিল নিয়ে ৪ ঘন্টা সর্বমোট ৫ ঘণ্টা আলোচনার দাবি জানিয়েছিলাম। কিন্তু সরকারপক্ষ এত সময় নিয়ে আলোচনা করতে অস্বীকার করেছে। আসলে সরকারপক্ষ আলোচনা করতে ভয় পাচ্ছে। তাই এই সময় সংক্ষেপ। 

মিশ্র বলেন, কীসের ভিত্তিতে কোন সাংবিধানিক বলে এই বিল প্রত্যাহার করা হচ্ছে সেবিষয়ে বিরোধীরা অন্ধকারে। কীসের জন্য এর ভয় পাচ্ছে জানি না। কেন এই অস্বচ্ছতা? আসলে শাসকদলের সঙ্গে চিট ফান্ড সংস্থার সম্পর্ক স্পষ্ট।

কংগ্রেসের মানস ভুঁইয়া বলেন, চিট ফান্ড কেলেঙ্কারি নিয়ে সি বি আই তদন্ত হবেই। এই ঘটনা অনেকগুলি রাজ্যে ঘটেছে। তাই কোন একটা রাজ্যের পক্ষে একা কিছু করা সম্ভব নয়। তাই আমরা সি বি আই তদন্তের দাবি জানিয়েছি। কিন্তু বিলের কী হবে, কমিশনে কী বেরোবে সে সবের জন্য বসে না থেকে ভারতীয় দণ্ডবিধি এবং ফৌজদারি দণ্ডবিধি যা আছে তাই দিয়ে রাজ্য সরকার দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে। বর্তমান রাজ্য সরকার অভিযোগ করছে কেন্দ্রীয় সরকার নাকি কিছু করেনি। কিন্তু সেবি, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক ও কোম্পানি বিষয়ক মন্ত্রক বারে বারে এব্যাপারে রাজ্য সরকারকে সতর্ক করেছিল।

রাজ্যের পরিষদীয় মন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জি এদিনও চিট ফান্ড নিয়ে রাজ্য সরকার বজ্রকঠিন আইন করবে বলে জানান। মঙ্গলবার যখন প্রস্তাব আনা হবে তখন জানানো হবে কেন বিলটি প্রত্যাহার করা হলো এবং কেন্দ্রীয় সরকার কী মতামত দিয়েছে। মঙ্গলবার সমস্ত তৃণমূল বিধায়কদের হুইপ জারি করা হয়েছে যাতে তাঁরা সভায় উপস্থিত থাকেন।

এদিকে এদিন বিধানসভার বিশেষ অধিবেশনে যাঁরা প্রয়াত হয়েছেন তাঁদের স্মৃতির উদ্দেশে এক মিনিট নীরবতা পালন করে বিধানসভা মুলতবি হয়ে যায়। মঙ্গলবার চিট ফান্ড বিল নিয়ে বিধানসভায় আলোচনা হবে।


দেড় বছরে দেদার জমি সংগ্রহ করেছে সারদা, ভূমিদপ্তর নির্বিকার| ৭টি নির্মাণ যন্ত্র, ৯৭টি অ্যাম্বুলেন্স, ট্রাক!

নিজস্ব প্রতিনিধি,গণশক্তি

কলকাতা, ২৯শে এপ্রিল — সারদার জমি নিয়ে চিন্তা গোয়েন্দাদের। আগেই আশঙ্কা জানিয়েছিল সেবি। তবু নির্বিকার ছিল এবং আছে শুধুই ‘মা-মাটি-মানুষের’ সরকারের ভূমি দপ্তর!

রাজ্যে এই দপ্তরের মন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। ইতোমধ্যেই তল্লাশি চালিয়ে গোয়েন্দারা পেয়েছেন জমিজমা সংক্রান্ত সারদার ১৪৩টি নথি। গত ডিসেম্বরে সারদা জানিয়েছিল রাজ্যে তাদের ৩১টি জায়গায় জমি আছে। এক জায়গায় একাধিক জমি সংগ্রহ করেছিলেন সুদীপ্ত সেন। তিনি এই তথ্য জানিয়েছিল গত ডিসেম্বরে সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ বোর্ড অফ ইন্ডিয়াকে(সেবি)। 

সেবি-কে জমা দেওয়া তাদের তথ্যে তারা জানিয়েছিল প্রায় ২৬টি জায়গায় জমি তারা ‘সংগ্রহ করেছে’ গত দেড় বছরে। যদিও সারদার দেওয়া জমিজমার তথ্যকে ‘অসম্পূর্ণ’ বলে জানিয়ে ফেরত পাঠানো হয়েছিল সেবির পক্ষ থেকে। বলা হয়েছিল পূর্ণাঙ্গ তথ্য জমা দিতে। তা অবশ্য আর জমা দেননি তৃণমূল ঘনিষ্ঠ সুদীপ্ত সেন।

কিন্তু এই বিষয়ে আশ্চর্য নীরবতা এখনো বজায় রেখেছে রাজ্য সরকার। সোমবার রাজ্যের ভূমি ও ভূমিসংস্কার দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী স্বপন দেবনাথ জানান, ‘‘কোথায়, কত জমি আছে সারদার তা আমাদের দেখার বিষয় নয়। বেআইনীভাবে তারা জমি কিনছে, আমাদের কাছে কখনো এমন অভিযোগ কেউ জানায়নি। তবে অভিযোগ জানালে খতিয়ে দেখা হবে।’’ শুধু সারদা নয়, রাজ্যের বেশ কয়েকটি চিট ফান্ডই মূলত নির্মাণ সংস্থা। তারা কত জমি এই সময়ের মধ্যে জোগাড় করেছে, তার কোন হিসাবনিকাশে রাজ্যের ভূমিসংস্কার দপ্তর এখনো হাত দেয়নি।

আরো আকর্ষণীয় তথ্য দিয়েছিলেন সারদার পান্ডা। তাঁর দাবি ছিল — সারদার নির্মাণকাজ চালানোর যন্ত্রপাতি ৭টি। আর ৯৭টি ছিল ট্রাক এবং অ্যাম্বুলেন্স ছিল মোট ৯৭টি। প্রশ্ন উঠেছিল — এতগুলি জমির মালিকের সংস্থার কাছে ৭টি মাত্র নির্মাণ যন্ত্র আর ৯৭টি অ্যাম্বুলেন্স অথবা ট্রাক কেন? ওই অ্যাম্বুলেন্সগুলির মধ্যে মুখ্যমন্ত্রীকে দিয়ে উদ্বোধন করানো জঙ্গলমহলের মানুষের জন্য ‘রাজ্য সরকারের বরাদ্দ’ ১০টি অ্যাম্বুলেন্সও রয়েছে বলে বিধাননগর কমিশনারেটের গোয়েন্দাদের অনুমান।

জমির মালিকানার ক্ষেত্রে ওই যে ৩১টি জায়গার উল্লেখ সুদীপ্ত সেন করেছিলেন, তার মাত্র ৫টির কিছু কাগজপত্র জমা দিতে পেরেছিলেন গত ডিসেম্বরে। বাকি জমিগুলির কোন হিসাব তারা পেশ করতে পারেনি। এই নিয়ে সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ বোর্ড অফ ইন্ডিয়া তাদের কড়া চিঠি পাঠায়। সারদার হাতে থাকা জমিগুলির বৈধতাই একপ্রকার প্রশ্নের মুখে দাঁড়িয়েছিল তখন। 

অভিযোগ রাজ্য সরকারের নীতির কারণে বেসরকারী সংস্থার জমি সংগ্রহের ভার এখন মূলত জমির দালালদের হাতে। আর এই দালালরা মূলত এলাকার তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা। তাদের হাত ধরেই, তৃণমূলের নেতা-মন্ত্রীদের ‘আশীর্বাদপুষ্ট’ সারদা গোষ্ঠী প্রচুর জমি জোগাড় করেছিল রাজ্যে। এই ক্ষেত্রে কাকে, কত টাকা নজরানা দিতে হয়েছে তা গোয়েন্দাদের তদন্তে স্পষ্ট হওয়া উচিত। তবে জমিগুলির অধিকাংশতেই সুদীপ্ত সেন নির্মাণ শুরু করেননি। কোথাও আবার নির্মাণ শুরু করেও থামিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে জোগাড় করা জমিগুলি দেখিয়ে সারদা গোষ্ঠী আমানতকারীদের থেকে অনেক টাকা নিয়েছে — অভিযোগ এমনই। এখন সুদীপ্ত সেন দাবি করছেন যে, মিডিয়া ব্যবসায় টাকা ঢেলে তার নির্মাণ ব্যবসার ক্ষতি হয়েছে। 

রাজ্যে সরকারে এসেই জমিসংক্রান্ত যে কৌশল নিয়েছেন মমতা ব্যানার্জি, তার মোদ্দা কথা হলো — শিল্পের জন্য জমির বন্দোবস্ত সংশ্লিষ্ট সংস্থাকেই করতে হবে। ফলে গোড়াতেই জমির উপর থেকে সরকারী নিয়ন্ত্রণ তিনি শিথিল করেছেন। তারপর ২০১২-র এপ্রিলে ভূমিসংস্কার নীতির যে পরিবর্তন মমতা ব্যানার্জি ঘটিয়েছেন, তার ফলে নির্মাণ সংস্থার জমি কেনা বা সিলিং বহির্ভূত জমি রাখার উপর ভূমিসংস্কার দপ্তরের নজরদারি প্রায় নেই বললেই চলে। ওই সব সংস্থাকে হয় রাজ্যের নগরোন্নয়ন দপ্তর নয়তো শিল্প দপ্তরের অনুমোদন নিলেই চলবে এখন। ভূমি ও ভূমিসংস্কার দপ্তরকে শুধু প্রথামাফিক জানিয়ে রাখার বেশি কিছু দরকার নেই। সিলিং বহির্ভূত জমি রাখার পাশাপাশি জমির একাংশ ৯৯ বছর পর্যন্ত লিজ দেওয়ার অধিকারও ভোগ করবে ওই সংস্থাগুলি। কাদের লিজ দেওয়া যাবে — তা নিয়ে আইনে কিছু বলা নেই। সেক্ষেত্রে যে কোন বেসরকারী সংস্থা লিজ পেতে পারবে। যার জন্যও রাজ্যের ভূমিসংস্কার দপ্তরের অনুমতি লাগবে না, থাকবে না কোন নজরদারিও। এই ক্ষেত্রে পরিকল্পিত টাউনশিপ তৈরির ক্ষেত্রকে ওই তালিকা থেকে বাদ দিয়ে তাকে ১৪ আর ধারায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এই ক্ষেত্রে ভূমি দপ্তরের নজরদারি, অনুমোদনের সুযোগ বন্ধ করা হয়েছে।

গোয়েন্দাদের হাতে আসা নথি এবং সেবির কাছে পেশ করা সারদা গোষ্ঠীর নথি বলছে রাজ্যের নানা জেলাতেই বহু একর জমির মালিক সুদীপ্ত সেন। তার মধ্যে রয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা, হুগলী, নদীয়া, উত্তর ২৪ পরগনা, বর্ধমান, বীরভূম প্রভৃতি। সারদা গোষ্ঠীর প্রধান সুদীপ্ত সেনের মূল ব্যবসা হলো রিয়েল এস্টেট — অর্থাৎ বাড়ি বানিয়ে বিক্রি করা। এই ক্ষেত্রেও অনেকে তাঁর কাছে প্রতারিত হয়েছেন বলে অভিযোগ।


KUNAL GHOSH: সারদা কেলেঙ্কারিতে জেরা করা হলো তৃণমূল সাংসদকে|


সারদা কেলেঙ্কারিতে জেরা করা হলো তৃণমূল সাংসদকে|

নিজস্ব প্রতিনিধি,গণশক্তি

কলকাতা, ২৯শে এপ্রিল- চিট ফান্ড কেলেঙ্কারিতে পুলিসের জেরার মুখে পড়তে হলো তৃণমূলের রাজ্যসভা সাংসদ কুণাল ঘোষকে।

ইতোমধ্যেই শাসক দলের একাধিক নেতা,মন্ত্রী, তৃণমূল পন্থী ‘বিদ্বজ্জন’দের নাম জড়িয়েছে সারদা কাণ্ডে। এক ধাক্কায় কয়েক লক্ষ মানুষকে সর্বস্বান্ত করে খাদের কিনারায় দাঁড় করিয়ে দেওয়ার কেলেঙ্কারির ঘটনায় পুলিস, গোয়েন্দাদের জেরার মুখে শাসক দলের সাংসদ— এরাজ্যে নজিরবিহীন ঘটনা। দু-ঘণ্টার জেরা শেষে সাংবাদিকদের কাছে দীর্ঘক্ষণ বক্তব্য রাখার মাঝেই কুণাল ঘোষ বলেন, ‘ প্রশাসনকে খোলাখুলি সব জানিয়েছি, তাতে যদি মনে করে আমি দোষী তবে দোষী হব। না হলে নয়’। জেরার শেষে বেরোনোর মুখে ব্যাপক বিক্ষোভের মুখেও পড়তে হয় শাসক দলের এই সাংসদকে। যুব কংগ্রেসের পতাকা হাতে বিক্ষোভকারীরা রীতিমতো ঘিরে ধরে তাঁকে। বিক্ষোভকারীরা তাঁর গাড়িও আটকে দেয়। শেষমেশ পুলিস গিয়ে বিক্ষোভকারীদের হটিয়ে দিয়ে তাঁকে গাড়িতে বসিয়ে দেয়। 

গত চারদিন ধরে চিট ফান্ড কেলেঙ্কারির নায়ক সুদীপ্ত সেন সহ ধৃত সারদার চার শীর্ষকর্তাকে লাগাতার জেরা করে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই সোমবার বিধাননগর পুলিস কমিশনারেটের তরফে জরুরী ভিত্তিতে তলব করা হয় তৃণমূলী সাংসদ কুণাল ঘোষকে। যদিও বিকেল ৪টে ৫০ মিনিট নাগদ ফাইল হাতে কমিশনারেটে ঢোকার মুখে কুণাল ঘোষ জানান, তিনি নিজেই চাইছিলেন পুলিস তাঁকে জেরা করুক। তাই পুলিসের তরফে ফোন আসাতেই তিনি আধ ঘণ্টার মধ্যে চলে এসেছেন। 

তবে পুলিসের তরফে জানানো হয়েছে কমিশনারেটের তলবের মুখে পড়েই তড়িঘড়ি হাজিরা দিতে হয়েছে এই সাংসদকে। প্রায় দু ঘণ্টা ধরে তাঁকে জেরা করা হয়। গোয়েন্দা প্রধান অর্ণব ঘোষ নিজে জেরা করেন। ছিলেন চিট ফান্ড কেলেঙ্কারি ঠেকাতে সদ্য তৈরি হওয়া বিশেষ তদন্তকারী দল( সিট)’র সদস্য দেবব্রত ব্যানার্জি, সারদা কাণ্ডের মুখ্য তদন্তকারী আধিকারিক শঙ্কর ভট্টাচার্য। পুলিস সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘক্ষণ জেরা করা হয়েছে মূলত সারদা গোষ্ঠীর সঙ্গে তাঁর যোগাযোগের বিষয়ে। তবে সম্পূর্ণ খুশি হতে পারেননি তদন্তকারী আধিকারিকরা। ফের জেরা করা হতে পারে তৃণমূলের এই সাংসদকে।

চিট ফান্ডের ভয়ঙ্কর ব্যবসা ফাঁদা সারদা গোষ্ঠীর মিডিয়া বিভাগের সি ই ও ছিলেন রাজ্যসভার এই সাংসদ। ফেরার হওয়ার আগে সি বি আই-কে লেখা চিঠিতে এই তৃণমূলী সাংসদের নামেও বেশ কিছু কথা লিখেছিলেন চিট ফান্ড কেলেঙ্কারির মাস্টারমাইন্ড সুদীপ্ত সেন। মাথা ঘোরানো অঙ্কের টাকা ‘বেতন’ হিসাবে তাঁকে দিতেন সুদীপ্ত সেন। শুধুই মিডিয়া বিভাগের সি ই ও’র দায়িত্ব পালনের জন্য? প্রশ্ন উসকে দিয়েছেন সারদা কর্তা নিজেই। তাঁর ব্যবসা রক্ষায় ‘মসৃণ রাস্তা’ তৈরি করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছিলেন তৃণমূলের সাংসদ, চিঠিতে দাবি করেছেন সুদীপ্ত সেন। ফলে তৃণমূলের এই সাংসদের ‘ভূমিকা’ প্রশ্নের ঊর্ধ্বে ছিল না কখনই। সুদীপ্ত সেনকে পুলিসী হেফাজতে নেওয়ার পরে লাগাতার জেরায় তিনি শাসক দলের একাধিক নেতাদের নাম বলেছেন, জানানো হয়েছে পুলিসের তরফেই। জানা গেছে, জেরাতে বিভিন্ন সময়ে কুণাল ঘোষের নামও করেছেন সুদীপ্ত ও দেবযানী। কুণাল ঘোষের ‘নির্দেশেই’ তিনি ক্রমে মিডিয়া ব্যবসার সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছিলেন বলেও জেরায় স্বীকার করেছে সুদীপ্ত সেন। বারে বারে নাম উঠে আসায় শেষমেশ বিধাননগর কমিশনারেট জরুরী ভিত্তিতে কুণাল ঘোষকে জেরার সিদ্ধান্ত নেয়। তবে শেষমেশ প্রশাসনের শীর্ষ জায়গা থেকে সঙ্কেত পেয়েই যে পুলিস শাসক দলের সাংসদকে জেরা করতে পেরেছে, তাও স্পষ্ট।

কত টাকা তিনি সারদা গ্রুপ থেকে পেতেন, তাঁর কাজের এক্তিয়ার কী, বেতন নগদে না চেকে, কীভাবে সারদার সঙ্গে যোগাযোগ, সি বি আইকে লেখা চিঠি অভিযোগ সম্পর্কে তাঁর মতামত-এরকম হাজারো প্রশ্নের মুখে পড়েন এই সাংসদ। জেরার মাঝপর্বে কিছুটা উত্তেজিত হয়ে পড়েন তিনি। জানা গেছে, প্রাথমিকভাবে সমস্ত প্রশ্নের উত্তরই তিনি দিয়েছেন। তবে এক তদন্তকারী আধিকারিক জানিয়েছেন, তাঁর প্রতিটি উত্তর আমরা শুনেছি। বাকিটা খতিয়ে দেখা হবে।

জেরা শেষে বাইরে বেরিয়ে এসে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে কুণাল ঘোষ জানিয়েছেন, আমি বলেছি এরপরেও আমাকে যতবার ডাকা হবে ততবার আমি আসবো। কিন্তু সারদা কর্তার যে অভিযোগ যে, ব্যবসার জন্য ‘মসৃণ রাস্তা’ তৈরি করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল, এই প্রসঙ্গে কুণাল ঘোষের জবাব ‘ সম্পূর্ণ মিথ্যা, ভিত্তিহীন এসব কথা’। এরপরেই তাৎপর্যপূর্ণ ভাবে তাঁর সংযোজন, সুদীপ্ত সেন অপকীর্তি করেছে, কড়া ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। আর অনেকদিন ধরেই তো চলছে। আমি একা বুঝতে পারিনি, তাই নয়। অনেকেই তো...’। বাক্য অসমাপ্ত রেখেই এরপর দ্রুত চলে যান অন্য প্রসঙ্গে। তবে যেভাবে সারদার একাধিক চ্যানেল, কাগজ বন্ধ হয়ে গেছে, কাজ হারিয়েছেন সাংবাদিকরা, সেই প্রসঙ্গে তিনি কোনভাবেই ‘দায়ী’ নন সে কথা বিস্তৃতভাবে বোঝাতে গিয়েই এরপর হঠাৎ করে অর্থনৈতিক মন্দার কথাও টেনে নিয়ে আসেন তৃণমূলী সাংসদ। বলেন, ‘ইকনমিক রিসেসনের সময়ও তো মিডিয়ায় সঙ্কট হয়েছিল, তখন?’। তবে এর মাঝেই সারদা গোষ্ঠীর বন্ধ হয়ে যাওয়া সাংবাদিকদের ক্ষোভ, প্রশ্নের মুখেও পড়তে হয়েছে তাঁকে। আক্রমণাত্মক একাধিক প্রশ্নে ধেয়ে আসে তাঁর দিকে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে কুণাল ঘোষ বলেছেন, সুদীপ্ত সেন চিঠিতে যে সময়ের কথা উল্লেখ করেছেন সেই সময় আমি সাংসদ ছিলাম না। এমনকি তার বিরুদ্ধে সারদার অফিসে দুষ্কৃতী নিয়ে হামলার সময় রাজ্যে বামফ্রন্ট সরকার ছিলো, তা বোঝানোর চেষ্টা করেছেন। তবে সরাসরি অস্বীকার করার মত বাক্য প্রয়োগ করেননি। 

যে ব্যক্তির বিরুদ্ধে একাধিক জামিন অযোগ্য ধারায় একাধিক থানায় মামলা রুজু রয়েছে তাকে কেন গ্রেপ্তার করা হচ্ছে না ? এই প্রশ্নের উত্তর গোয়েন্দা প্রধান অর্ণব ঘোষ বলেছেন, ‘ঐ ব্যক্তির বিরুদ্ধে আমাদের কমিশনারেটে কোন অভিযোগ নেই।’ কিন্তু দেখা যাচ্ছে ২০শে এপ্রিল সকালবেলা এবং বেঙ্গল পোস্টের তরফে সারদার গ্রুপ সি ই ও কুণাল ঘোষের নামে প্রতারণার অভিযোগ করা হয়েছিলো। কিন্তু প্রথমে ঐ অভিযোগের কোন কপি পুলিস অভিযোগকারীদের দিতে চায়নি। ইলেকট্রনিক্স কমপ্লেক্স থানায় ঐ অভিযোগ করা হয়েছে। তাহলে পুলিস কেন অস্বীকার করছে? ‘সিট’র মুখ্য তদন্তকারী আধিকারিক বিধাননগরের পুলিস কমিশনার রাজীব কুমার হওয়ার পরেও কেন জালিয়াতি এতবড় কাণ্ডের পিছনে থাকা ব্যক্তিকে ধরা হলো না তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। হয়ত আইনি ব্যাখ‌্যা এড়াতেই সোমবার কমিশনারেটে কুণাল ঘোষের জেরার সময় উপস্থিত থাকেননি পুলিস কমিশনার রাজীব কুমার। এদিনের জেরার মূল দায়িত্বে ছিলেন বিধাননগর গোয়েন্দা প্রধান অর্ণব ঘোষ। 

এদিকে কুণাল ঘোষের নামে ভবানীপুর ও পার্ক স্ট্রিট থানায় যে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছিলো তার পালটা অভিযোগ দায়ের পর্ব রবিবার রাত থেকে শুরু হয়েছে। পার্ক স্ট্রিট থানায় সৈয়দ গুলাম মইনুদ্দিনসহ ২৫জন অভিযোগকারী তাঁদের স্বাক্ষর জাল করে কুণাল ঘোষের নামে অভিযোগ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন। সেই সঙ্গে কুণাল ঘোষের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ আনা ঋতম দাসসহ বাকি দশজনের বিরুদ্ধে তাঁদেরই করা ধারায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। একইভাবে ভবানীপুর থানায় সকালবেলা এবং বেঙ্গল পোস্টের তরফে আনা অভিযোগের প্রতিবাদ করে সারদা প্রিন্টিং ওয়ার্কসের কর্মীরা কুণাল ঘোষকে সরিয়ে রেখে সারদার কর্ণধার সুদীপ্ত সেন এবং চার জনের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধি ১২০বি, ৩৮০, ৫১১, ৩৪১, ৫০৬ ধারায় মামলা করেছেন।

JINDAL WITHDRAWS FROM ITS PROJECT IN SALBONI


শিল্পে আঘাত
নিজস্ব প্রতিনিধি,গণশক্তি

রাজ্যের বৃহত্তম ইস্পাত প্রকল্পের সূচনা হয়েছিল পাঁচ বছর আগেসেই প্রকল্প স্থগিত বলে ঘোষিত হলো তৃণমূল সরকারের আমলে ২০১৩ সালেরাজ্যের শিল্প সম্ভাবনায় বিরাট আঘাত হলো এই ঘটনার মধ্যদিয়েএই প্রকল্পটিতে কর্মসংস্থান হওয়ার কথা ছিল ২০ হাজার মানুষেরতার থেকেও বেশি সংখ্যক মানুষের পরোক্ষ কর্মসংস্থান হওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়েছিলকিন্তু লৌহ আকরিক সরবরাহ নিশ্চিত না হওয়ায় এই প্রকল্পটির অগ্রগতি নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছেজিন্দাল‍‌ গোষ্ঠীর চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর সজ্জন জিন্দাল নিজেই জানিয়েছেন, পশ্চিমবঙ্গের ইস্পাত প্রকল্পটি রূপায়ণের কাজ আপাতত স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিকেন এই সিদ্ধান্ত? বর্তমান রাজ্য সরকারের জমি সংক্রান্ত নীতির প্রশ্নে দ্বিধাগ্রস্ত মনোভাবই কি এর কারণ? এই বিশাল শিল্পোদ্যোগের ক্ষেত্রে রাজ্য সরকার কি তার প্রয়োজনীয় ভূমিকা পালন করছে না? লৌহ আকরিক সরবরাহ সুনিশ্চিত করার ক্ষেত্রে রাজ্য সরকারের যে দায়িত্ব ছিল তা কি অবহেলা করছে রাজ্য সরকার? বামফ্রন্ট সরকারের তরফে এই প্রকল্পের জন্য চার হাজার একর জমি দিতে কোনও সমস্যা হয়নিকারণ জমি ছিল খাসযদিও শালবনীসহ সমগ্র জঙ্গলমহল ঘিরে অশান্তি শুরু হয় শিলান্যাসের দিন থেকেশিলান্যাসের অনুষ্ঠানের দিন রাস্তায় মাওবাদীরা ল্যান্ড মাইন পেতে হত্যা করার চেষ্টা করে তদানীন্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যকেতারপর থেকে মাওবাদীরা ঐ অঞ্চল ঘিরে অশান্তি সৃষ্টি করেছেআইন-শৃঙ্খলার অবনতির ফলে কারখানা গড়ে তোলার কাজ ব্যাহত হয়েছেবিরোধী থাকাকালীন তৃণমূল কংগ্রেস শালবনী ইস্পাত প্রকল্পের বিরোধিতা করেছিলমাওবাদীদের সন্ত্রাস এবং তৃণমূলের বিরোধিতার ফলে এরাজ্যে শিল্পায়নে আস্থা হারায় জিন্দালের মতো বিভিন্ন ‍‌শিল্পগোষ্ঠী

এই প্রকল্পটির ক্ষেত্রে প্রধান বিষয় হলো আকরিক লোহা সরবরাহএই প্রকল্পটি আগেই হাতছাড়া হয়ে চলে যেতে বসেছিল ঝাড়খণ্ডেএই সময়ে জাতীয়স্তরে আকরিক লোহার ব্যবহার নিয়ে নীতি তৈরির প্রশ্নে কেন্দ্রীয় ইস্পাতমন্ত্রীর সম্মতি আদায় করে নিয়েছিলেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যইস্পাতমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, রাজ্য সরকারের এই বক্তব্যের সঙ্গে তিনি সহমতজাতীয় আকরিক লোহা নীতি গ্রহণ করা দরকারতবে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রকগুলির সঙ্গে আলাপ-আ‍‌লোচনার ভিত্তিতে এব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে হবেরাজ্য সরকারের এই সদিচ্ছার ফলেই জিন্দালগোষ্ঠী এই প্রকল্প রূপায়ণে এগিয়ে এসেছিলজিন্দাল গোষ্ঠীর পরিকল্পনা ছিল, পশ্চিম মেদিনীপুরের শালবনীতে ১ কোটি টন উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন এই ইস্পাত প্রকল্পটিতে ২০১২ সালে প্রথম পর্যায়ের উৎপাদন শুরু হয়ে ২০২০ সালে চূড়ান্ত পর্যায়ের উৎপাদন হবেএই সময়ের মধ্যে রাজ্যে রাজনৈতিক পালাবদল ঘটেছেতৃণমূল কংগ্রেস ক্ষমতায় এসেছেতার আগে ২০০৯ সাল থেকে কেন্দ্রীয় সরকারে শরিক ছিল তৃণমূলকিন্তু কেন্দ্রে শরিক থাকা অবস্থায় আকরিক লোহার জাতীয় নীতির ব্যাপারে পশ্চিমবঙ্গের স্বার্থে কোনও উদ্যোগ নেয়‍‌নি তৃণমূলরাজ্যে ক্ষমতায় আসার পরেও কেন্দ্রের এক বছরের বেশি সময় শরিক ছিল তৃণমূলতখনও তারা এই প্রশ্নে নিষ্ক্রিয় থেকেছেরাজ্য সরকারের উচিত ছিল এব্যাপারে সর্বতোভাবে উদ্যোগ নেওয়াপ্রয়োজনে সব দলকে একজোট করে পশ্চিমবঙ্গের স্বার্থে এই দাবি তোলা উচিত ছিলপ্রকৃতপক্ষে এরাজ্যে শিল্পায়নে বর্তমান রাজ্য সরকারের কোনও সুনির্দিষ্ট দৃষ্টিভঙ্গি নেইসিঙ্গুরের মোটরগাড়ি প্রকল্প নিয়ে জটিলতাই বেড়েছেসিঙ্গুর সমস্যার সমাধান করতে পারেনি রাজ্য সরকারজমিনীতির ক্ষেত্রে কখনও সরকারের মাধ্যমে, কখনও বা বেসরকারী মালিকদের সরাসরি জমি কেনার কথা বলায় শিল্পগোষ্ঠীগুলি পিছিয়ে যাচ্ছেতথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে ইনফোসিস, উইপ্রোর মতো সংস্থাগুলি রাজ্য সরকারের ভূমিকায় রাজ্যে আসতে সাহস পাচ্ছে নাআইন-শৃঙ্খলার অবনতি, প্রশাসনিক দুর্বলতা, খামখেয়ালি সিদ্ধান্ত শিল্পায়ন তথা কর্মসংস্থানে বাধা সৃষ্টি করছেজিন্দালদের আচমকা পিছিয়ে যাওয়া সেই সমস্যাকে আরো বড় করে তুললো

DEMAND RAISED FOR CBI ENQUIRY INTO SARADHA SCAM


সারদা কেলেঙ্কারির সি বি আই তদন্তের দাবিতে সোচ্চার পশ্চিম মেদিনীপুর|

নিজস্ব প্রতিনিধি,গণশক্তি

মেদিনীপুর, ৩০শে এপ্রিল— প্রতারক সারদা চিট ফান্ড কাণ্ডের সি বি আই তদন্তের দাবিতে এবং চিট ফান্ডে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে যুক্ত ব্যক্তিদের সঙ্গে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার ও শাস্তি সহ প্রতারিত আমানতকারীদের অর্থ ফিরিয়ে দেওয়ার দাবিতে জেলার সর্বত্র প্রতিবাদী মিছিল, পথসভা অনুষ্ঠিত হলো। রাজ্য সরকারের পরোক্ষ মদত ও মন্ত্রী সহ এম এল এ, এম পি ও শাসক শ্রেণীর নেতা, কর্মীরা যে যুক্ত তা আজ সাধারণ মানুষের কাছে পরিষ্কার। এতো বড় একটি অর্থনৈতিক কেলেঙ্কারি। মানুষ আজ প্রতিবাদে রাস্তায়। কিন্তু সরকারের পুলিস-প্রশাসন মঙ্গলবার সাঁকরাইল ব্লকের কুলটিকরিতে পাঁচশতাধিক মানুষকে মিছিল করতে দেয়নি, বাধ্য হয়ে মানুষ রৌ‍‌দ্রের মধ্যে রাস্তার উপর বসে প্রতিবাদ জানায় এবং চলে পথসভা। একই দাবিতে মেদিনীপুর শহরে দুই সহস্রাধিক মানুষের মিছিল হয়। জঙ্গলমহল জামবনীর গিধনীতে পাঁচশতাধিক মানুষের মিছিল হয়। এছাড়া বেলপাহাড়ি, লালগড়, ঝাড়গ্রাম শহর, ঝাড়গ্রাম গ্রামীণ এলাকায় মোট দুই সহস্রাধিক মানুষের মিছিল, পথসভা হয়। সারদা গোষ্ঠী এই জঙ্গলমহল থেকে কুড়ি কোটিরও বেশি টাকা তুলে নিয়ে গেছে। মিছিল সহ থানায় ডেপুটেশন দেওয়া হয় ঘাটাল শহরে। দাশপুর, চন্দ্রকোনা টাউন, শালবনী, খড়্গপুর শহরের মালঞ্চ, খড়্গপুর গ্রামীণ এলাকায় অর্জুনী, গোপালী, খেলাড়, কলাইকুণ্ডা, বড়কোলা, চকগোবিন্দপুর, চাঙ্গুয়াল, রাউৎমণি, সবং, ডেবরা ব্লকের বালিচক, ডেবরা, শ্যামচক, গোলগ্রাম সহ দশটি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় মিছিল হয়। মিছিল হয় কেশিয়াড়ি ব্লকের কেশিয়াড়ি, দুধেবুধে, নজিপুর সহ চারটি স্থানে এবং নারায়ণগড় ব্লকের মকরামপুর। অবিলম্বে প্রতারক চিট ফান্ডের সমস্ত সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে জনগণের দেয় অর্থ ফেরত দেওয়ার দাবি ওঠে। গোটা জেলা জুড়ে আজ নয় সহস্রাধিক মানুষ প্রতিবাদী মিছিলে অংশগ্রহণ করে।

ROSE VALLEY - BE CAREFUL: ‘সারদার’ বর্ধমান হেড অফিসের ম্যানেজারের খোঁজে তল্লাশি রোজভ্যালির অফিসে টাকা ফেরতের দাবি আমানতকারীদের|


‘সারদার’ বর্ধমান হেড অফিসের ম্যানেজারের খোঁজে তল্লাশি 
রোজভ্যালির অফিসে টাকা ফেরতের দাবি আমানতকারীদের|

নিজস্ব প্রতিনিধি,গণশক্তি

আউশগ্রাম, ৩০শে এপ্রিল— ‘সারদা চিট ফান্ডের’ বর্ধমান শহর হেড অফিসের ম্যানেজার অরুণ পাল ও ‘সারদার কর্ণধার সুদীপ্ত সেনের নামে প্রতারণার জন্য আউশগ্রাম থানায় মঙ্গলবার নতুন করে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে আমানতকারীরা। কলকাতায় সুদীপ্ত সেন ধরা পড়লেও জেলার হেড অফিসের ম্যানেজার অরুণ পাল পালাতক। অভিযুক্ত ম্যানেজারের বিরুদ্ধে গুসকরা শহরের তৃণমূল দলের শহর সভাপতি নিত্যানন্দ চ্যাটার্জি তিন লক্ষ টাকা প্রতারণা করার অভিযোগ দায়ের করেছেন আউশগ্রাম থানায়। যার এফ আই আর নাম্বার হল ৮৮/২০১৩। পুলিস অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ৪০৬, ৪১৭, ৪১৮, ৪১৯, ৪২০, ১২০বি ধারাতে মামলা শুরু করেছে। সেইমতো বর্ধমান সদর, মঙ্গলকোট ও আউশগ্রাম থানার পুলিস যৌথভাবে তল্লাশি শুরু করলেও এখনও অধরা অভিযুক্ত অরুণ পাল। অরুণ পালের বাড়ি গুসকরা শহরের দোনাইপুরে। তার বর্ধমান শহরের সমস্ত ব্যঙ্ক অ্যাকাউন্ট, উল্লাস কমপ্লেক্সে ফ্ল্যাট ও রেনেসাঁতে একটি ঝাঁ চকচকে ফ্ল্যাট পুলিস সিজ করেছে। সোমবার রাতে অরুণ পালকে না পেয়ে, তার বোনের শ্বশুরবাড়ি মঙ্গলকোটের পালিগ্রামে তিনটি থানার পুলিস যৌথ অভিযান চালিয়ে, বোনের বয়স্ক শিক্ষক শ্বশুরকে দীর্ঘক্ষণ মঙ্গলকোট থানার পুলিস জিজ্ঞাসাবাদ করে বলে জানা যায়। এছাড়াও বর্ধমান শহরের সাগরাগড়ে ‘প্রয়াগ’ নামে একটি চিট ফান্ড অফিস সোমবার সকাল ১০টা নাগাদ খুললেই, একদল আমানতকারী টাকা ফেরতের দাবিতে এসে ভাঙচুর চালায় । অফিসের ভেতরে ঢুকে আসবাব সহ বেশ কিছু কাগজপত্রও লুট করে নিয়ে যায়। দেরিতে পুলিস আসায় পালিয়ে যায় চিট ফান্ড কতৃপক্ষ। টুলু পরামানিক নামের সংস্থার এক এজেন্ট জানান,‘বছর খানেক ধরে আমি এই সংস্থায় যুক্ত। আমি পাঁচজন আমানতকারীকে এখানে বই করিয়ে টাকা জমা দিয়েছি। ৪০ হাজার টাকা পাব, মেয়াদ সম্পূর্ণ হয়েছে। ওই টাকা তুলতে এখানে এসেছি। কিন্তু কতৃপক্ষ টাকা ফেরত দিতে গড়িমসি করছে। তাই এই আন্দোলন।’ এছাড়াও শহরের রোজভ্যালি অফিসে অফিসে টাকা ফেরতের দাবিতে দীর্ঘ লাইন পরে আমানতকারীদের। মঙ্গলবার সকাল থেকেই শহরের সিটি-টাওয়ার, নীলপুর, কানলা গেটের অফিসেও টাকা ফেরতের জন্য বিক্ষোভ দেখায় অমানতকারীরা। শহরের নবাব হাটের রোজভ্যালি অফিসেও আমানতকারীদের টাকা ফেরতের দাবিতে প্রবল বিক্ষোভ দেখায় সংস্থার এজেন্ট ও আমানতকারীরা। তাঁরা অভিযোগ করেন,‘টাকা ফেরত দেওয়া হবে বলে দরখাস্ত করিয়েও, টাকা ফেরত দিচ্ছে না রোজভ্যালি।’গুসকরা, ভাতারের অফিসেও প্রচুর দরখাস্ত জমা পরেছে টাকা ফেরতের দাবিতে। অনেক অফিসেই কতৃপক্ষ আসছে না আমানতকারীদের চাপে। কোথাও কোথাও এজেন্টরাই অফিস খুলছে বলে জানা যায়।

ROSE VALLEY: চিটফাণ্ড রোজভ্যালির অফিসে আক্রান্ত হলেন দুজন চিত্র সাংবাদিক|


চিটফাণ্ড রোজভ্যালির অফিসে আক্রান্ত হলেন দুজন চিত্র সাংবাদিক|

নিজস্ব প্রতিনিধি,গণশক্তি

বহরমপুর ৩০ শে এপ্রিল — বহরমপুর মধুপুর এলাকায় ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক সংলগ্ন এলাকায় চিট ফান্ড রোজভ্যালির অফিসে ছবি তুলতে গিয়ে আক্রান্ত হলেন দুজন চিত্র সাংবাদিক। তাঁদের গেটে তালা লাগিয়ে এক ঘণ্টা আটকে রাখা হয়। অভিযোগ, সেই সময় তাঁদের যথেচ্ছ মারধর করা হয়। ছবি তোলার সামগ্রীও ভাঙচুর হয়। রোজভ্যালির এজেন্ট ও অফিসের কর্মীরা যথেচ্ছ ভাবে এই সময় তাদের উপর আক্রমণ চালায়। অভিযোগ, এই সময় তাঁদের মোবাইলে কথা বলতে বাধা দেওয়া হতে থাকে। অন্যান্য সাংবাদিক ও চিত্র সাংবাদিকরা ঘটনাস্থলে গিয়ে এই ঘটনার প্রতিবাদ করতে থাকেন। বহরমপুর থানার আইসির নেতৃত্বে বিশাল পুলিস বাহিনী ঘটনাস্থলে এসে চিত্র সাংবাদিক দুজনকে উদ্বার করে হাসপাতালে পাঠান।পুলিস ঘটনাস্থল থেকে একজনকে ও পরে চিত্র সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে অভিযোগ পেয়ে আরও একজনকে গ্রেপ্তার করে। ধৃতরা হলেন বাণীব্রত চ্যাটার্জি ও অপূর্ব দে। এদিন বহরমপুর রানীবাগান এলাকায় একটি চিট ফান্ডের অফিসে চড়াও হয়ে আমানতকারীরা তাদের সমস্ত টাকা ফেরতের দাবিতে সোচ্চার হন।

এদিন মুর্শিদাবাদ জেলার ২৬ টি ব্লক এলাকায় সাতটি পৌরসভা ও বিভিন্ন অঞ্চলে চিট ফান্ডের বিরুদ্ধে মিছিল ও পথসভায় সোচ্চার হলেন হাজার হাজার বামফ্রন্ট নেতা কর্মী সমর্থকেরা। মিছিলে মিছিলে সারা মুর্শিদাবাদ মুখরিত হয়। দাবি ওঠে অবিলম্বে আমানতকারীদের টাকা ফিরিয়ে দিতে হবে। এই চিটফান্ড কেলেঙ্কারির সাথে যুক্তদের অবিলম্বে শাস্তি দিতে হবে। বিভিন্ন এলাকায় মিছিল শেষে পথসভাও করা হয়।

AIDWA WRITES TO CHIDAMBRAM ON CHIT FUNDS IN WEST BENGAL


ক্ষুদ্র আমানতকারীদের স্বার্থরক্ষায় চিদাম্বরমকে চিঠি দিলেন মহিলারা|

আই এন এন

নয়াদিল্লি, ৩০শে এপ্রিল — পশ্চিমবঙ্গসহ দেশের বিভিন্ন রাজ্যে প্রতারক অর্থলগ্নি সংস্থাগুলির দাপট বন্ধ করতে কেন্দ্রীয় ও সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকারের হস্তক্ষেপের দাবি জানালো সারা ভারত গণতান্ত্রিক মহিলা সমিতি। ক্ষুদ্র আমানতকারীরা বিশেষত গরিব মহিলারা যেভাবে এসব সংস্থার প্রতারণায় সর্বস্বান্ত হচ্ছেন, তার তীব্র নিন্দা করেছে সংগঠন। 

প্রতারণার ব্যাপকতা জানিয়ে মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরমকে লেখা এক খোলা চিঠিতে মহিলা সমিতি দাবি করেছে, ক্ষুদ্র আমানতকারীদের রক্ষা করতে জাতীয় পর্যায়ে কঠোর আইনি ও প্রশাসনিক ব্যবস্থা নিতে হবে। দ্বিতীয়ত, রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কগুলিতে ক্ষুদ্র আমানতকারীদের অংশগ্রহণ আরো সহজসাধ্য করতে হবে। তৃতীয়ত, অবিলম্বে সারদা গোষ্ঠীর সমস্ত সম্পত্তি ও অ্যাকাউন্ট বাজেয়াপ্ত করতে হবে। নির্দিষ্ট সময়ে আমানত ফেরত দেওয়ার লক্ষ্যে যথাযথ আইনি কর্তৃপক্ষ গঠন করতে হবে। চতুর্থত, সেবি-র মতো কেন্দ্রীয় সংস্থার সহযোগিতায় সমস্ত চিট ফান্ড নিয়ে তদন্ত করতে হবে। পঞ্চমত, ক্ষুদ্র সঞ্চয় প্রকল্পগুলিতে সুবিধাদি বাড়াতে হবে। ষষ্ঠত, সন্দেহজনক অর্থলগ্নি সংস্থাগুলি সম্পর্কে নিরন্তর প্রচারে সরকারী সহায়তা দিতে হবে। সপ্তমত, এসব জালিয়াতির আসল পাণ্ডাদের যথাযথ শাস্তি দিতে হবে। 

সংগঠনের তরফে চিঠিতে সই করেছেন শ্যামলী গুপ্ত, সুধা সুন্দররামন, বনানী বিশ্বাস, মিনতি ঘোষ, সাবিত্রী মজুমদার এবং রেখা গোস্বামী। 


SARADHA SCAM: শাসক দলের দাপুটে নেতারা ছাড়াও সারদার ‘প্যাকেট’ পেয়েছেন আমলারা|


শাসক দলের দাপুটে নেতারা ছাড়াও সারদার ‘প্যাকেট’ পেয়েছেন আমলারা|

নিজস্ব প্রতিনিধি,গণশক্তি

কলকাতা, ৩০শে এপ্রিল— সাতটি প্রশ্ন। আপাতত বিধাননগর পুলিস কমিশনার রাজীব কুমারের ঠিক করে দেওয়া সাতটি প্রশ্নের মুখেই চিট ফান্ড কেলেঙ্কারির মাস্টার মাইন্ড সুদীপ্ত সেন। সংস্থার সম্পত্তি, পরিকাঠামো, মার্কেটিং চেইন, সাফারি সফটওয়্যার সংক্রান্ত নির্দিষ্ট প্রশ্ন। রয়েছে মানি রুট সংক্রান্ত প্রশ্নও। আর এতেই কেঁচো খুঁড়তে কেউটে বেরিয়ে পড়ছে সারদা কর্তার বয়ানে। জেরা থেকে মেলা সেই প্রতিটি তথ্য মিলিয়ে নেওয়া হচ্ছে দেবযানী মূখার্জির বয়ানের সঙ্গে। সেখান থেকেই তৈরি হচ্ছে একাধিক ফাঁক, যা হাতিয়ার করেই এগোতে চাইছে পুলিস।

রাজীব কুমার বিশেষ তদন্তকারী দলে (সিট)’র ও সদস্য। তাঁর ঠিক করে দেওয়া প্রশ্নমালা থেকেই উঠে আসছে মানি রুটের একাধিক তথ্য। ব্যবসার নিরাপত্তায় সরকার ও শাসক দলের নেতাদের পাশাপাশি এমনকি বিভিন্ন সরকারী দপ্তরের গুরুত্বপূর্ণ আমলাদের পিছনেও দেদার অর্থ বিলিয়েছে সুদীপ্ত সেন। আমানতকারীদের কাছ থেকে সংগৃহীত অর্থ এবং ব্যবসার ‘মসৃণ রাস্তার’ খোঁজে বিলোনো সেই অর্থ স্বাভাবিক ভাবেই তদন্তের ক্ষেত্রেও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে। যদিও মঙ্গলবার এক তদন্তকারী আধিকারিক জানান, আমরা সমস্ত রুটই খতিয়ে দেখছি। তদন্ত রিপোর্টে সব কথারই উল্লেখ থাকবে।

ইতোমধ্যে কলকাতা, দক্ষিণ ২৪পরগনা ও মেদিনীপুরে শাসক দলের বেশ কয়েকজন দাপুটে নেতার নাম হাতে এসেছে গোয়েন্দাদের। প্রশাসনের সর্বোচ্চ মহলে সেই গোপন রিপোর্টও পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে বিধাননগর কমিশনারেটের তরফে। তৃণমূল সাংসদ কুনাল ঘোষকে জেরা করে কি তবে দাপুটে অন্যান্য তৃণমূল নেতাদের জেরার রাস্তা খোলা রাখলো গোয়েন্দারা? এই প্রশ্নের উত্তর অন্তত সরাসরি মেলেনি পুলিসের কোন আধিকারিকের কাছ থেকে। কিন্তু যে সূত্র ধরে কুনাল ঘোষ দু-ঘন্টার কড়া জেরার মুখে সেই একই সূত্রে শাসক দলের শীর্ষস্থানীয় একাধিক নেতাকে কেন জেরা করা হবে না, সেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে সিটের সদস্যদের মধ্যেও।

এদিকে এখনও পর্যন্ত নিউটাউন থানায় পুলিসী জেরার মুখে ‘কৌশল’ নিয়েই চলছে চিট ফান্ড কেলেঙ্কারির অন্যতম অভিযুক্ত দেবযানী মুখার্জি। ইতোমধ্যে তাঁর গাড়ির চালককে জেরা করা হয়েছে বিধাননগর কমিশনারেটে। দেবযানী মুখার্জির গাড়ির চালক রতন ঠাকুরকে দীর্ঘক্ষণ জেরা করে পুলিস জানতে পেরেছে দেবযানী মুখার্জির নির্দেশে মাঝেমাঝেই সে একা গাড়ি নিয়ে বিভিন্ন ‘পার্সেল’ পৌঁছে দিত নির্দিষ্ট কিছু ঠিকানায়। সেই পার্সেল যে আসলে প্যাকেট ভর্তি টাকা তাতে নিশ্চিত তদন্তকারী আধিকারিকরা। চালক রতন ঠাকুর জেরার মুখে জানিয়েছেন সেই ‘পার্সেল’ এমনকি আয়কর দপ্তর, সেবির একাধিক আধিকারিককে পৌঁছে দেওয়া হতো ‘ম্যাডাম’-এর নির্দেশে। এই গাড়ি ‘ওজনদার রাজনৈতিক নেতা’-দের কাছেও মাঝেমধ্যে গেছে। এই তথ্যই দেবযানী মুখার্জির সামনেও রাখেন তদন্তকারী আধিকারিকরা। জেরার মুখে সেই ‘নির্দিষ্ট ঠিকানার’ বেশির ভাগটাই বলে দিয়েছেন দেবযানী। একই সঙ্গে তাঁর সংযোজন, ‘সুদীপ্ত সেনের নির্দেশেই সে এ কাজ করেছে’। পুলিস আরো জানতে পেরেছে প্রথম থেকে যে দাবি করা হচ্ছিল যে, সারদা কর্তা দেবযানী মুখার্জিকে ঢাকুরিয়ায় একটি ‘ফ্ল্যাট’ উপহার দিয়েছিলেন, তা বিভ্রান্তিকর। ঢাকুরিয়ার ঐ ফ্ল্যাটটি সারদা গোষ্ঠীর নিজস্ব সম্পত্তি। তা ব্যবহার করতেন দেবযানী মুখার্জি।

সারদা গোষ্ঠীর সম্পত্তির হদিস পেতেই রীতিমতো নাজেহাল পুলিস। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জরুরী তলব করে ডাকা হয় সারদা গোষ্ঠীর সলিসিটার নরেশ বালোটিয়াকে। মূলত সংস্থার আইনী এবং সম্পত্তি সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। এই সংক্রান্ত বিভিন্ন কাগজপত্র ইতোমধ্যেই সল্টেলেকে সারদার মিডল্যান্ড পার্ক অফিস থেকে বাজেয়াপ্ত করেছে বিধাননগর পুলিস। সেই কাগজ এবং সুদীপ্ত ও দেবযানীকে জেরা করে মেলা তথ্য ‘ভেরিফাই’ করতেই নরেশ বালোটিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে পুলিস সূত্রে। এখনও পর্যন্ত পুলিস সারদা গোষ্ঠীর ২৫১টি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের হদিস পেয়েছে। ইতোমধ্যে সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষের কাছে চিঠি দিয়ে সেই অ্যাকাউন্টগুলির ‘আউট ফ্লো’ বন্ধ করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পুলিস জেরায় জানতে পেরেছে ২লক্ষ ৮৩ হাজার এজেন্ট সাধারণ মানুষের কাছ থেকে টাকা তোলার কাজে যুক্ত ছিলেন। ইতোমধ্যে সংস্থার ২৯৪টি শাখার সন্ধান মিলেছে। সারদা গোষ্ঠীর সরাসরি কর্মী সংখ্যা আড়াই হাজার। ধৃত অরবিন্দ চৌহানকে জেরা করে পুলিস খুব বেশি কিছু তথ্য উদ্ধার করতে পারেনি। তিনি সারদার সাতটি ব্রাঞ্চের দায়িত্ব ছিলেন। যদিও সেই ব্রাঞ্চগুলি সংস্থার কাছে কখনই সোনার ডিম দেওয়া হাঁস হয়ে উঠতে পারেনি। বরং মনোজ কুমার নাগেল সংস্থার ৭০টি ব্রাঞ্চের দায়িত্ব পেয়েছিলেন। তবে জালিয়াতি, আর অবৈধ উপায়ে ব্যবসা বাড়ানোর মূল খুঁটিনাঁটি একমাত্র সুদীপ্ত সেন ছাড়া জানতেন দেবযানী মুখার্জি। অসাধারণ স্মৃতিশক্তির অধিকারী দেবযানী বেশ কিছু তথ্য পরিসংখ্যান সহ অনায়াসে বলে দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন এক তদন্তকারী আধিকারিক।

চিট ফান্ড কেলেঙ্কারির মূল রহস্য লুকিয়ে আছে ‘সাফারি’ সফটওয়্যারে। এই সফটওয়্যারের সমস্ত ডেটাবেস মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বস্টনের হস্টওয়ে ডেডিকেটেড সেন্ট্রাল সার্ভারে রয়েছে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই সেই সার্ভার থেকে ডেটাবেস সংগ্রহের জন্য বিধানগর কমিশনারেটর তরফে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের সাহায্যে ইন্টারপোলের কাছে সাহায্য চাওয়া হচ্ছে। রীতিমতো আধুনিক ও অত্যন্ত জটিল এই সফটওয়্যারের মাধ্যমেই সংস্থার অবৈধ লেনদেন সহ জালিয়াতির কারবার ফুলে ফেঁপে উঠেছিল।

ANTI CHIT FUND BILL: ফস্কা গেরোর ফাঁক রেখেই নতুন বিল


ফস্কা গেরোর ফাঁক রেখেই নতুন বিল

নিজস্ব প্রতিনিধি,গণশক্তি

কলকাতা, ৩০শে এপ্রিল— ‘ফস্কা গেরোর’ দিকে আঙুল তুলে বারবার সতর্ক করে দিলেও বেআইনী চিটফান্ড রুখতে তৃণমূল সরকারের আনা নতুন ‘বজ্রকঠিন’ বিলটির বিরোধিতা করলো না বামফ্রন্ট। বিরোধিতা করেনি কংগ্রেসও। ফলে মঙ্গলবার বিধানসভায় বিনা বিরোধিতায় পাস হয়ে গেলো ‘দ্য ওয়েস্ট বেঙ্গল প্রোটেকশন অব ইন্টারেস্ট অব ডিপোজিটর্স ইন ফিনান্সিয়াল এস্টাবলিশমেন্ট বিল ২০১৩’। 

কিন্তু এই বিল শেষপর্যন্ত আইন হিসাবে কতদূর ‘বজ্রকঠিন’ হবে তা নিয়ে সংশয় থেকেই গেলো দু-একটি ছিদ্রপথের কারণে। বিলের ২২নম্বর ধারার ২নম্বর উপধারাটি সংবিধান বিরোধী হিসাবে গণ্য হতে পারে অভিযোগ বিরোধী বিধায়কদের। তাঁরা এই নিয়ে সংশোধনী প্রস্তাব দিলেও সরকার তা গ্রাহ্য করেনি। বিরোধী দলনেতা সূর্যকান্ত মিশ্র এই কারণে বলেছেন, ‘বিলটিতে বজ্রআটুনির নামে ফস্কা গেরো রেখে দেওয়া হয়েছে যাতে অপরাধীরা রক্ষা পেয়ে যেতে পারে।’ প্রায় একইরকম মনে করেছেন কংগ্রেসের বিধায়করা। তাঁরাও বলেছেন, সিঙ্গুর আইনের কথা ভুলে যাননি তো? সিঙ্গুরের মানুষ কিন্তু এখনো কাঁদছে, জমি তাঁরা ফেরৎ পাননি।

সূর্যকান্ত মিশ্র বলেছেন, বিলটি নিয়ে আমরা সরকারকে বারবার সতর্ক করলেও বিলটির বিরোধিতা করিনি। কারণ আমরা দায়িত্বশীল বিরোধী দল। ২০০৯ সালের বিলটি বাতিল করা হলো আবার নতুন বিলও পাস হলো না, এমন অবস্থা যে আইনী শূন্যতা সৃষ্টি করবে সেটা আমরা চাই না। 

পরিষদীয় মন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জি ও অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র বিধানসভায় দাঁড়িয়ে বামফ্রন্ট সরকারের তিন দশকে চিটফান্ডের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেন। প্রত্যুত্তরে সূর্যকান্ত মিশ্র মোটা একটি ফাইল দেখিয়ে বলেছেন, ধারাবাহিক গ্রেপ্তার, আদালতে জনস্বার্থে মামলা করে সম্পত্তি বিক্রি করে টাকা ফেরৎ, এবং তারপরে বিল পাস করানো ইত্যাদি অজস্র পদক্ষেপের বিবরণ এতে রয়েছে। আপনারা চাইলে পড়ে অভিজ্ঞতা নিন, কাজে লাগতে পারে। সারদাকান্ডের ফলে ক্ষতির ব্যপকতা এবং তার সঙ্গে প্রভাবশালীদের জড়িত থাকার অভিযোগের কারণে কেন্দ্রীয় আর্থিক সংস্থাগুলির সঙ্গে সি বি আই-র যুক্তভাবে তদন্তের দাবি করে মিশ্র বলেছেন, সি বি আই যে রাজনৈতিক কারণে ব্যবহৃত হয় তা আমরা জানি। তবুও এক্ষেত্রে নিরপেক্ষ তদন্তের স্বার্থে আদালতের নজরদারিতে সেই তদন্তই আমরা দাবি করছি। 

২০০৯ সালে বামফ্রন্ট সরকারের সময়কালে বিধানসভায় পাস হওয়া বিলের সঙ্গে এদিন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রের পেশ করা নতুন বিলের উল্লেখযোগ্য বড় কোনো পার্থক্য নেই। গুরুত্বপূর্ণ কাঠামোটা তো বটেই, বেশিরভাগ ধারা উপধারা, শব্দ বাক্য সবই হুবহু এক। বিলটি নিয়ে আলোচনার সময়ে সূর্যকান্ত মিশ্র ধারা উল্লেখ করে করে দেখান, ২৫টি ধারার মধ্যে কেবল ৬ এবং ৭নম্বর ধারাটি নতুন ঢোকানো হয়েছে, এছাড়া দুএকটি ধারায় শব্দের ছোটো খাটো পরিবর্তন করা হয়েছে, এবং ২২নম্বর ধারার ২ নম্বর উপধারায় এমন একটি বিষয় ঢোকানো হয়েছে যারফলে বিলটি সংবিধান বিরোধী হয়ে যেতে পারে, আইনী সমস্যা হতে পারে। এটাই হলো ফস্কা গেরো যেখান দিয়ে অপরাধীরা পার পেয়ে যেতে পারে। 

২২নম্বর ধারার ২নম্বর উপধারায় বলা হয়েছে, নতুন এই আইনটি কার্যকরী হওয়ার আগেই কমিশন অব ইনক্যুয়ারি অ্যাকট্‌ (১৯৫২)-র ৩নম্বর ধারা অনুসারে গঠিত কোনো কমিশন (অর্থাৎ শ্যামল সেনের নেতৃত্বাধীন কমিশন) আইনটি কার্যকরী হওয়ার পরে সরকারের কাছে আর্থিক সংস্থাগুলির অপরাধ নিয়ে কোনো রিপোর্ট দেয়, তাহলে সম্পত্তি আটক বা দখল করার বিষয়ে এই আইনটি ব্যবহার করা যাবে। 

বামফ্রন্ট এবং কংগ্রেস বিধায়করা এটাকে ফৌজদারি অপরাধে আইনের রেট্রোস্পেকটিভ এফেক্ট দেওয়ার সামিল বলে আশঙ্কা করে বলেছেন, এটা সংবিধানের ২০/১ ধারা ভঙ্গ করছে। ফৌজদারি অপরাধে কেবলমাত্র অপরাধ ঘটার সময়কালের আইনেই বিচার করা যায়, পরবর্তীতে তৈরি হওয়া আইনে নয়। এই কারণে বামফ্রন্টের পক্ষে সূর্যকান্ত মিশ্র এবং প্রবোধচন্দ সিনহা দুটি বিকল্প অনুচ্ছেদ দিয়ে উপধারাটি সংশোধনীর প্রস্তাব দেন। এই সংশোধনী প্রস্তাবের মূল কথা হলো, পূর্বে ঘটা অপরাধের ক্ষেত্রে বর্তমান আইন অর্থাৎ ভারতীয় দন্ডবিধি ও ফৌজদারি দন্ডবিধি, সেবি অ্যাক্ট, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া অ্যাক্টের প্রয়োগ করা যাবে। অন্যদিকে কংগ্রেসের পক্ষ থেকে আনা প্রস্তাবে ২২নম্বর ধারার ২নম্বর উপধারাটি বাতিল করার সংশোধনীও দেওয়া হয়। 

কিন্তু এই প্রশ্নে সরকারপক্ষ অনড় থাকে। পরিষদীয় মন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জির বক্তব্য, এই ধারার মাধ্যমে আমরা সারদাসহ পুরনো ঘটনার সঙ্গে যাদের যোগাযোগ আছে তাদেরও টেনে আনতে পারবো। শেষপর্যন্ত ভোটাভুটির মাধ্যমে বামপন্থীদের আনা সংশোধনী খারিজ হয়ে যায়। 

২০০৯ সালের পাস হওয়া বিলে রাজ্য সরকার একটি কম্পিটেন্ট অথরিটি বা দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্তৃপক্ষ গঠনের কথা বলেছিলো যা আর্থিক সংস্থাগুলির ওপরে নজরদারি করবে। নতুন বিলেও সেই একই কথা বলা আছে। কিন্তু আগের বিলে জেলার কালেক্টরেটদের (জেলাশাসক, কলকাতায় পুলিস কমিশনার) শীর্ষে বসানোর কথা বলা হয়েছিলো, নতুন বিলে সরকার ঘোষণা ‘ডিরেকটর অব ইকোনমিক অফেন্সেস’ নামের বিশেষ অফিসার বসাবে বলেছে। এতে বিকেন্দ্রীভূত ব্যবস্থার বদলে কেন্দ্রীভূত অবস্থার সৃষ্টি হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে বিরোধীরা। সূর্যকান্ত মিশ্র বলেন, কম্পিটেন্ট অথরিটির ক্ষমতা নিয়ে কে চেয়ারে বসবে, কোন পদমর্যাদার অফিসার নিযুক্ত হবেন, সেসব কিছুই নতুন আইনে বলা নেই। সরকার ইচ্ছেমতো দায়িত্ব দেবে? এটা শক্তিশালী আইনের নমুনা?সি পি আই (এম) বিধায়ক আবদুর রেজ্জাক মোল্লা কম্পিটেন্ট অথরিটির পরিবর্তন করার জন্য একটি সংশোধনী দিয়েছিলেন, সেটিও ভোটাভুটিতে খারিজ হয়ে গেছে। 

এসত্ত্বেও অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র দাবি করেছেন, ‘নতুন বিলে আমরা ভয়ঙ্কর শক্তি রেখে দিয়েছি।’ কী সেই শক্তি? অর্থমন্ত্রী নাটকীয় গলা করে বলেন, ‘নতুন বিলে বেআইনী আর্থিক সংস্থার অফিসে কম্পিটেন্ট অথরিটিকে তল্লাশি চালানোর অধিকার দেওয়া হয়েছে। তল্লাশি পর্বে তারা সংস্থার খাতাপত্র এবং সম্পত্তি আটক করতে পারবে, আলমারি দরজার তালা ভেঙে তল্লাশি করতে পারবে। এটা কি কম কথা?’ 

সূর্যকান্ত মিশ্র বলেছেন, তল্লাশি চালানোর এই সব অধিকার দেওয়ার জন্য আইনে কিছু লেখার দরকার পড়ে না, ওগুলো রুলস বা বিধিতে উল্লেখ করে দিলেই চলে। তল্লাশির যে সব অধিকারের কথা এখানে বলা হচ্ছে তা ফৌজদারি আইনে বলাই আছে। মিশ্র সরকারকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, বিধিতে লেখার বিষয় আইনে লিখে রাখলে সমস্যা হতে পারে বাস্তব প্রয়োগের সময়। তখন কোনো ব্যতিক্রমী প্রয়োজন হলে বিধি পরিবর্তন করলেই মিটবে না, বিধানসভার অধিবেশন ডেকে আইনে সংশোধন করতে হবে। 

বামফ্রন্ট বিধায়কদের পক্ষে প্রবোধচন্দ্র সিনহা, সুভাষ নষ্কর এবং উদয়ন গুহও এদিন ভাষণ দেন। তাঁরাও সি বি আই তদন্তের দাবি করেছেন সারদাকান্ডের দোষীদের গ্রেপ্তারের জন্য। তৃণমূলের সঙ্গে সারদার যোগাযোগ সম্পর্কে তাঁরা বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত এজেন্ট ও আমানতকারীরা বিক্ষোভ দেখাতে সবার আগে তৃনমূলভবন এবং মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে হাজির হয়েছিলেন। এরপরেও সরকারের ভূমিকার কথা আড়াল থাকবে?